টপিকঃ পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

এই কাহিনিটি  মাহবুব ভাইয়ের পূর্ব রচিত  টপিক থেকে একটি মন্তব্যের ভিত্তিতে সম্পূর্ণরুপে উদ্ভটভাবে কল্পনা করা হইয়াছে, ক্যারেক্টারের নাম পুরোপুরি মিলে গেলেও কাহিনি কোন ভাবেই উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কিংবা সত্য নহে। কেহ মাইন্ড খাইলে তাহা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গন্য হইবেক।

মিঃ আহমেদ শুয়ে শুয়ে মোবাইল টিপছে আর মিটিমিটি হাসছে, মিসেস আহমেদ অনেক্ষন ধরে খেয়াল করছেন। বেশ কিছুদিন ধরে মিঃ আহমেদ সারাক্ষন পিসিতে পড়ে থাকেন, কোনমতে খাওয়াদাওয়া করে আবার পিসি, পিসি না হলে মোবাইল। মিসেস আহমেদ বেশ শঙ্কিত। কিছুদিন হলো উনি ফেসবুক সম্পর্কে জেনেছেন, ইয়াহু মেসেঞ্জার নামক চিটার চ্যাটারের কাহিনিও শুনেছেন। মিসেস আহমেদ কয়দিন উকিঝুকি দিয়ে আবিস্কার করেছেন উনার স্বামী মাঝে মাঝে নীল রংয়ের সাইট যেটার কোনায় লেখা "ফেসবুক" আর একটা মেসেঞ্জারে বসে থাকেন। মাঝে মাঝে আবার কার সাথে যেন কথা বলতে বলতে হাসিতে গড়াগড়ি।
মিসেস আহমেদ এতদিন কিছু বলেন নি, কিন্তু আজকাল বাড়াবাড়ি পর্যায়ে চলে যাচ্ছে। ভাবলেন কিছু বলবেন আজকে। ব্যাপারটা মীমাংসা করা দরকার। বুড়ো বয়সে ভীমড়তি ধরলে সেটাও টাইট দিতে হবে। হাতের কাজটা গুছিয়ে এনেছেন এমন সময় টের পেলেন মিঃ আহমেদ ফোন নিয়ে বারান্দায় গেলেন, মিসেস আহমেদের কাছে ক্যান যেন মনে হল আহমেদ একটু চুপিসারেই বের হলো যেন। নাহ, আর সয়ে নেয়া যায় না। এগিয়ে গেলেন মিসেস আহমেদ।

"হ্যালো স্বপ্ন (স্বপ্নীল), কি খবর কও তো ? তোমাদের মেয়ে দেখার অবস্থা দেখে তো দারুন মজা পাইতেছি"
"হে হে হে, ইলিয়াস ভাই, মেয়ে আমরা খুঁজে বের করবোই, নো টেনশন, যথাসময়ে কিন্তুক আপনারেও থাকতে হবে, রেডী থাইকেন"
"আরে সে আর বলতে, আমি তো এক পায়ে রাজী, তোমরা শুধু মেয়ে খুঁজে বের করো" (মিঃ আহমেদের উচ্চস্বরে হাসি শোনা গেল)
"বেশ বেশ, পরের পর্বের জন্য রেডী থাইকেন তাহলে"
"আর কত অপেক্ষা করবো ? আমার তো আর তর সইতেছে না, তাড়াতাড়ি করো না ভাই আমার"
"আরে, একটু সবুর করুন না, ভাল জিনিসের জন্য একটু অপেক্ষা তো করতেই হবে, নাকি?"
"তা তো বটেই, আচ্ছা, আজকে রাখি, তোমার ভাবী চলে আসবে এখনই"

কথোপকথনটি হয়েছে ফোনে, কাজেই মিসেস শুধুমাত্র সবুজ রংয়ের কথাগুলোই শুনতে পেলেন রুমের ভিতর থেকে।

মিঃ আহমেদ হাসি হাসি মুখেই ঘরে ঢুকলেন। ঢুকে দেখলেন রুমের ঠিক মাঝখানে মিসেস আহমেদ দাড়িয়ে আছেন, তার হাতে রুটি বেলার বেলন।
মিঃ আহমেদের ভ্রু কুঞ্চিত হয়ে গেল, একটু আগেই খাওয়া দাওয়া করে উঠেছেন, এখন রুটি বেলার কথা নয়, তবে হাতে বেলন ক্যানো !!!
.................................................................................
...........................................................................................
......................................................................................................

