সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন পরিবেশ প্রকৌশলী (৩০-০১-২০১৬ ১০:২০)

টপিকঃ জিকা ভাইরাস, গেটস ফাউন্ডেশন

ইদানিং একটা খবর দেখলাম যে জিকা ভাইরাস যে মশা দিয়ে ছড়ায় সেটা গেটস ফাউন্ডেশনের ফান্ডে হওয়া রিসার্চে তৈরী জেনেটিকালি মডিফাইড মশা।

http://www.trinfinity8.com/zika-virus-mosquitos/

সার সংক্ষেপ:
কারণ যেই বিশেষ ভ্যারাইটির Aedes মশা এই ভাইরাস ছড়ায় সেই মশা একপ্রকার মিউটেন্ট (জেনেটিকালি মডিফাইড) মশা -- যা ল্যাবে তৈরী করা হয়েছিলো। দুই মিলিয়ন মশা ব্রাজিলে ছাড়া হয়েছে -- উদ্দেশ্য ছিল ডেঙ্গু প্রতিরোধ। এই মশা কামড়ালে শরীরে একটা ভ্যাকসিন তৈরী হয়। আর সেই ভ্যাকসিন এর আগে ইঞ্জেকশানে করে সমস্ত গর্ভবতী মহিলাকে দিতে বাধ্য করা হয়েছে ব্রাজিলে -- কিন্তু দেখা গেছে এই অপরীক্ষিত ভ্যাকসিন নেয়া সকলের বাচ্চাই ব্রেন ডিফেক্ট নিয়ে জন্মানো (জিকা-ভাইরাসের কারণে)। এখন জিকা ভাইরাসের ভয়ে নতুন সন্তান নিতে সরকারী ভাবেই নিষেধ করা হয়েছে দুয়েকটি দেশে।

এখন মশা মারতে দুই লক্ষাধিক সৈন্য নিয়োগ দিতে যাচ্ছে ব্রাজিল যারা প্রতি বাসায় বাসায় গিয়ে মশার ওষুধ ছিটাবে --- মানে গর্ভবতী মহিলা ও শিশুরাও বিষাক্ত কীটনাশকের বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার সুযোগ তৈরী হবে।

------ পুরা রিসার্চ ফান্ডিং সেই মহান ব্যক্তির যিনি আসলে জোরপূর্বক জন্ম নিয়ন্ত্রণের স্বপ্ন বহু আগে থেকেই দেখতেন। ইংরেজি আর্টিকেলেটিতে বিস্তারিত আছে।

==
একটা মাত্র আর্টিকেল দেখে "মাইরালামু" বলে ঝাঁপিয়ে না পরে বরং Zika ভাইরাস আর বিল গেটস একসাথে (কমা দিয়ে) লিখে নেটে একটু সার্চ দিয়ে আরেকটু বুঝে শুনে দেখতে পারেন।

===
মডারেটর বরাবর:
খবরটি এখানে সঠিক না হলে উপযুক্ত ফোরামে (বিজ্ঞান?) সরিয়ে নিবেন দয়া করে।

=== আলাদা ইস্যূ ====
ভ্যাকসিনে প্রিজারভেটিভ হিসেবে থাইমেরাসল থাকে -- এটা নাকি পারদ, অটিজম সহ অনেক কিছুর জন্য দায়ী এই বিষাক্ত জিনিষটা ....

ভ্যাকসিন নাকি ভূয়া; এই ব্যবসার জন্য নাকি পোলিও রোগের সংজ্ঞাই পরিবর্তন করে দিয়েছে

পরিবেশ প্রকৌশলী'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: জিকা ভাইরাস, গেটস ফাউন্ডেশন

ইন্টারেস্টিং টপিক। কিন্তু হিট এতো কম। অবশ্য ফোরামের ওভারঅল হিটই কম। টপিক নিয়ে ভেবে লাভ নাই।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ছায়ামানব (৩০-০১-২০১৬ ২০:২৫)

Re: জিকা ভাইরাস, গেটস ফাউন্ডেশন

একটুও অবাক হচ্ছিনা। থার্ড ওয়ার্ল্ড কান্ট্রিগুলোর মানুষজন সবসময় পশ্চিমাদের কাছে গিনিপিগ হিসেবেই ব্যাবহৃত হয়েছে এবং হবে sad

ইট-কাঠ পাথরের মুখোশের আড়ালে,
বাধা ছিল মন কিছু স্বার্থের মায়াজালে...

