সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আউল (২৪-০৬-২০২০ ১৯:৫৪)

টপিকঃ মেধাবী শিক্ষার্থী আদনান তাসিন হত্যাকাণ্ডের ৫০০তম দিবস

২৫শে জুন ২০২০, আমার প্রান প্রিয় সন্তান সেন্টজোসেফ ইংলিশ ভার্সন সায়েন্স এর একাদশ শ্রেণীর মেধাবী শিক্ষার্থী আদনান তাসিন হত্যাকাণ্ডের ৫০০তম দিবস, এই ৫০০দিনেও ঘাতকদের ধরা হলনা, বিচার হলনা! ভাইরাল না হওয়ায় আন্দোলন না হওয়ায় আজো জাস্টিজ পেলাম না, আর পাবো বলে মনে হয় না! আদনান তাসিন বিচারহীনতার প্রতিক
https://www.sahas24.com/wp-content/uploads/2020/03/Gettiing-Trophy-600x337.jpg


সড়কে হত্যা এখন বাংলাদেশের প্রধানা সমস্যা বাংলাদেশ হেলথ ইনজুরি সার্ভে (বিএইচআইএস) শিরোনামে এই জরিপ পরিচালনা করা হয়,তাতে দেখা যায়, প্রতি বছর বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ২৩ হাজার ১৬৬ জন নিহত হন৷ আর তাতে প্রতিদিন গড়ে নিহতের সংখ্যা ৬৪ জন৷ কিন্তু প্রসাসনের কর্তা ব্যক্তি ও নীতিনির্ধারকদের এই বিষয়ে কোনো মাথা ব্যাথা নাই।সড়ক দুর্ঘটনা এড়াতে একটি স্লোগান আমাদের নিকট খুবই পরিচিত, তা হচ্ছে-“নিরাপদ সড়ক চাই”। কিন্তু নিরাপদ সড়ক তথা সড়কের নিরাপত্তা দিয়ে আমাদের কি লাভ? সড়কের নিরাপত্তা নয়, আমরা নিজেদের নিরাপত্তা চাই। দুর্ঘটনা থেকে মুক্তিসহ রাস্তা চলাচলের পূর্ণ নিরাপত্তা চাই।

রাজধানীর জোয়ার সাহার এলাকায় প্রায় ১৭ বছর ধরে বসবাস করছি আমি, আমার গর্ভের হীরের টুকরো দুই সন্তান নিয়ে আমার সুখের সংসার, ঐশ্বর্য নেই, অঢেল ধন সম্পদ নেই, বড় বড় অট্টালিকা নেই, কিন্তু আমার সংসারে ছিল, শান্তির বেহেশত, সুখ আর শান্তিতে ভরা, আমার পরিবার, প্রতিরাতেই আমার দুই সন্তানের সাথে ডাইনিং টেবিলে বসে অনেক আলাপই হত, দুই সন্তানই আমার কাছে বন্ধুর মত, সর্বশেষ ১০ই ফেব্রুয়ারী তে রাতে ডাইনিং টেবিলে বসে আদরের ছোট্ট সন্তান আদনান তাসিনের সাথে শেষ কথা, বিশেষত: উত্তরায় শিশু শিক্ষার্থী ফাইযার হত্যাকাণ্ড তাকে নাড়া দেয় এবং সাম্প্রতিক সড়কে খুন হত্যা তাকে বিশেষ ভাবে নাড়া দেয়, সে আমাকে বলে আব্বু, সড়কের নৈরাজ্য, হত্যা খুন এইসব নিয়ে ফেইসবুকে লেখতে পারনা, তার স্বপ্নে চিন্তায় চেতনায় নিরাপদ সড়ক, আমি সেইদিনই তার কথায় ফেইসবুকে “সড়কে হত্যা থামাও” পেইজ বানিয়ে, সড়কে হত্যার মিছিল ঠেকাতে গণজাগরণ সৃষ্টির লক্ষে কাজ সুরু করি।

অন্যান্য দিনের মতো ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ সকালে ফজরের নামাজের আযানের সাথে সাথে ঘুম থেকে উঠে ফযরের নামাজ পড়ে, কোরআন তেলওয়াত করে কলেজের উদ্দেশে যাত্রা করে। কিভাবে সেই অবুঝ শিশু বুঝবে এই যাওয়া শেষ যাওয়া, আদনান তাসিন সেন্ট জোসেফ থেকে ফেরার পথে দ্রুতগামি ব্রাম্মণবাড়িয়ার “উত্তরা পরিবহন” নামের ঘাতক বাস তাকে জেব্রা ক্রসিংয়ের উপর ঢাকা বিমান বন্দর সড়ক শেওড়া বাস স্ট্যান্ড (বর্তমান প্রস্তাবিত আদনান চত্বর) শিক্ষার্থীর পোশাকে দেখে ২৯শে জুলাইয়ের রমিজুদ্দিনের দিয়া-করিম আন্দোলনের কারণে ক্রোধে আক্রোশে ঘাতক তাকে ঠাণ্ডা মাথায় চাকায় পিষ্ট করে নৃশংস ভাবে হত্যা করে।

