টপিকঃ সৌদি আরবে নিহত মাদারীপুরের জসিমের বাড়িতে শোকের মাতম

সৌদি আরবে দুর্ঘটনায় নিহত মাদারীপুরের জসিম উদ্দিনের গ্রামের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। স্বজনদের কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে এলাকার পরিবেশ।

স্বজন ও এলাকাবাসী জানায়, মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কাদিরপুর ইউনিয়নের ডিক্রীরচর গ্রামের ৩ সন্তানের জনক জসিম উদ্দিন ঢালী ২০১১ সালে ভাগ্যের চাকা ঘুরাতে পারি জমান সৌদি আরব। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে আর জীবিত ফেরা হল না নিজ দেশে। জসিমের এমন আকস্মিক মৃত্যুতে কোন সান্তনায় যেন থামাতে পারছেনা স্বজনদের কান্না।

স্ত্রীও শোকে পাথর। কিন্তু শনিবার রাতে মৃত্যুর খবর মুঠোফোনে পৌঁছালে কান্নায় ভেঙ্গে পরেন স্বজনরা। পরিবারের উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে অসহায় হয়ে পরেছে পরিবারটি। নিহতদের পরিবারসহ এলাকাবাসীর একটাই চাওয়া লাশ দ্রুত ফিরিয়ে আনা হোক দেশে।

নিহত জসিমের বড় মেয়ে জুই আক্তার অশ্রুভরা চোখে তার আব্বুর মৃত্যুর খবর সইতে না পেরে বলেন, আমি আমার বাবার অকাল মৃত্যু কোন ভাবেই মেনে নিতে পারতেছি না। সরকারের কাছে আমার একটাই আবেদন আমার বাবার মৃত লাশটা যেন তাড়াতাড়ি বাড়িতে এনে দেয়।

নিহত জসিমের ছোট বোন হাসিনা বেগম আত্মচিৎকার করতে করতে বলেন, আমার ভাইরে ফিরাই আনেন আমি আমার ভাইকে চাই! আমার ভাইয়ের মতো আর কেউ হবে না। আমি আমার ভাইকে দেখতে চাই। আমার ভাইকে আল্লাহ্ তুমি ফিরিয়ে এনে দেও।

নিহত জসিমের বড় ভাই নুরুল ইসলাম ঢালী তার ছোট ভাইয়ের এই অকাল মৃত্যু যেন সে কোন ভাবেই বিশ^াস করতে পারছেন না। সে এখনো স্বপ্নের মতো বিশ^াস করছেন তার আদরের ছোট ভাই তাদের সবাইকে ছেড়ে চলে যেতে পারেন না। তিনি বুকে কষ্ট নিয়ে আরও বলেন, কি অপরাধ ছিল আমার ছোট ভাইয়ের? কি করছে ও? আমাদের পরিবারের সাথে কেন এমন করা হল।

শিবচর কাদিরপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আব্বাস আলী মুন্সী বলেন, আমি তার অকাল মৃত্যুও জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। তার এ মৃত্যু গ্রামবাসীর কেউ মেনে নিতে পারছে না। আমরা সরকারিভাবে নিহতের পরিবারকে সার্বিক সহযোগিতার দেওয়ার চেষ্ঠা করছি।

উল্লেখ্য, গতকাল শনিবার বাংলাদেশ সময় বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সৌদি আরবের রিয়াদের আলখারিজে ভবনের ছাদ ধসে মারা যান দুই বাংলাদেশী। এ সময় আহত ২ জনকে স্থানীয় হাসপাতালে গুরুতর অবস্থায় ভর্তি করা হয়।

Re: সৌদি আরবে নিহত মাদারীপুরের জসিমের বাড়িতে শোকের মাতম

খুবই দুঃখ জনক !

"We want Justice for Adnan Tasin"