টপিকঃ সফল অভিযান ‘অপারেশন থান্ডারবোল্ট’

সফল হয়েছে ‘অপারেশন থান্ডারবোল্ট’অভিযান। মাননীয় সরকারপ্রধানের সময়োচিত, দৃঢ়, সাহসী সিদ্ধান্ত ও সঠিক দিকনির্দেশনার জন্যেই এই অভিযান সফল হয়েছে।‘গুলশান-২-এর ৭৯ নম্বর সড়কের হলি আর্টিজান বেকারি নামের একটি রেস্তোরাঁয় দুষ্কৃতকারীরা গুলি ছুড়তে ছুড়তে ভেতরে প্রবেশ করে রেস্তোরাঁর সবাইকে জিম্মি করে। ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে পুলিশ কর্ডন করে সন্ত্রাসীদের যথেচ্ছ কর্মকাণ্ড থেকে নিবৃত্ত করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে  বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ‘অপারেশন থান্ডারবোল্ট’ পরিচালনা করেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডোর নেতৃত্বে কমান্ডো অভিযান সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে শুরু হয়। ১২ থেকে ১৩ মিনিটের মধ্যেই সব সন্ত্রাসীকে নির্মূল করে ওই এলাকায় নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করা হয়। পরবর্তী সময়ে অপারেশনের অন্যান্য কার্যক্রম সম্পন্ন করে সকাল আটটায় অপারেশনের সব কাজ শেষ করা হয়।ঘটনাস্থল থেকে প্রাথমিকভাবে সন্ত্রাসীদের ব্যবহৃত পিস্তল, ফোল্ডেড বাঁট একে ২২ রাইফেল, বিস্ফোরিত আইইডি (ইমপ্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস), ওয়াকিটকি সেট ও অনেক ধারালো দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এই ‘অপারেশন থান্ডারবোল্ট’ এর সফলতার মাধ্যমে আবারও প্রমানিত হল, কোন অপশক্তি দেশকে উন্নতির পথে রুখতে পারে না। সকলের সন্মলিত প্রচেষ্টা ও সরকারের সময়োচিত, দৃঢ়, সাহসী সিদ্ধান্ত ও সঠিক দিকনির্দেশনা দিয়ে দেশ থেকে সকল জঙ্গি ও ষড়যন্ত্র কারীদের পতন সম্ভব। সশস্ত্র বাহিনী দেশের ক্রান্তিলগ্নে সব সময় নিজেদের বিলিয়ে দিয়েছে। কিন্তু কিছু দালাল চক্র এই দেশপ্রেমিক সশস্ত্র বাহিনী্কে নিয়ে বিভিন্ন প্রকার কুৎসা রটায়।