টপিকঃ ভেজাল প্রতিরোধে সচেনতা বাড়াতে হবে

খৃষ্ঠপূর্ব ৩৯৯ সালে গ্রীক দার্শনিক সক্রেটিসকে হ্যামলক বিষ দিয়ে মারা হয়েছিল এ কাহিনী আমাদের সবার জানা। শোনা যায় নেপোলিয়ান বোনাপার্ট, ইংল্যান্ডের রাজা তৃতীয় জর্জসহ আরো অনেক নামকরা ব্যক্তি আর্সেনিকের বিষে ঘায়েল হয়েছেন। যিশুখৃষ্ঠের মৃত্যুর প্রায় অর্ধশতাব্দি পর রোমান সম্রাট ক্লাউডিয়াসকে তার স্ত্রী একোনাইট বিষসহ মাশরুম খাদ্যের মাধ্যমে হত্যা করেছিল। এরপর পেরিয়ে গেছে বহু যুগ। বিষের ধরনেও এসেছে বিভিন্নতা। বটুলিনাম, সায়ানাইড, মারকারি, পোলোনিয়াম, টেট্রোডোটক্সিন, ডাইমিথাইল-মারকারি, বেলাডোনা, অ্যানথ্রাক্স, বিভিন্ন ধরনের বিষাক্ত গ্যাস প্রভৃতি যুগেযুগে ব্যবহৃত হয়েছে বা হচ্ছে মানুষ মারার কাজে। সম্রাট ক্নাউডিয়াসকে মারার ঘটনা থেকে খাদ্যে বিষ (ভেজাল) মেশানোর আইডিয়া মানুষ (বিশেষ করে বাংলাদেশের মানুষ) পেয়েছে কিনা আমার জানা নেই। তবে সার্বিক ক্ষতির বিবেচনায় উল্লেখিত বিষের চেয়ে খাদ্যপন্যে ভেজাল আরো অনেক বেশী মারাত্বক। কেননা খাদ্যে ভেজালের মাধ্যমে কোন একজন ব্যক্তি নয় বরং গোটা জাতি তিলে তিলে শেষ হয়ে যায়। চার, পাঁচ বা ছয়স্তর বিশিষ্ট কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনি বা গ্রীন জোনের মধ্যে থেকেও ভেজালের কবল থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব নয়। বাংলাদেশে খাদ্যপন্য উৎপাদনকারী থেকে শুরু করে দেশের সর্বোচ্চ ব্যাক্তি সবাই ভেজাল পন্য দ্বারা কোন না কোনভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। মৌসুমি ফল, শাক-শবজি, খাদ্যশস্য, শিশুখাদ্য, পানীয়, মুড়ি, বেকারি পন্য, জিলাপি, ফার্স্ট ফুড, পশুখাদ্য, ঔষধ- কোথায় নেই ভেজাল।কোন কোন খাদ্যে ভেজাল মেশানো হচ্ছে? এর থেকে এখন প্রশ্ন হয়ে দাড়িয়েছে   কোন কোন খাদ্যে ভেজাল মেশানো হচ্ছেনা? জমিতে চাষ থেকে শুরু করে বাজারজাত করা পর্যন্ত পরতে পরতে মারাত্বক সব বিষ মেশানো হয় কলাতে।শাক সবজির বেলায় ও একই কথা,সবজিতে ফরমালিনসহ মেশানো হয় বিষাক্ত বিষ। অপরিপক্ক টমেটো হরমোন দিয়ে পাকানো হচ্ছে। বেকারি পন্যে দুনিয়ার ভেজাল। ফলে, মাছে ফরমালিন। গরুকে নিষিদ্ধ ঔষধ খাইয়ে মোটা করা হচ্ছে। সেগুলো মানব স্বাস্থ্যের জন্য ভয়ানক ক্ষতিকর! পচনরোধে বিষাক্ত ফরমালিন, তাজা দেখাতে মাছে রেড অক্সাইড, ফলমূল ও শাকসব্জিতে কার্বাইড মিশানো হয়ে থাকে।ভেজাল খাবারে দেশ সয়লাব। কী খাব? নিরাপদ কোনো খাবার আদৌ কী আছে? মাছে ও দুধে ফরমালিন, ফলমূলে কার্বাইডসহ নানা বিষাক্ত কেমিক্যাল, সবজিতে রাসায়নিক কীটনাশক, জিলাপি-চানাচুরে মবিল, বিস্কুট, আইসক্রিম, কোল্ডড্রিংক্স, জুস, সেমাই, আচার, নুডুলস এবং মিষ্টিতে টেক্সটাইল ও লেদার রং, মুড়িতে ইউরিয়া-হাইড্রোজ, পানিতে আর্সেনিক, ক্যাডমিয়াম, লেড, ইকোলাই। এসব রাসায়নিক পদার্থ মানব দেহের জন্য মারাত্বক ক্ষতিকর। মানুষের লিভার, কিডনি নষ্ট করে ফেলে। মানুষ তার স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। ভেজাল খাবার খেয়ে আমরা জাতিকে ক্রমাগত মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছি, নতুন প্রজন্মকে মেধাহীন পঙ্গু জীবনের মতো এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে নিয়ে যাচ্ছে।বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার যে স্বপ্ন  দেখেছিলেন তা অধরাই থেকে যাবে, যদি এর প্রতিকার এখনই করা না যায়। কারন এ সমস্যা দিনকে দিনকে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর হাসপাতাল গুলোতে মানুষেরা ধরনা দিচ্ছে। ভেজাল খাদ্যের কারনে কত শত মানুষ যে নিরবে হারিয়ে যাচ্ছে। আর স্বজনদের কান্নায় ভারী হচ্ছে আকাশ বাতাস তার হিসাব নেই।কত শত মানুষকে প্রাণভরে খেতে দিচ্ছেনা, কিছু মানুষরুপি জানোয়ার। কত টাকা লাভ করে এভাবে বিষ মিশিয়ে! আর কত প্রাণ নিলে এদের লিলা খেলা থামবে?আর কত ভেজাল খাবো। এখনই সময় এগুলোর প্রতিরোধ এ প্রতিকার করার। ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে খাদ্যে ভেজাল দেয়া ও ভেজাল খাদ্য বিক্রি করার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড রাখা হয়েছে। এ ছাড়াও ১৪ বছর কারাদন্ডের বিধান থাকলেও এ পর্যন্ত তা প্রয়োগের তেমন  কোনো নজির নেই। খাদ্যে ভেজাল রোধে অনেক আইন রয়েছে, সময় এসেছে এসব আইনের কঠোর প্রয়োগ করার।সাথে সাথে সবার নৈতিক মুল্যবোধ আর জনসচেতনাই পারে খাদ্য ভেজাল প্রতিরোধ করতে।

Re: ভেজাল প্রতিরোধে সচেনতা বাড়াতে হবে

ভেজাল প্রতিরোধে সচেনতা বাড়াতে হবে

যারা ভেজাল দিচ্ছে তাদেরকে একদিকে উৎসাহিত করা হবে
তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে না, অন্যদিকে
জনগনকে বলা হবে সচেতন হোন,
সচেতন হলে কি লাভ হবে?

"We want Justice for Adnan Tasin"