টপিকঃ সিলেট ভ্রমণ - লালাখাল

১৯শে অক্টোবর ২০১৪ইং তারিখে সিলেটে একটা ফ্যামিলি এন্ড ফ্রেন্ড ভ্রমণের আয়োজন করেছিলাম। আমাদের গাড়ি ছাড়া হল ভোর ৫টা ৫০ মিনিটে। পথে তখনও কর্মব্যস্ততা শুরু হয়নি। পথের ধারের চিরচেনা গ্রামবাংলার আবহমান দৃশ্যাবলী দেখতে দেখতে আমরা এগিয়ে চলি। “শ্রীমঙ্গলের পথে” চলতে চলতে আমরা যখন লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্কে পৌছাই তখন ঘড়িতে সময় সকাল ১০টা ৪৫ মিনিট। “লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ” শেষে আমরা পৌছাই মাধবপুর লেকে। কিছুটা সময় “মাধবপুর লেক ভ্রমণ” শেষে আমারা যাই মাধবকুণ্ড ঝর্ণা দেখতে। বিকেলটা কেটে যায় “মাধবকুণ্ড ঝর্ণা ভ্রমণ” করে। সেখান থেকে ভ্রমণ শেষে পৌঁছই সিলেটে।

পরদিন ২০শে অক্টোবর সকালে “হযরত শাহজালাল (রঃ) দরগা”তে  কিছুটা সময় কাটিয়ে আমরা চললাম ৬০ কিলোমিটার দূরের বিছনাকান্দির উদ্দেশ্যে। অচেনা রাস্তা বলে সময় কিছুটা বেশী লাগায় হাদারপাড় বাজারে যখন পৌছাই তখন ঘড়িতে দুপুর ২টা ৩০ মিনিট। একটি ট্রলার ভাড়া করে চললাম পিয়াইন নদীর অল্প জলের বুক চিরে বিছনাকান্দির দিকে। বিছনাকান্দির মহনীয় রূপ উপভোগের পালা শেষে ফিরে আসি আমাদের রাতের আস্তানা সিলেট শহরে।

পরদিন ২১ তারিখ সকালে নাস্তা শেষে সোয়া ১১টার দিকে পৌছাই হজরত শাহপরানের মাজারে। মাজার জিয়ারত শেষে পৌনে ১২টা নাগাদ বেরিয়ে পরবর্তী গন্তব্য হরিপুরের পরিত্যাক্ত গ্যাস ফিল্ডে দেখে এগিয়ে চলি লালাখালের পানে।

নষ্ট হয়ে যাওয়া গ্যাস ফিল্ড দেখে আমরা চললাম লালাখাল দেখতে। চেনা না থাকলেও গুগল ম্যাপ দেখে মোটামুটি কোন সমস্যা ছাড়াই এগিয়ে যাই লালাখালের পথে। জাফলং মুখী হাইওয়ের মূল রাস্তা ছেড়ে ডানে মোর নিয়ে ঢুকে পরি লালাখালের পথে। দুই পাশে বিস্তীর্ণ মাঠ চিরে এগিয়ে চলেছে পিচ ঢালা পথ। কোথাও বাঁশঝাড় ঝুঁকে এসেছে পথের উপরে। কখনো গাড়ির হর্নের শব্দে ভীতু গরুর ছোট্ট বাছুর ল্যাজ তুলে ছুটতে থাকে গাড়ির সামনে দিয়ে। ফসলের মাঠে উচ্ছিষ্ট জালিয়ে দিতে কৃষক আগুন দিচ্ছে। দূরে ঝাপসা পাহাড়ের সারি।
https://c2.staticflickr.com/2/1703/24466847812_e670ca8bdb_b.jpg
দূরে পাহাড়ের সারি


https://c2.staticflickr.com/2/1539/24207391169_b9b16dc4ea_b.jpg
বাঁশঝাড় ঝুঁকে এসেছে পথের উপরে


https://c2.staticflickr.com/2/1603/24207388289_c11c51f3df_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1640/24575151565_c5479be5d0_b.jpg
ফসলের মাঠে উচ্ছিষ্ট জালিয়ে দিতে কৃষক আগুন দিয়েছে

এইসব দেখতে দেখতে একসময় এসে পৌছাই লালাখালের ঘাটে। তখন সময় দুপুর ১টা ২০ মিনিট। গ্যাস ফিল্ড থেকে ১২টা ৩৫ মিনিটে রওনা হয়ে ৪৫ মিনিট সময় লাগলো আমাদের পৌছতে।
https://c2.staticflickr.com/2/1561/23948328973_1736af9421_b.jpg
লালাখালের ঘাটে

এটা লালাখালের জন্য অফ সিজন, তাই লোকজন তেমন একটা নেই। অল্প কিছু নৌকো ঘাটে বাধা। নদীতে জলের ধারাও অনেক কম। শানবাঁধানো অনেকগুলি ধাপের বড় একটা ঘাট নেমে গেছে নিচ পর্যন্ত। টলমলে নীলচে স্বচ্ছ জল খেলা করছে লালচে বালির সাথে। দেখলাম এখানে টুরিস্টদের গলা কাটার জন্য এক সিন্ডিকেট বাহিনী বিদ্যমানা। ওদের কাছ থেকেই নৌকো ভাড়া করতে হবে। মিনিট দশেক সময় এখানে ব্যয় হয় দর কশাকশি নিয়ে, তারপর চড়ে বসি নৌকোয়।
https://c2.staticflickr.com/2/1670/24466825932_d7676da3b0_b.jpg
অল্প কিছু নৌকো ঘাটে বাধা