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন সাইফুল_বিডি (৩০-০১-২০১৬ ২০:০৫)

Re: জিকা ভাইরাস, গেটস ফাউন্ডেশন

পরিবেশ প্রকৌশলী লিখেছেন:

ভ্যাকসিনে প্রিজারভেটিভ হিসেবে থাইমেরাসল থাকে -- এটা নাকি পারদ

পারদ "মারকারী" নামে পরিচিত। থাইমেরাসল Ethyl Mercurate নামে পরিচিত। এই দুই জিনিশই বিষাক্ত , এমন কি স্পর্শ করার ক্ষেত্রেও। তবে এই বস্তু পারদ না। জানামতে অনেক মেডিসিন উৎপাদনের জন্য মার্কারির দরকার পড়ে। আর  থাইমেরাসল  বর্তমানে উন্নত দেশের ভ্যাক্সিনের সাথে ব্যবহার করা হয় না।

এই ব্যাক্তির সকল লেখা কাল্পনিক , জীবিত অথবা মৃত কারো সাথে মিল পাওয়া গেলে তা সম্পুর্ন কাকতালীয়, যদি লেখা জীবিত অথবা মৃত কারো সাথে মিলে যায় তার দায় এই আইডির মালিক কোনক্রমেই বহন করবেন না। এই ব্যক্তির সকল লেখা পাগলের প্রলাপের ন্যায় এই লেখা কোন প্রকার মতপ্রকাশ অথবা রেফারেন্স হিসাবে ব্যবহার করা যাবে না।

Re: জিকা ভাইরাস, গেটস ফাউন্ডেশন

সত্য মিথ্যা জানিনা ভারতীয় এক বন্ধু বলল যে ওদের কাশ্মির এবং উত্তরের প্রদেশগুলোতে এই ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে ,আর ইদানিং তো নানা রকম ভ্যাকসিন নেবার জন্য উৎসাহিত করা হয়। কারো যদি সারভিকাল ক্যান্সার এর ভ্যাকসিন সম্মন্ধে বিস্তারিত জানা থাকে বলবেন প্লিজ কারন এটা নেয়ার জন্য মেয়েদের উতসাহিত করা হয়।

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন সদস্য_১ (৩১-০১-২০১৬ ০৬:২৬)

Re: জিকা ভাইরাস, গেটস ফাউন্ডেশন

আর্টিকেলটাতে এটা সেটা বিভিন্ন তথ্য দেয়া হয়েছে কিন্তু মুল বক্তব্য পরিস্কার না। অনেকগুলো পরম্পর অসম্পর্কিত বিষয় নিয়ে আলোচনা করলে এমনই হয়।

জিকা ভাইরাস আর ডেঙ্গু দুটোই একই গোত্রিয় (Genus: Flavivirus) এটা ছড়াতে জিনেটিক মডিফাইড মশা লাগে না। যে মশা ডেঙ্গু ছড়াতে পারে সে জিকাও ছড়াতে পারে।

জিনেটিক মডিফাইড মশায় কামরালে ভ্যাকিসন তৈরি হয় এটা প্রথম শুনলাম। আমি পরেছিলাম জিনেটিক মডিফাইড মশাগুলো পুরুষ মশা (অন্যদিকে মানুষকে কামড়ায় এবং রোগ বহন করে স্ত্রী মশা) এরা সাধারন স্ত্রী মশার সাথে মিলিত হয়ে যে বাচ্চা দেয় তা পুর্নবয়স্ক হওয়ার আগেই মারাযায়। ব্যাপারটা আমার কাছে জিনিয়াস মনে হয়েছিল। যদিও সত্যিই এর কোন সাইডইফেক্ট পাওয়া যায় তবুও প্রচেষ্ঠাটাকে আমি খারাপ বলবনা। কিছুতো একটা করতে হবে হাতপা গুটিয়ে বসে থাকলে তোআর ডেঙ্গু প্রতিরোধ হয়ে যাবেনা।

