টপিকঃ যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

দেশের দুই সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে পত্র-পত্রিকায় প্রতিনিয়ত নানা রকম খবর বেরচ্ছে। সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া সম্পর্কে বলা হচ্ছে তিনি চাপের মুখে সপরিবারে বিদেশ চলে যাচ্ছেন। বিশেষ করে গত গতকাল মঙ্গলবারের দৈনিকগুলোর লীড নিউজ ছিলো খালেদা জিয়া দেশ ত্যাগে রাজি হয়েছেন। খবরে বলা হয়েছে, ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোকে সে জন্য আটকের ২৪ ঘণ্টা পর বাড়িতে ফেরত দিয়ে গেছে যৌথবাহিনী। পত্রিকাগুলো লিখেছে দেশ ত্যাগে অনমনীয় খালেদা জিয়া অবশেষে তার মনোভাব পরিবর্তন করেছেন। পত্রিকাগুলো এটাও উল্লেখ করেছে যে, সরকার খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠাতে নানা চাপ সৃষ্টি করে চলেছে।
অপরদিকে আরেক সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার দেশে ফেরা নিয়েও একই ধরনের খবর আসছে পত্রিকাগুলোতে। বলা হচ্ছে, সরকার তাকে দেশে আসতে নিরুৎসাহিত করছে। যদিও গত মঙ্গলবারের পত্রিকায় খবর বেরিয়েছে যে, শেখ হাসিনা ২৩ এপ্রিল দেশে ফিরে আসবেন।
এদিকে সরকারের পক্ষ থেকে কয়েকবার বলা হয়েছে, খালেদা জিয়া কিংবা শেখ হাসিনার দেশত্যাগ বা দেশে ফেরার ব্যাপারে সরকারের কোনো বিধিনিষেধ নেই। এমনকি গত ১৬ এপ্রিল উপদেষ্টা পরিষদের বৈঠক শেষে প্রধান উপদেষ্টার প্রেস সচিব সাংবাদিকদের বলেছেন সাবেক দুই প্রধানমন্ত্রীর ওপর সরকারি কোনো বিধিনিষেধ আরোপের কথা তার জানা নেই। এর আগে উপদেষ্টা পরিষদের এক সদস্যও বলেছিলেন দুই নেত্রীর ওপর কোনো ধরনের বিধিনিষেধ সরকার আরোপ করেনি। এ থেকে এটা বোঝা যাচ্ছে যে, বেগম খালেদা জিয়ার দেশ ত্যাগের যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে তা প্রায় সবই অনুমাননির্ভর। যেখানে সরকারের পক্ষ থেকে দায়িত্বশীল ব্যক্তিগণ বিষয়টি সম্পর্কে অবগত নন বলে জানিয়েছেন এবং এ ধরনের কোনো চাপের কথাও তারা স্বীকার করছেন না, তারপরও পত্র-পত্রিকায় এ সম্পর্কে নানাবিধ সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার ফলে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে।
এর সঙ্গে বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তির বিষয়টি জড়িত বলে সচেতন মহল মনে করেন। একটি সরকার তার গৃহীত কার্যক্রম বাস্তবায়নে নানা রকম পদক্ষেপ নেবে এটা স্বাভাবিক। বর্তমান সরকার দুর্নীতি দমন, নির্বাচনী আইন ও বিধি সংস্কার এবং রাজনীতিকে কলুষ মুক্ত করার যে উদ্যোগ নিয়েছে তা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ব্যাপক কার্যক্রম চলছে। তবে এ সংস্কার কাজের জন্য দুই প্রধান দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে দেশ থেকে সরিয়ে দেয়ার যে কল্পিত খবর কতিপয় পত্রিকা লাগাতারভাবে প্রকাশ করে চলেছে তাতে সরকারের ভাবমূর্তি বিনষ্ট হতে পারে। এ থেকে এটা মনে হওয়া স্বাভাবিক যে, বর্তমান সরকার জোর করে দুই নেত্রীকে দেশ থেকে বের করে দিচ্ছে। অথচ সরকারের পক্ষ থেকে বার বার তা অস্বীকার করা হয়েছে। তারপরও পত্রিকাগুলোর এ ধরনের অনুমাননির্ভর খবর ছাপাটা কতোটা নৈতিকতাপূর্ণ কাজ তা নিয়ে অবশ্যই প্রশ্ন তোলা যায়।
এ ব্যাপারে সরকারের তরফ থেকে একটি সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা আসা প্রয়োজন। কেননা, এটি একটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিষয়। দেশের দুটি বৃহৎ রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতৃত্ব সম্পর্কে কল্পিত খবর এভাবে প্রচারিত হলে জনমনে ব্যাপক বিভ্রান্তি সৃষ্টির আশংকা রয়েছে। যা দেশ ও জাতির জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে উঠতে পারে। সে সঙ্গে সরকারের ভূমিকাকেও করতে পারে প্রশ্নবিদ্ধ।

