টপিকঃ চির চেনা ঢাকা মহানগরীর চিত্র

ফিরে এসেছে চির চেনা ঢাকা মহানগরীর চিত্র। ঈদের দীর্ঘ ছুটি শেষ হয়েছে। সরকারী ছুটি শেষে কর্মস্থল ঢাকায় ফিরেছে নগরবাসী। আড়মোরা ভেঙ্গে জেগে উঠছে শহর। বাড়ছে কর্মচাঞ্চল্য বেড়েছে। প্রতিবছর ঈদে সরকারী ছুটি থাকে তিন দিন। এবার নানা যোগ বিয়োগ করে পাওয়া যায় নয় দিনের ছুটি। সরকারের পক্ষ থেকে আগেভাগেই তা জানিয়ে দেয়া হয়েছিল। যারা সব সময় গ্রামের বাড়িতে ঈদ করেন, তারা এক মুহূর্তও নষ্ট করেননি। অন্যরাও লম্বা ছুটি কাজে লাগিয়েছেন। ঈদ করেছেন গ্রামে। মূল শ্রোতটা নেমেছিল গত ৩০ জুন। এদিন বৃহস্পতিবার হওয়ায় দিনে অফিস করে রাতে গাড়িতে ওঠেন বহু মানুষ। পরের দিন শুক্রবার শ্রোতটি বেড়ে কয়েকগুণ হয়। ট্রেনের টিকেটের জন্য ভোর রাত থেকে অপেক্ষা, বাসে পেছনের সিট, লঞ্চের ডেকে গুটিশুটি হয়ে বসে থাকা। তার পর বাড়ি। প্রিয়জনের মুখটি দেখা। আবেগে জড়িয়ে ধরা। এই আবেগ এই ভালবাসাবাসির দুর্লভ সুযোগ করে দিয়েছিল ঈদ। তাতেই মোটামুটি ফাঁকা হয়ে গিয়েছিল ঢাকা। ঈদের ছুটিতে রাস্তায় নামতেই চোখ কপালে উঠে যায়। চিরচেনা রাস্তাগুলোকে অচেনা মনে হয়। দু’তিনটির বেশি গাড়ি চোখে পড়ে না। যানজটে নাকাল নগরবাসী মুহূর্তেই এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে চলে যান। বাধাহীন। ফুটপাথগুলো হকারদের দখলে ছিল। সেগুলো যথারীতি গুটিয়ে নেয়া হয়। দোকানগুলো ঘিরে যে জটলা, দেখা যায় না সেগুলোও। ঈদের কয়েকদিন দোকানপাট, মার্কেট, শপিংমল সব বন্ধ। শূন্যতা যেন গিলে খাচ্ছিল শহর। এভাবে বেশ কয়েকদিন। আর তারপর ধীরে ধীরে ফিরতে শুরু করেছে মানুষ। আবার শুরু হল সেই যান্ত্রিক জীবন। আর জীবন তো এমনই, কখনও একটু অবসর আবার ব্যস্ততা।

Re: চির চেনা ঢাকা মহানগরীর চিত্র

হিমেল পরশ লিখেছেন:

এবার নানা যোগ বিয়োগ করে পাওয়া যায় নয় দিনের ছুটি।

দেশের কত পার্সেন্ট লোক সরকারী চাকুরী করে?
কারা কারা ৯ দিনের ছুটি পেয়েছে?

সরকারী কর্মচারীরাই কি সব? তাদের বেতন ২গুন হলে বাজারে জিনিসের দাম বাড়ে, গাড়ি ভাড়া বাড়ে, বাড়ি ভাড়া বাড়ে, বিদ্যুৎ আর গ্যাসের দাম বাড়ে, স্কুলের বেতন বাড়ে!