টপিকঃ গ্রেড পদ্ধতি

"বাংলাদেশ প্রতিদিন " পত্রিকায় স্যার জাফর ইকবালের একটা লেখা ছিল। তো সেখানে তিনি লিখেছেন, " গ্রেড পদ্ধতিটি শুরু হয়েছিল কারণ পরীক্ষায় পাওয়া নম্বরটি কখনো সঠিক পরিমাপ নয়, কাছাকাছি নম্বর। এটি কারো জানার কথা নয়, শুধু গ্রেডটি জানার কথ্। কিন্তু আমি একসময় জানতে পারলাম ছাত্রছাত্রীদের মূল্যয়ন করার জন্য মূল নম্বরটি ব্যাবহার করা হচ্ছে। একই গ্রেড পাওয়া একজন বৃত্তি পাচ্ছে, আরেকজন পাচ্ছে না। কারণ একজনের নম্বর বেশি আরেকজনের কম। যেহেতু এর মাঝে স্বচ্ছতা নেই তাই সবাইকে তার নম্বর জানার অধিকার দিয়ে দিয়েছে। অর্থাৎ এখন এই দেশে গ্রেড পদ্ধতি একটা রসিকতা ছাড়া আর কিছু নয়। মজার কথা হলো- এই রসিকতাটুকু এখনো কেউ ধরতে পারছেন বলে মনে হয় না!"

তো যাই হোক, আপনার রসিকতা বোঝার বোধ নিয়ে আমিও একটু রসিকতা করি!! এই রসিকতার শুরুটা হয়েছিল আপনাদেরই আন্দোলনেই, আপনাদের সিদ্ধান্তেই। আপনারা দেশের মানুষের অস্থিমজ্জায় গেথে দিতে সক্ষম হয়েছেন যে "গ্রেড"ই সব। যার ভালো গ্রেড নেই তার কোনো মূল্য নেই। আবার এখানে কথা হচ্ছে, আপনারা ভালো গ্রেড বলতে একটা গ্রেডকেই বেধে দিয়েছেন, তা হলে জিপিএ-৫। আপনি যেমন বললেন,"  একই গ্রেড পেয়ে বুত্তি পায় না নম্বরের জন্য।" আবার তেমনি একই নম্বর পেয়ে ভালো কোথাও পড়তে পারে না, মানুষের সামনে মুখ দেখাতে পারে না শুধুমাত্র গ্রেডের জন্য।  জিপিএ-৫ কে আপনারা পাশ নম্বর বেধে দিয়ে বলছেন রসিকতা করছি। ভালো গ্রেড না পেলে তো মন মতো কলেজে আবেদনই করা যায় না, নম্বর কখন দেখে?? যদি রসিকতাই হয় তবে নম্বরের বিচারেই সবখানে বাছাই করা হতো শুধু বৃত্তির ক্ষেত্রে নম্বর দেখা হতো না।
আপনাদের জন্য ছেলেমেয়েরা জিপিএ-৫ চাচ্ছে। এবং তা পাওয়ার জন্য কোচিং সেন্টার গুলোতে যাচ্ছে,গাইড বই কিনছে, প্রশ্ন ফাস হচ্ছে এবং তা কিনে জিপিএ-৫ ছিনিয়ে আনছে! কোচিং, গাইড,প্রশ্ন ফাস কিভাবে বন্ধ হবে এরা যে একে অপরের পরিপূরক!!

যা হোক অন্যদিকে চলে যাচ্ছি, রসিকতায় ফিরে আসি।
বিষয়টা অনেকটা এমন না?? মাসের পর মাস একটা মেয়েকে রুমের ভেতর আটকে রেখে ধর্ষণ করার পর একপর্যায়ে বলা হলো, আরে রসিকতা করছিলাম তো তোমার সাথে!!
বছরের পর বছর গ্রেড পদ্ধতিকে সবখানে, সবার সামনে প্রধান করে তুলে ধরে, ফল প্রকাশের পর কত শিক্ষার্থীর প্রাণ কেড়ে নিলেন, কত শিক্ষার্থীর স্বপ্ন ভঙ্গ করলেন আর এখন বলেন রসিকতা!!

এই রসিকতা আমজনতার অস্থিমজ্জায় প্রবেশ করতে করতে আরো কত শিক্ষার্থীর প্রাণ যাবে?? কত শিক্ষার্থীর স্বপ্ন ভঙ্গ হবে?? ভেবে দেখেন একবারো??

কিছুদিন পর আবার বলবেন সেদিন যেটা বলেছিলাম ওটা ছিল রসিকতা!!  পারেনও বটে আপনারা!!
-Sir Mahmud Akash

(আমি পোস্ট টি শেয়ার করছি প্রথম আলো পত্রিকার         sheikh al mansur mahmud পাঠকের মন্তব্য থেকে)

"We want Justice for Adnan Tasin"