ব্রাজিলে গর্ভবতী মহিলাদের যে ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে তার সাথে জিকা ভাইরাসের কোন সম্পর্ক নেই। শিশু ব্রেন ডিফেক্টের জন্য সরকার জিকা ভাইরাসকে দায়ী করছে আর টাইমিংএর জন্য কিছু লোক মনে করছে এটা হয়েছে ভ্যাকসিনের জন্য। অন্য ভাবে বললে, ব্রেন ডিফেক্ট জিকার জন্য হতে পারে আবার ভ্যাকসিনের জন্য হতে পারে। কিন্তু জিকা এবং ভ্যাকসিনের কোন সম্পর্ক দেখছিনা। 

তাদেরকে দেয়া হয়েছিল টিডাপ ভ্যাকসিন Tdap মানে diphtheria, tetanus, and pertussis. এই রোগের ভ্যাকসিন আমি যতটুকু জানি, বহু আগে থেকেই মানুষ নিয়ে আসছে। বাংলাদেশে সেই পুরোনো স্লোগান "৬টি রোগের টিকার" মধ্যে এই রোগগুলোও আছে। দেয়া ভ্যাকসিগুলো যদি টিডাপের নতুন সংস্করন হয়, তাহলে এর জন্য ব্রেন ডিফেক্ট হলেও হতে পারে। কিন্তু কি আর করা।

ভ্যাসকিন ব্যাধ্যতামুলক করার চরম বিপক্ষে আমিও। এটা যার যার ব্যাক্তি স্বাধীনতার উপর ছেড়ে দেয়া উচিত। সবকিছুরই ঝুকি আছে। ঝুকি এবং লাভ বিচার করে যে নিতে চায় সেই নিবে। সবকিছুরই সুবিধা অসুবিধা আছে। এর ব্যতিক্রম কোন উদাহরন জানলে জানাবেন।

জনসংখ্যার নিয়ন্ত্রনের ব্যাপারটাতে আমার মিশ্র মত। একদিকে ব্যাক্তি স্বাধিনতার জন্য মনে হয়, কে কয়টা বাচ্চানিল সেটা যার যার ব্যাপার হওয়া উচিত। অন্য দিকে এই গ্রহের সীমিত রিসোর্স এবং মানব জনসংখার কথা চিন্তা করলে মনে হয় জনসংখা নিয়ন্ত্রন তো ছাই লটারী করে সারা দুনিয়ার ১০০ জনে ৯৯ জন মেরে ফেলা উচিত!! এই দুনিয়ায় আমরা সেপিয়ন আছি সারে সাত বিলিয়ন। স্তন্যপায়ী প্রানীদের মধ্যে সংখ্যার দিক দিয়ে চেম্পিয়ন। আপনি কি জানেন রানার আপ কে? মানে সাত বিলিয়ন স্কোর নিয়ে ১ নম্বর হল মানুষ, আর ২ নম্বার স্থানে কোন প্রানি (মানুষের গৃহ পালিত বাদ দিয়ে)? এবং তাদের সংখ্যা কত? উত্তর হল এক জাতে সিল এবং তাদের সংখা হল ১১ মিলিওন। সচারচর বন্য প্রানিদের মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যায় আছে এক জাতের হরিন, তাদের সংখা হল ৭ মিলিওন। অন্য দিকে সেপিয়ন হল ৭ বিলিওন! মানে প্রতি একটা হরিনের জন্য ১ হাজার মানুষ!! স্তন্যপায়ী প্রানীদের সংখ্যা নিয়ে গত বছর একটা লিস্ট বানিয়ে ছিলাম চাইলে দেখতে পারেন। ২১০০ সাল নাগাত  মানুষের সংখ্যা ১১ বিলিওন ছাড়িয়ে যাবে। প্রাকৃতিক ভাবে নাম্বারটা কতটা অবসার্ড চিন্তা করে দেখুন। প্রাকৃতি ভারসাম্য রক্ষা করে থাকতে গেলে এই গ্রহের জায়গা এবং রিসোর্সের হিসেবে কয়েকশ মিলিওন মানুষই অনেক। অথচ কেউ জনসংখা নিয়ন্ত্রনের কথা বললে তরাক করে লাফ দিয়ে উঠি!

Re: জিকা ভাইরাস, গেটস ফাউন্ডেশন

পরশুদিন Krish 3 মুভি তা দেখেছিলাম।দেখার পর মনে করেছিলাম এরকম ঘটনা কি জিকা ভাইরাস এর বেলায় হতে পারে?এখন দেখি সেই আশংকা সত্যি হয়ে যাচ্ছে  nailbiting nailbiting