বিভিন্ন প্রচার মাধ্যম প্রচার করে, রাস্তা পারা পারে জেব্রা ক্রসিং দিয়ে পার হন, আদনান তাসিন ত জেব্রা ক্রসিং দিয়ে পার পার হচ্ছিল , তবে কেন তাকে হত্যা করা হল? জেব্রা ক্রসিং আছে কিন্তু সামনে পিছে স্পীড ব্রেকার নাই, কোন ত্রাফিক পুলিশ নাই, কোন সিগন্যাল নাই, আর কোন বিকল্প না রেখে এত ব্যস্ত রাস্তায় ফুটওভার ব্রিজটি সরিয়ে নিল – কেউ প্রতিবাদ করলনা, এলাকায় এত মানুষ , স্কুল কলেজ – ডি ও এইচ এস বারিধারায় হাজার হাজার কর্পোরেট অফিস তাতে ছাত্র-ছাত্রীসহ হাজার হাজার মানুষের যাতায়াত। কেউ প্রতিবাদ করলনা- কেন ফুটওভার ব্রিজটি সরিয়ে নিল?

ঘাতকরা আমার নিস্পাপ আদরের সন্তান #আদনান_তাসিন কে হত্যা করে, ঘাতক চাকায় দিয়ে তাকে পিষ্ট করছে, আমি আমার সন্তানের চিৎকার শুনতে পাই, খুবই কষ্ট হচ্ছে আব্বু! আমায় বাঁচাও!! আমায় বাঁচাও!!! আব্বু, বুকটা ফেটে যাচ্ছে, একটু পানি! পানি!! পানি দাও!!! আব্বু আম্মু তোমরা কোথায়? আমি যে মরে যাচ্ছি, ,হায়না ঘাতক আমাকে ছিন্নভিন্ন করে ফেলেছে!! আব্বু আম্মু তোমরা এসে একটু জড়িয়ে ধরো, আমি তোমাদের বুকে ঘুমতে চাই………… বাতাসে মিলিয়ে যাচ্ছে তার আর্তচিৎকার, পাশ দিয়ে হেটে যাওয়া মানুষ গুলো তার দিকে তাকাবার সময় কৈ? তার আর্তনাদ শোনার সময় কৈ?? আমার সন্তান তো কারো কিছু হয়না, তাদের সন্তানের তো কিছু হয়নি, তাদের দাঁড়াবার বা তাকাবার সময় কৈ? সড়কে পড়ে থাকে লাশ – আর ঘাতক চলে যায় করতে করতে উল্লাস !

ঐদিকে মা তার জন্য ভাত প্লেটে দিয়ে অপেক্ষা করছে আদরের সন্তান এসে ভাত খাবে, মা কিভাবে জানে তার সন্তান বেওয়ারিশ হয়ে রাস্তায় মুখ থুবড়ে পড়ে আছে! আর বাঁচতে চাই, বাঁচতে চাই বলে চিৎকার করছে,পানি পানি বলে চিৎকার করছে!পানি পানি বলে চিৎকার করছে !!

