টপিকঃ প্রবাদ-প্রবচনে "অতি"

বাংলা ভাষায় “অতি” দিয়ে বেশ কিছু প্রবাদ-প্রবচন রয়েছে। তাদেরও একটি অতিছোট তালিকা তৈরি করেছি। কিছু সংস্কৃতও রয়েছে অবশ্য।

১ । অতি-চালাকের গলায় দড়ি।

২ । অতি-চালাকের গলায় দড়ি, অতি-বোকার পায়ে বেড়ি।

৩ । অতি-চালাকের মাথায় বাড়ি।

৪ । অতিবুদ্ধির গলায় দড়ি।

৫ । অতিবুদ্ধির মাথায় বাড়ি।

৬ । অতিবুদ্ধির হাভাত।

৭ । অতিবাড় বেড়োনা ঝড়ে পরে যাবে, অতিছোট হয়ো না ছাগল মুড়ে খাবে।

৮ । অতিবাড় বেড়ো না, ঝড়েতে উড়াবে, অতিছোট হয়ো না, ছাগলে মুড়াবে।

৯ । অতিভক্তি চোরের লক্ষণ।

১০ । অতিভাব যেখানে, নিত্যি যাবে সেখানে। যদি যাবে নিত্যি ঘটবে একটা কীর্ত্তি।

১১ । অতিলোভে তাঁতী নষ্ট।

১২ । অতিবড় ঘরণী না পায় ঘর, অতিবড় সুন্দরী না পায় বর।

১৩ । অতি-আদরের দুলারী ঝি, তুরুকে নিলে করবে কি?

১৪ । অতিআশ সর্ব্বনাশ।

১৫ । অতিক্ষুধা যার, হাড় কাঁটা তার।

১৬ । অতি-চতুরের ভাত নেই, অতি-সুন্দরীর ভাতার নেই।

১৭ । অতি ভাল-ভাল নয়।

১৮ । অতির্দপে হতা লঙ্কা।

১৯ । ভাল নয় অতিশয়।

২০ । অতিদোসর হয়, গালে তুলে দেয়, না গিললে ত নয়।

২১ । অতিপিরীত যেখানে, অতিবিচ্ছেদ সেখানে।

২২ । অতিপিরীত যেখানে, কীর্ত্তি ঘটে সেখানে।

২৩ । অতিবড় সোদর, তিন দিন করবে আদর।

২৪ । অতিমন্থনে বিষ ওঠে।

২৫ । অতিরিক্ত নিংড়ালে লেবুও তিতা হয়।

২৬ । অতিমেঘে অনাবৃষ্টি।

২৭ । অতিসাধ অতিবিষাদ।

২৮ । অতি আশা ভাঙা মালসা।

২৯ । অতি মন্দ করে শুভ।

৩০ । অতিমানং সুরাপানং।

৩১ । অতি লোভো ন কর্তব্যঃ লব্ধ নৈব পরিত্যজেৎ।

৩২ । অতিথ দেখলে কুপিত।

৩৩ । অতিথি সর্বময় গুরু।

৩৪ । অতিথে গৃহস্থ তাড়ায়।


গ্রন্থসূত্র :
ক. বাংলা প্রবাদ ছড়া ও চলতি কথা – সুশীল কুমার দে
খ. নূতন বাঙ্গালা অভিধান {প্রবচন-সংগ্রহ} – আশুতোষ দেব
গ. প্রবাদ বচন – গোপালদাম চৌধুরী ও প্রিয়রঞ্জন সেন

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।