পরেরদিন সকালে ইলিয়াস আহমেদ কে দেখা গেল তার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে ব্যান্ডেজ মাথায় বসে ঝিমুচ্ছেন।

হঠাৎ ফোন এলো,
"হ্যালো ইলিয়াস ভাই, কেমুন আছেন, আমি স্বপ্নীল, কনফারেন্স করছি, সাথে মাহবুব আর সালেহ ভাইও আছে, আমাদের ফাইনাল পর্ব রেডি"
"রাখো মিয়া তুমার ফাইনাল ভার্সন, আমার অবস্থা তো পুরাই ফাইনাল হয়ে গেছে"
"ক্যান ক্যান ?"
"আর কইয়ো না, কালকো তোমাদের মেয়ে দেখার টপিক নিয়া কথা বললাম রাতে তোমার সাথে, তোমাদের ভাবী মনে করসে, আমি বিয়ে করার জন্য তোমাদের মেয়ে খুঁজতে বলেছি"
"হায় হায়, কি কন ? এখন কি অবস্থা ?"
"মাথায় ব্যান্ডেজ নিয়া দোকানে ঝিমাইতেছি, বাসায় যাইতে পারবো না মনে হয় আজকে আর"
"মাথায় ব্যান্ডেজ ????? খাইসে! কিন্তু ঝিমাইতেছেন ক্যান ?"
"মিয়া, সারারাইত বাইরে থাকা লাগসে, মশার কামড়ে দুই চোখের পাতা এক করবার পারি নাইক্কা। ঝিমামু না তো কিতা কইরবো ?
কি টপিক লিখলা রে ভাই! আমি আর তোমাগোর ধারে কাছে নাইক্কা! মাফ এন্ড ফ্রীতে দোয়াও চাই, এখন রাখি, বাই বাই"

ফোন কেটে গেল।

সালেহ ভাই, মাহবুব ভাই এবং স্বপ্নীল ভাই তিনজন ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে ফোনের দিকে খানিক্ষন তাকিয়ে রইলো কিছুক্ষন।

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

ঘটনা কোথায় হতে কোথায় যাচ্ছে বুঝতেছি না।  neutral তবে মেহেদী৮৩ ভাইয়ের লেখা পড়ে শুধু হাসছি আর হাসছি।

চমৎকার লেখা হয়েছে।  thumbs_up thumbs_up

সালেহ আহমদ'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

.................. এর আগের অংশটা অনেক ভাল লাগল thumbs_up কিন্তু পরের অংশটা যেন কেমুন cry

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

এমনিতেই টিভির খবরে ভার্সিটি শিক্ষিকার অবস্থা দেখে ফেসবুক কি, এটা দিয়ে কি হয়, এসব হাজারো প্রশ্নে উনার মনে জন্ম নিয়েছে। আর এহেন কর্মকান্ড দেখে বেলুনতো ভাল কথাই গরম খুন্তি নিয়ে যে আসে নাই সেটাই  আমার সৌভাগ্য  lol

সবাই যেভাবে হাসাচ্ছেন আশেপাশের লোকজন পাগল ভেবে হয়তো কোনদিন আমাকে হেমায়েপুরই ট্রান্সফার করে দিবে। বেশ মজা পেলাম, আপনার লেখায়।

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

হাহাহা..হাসতে হাসতে অবস্থা খারাপ  lol2 lol2

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

একটার উপর একটা বাড়া, সেরের উপর সোয়া সের...!  lol2

আল্লাহুম্মা ইন্নাকা য়াফু্‌ঊন - (হে আল্লাহ আপনি ক্ষমাশীল)
তুহীব্বুল য়াফওয়া - (আপনি মাফ করতে ভালবাসেন)
ফা' ফু আন্নী - (আমাকে মাফ করে দিন।)

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

সেই রকমের হয়েছে  big_smile

ইলিয়াস লিখেছেন:

এমনিতেই টিভির খবরে ভার্সিটি শিক্ষিকার অবস্থা দেখে ফেসবুক কি, এটা দিয়ে কি হয়, এসব হাজারো প্রশ্নে উনার মনে জন্ম নিয়েছে।

এই ঘটনার পরে আমার আম্মাও ফেসবুকে কি কি করা যায় তা ঘন্টা খানেক পর্যবেক্ষন করেছেন  isee

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

চমৎকার লেখা!  thumbs_up thumbs_up

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

অনেক ভাল লাগলো

You are the one who thinks that i didn't get the point, so do i think of you...what a coincidence!!

১০

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

"আর কইয়ো না, কালকো তোমাদের মেয়ে দেখার টপিক নিয়া কথা বললাম রাতে তোমার সাথে, তোমাদের ভাবী মনে করসে, আমি বিয়ে করার জন্য তোমাদের মেয়ে খুঁজতে বলেছি"

lol2 lol2 lol2 lol2  ......

শ্রাবন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

১১

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

lol2

১২

Re: পোস্ট-এফেক্ট (ঘটনা পরবর্তী দুর্ঘটনা)

হাহা চমৎকার  lol2

IMDb; Phone: Huawei Y9 (2018); PC: Windows 10 Pro 64-bit