সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন মরুভূমির জলদস্যু (০১-০৭-২০১৭ ০৯:৩১)

টপিকঃ অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল : রাইডারস ফ্রম দ্য নর্থ (কাহিনী সংক্ষেপ) - শেষ

অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল : রাইডারস ফ্রম দ্য নর্থ
মূল লেখক : অ্যালেক্স রাদারফোর্ড
অনুবাদক : সাদেকুল আহসান কল্লোল।
http://i.imgur.com/uY2bhBD.jpg
৪৪০ পাতার বিশাল এই বইটির কাহিনী সংক্ষেপ আমি ধারাবাহিক ভাবে কয়েকটি পর্বে লিখে যাব।

পাঠকদের মনে রাখতে হবে আমার লেখা অন্যসব কাহিনী সংক্ষেপের মতো এই কাহিনী সংক্ষেপটিও স্পয়লার দোষে দুষ্ট। এই কাহিনী সংক্ষেপে সম্পূর্ণ উপন্যাসের মূল কাহিনীর ধারাবাহিক বর্ননা করা হয়েছে। প্রায় প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাই এখানে উল্লেখ আছে।

অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল : রাইডারস ফ্রম দ্য নর্থ (কাহিনী সংক্ষেপ) : পর্ব - ০১, পর্ব - ০২পর্ব - ০৩পর্ব - ০৪পর্ব - ০৫পর্ব - ০৬পর্ব - ০৭পর্ব - ০৮পর্ব - ০৯
==================================================================================


অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল : রাইডারস ফ্রম দ্য নর্থ (কাহিনী সংক্ষেপ) - শেষ পর্ব

প্রিয় পুত্র হুমায়ূনের সাথে বাবরের চমৎকার একটা সম্পর্ক গয়ে উঠেছে। সাম্রাজ্যের অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজই হুমায়ূন সুচারু রূপে সম্পন্ন করেছে। তাছাড়া ২০ বছরের যুবক হুমায়ূন পানিপথের যুদ্ধে বাবার সাথে বীরের মত যুদ্ধ করেছে, রাজপুত রানা শঙ্করের সাথে যুদ্ধেও কৃতিত্ব দেখিয়েছে। তাছাড়াও বাবরের প্রিয় স্ত্রী মাহামের একমাত্র সন্তান হুমায়ূন, এবং বাবরের বড় সন্তানও হুমায়ূনই। এত কিছুর পরেও তৈমূরের রীতিতে বড় ছেলেই উত্তরাধিকার হবে তার কোন বাঁধাধরা নিময় নেই। অন্য দিকে হুমায়ূনের প্রায় সমবয়সী সৎ ভাই কামরানও যোগ্য হয়ে উঠেছে। বাবরের অবর্তমানে কাবুলের দায়িত্ব সে ভালই সামলিয়েছে। বাবর তার বাকি তিন ছেলে কামরান, আকসারী ও হিন্দাল, বোন খানজাদা এবং দুই স্ত্রীকে কাবুল থেকে আগ্রায় নিয়ে এসেছে। আর লক্ষ্য করেছে কামরান ও অন্য ভাইয়েরা হুমায়ূনকে কেমন হিংসার চোখে দেখছে।


মাহাম মনে করে কামরান ও আসকারীকে তাদের মা গুলরুখ হুমায়ূনের বিরুদ্ধে হিংসাপরায়ণ করে তুলছে। তবে ১০ বছরের হিন্দাল এসবের মধ্যে নেই। হিন্দালের মা দিলবারা অসুস্থ বলে কাবুলে রয়ে গেছে হিন্দালের বোন গুলবদনও রয়েছে তার সাথে। মাহাম বাবরকে চাপ দিতে থাকে হুমায়ূনকে উত্তরাধিকার হিসেবে ঘোষণা দিতে। কিন্তু বাবর ধীরে এগোয়। হুমায়ূন ভালো যোদ্ধা, আর কামরান মিত্র তৈরিতে পারদর্শী।  বাবর অপেক্ষা করে যোগ্যকে বেছে নিতে।


হিন্দুস্থানে আসার চার বছর উজ্জাপনের জন্য জমকালো উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। নানান ধরনের খেলার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হবে। হুমায়ূন বাবরের অনুমতি নিয়ে মল্লযুদ্ধে অংশ নেয়। বাবর তার দুই ছেলে কামরান ও আসকারীকে নিয়ে খেলা দেখে। হুমায়ূন অপরাজিত হিসেবে জয়ী হয়। অন্যদিকে তিন ভাইয়ের মাঝে বন্দুক দিয়ে নিশানা বাজীর প্রতিযোগিতা হবে। বিজয়ীকে বাবর তার নিজের আংটি উপহার দিবে। হুমায়ূন যখন প্রস্তুত হচ্ছে তখন কামরান ও আসকারী দাড়িয়ে দাড়িয়ে কথা বলছে। কামরান বন্দুকে যে বারুদ ভরবে তাকে হাত করে নিয়েছে, সে হুমায়ূনের বন্দুকে ভেজাল বারুদ ভরবে। দুই ভাই যখন এটা আলোচনা করছে তখন পিছন থেকে বাবর তা শুনে ফেলে। সাথে সাথে বাবর নিশানা বাজীর খেলা বাতিল করে দেয়। বাবর ঠিক করে কামরান আর আসকারীকে দূরের দুটি প্রদেশের শাসক নিয়োগ করবে এবং তাদের উপরে নিজে সব সময় নজর রাখবে। আর হুমায়ূনকে কাছাকাছি কোন প্রদেশের শাসক হিসেবে নিয়োগ দিয়ে নিজের তত্যাবধানে সাম্রাজ্য পরিচালনার শিক্ষা দিবে।


