টপিকঃ ইদ_নিয়ে????#কৌতুক

#ইদ_নিয়ে????#কৌতুক

১ম বন্ধু :আহারে দোস্ত, তোর বউটাকে দেখে খুব কষ্ট হচ্ছিল রে। এমনভাবে কাশছিল যে রাস্তার সব লোক ঘুরে ঘুরে তাকাচ্ছিল।

২য় বন্ধু :আরে গাধা, এবারের ঈদের শাড়িটা সবাইকে দেখাতে হবে না?

(২)

l স্বামী :বেতন-বোনাস পুরোটাই তো তোমার হাতে তুলে দিলাম। এবার আমাকে কী সারপ্রাইজ দেবে গো?

স্ত্রী :এবার সবার আগে তোমার ঈদের ড্রেস রেডি। গতবার ঈদে যে পাঞ্জাবিটা কিনে দিয়েছিলাম, ওটা লন্ড্রি থেকে ধুয়ে ইস্ত্রি করে তুলে রেখেছি তো।

(৩)

প্রথম ব্যক্তি : ভাই,আপনি তো কোটিপতি। তারপরও এই ঈদে ব্যাংকে লোন নিতে আইছেন কেন?

দ্বিতীয় ব্যক্তি :আসলে আমার স্ত্রীর শাড়ি আর তার সাথে ম্যাচিং করে গয়না কিনতে যেয়ে ফকির হওয়ার অবস্থা। এখনো মেয়ের কিরণমালা ড্রেস কেনা বাকি। ফকির না হয়ে উপায় আছে?

(৪)

রহিম :করিম ভাই,আপনি হঠাত্ করে হাসপাতালে ভর্তি হলেন কেন?

করিম :আর কইয়েন না ভাই, আপনার ভাবির সাথে শপিংয়ে বের হয়ে সাতদিন ধরে সারা মার্কেট হেঁটেছি। পা-টা একদম শেষ। তাই বিশ্রাম নেওয়ার জন্য সরাসরি মেডিকেলে ভর্তি হইছি।

(৫)

আবুল :ভাই, আমি তো আপনার থেকে বয়সে ছোট। তারপরও আমারে সালাম করলেন কেন?

মকবুল :বড়-ছোট ওইসব কিছু বুঝি না, আগে ঈদের সালামির জন্য ৫০০ টাকা বের করেন।

(৬)

প্রথম ব্যক্তি :ভাই, আজকে ঈদের দিনেও আপনার মন খারাপ কেন?

দ্বিতীয় ব্যক্তি :কী করব কন! টিভিতে ঈদ স্পেশাল একটা নাটক দেখতেছিলাম, কিন্তু নাটক শুরু হওয়ার ২০ মিনিট পরেই বিজ্ঞাপন শুরু হইছিল কিন্তু বিজ্ঞাপন আর শেষ হইতেই বিদ্যুৎ চলে গেছে

(৭)

পল্টু : কিরে বিল্টু আজ ঈদের দিনে চুপচাপ?

বিল্টু : সেই দুপুর থেকে মাথাটা ধইরা রইছে।

পল্টু : বাম লাগিয়েছিস?

বিল্টু : হ, বাম লাগাইছি, ওষুধও খাইছি, মাথা ধুইয়া দেখছি, নাকে পানি টাইনা দেখছি। কিছুতেই কিছু হইতাছে না।

পল্টু : আমারও একবার এই রকম মাথা যন্ত্রণা হচ্ছিল। কিছুতেই কমে না। শেষে বউয়ের কোলে মাথা রেখে শুইলাম। সব যন্ত্রণা ভোঁ ভোঁ উড়ে গেলো।

বিল্টু : কস কি? হাছা নাকি?

পল্টু : তবে আর বলি কিরে। একেবারে ম্যাজিক। 

বিল্টু : বাহ! তা কখন গেলে তোর বউরে বাড়িতে পাওয়া যাইব?

(৮)

 ঈদের দিন একেবারে ভোরবেলা শপিং কমপ্লেক্সের দারোয়ানের কাছে ফোন এল—
‘ভাই, আপনাদের শপিং কমপ্লেক্স কখন খুলবেন?’
দারোয়ান বলে, ‘স্যার, আজ তো ঈদের দিন। আজ আর খোলা হবে না। একেবারে ঈদের তিন দিন পর খুলব।’

‘প্লিজ, ভাই আজকে কি একটু খোলা যায় না, মাত্র পাঁচ মিনিটের জন্য?’ ফোনের ওপাশ থেকে করুণ মিনতি ভেসে আসে।

দারোয়ান বলে, ‘কেন ভাই, আপনার কী এমন জরুরি দরকার? এই ঈদের দিনে আবার কী কিনবেন?’ ফোনের ওপাশ থেকে উত্তর আসে, ‘না ভাই, কিছু কিনব না। শপিং কমপ্লেক্স থেকে বের হব। কাল রাতে বউ-বাচ্চা নিয়ে শপিং করতে এসে ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম।

(৯)

কাল ইদ তাই আজ ই চুলকাটার সিদ্ধান্ত,

বস : কি ব্যাপার! আপনি এতক্ষণ কোথায় ছিলেন ?

স্টাফ : : চুল কাটাতে গিয়েছিলাম

বস : ( একটু রেগে ) কি! আপনি অফিস টাইমএ চুল কাটাতে গিয়েছিলেন?

স্টাফ : তাতে কি হয়েছে ... চুলটাও তো অফিস টাইমএ বড়ো হয়েছিলো

বস : সেটা তো বাড়ি থাকা কালীনও বড়ো হয়েছে

স্টাফ : তাই বলেই তো একেবারেই টাকলু হয়ে যাইনি .. যতোটুকু অফিসে বড়ো হয়েছিলো ততোটুকু কেটেছি!

"We want Justice for Adnan Tasin"