কোনো মিডিয়া তার মৃত্যুর খবর প্রচার হয়নি , কারণ, তাদের কলেজ বা সেই কলেজের শিক্ষার্থীরা স্বার্থের আফিম খেয়ে সবাই চুপ- যেন কোথাও কিছু হয়নি, তার মর্মান্তিক মৃত্যু তাদের মনে সামান্নতম দাগও কাটেনি। তাঁরা কোনো সহানুভুতি দেখাইনি, কোন শিক্ষার্থী ফোনও করেনি, কোন অভিভাবক কোনো সহানুভুতি দেখাইনি, কোন ফোনও করেনি, তারা কেউ প্রতিবাদ করেনি – বরং পর দিন কলেজ বন্ধ রাখে যাতে বিষয়টি নিয়ে বেশি জানা জানি না হয় এবং পরদিন কলেজ কর্তৃপক্ষ বা শিক্ষার্থীরা গুজব ছড়িয়ে দেয় – ঘাতক ড্রাইভার হেলপার ধরা পড়েছে – যাতে করে বাহিরের কোনো কলেজের শিক্ষার্থী আমার সন্তানের মর্মান্তিক হত্যার বিচারে রাস্তায় না নামে , হয়তো কলেজ চেয়েছিল , নিজেরা প্রতিবাদ করবে না অন্যরা যেন না করে।
আমি অসুস্থ শরীর নিয়ে সেন্ট জোসেফ কলেজে যাই প্রিন্সিপ্যালের সাথে কথা বলতে, কিন্তু দেখা পেলাম না, পরে টেলিফোন তাকে সবিনয়ে অনুরোধ করি, থানায় একটু ফোন করে আসামিকে ধরার জন্য বলতে , তিনি সরাসরি আমার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেন, অথচ আমার সন্তান যখন খুন হয় তখনো সে বুকে ঝুলিয়ে রেখেছিল সেই কলেজের আইডিকার্ড, শরীরে জড়িয়ে ছিল কলেজ ইউনিফরম, আর সে বারিধারা স্কলারস এ তার ১৭ বছর জীবনের ১৩ বছর অধ্যায়ন করেছে তার প্রিন্সিপ্যাল এর সাথে দেখা করে তাকে অনুরোধ করি, থানায় একটু ফোন করে আসামিকে ধরার জন্য বলতে , তিনি সরাসরি আমার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেন, অথচ এই ১৩ বছরে এই প্রতিষ্ঠানে তার অনেক অর্জন সাফল্য , মেডেল , ট্রফি , সার্টিফিকেট।

আমার দোয়া আশা আমার অভাগা নিষ্পাপ সন্তান ভালো আছে নিশ্চয় ওপারে- সে ভারি মিষ্টি অনেক আদরের, নিষ্পাপ, পবিত্র ! তাকে নিয়ে এভাবে লিখব, বা তাকে এইভাবে হারাতে হবে ভাবিনি। জারজ-শূকর – হায়না ঘাতকেরা এইভাবে নিষ্পাপ শিশুকে তাদের চাকায় পীচের রাস্তায় পিষে নির্মম ভাবে হত্যা করবে তা আমি কখনো ভাবিনি , সবই যেন স্বপ্ন, হয়ত আমার স্বপ্ন ভেঙ্গে গেলে আমি আবার আমার নিষ্পাপ সেই পবিত্র মিষ্টি মুখটি দেখব। কেন জানি প্রতিক্ষণ প্রতি মুহূর্তে মনে হয়, ইস! সে যদি আমার সামনে এসে আমাকে আব্বু বলে বুকে জড়িয়ে ধরে, বুকের ভিতরের তীব্র যন্ত্রণার ঢেউ হয়ত একটু শান্ত হত, সড়কে ঘাতকের হাতে প্রান হারিয়ে আমার মত কত মা-বাবা আদরের সন্তান হারিয়ে চোখে মুখে কান্নার রোল, আমার কান্নায় যেন শরীরের সকল রক্ত অশ্রু হয়ে বের হয়ে আসতে চায়, কারন কষ্টে চোখের সকল জল আগেই শুকিয়ে গেছে । তবুও স্বান্তনার জন্যই বেদনা ভুলে থাকার জন্য, কষ্টগুলোকে চেপে রেখে বিভিন্ন জায়গায় লিখি, কেউ আমার ফরিয়াদ শুনে না, মানুষের এত্ত সময় কৈ এইসব লেখা পড়ার , মানুষের এত্ত সময় কথায় অন্যের কষ্টে সমব্যথী হবার

