টপিকঃ তবে এমন কি

তবে এমন কি
গিনি
বীনায় মধুময় সুর একটু ধ্বনি তুলে প্রকৃতিতে মিলে যায়|কিন্তু এসুরের সৃস্টি তখনই হয় যখন একটি নির্দিস্ট মাপের তারকে দুই মাথায় শক্ত করে বেঁধে আঘাত করলে একটা কম্পন হয়, সেই কম্পনটা বাতাসের স্পর্সে শব্দ তৈয়ার করে|যা কিনা শব্দ তরংগ|সময় কিংবা দূরত্বের ব্যবধানে তা বিলিন হয়|তাই মনে করা যাক তারের এক মাথা জন্ম অন্য মাথা মৃত্যু, দৈর্ঘ্য টা জীবন,আঘাতটা জীবন স্পন্দন,শব্দ তরংগোটা তাহলে অবশ্যই আত্মা মাত্র|
তাই তারি প্রাকশ আসে বিভিন্ন মাত্রার বাদ্য যন্ত্রের মাদ্যমে। কখন তানপুরায়, ঢোলে, মৃদঙ্গে, মন্দিরায়, তবলায়,
সারেঙ্গিতে, সেতারে, খোলে, করতলে, একতারায়, দোতারায়, ঢুগঢুগিতে, সারিঙ্গায়।
সেখানে আত্মা উন্মুক্ত হয়। তারি ধবনি সুর হয়ে হাওয়ায় পাখা মেলে। সে উপড়ে উঠে, নীচে নামে, ক্ষ্যাপা হয়ে, ঝর হয়ে, মৃদু মলয় হয়ে মিশে দেহের সঙ্গে। তারে দেখা যায় না, ছোয়া এক দুষ্কর আস্ফালন মাত্র। সে প্রকৃতিকে ভরে তুলে আনন্দে, উল্লাসে, উন্মাদনায়, ক্রন্দনে, আবেগে, ভালোবাসায়, প্রেমে। সে দেখায় অন্ধকারে পথ, আলোতে রং।
সে আসে যায়, কখন দৌড়ায় আসিম আকাশ ফুরে।