"We want Justice for Adnan Tasin"

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

সরকার কি ব্যাখ্যা দিবেন?

তথ্যপ্রযুক্তির সবকিছু চাই বাংলায়
খেরোখাতায় লিখি মনের কথা।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আউল (১৮-০৪-২০০৭ ১৫:২৩)

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

সরকার প্রেস নোট দিয়েছে এখন যদি কেহ না মানে - কি করার থাকবে। সরকার যদি প্রেস মিডিয়াকে কিছু বলে - তখন সবাই বলবে- আমাদের কন্ঠরোধ করা হচ্ছে। স্বাধীনতা দিলেও সমস্যা- আবার না দিলেও সমস্যা

ইদানিং কিছু পত্রিকা উলট পালট কিছু নিউজ কে হেডলাইন করে - ব্যাবসা জমজমাট করতে সর্বদাই সচেষ্ট।
এক পত্রিকার নিউজের সঙ্গে অন্য পত্রিকার নিউজের কোন ভারসাম্য থাকছেনা।
যে যায় অবস্থান ঠিক রেখে খবরগুলো লিখছে- সে জন্য কিছু খবর হয়ে যায় অন্যরকম।

"We want Justice for Adnan Tasin"

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

আউল লিখেছেন:

সরকার প্রেস নোট দিয়েছে এখন যদি কেহ না মানে - কি করার থাকবে। সরকার যদি প্রেস মিডিয়াকে কিছু বলে - তখন সবাই বলবে- আমাদের কন্ঠরোধ করা হচ্ছে। স্বাধীনতা দিলেও সমস্যা- আবার না দিলেও সমস্যা।

একমত!(y)

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

সেজন্য সাংবাদিকদের হতে হবে- সৎ এবং দলীয় রাজনীতি মুক্ত স্বাধীন।
সাংবাদিকরাই আমাদের সমাজের হার্ড তাদের কাছে জাতি অনেক কিছু প্রত্যাশা করে।

"We want Justice for Adnan Tasin"

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

শুভ্র লিখেছেন:

সরকার কি ব্যাখ্যা দিবেন?

এখন জরুরী অবস্থা। সম্ভবত এ অবস্থায় ব্যাখা দিতে সরকার বাধ্য নয়।

[img]http://twitstamp.com/thehungrycoder/standard.png[/img]
what to do?