কি অপরাধ করেছিল আমার নিষ্পাপ সন্তান? যার মিষ্টি পবিত্র আদরের মুখ দেখলে মিষ্টি হাসিতে মনের সকল কষ্ট বিলিন হয়ে যায়, আমি আমার হীরের টুকরো দুই সন্তান নিয়ে সুখেই ছিলাম, প্রতি রাতে শুতে গিয়ে আমি শোকর-আলহামদিলিল্লাহ বলে শুতে যেতাম, আমার স্ত্রী, আমার দুই সন্তান আমার গর্ব , শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গর্ব , এলাকার গর্ব, দেশের গর্ব, আমার দুই সন্তান আমার ভালোবাসা , আমার কাছে আল্লাহর রহমত, আল্লাহার অশেষ মেহেরবানীতে আমার দুই সন্তান মেধাবী ও ইনডোর আউটডোর খেলাধুলা, কালচারাল প্রোগ্রাম, সায়েন্স ফেয়ার সব দিক থেকে সম ভাবে পারদর্শী, আমার সন্তান শুধু আমার নয় দেশেরও গরব, আমার জ্যেষ্ঠ ছেলে আদনান সামিন বারিধারা স্কলার্স থেকে পিএসসি ও জেএসসি তে জিপিএ-৫ পায়, ২০১৭ সালে ইংলিশ ভার্সন সায়েন্স থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে এসএসসি পাশ করে, নটারডেম কলেজে ইংলিশ ভার্সন সায়েন্স ২য় বর্ষের ছাত্র এবং কনিষ্ঠ ছেলে আদনান তাসিন,বারিধারা স্কলার্স থেকে পিএসসি ও জেএসসি তে জিপিএ-৫ পায়, ২০১৮ সালে ইংলিশ ভার্সন সায়েন্স থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে এসএসসি পাশ করে, সেন্ট যোসেফ এ একদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়। তার মা’ই ছিল তাদের আদর্শ, তাদের টিচার, তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনেকেই বলতো একই দুই ভাই মেধাবী, তারা নিয়ম মাফিক লেখাপড়া। কোরআন তেলওয়াত, নামাজ পড়তো, তাদের দুই ভাই ছিল পরম বন্ধুর মত, তারা সব বিষয়ে আমাদের সাথে শেয়ার করতো, সদা উৎফুল্ল – হাসি খুশি থাকতো দুই ভাই, কোন বিষয়ে তাদের কোনদিন কোন আবদার অভিযোগ ছিলনা, সবটাতে সন্তোষ থাকতো দুই ভাই।

২০১৭ সালে হটাত করে আমি জিবিএস ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সম্পুরন শরীর পারালাসেস হয়ে যায়। আমি শয্যাশায়ী, ডাক্তার , ঔষধ , ফিজিও, তার পরও মনোবল ভাঙ্গেনি, দুই সন্তানের কাঁধে ভর দিয়ে দাড়াঁতে শিখেছি, দুই সন্তানের উপর ভর করে হাটঁতে শিখছি, দুই সন্তানের উপর ভর দিয়ে নতুন করে বাঁচতে শিখছিলাম, বাবার হাত ধরে দাঁড়ানোর সৌভাগ্য অনেক সন্তানের হয় – কিন্তু সন্তানের হাত ধরে দাঁড়ানোর সৌভাগ্য আমার হয়েছে, কিন্তু হায়না শকুন ঘাতক আমার আদরের নিস্পাপ ছোট্টো সন্তানকে নির্মম ভাবে খুন করে, যে সন্তান মানুষকে বাঁচতে শেখায়- সে নিজেই পৃথিবীতে থাকতে পারলো না।

আমি চিৎকার করে কাঁদিতে চাহিয়া
করিতে পারিনি চিৎকার,
আমি চিৎকার করে কাঁদিতে চাহিয়া
করিতে পারিনি চিৎকার
বুকের ব্যথা বুকে চাপায়ে নিজেকে দিয়েছি ধিক্কার।।

আমার কলিজার টুকরো নির্মম ভাবে হত্যা হবার পর এখনো পর্যন্ত নিত্যরাতে তার নিষ্পাপ আদুরী মধুমাখা বার বার চোখে ভেসে উঠে, ইছা হয় এখনি তাকে বুকে নিয়ে ঘুমাই। আর তার গর্ভধারিণী মা বার বার আঁচল দিয়ে চোখ মুছে- কোরআন তেলওয়াত নামাজ পড়ে নিষ্পাপ সন্তানের জন্য প্রাথনা করে – নিজেকে নিজে সান্তনা দিতে চেষ্টা করে, বড় ছেলেকে সান্তনা দিতে চেষ্টা করে, কিন্তু কষ্টের কান্না কিছুতেই থামানো যায়না। পরিশেষে আদরের নিষ্পাপ সন্তানের জন্য সকলের কাছ থেকে দোয়া কামনা করছি।

আপনাদের প্রতি আকুল আবেদন আমার সন্তানকে ঘাতক জারজ হায়নার দল হত্যা করেছে, আপনারা আপনাদের নিজেদের বাঁচান – নিজেদের স্বজন- সন্তানদের বাঁচান- ঘাতকদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন – সড়কের হত্যার উৎসব – হত্যার মহামারী থামান

যদি তুমি ভয় পাও তবে তুমি শেষ রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশ

আহসান উল্লাহ টুটুল-আহবায়ক
সড়কে স্বজনহারা অভিভাবক ফোরাম
https://www.sahas24.com/?p=2366

"We want Justice for Adnan Tasin"