এরমধ্যে হুমায়ূন হঠাত করেই অসুস্থ হয়ে পরে। নানান চেষ্টা করেও হাকিম তাকে সুস্থ করতে পারে না বরং তার মৃত্যু ঘনিয়ে এসেছে বুঝা যায়। তখন হুমায়ূনের জ্যোতিষী বাবরকে বলে বাবরের প্রিয় বস্তু দান করলে হুমায়ূন বাঁচবে। তখন বাবর তার নিজের ঘরে নিজেকে বন্দি করে আল্লাহর কাছে বার বার বলতে থাকে তার নিজের জীবনের বিনিময়ে হুমায়ূনের জীবন ফিরিয়ে দিতে। অলৌকিক ভাবে হুমায়ূন এরপরে সুস্থ হয়ে উঠে। এর মাস চারেক পরে বাবর হঠাত করে অসুস্থ হয়ে পরে। বাবর বুঝতে পারে তার সময় শেষ হয়ে গেছে। তিনি তার মন্ত্রণা সভা ডাকে। সেখানে সকলের সামনে তিনি হুমায়ূনকে নিজের উত্তরাধিকারী হিসেবে মনোনীত করেন। হুমায়ূনকে বলেন নিজের ভাইদের প্রতি লক্ষ্য রাখতে, তাদের ক্ষতি না করে তাদের খুশী রাখতে। তৈমুরের আংটিটি তিনি হুমায়ূনকে দেন আর বলেন তার মৃতদেহ কাবুলে সমাহিত করতে।

এভাবেই শেষ হয় “অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল : রাইডারস ফ্রম দ্য নর্থ”এর কাহিনী।



-------------------------------------------------------------- সমাপ্ত --------------------------------------------------------------


আমার লেখা অন্যান্য কাহিনী সংক্ষেপ সমূহ:
ভয়ংকর সুন্দর – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়
সবুজ দ্বীপের রাজা – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়
পাহাড় চূড়ায় আতঙ্ক – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়
ভূপাল রহস্য – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়
খালি জাহাজের রহস্য – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়
মিশর রহস্য – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

আট কুঠুরি নয় দরজা – সমরেশ মজুমদার

তিতাস একটি নদীর নাম – অদ্বৈত মল্লবর্মণ

ফার ফ্রম দ্য ম্যাডিং ক্রাউড - টমাস হার্ডি

কালো বিড়াল - খসরু চৌধুরীর

মর্নিং স্টার - হেনরি রাইডার হ্যাগার্ড
ক্লিওপেট্রা - হেনরি রাইডার হ্যাগার্ড

১৯৭১ – হুমায়ূন আহমেদ
অচিনপুর – হুমায়ূন আহমেদ
অয়োময় – হুমায়ূন আহমেদ
অদ্ভুত সব গল্প – হুমায়ূন আহমেদ
অনীশ – হুমায়ূন আহমেদ
আজ আমি কোথাও যাব না – হুমায়ূন আহমেদ
আজ চিত্রার বিয়ে – হুমায়ূন আহমেদ
আজ দুপুরে তোমার নিমন্ত্রণ – হুমায়ূন আহমেদ
গৌরীপুর জংশন – হুমায়ূন আহমেদ
হরতন ইশকাপন – হুমায়ূন আহমেদ

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল : রাইডারস ফ্রম দ্য নর্থ (কাহিনী সংক্ষেপ) - শেষ

ভাল লাগল পড়ে thumbs_up

ডিজিটাল বাংলাদেশে ত আর সাক্ষরের নিয়ম চালু নাই।সবটায় দেখি বায়োমেট্রিক।তাই আর সাক্ষর দিতে পারলাম না।দুঃখিত।

Re: অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল : রাইডারস ফ্রম দ্য নর্থ (কাহিনী সংক্ষেপ) - শেষ

অপেক্ষা লিখেছেন:

ভাল লাগল পড়ে thumbs_up

ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য। অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল সিরিজের প্রথম বই  রাইডারস ফ্রম দ্য নর্থ এর কাহিনী শেষ হলো। আশা করি সিরিজের দ্বীতিয় বইয়ের কাহিনীও ভালো লাগবে।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।