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

জরুরি অবস্থার মধ্যইতো এই ব্যাপারে প্রেসনোট প্রদান করা হয়েছে।

"We want Justice for Adnan Tasin"

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন বাবু (১৮-০৪-২০০৭ ১৮:৫৫)

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

আউল লিখেছেন:

অপরদিকে আরেক সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার দেশে ফেরা নিয়েও একই ধরনের খবর আসছে পত্রিকাগুলোতে। বলা হচ্ছে, সরকার তাকে দেশে আসতে নিরুৎসাহিত করছে।
তবে এ সংস্কার কাজের জন্য দুই প্রধান দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে দেশ থেকে সরিয়ে দেয়ার যে কল্পিত খবর কতিপয় পত্রিকা লাগাতারভাবে প্রকাশ করে চলেছে তাতে সরকারের ভাবমূর্তি বিনষ্ট হতে পারে। এ থেকে এটা মনে হওয়া স্বাভাবিক যে, বর্তমান সরকার জোর করে দুই নেত্রীকে দেশ থেকে বের করে দিচ্ছে। অথচ সরকারের পক্ষ থেকে বার বার তা অস্বীকার করা হয়েছে। তারপরও পত্রিকাগুলোর এ ধরনের অনুমাননির্ভর খবর ছাপাটা কতোটা নৈতিকতাপূর্ণ কাজ তা নিয়ে অবশ্যই প্রশ্ন তোলা যায়।
এ ব্যাপারে সরকারের তরফ থেকে একটি সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা আসা প্রয়োজন। কেননা, এটি একটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিষয়। দেশের দুটি বৃহৎ রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতৃত্ব সম্পর্কে কল্পিত খবর এভাবে প্রচারিত হলে জনমনে ব্যাপক বিভ্রান্তি সৃষ্টির আশংকা রয়েছে। যা দেশ ও জাতির জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে উঠতে পারে। সে সঙ্গে সরকারের ভূমিকাকেও করতে পারে প্রশ্নবিদ্ধ।

আউল ভাই, আজকের প্রেস নোট খানা পড়ছেন? http://www.bdnews24.com/upfile/pressnote.jpg
পড়ার পড়ে এই পোষ্টখানা মুইছা ফালাইয়েন।
আর একটা অনুরোধ করি এইভাবে সব সাংবাদিক রে  নীতিহীন কইয়েন না। সবাই তো আর দিনকাল, জনকন্ঠের সাংবাদিক না।
আর দিনকাল জনকন্ঠ এই গুলোর লেখার উপরে ভিত্তি করে কোনকিছু ভাবা ঠিক না ।

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

আমি কেহ কে নীতি হীন বলি নাই আমি শুধু "যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে" নামে আজকের পত্রিকার কিছু অংশ কোট করে লিখেছি- যা আমার কথা নয়, বিভিন্ন পত্র পত্রিকার কথা।

"We want Justice for Adnan Tasin"

১০

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

আউল ভাই, অনুগ্রহ করে পত্রিকার খবরাখবর সংবাদ বিশ্লেষণ বিভাগে পোস্ট করবেন।

ধন্যবাদ।

[img]http://twitstamp.com/thehungrycoder/standard.png[/img]
what to do?

১১ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন শামীম (১৯-০৪-২০০৭ ০৮:০২)

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

হাঙ্গরিকোডার লিখেছেন:

আউল ভাই, অনুগ্রহ করে পত্রিকার খবরাখবর সংবাদ বিশ্লেষণ বিভাগে পোস্ট করবেন।

ধন্যবাদ।

এবং পত্রিকার নাম এবং সম্ভব হলে লিংক দিবেন....( "কিছু দৈনিক পত্রিকায়" --- এই ধরনের উক্তি বিভ্রান্তিকর)

সকল পোস্টকারীরই এরকম করে খবরের সঠিক উৎস দেয়ার চর্চা করা উচিৎ ।

শুধু তাই নয়, পোস্টকৃত অংশের মধ্যে কতটুকু পত্রিকা থেকে হুবহু তুলে দেয়া হয়েছে, আর কতটুকু আপনার বিশ্লেষন, সেটাও স্পষ্টভাবে বলে দেয়াটা জরুরী।

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১২

Re: যেসব খবরা-খবর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে

আপনার পরামর্শ পালনে যথাযথ সচেষ্ট থাকিব।

"We want Justice for Adnan Tasin"