টপিকঃ বিশ্ব মাতাবে বাংলার চা

গোটা বিশ্বে বাংলাদেশের চায়ের একটি বিশেষ সুনাম রয়েছে। তাই তো বিশ্ব চা-বাজারে আবার জায়গা দখলের সব আয়োজন শেষ করেছে বাংলাদেশ। দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটাতে গিয়ে বিশ্ববাজার থেকে ছিটকে  পড়েছে বাংলাদেশের চা। আর এখান থেকে টেনে তুলে আবারও বিশ্ববাজারে চায়ের হারানো জৌলুস ফিরিয়ে আনতে মহাপরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। এ জন্য ‘চা শিল্পের উন্নয়নে পথনকশা’ নামে একটি কর্মকৌশল তৈরি করা
হয়েছে। ৯৬৭ কোটি টাকার এই পথনকশায় চায়ের উৎপাদন ১৩২ মিলিয়ন কেজিতে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে কমপক্ষে ২৫ মিলিয়ন কেজি চা বিদেশে রপ্তানি করা যাবে। এই নকশাটি মন্ত্রিসভা থেকে অনুমোদন হলে এই পথনকশার পথ ধরেই এগিয়ে যাবে চা শিল্প। এর ফলে চা শিল্পে ফিরবে সুদিন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে পথনকশাটি তৈরি করা হয়েছে। কর্মকৌশলের মধ্যে রয়েছে—চায়ের আবাদ সম্প্রসারণ, রি-প্লেন্টিং, ক্ষুদ্রায়তন চা চাষ, পরিবেশ ভারসাম্য প্রকল্প, চা গবেষণা কেন্দ্র ও পিডিইউ শক্তিশালী করা, শ্রমকল্যাণ কেন্দ্রকে গতিশীল করা, চা-বাগানের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, চা-কারখানা সময়োপযোগী ও আধুনিকায়ন করা এবং সেচ প্রকল্প। আর এগুলো বাস্তবায়ন করতে নেওয়া হয়েছে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা। চা শিল্পের উন্নয়নের পথনকশাটি বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী কর্মকৌশল বাস্তবায়িত হলে একসময় বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের চায়ের একক আধিপত্য ফিরে আসবে।