টপিকঃ দ্বীপের ধোঁয়া

দ্বীপের ধোঁয়া
গিনি

অখিল উচ্চ মধ্য বৃত্তের পুত্র। উচ্চ মধ্য বৃত্তের লক্ষ্য, ইচ্ছা বা চিন্তা গুলি বলগা হরিণের মত ছোটে, কখন পঙ্খি রাজ বা ধাব মান চিতা। এরা স্বপ্ন রচনা কারি ও স্বার্থপর।
অনেক ভাই বোন হলেও এই বৃহৎ বাসায় সে আর তার মাতা থাকে। অখিল প্রকৌশল বিশ্ব বিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। ইহা কৈশর ও নব যৌবনের সেই ঘটনা বহুল সময়ের একটি।
ইদাঙ্গি কাজের মেয়ে দীপা রানি আসে।
নাকে নথ, পায়ে নুপুর, মিষ্টি আদল, এক সম্পূর্ণ আকর্ষণীয় রমণী।
অখিলের নজর কারে। সে খেয়াল করে এতো কাজের পরে চান করে কাপড় শোকাতে ছাদে যায় প্রতিদিন তখন প্রায় দুপুর গড়ায়।
আজ সে তাকে চিলে কোঠায় জড়িয়ে ধরে।
দীপা নিচু গলায় বলে, " আম্মা কে বলে দিব। বাবু কি করেন?"
মুচকি হেসে অখিল, " কি বলবি? আমি চুমু খেয়েছি!"
একটু বাঁধা দিলেও, পরে দীপারও ভালোলাগে। সে নিরব থাকে।
এম্ন যায় বেশ কিছু দিন।
আজ অখিলের মাতা গৃহে নাই। কোনো এক বোনের বাসায় গেছে।
দুজনে বৈঠক খানায় সোফায় বসে, আলিঙ্গনে, চুম্বনে।
অখিল বলে, " তোকে লাল শাড়ি দিয়ে বিবাহ করবো, দ্বীপ। আমার দ্বীপ।"
দীপা অখিলের বুকে গভীর মগ্নতায় মাথা লুকায়।
যখন তাহাদের ঘোর ফিরে, দেখে তারা দুজনে প্রায় বস্ত্র খোলা কার্পেটের উপর।

এখন অখিল প্রকৌশলী।
সারাদিন ব্যস্ত। ভোরে বের হয় , রাতে ফিরে।
তার মা আদেশে এতো বৎসর যে দুধের সাথে এক ফোটা মধু মিশানো গ্লাসে করে দিয়ে যায় এখন তা প্রায়ই অখিল পান নাকরেই ঘুমায়।

অখিলের বিবাহ ঠিক হয়।
লাল এক খানা অতি সুন্দর শাড়ি গৃহের সকলে হৈ চৈ করিয়া দেখে। দীপাও এক ফাঁকে নজর করে।
রাতে যখন সকল স্বজন চলিয়া যায়, দীপা আজিও দুধের গ্লাস লইয়া এক ফোটা মধু সহ লইয়া আসে। অখিলের হাত চাপিয়া বলে," বাবু, কাল তোমার বিবাহ। আমার এই দুধ টুকু আজ শেষ দেওয়া। তুমি আজ ইহা পান করিয়া দাও। মনে পরে, একখানা সাবান আমাকে দিয়া বলিয়া ছিলা চানের সময় ঐ সাবান খানা আমার অঙ্গে লাগিলে তোমার ছোয়া হইবে। আজ আমি সেই অনুভূতি পাইতে চাই। পান করো আমার ছোয়া তোমার শরীরে মিশুক।
অখিল ঢক ঢক করিয়া পান করে আর সাথে সাথে বিছানায় ঢলিয়া পরে। ঐ লাল শাড়িটা দীপা কোমরে গুঁজিয়া তড় তড় করিয়া সিঁড়ি দিয়া নামিয়া সে যে জীবনের আধারিতে হারায়, আজ অব্দি পুলিশ তাহার হদিস পায় নাই।

এ কাহিনির নায়িকা দীপা রানি অরফ দ্বীপ যেন কুণ্ডলিতে রাখা সেই দ্বীপ যা মধ্য রাতে নিভার পর অল্প ধোঁয়া হইয়া কোঠায় মিলায় তাহা কারো জানা নেই।