দেড়টার দিকে শুরু হয় আমাদের নীল জলের লালাখালে নৌভ্রমণ। নদীর দুই ধার উঁচু পার সবুজে ছাওয়া। যে ঘাট থেকে নৌকোয় উঠেছি তার উল্টো দিকেই আছে আরেকটি ঘাট বিশাল এক বটবৃক্ষের তলে। নীল জল কেটে তরতরিয়ে এগিয়ে চলে আমাদের নৌকা। নদীর দুই তিরেই দেখা যায় লোক জনের কাজ চলছে নানান। এই সময়ে নদীর জল অনেকটাই কম, আমার মনে হল যেন নদীর জলটার নীল রংটাও কিছু কম।
https://c2.staticflickr.com/2/1487/24575135715_111be360d5_b.jpg
দূরের অপর পাড়ের ঘাট


https://c2.staticflickr.com/2/1572/24548942326_7ef7f0e21e_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1679/24279617760_0a8b0e90c4_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1502/24575127655_768f8fff63_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1454/24492828601_e21ee6e733_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1690/23948305993_7c8eca3e5b_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1616/23946953964_5272080fce_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1658/24575113135_57a49a83d7_b.jpg

মোটামুটি মিনিট দশেক যাওয়ার পরেই দেখা মিলল নদীর তলদেশ থেকে ডুব দিয়ে পাথর তোলার বিশাল এক কর্মযজ্ঞের। অনেক গুলি নৌকো এখানে পাথর বোঝাই করার কাজ করছে। মাঝি আর কর্মীরা পাথর তুলে তুলে নৌকায় রাখছে। নানান আকারের নানান বর্ণের নানান গঠনের পথর। কিছু কিছু নৌকয় দেখলাম কয় আর কাঠও তুলছে। মেহনতি মানুষের কি নিদারুন চিত্র।
https://c2.staticflickr.com/2/1529/24075830322_e908384f0a_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1696/24548919096_4b3c15bc23_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1703/24492808891_c84583a903_b.jpg


সামনেই বাংলাদেশের সীমানা শেষ হয়ে ভারতের সীমানা শুরু হয়েছে। পাথর আহরনের নৌকো গুলি অনেকটাই সামনে এগিয়ে গেলেও টুরিস্ট নৌকা ততটা যেতে চায় না। সৌন্দর্য ছড়িয়ে আছে চার ধারে এখানে, সামনের বাকে আরো সৌন্দরের হাতছানি, কিন্তু যেতে দিবেনা দাদারা।
https://c2.staticflickr.com/2/1584/24575099755_d385209ba0_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1453/24466782542_733d042f78_b.jpg
ফিরতি পথে হাল ধরেছে স্বপন

তাই এবার ফিরতি পথ ধরার পালা। ফেরার সময়ে একটি চা তৈরির কারখানার সামনে গিয়ে নামলাম আমারা। চারপাশ নির্জন, জন মানবের কোন সারা শব্দ নেই। বিশাল গাছ বিচিত্র ভঙ্গিতে মাথা তুলেছে আকাশে। গাছের পাতার ফাকে সূর্যের মিহি আলোর খেলা।
https://c2.staticflickr.com/2/1450/24466779572_8704ea0575_b.jpg
ফেরার পথে চা কারখানার ঘাটে

https://c2.staticflickr.com/2/1568/24279577900_48d4191e76_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1480/24548896756_8ed8fbc65f_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1462/23946918824_a3a6b11a18_b.jpg
বুসরা ও সাইয়ারা


https://c2.staticflickr.com/2/1579/24575078125_bdf9a8c296_b.jpg


https://c2.staticflickr.com/2/1638/24466758292_829a8ff21b_b.jpg

ইচ্ছে ছিল বট তলার সেই ঘাটটাতেও যাওয়ার, কিন্তু এখান থেকে যাব জাফলং। দেরি না হয়ে যায় তাই দ্রুত ফিরি গাড়ির নিকটে। আমাদের লালাখালে জলবিহার শেষ হয়ে যায় ২টা ২০ মিনিটেই।

https://c2.staticflickr.com/2/1517/24492867431_34227e29e0_b.jpg
নাগা মরিচের ঝালমুড়ি

https://c2.staticflickr.com/2/1718/24279556080_04e6494db9_b.jpg
এবার জাফলংএর পথে.....


চলবে.......


পূর্বের পর্ব গুলি :
“শ্রীমঙ্গলের পথে”
“লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ”
“মাধবপুর লেক ভ্রমণ”
“মাধবকুণ্ড ঝর্ণা ভ্রমণ”
“সিলেট ভ্রমণ - হযরত শাহজালাল দরগাহ”
“সিলেট ভ্রমণ - বিছনাকান্দি (১ম পর্ব)”
“সিলেট ভ্রমণ - বিছনাকান্দি (২য় পর্ব)”
“সিলেট ভ্রমণ - হযরত শাহপরান দরগাহ”
“সিলেট ভ্রমণ - হরিপুর পরিত্যাক্ত গ্যাস ফিল্ড”

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: সিলেট ভ্রমণ - লালাখাল

অসাধারণ মায়াবী প্রকৃতির দেশ আমাদের বাংলাদেশ । দারুন উপভোগ্য হয়েছে পর্বটি smile
চলতে থাকুক...

Re: সিলেট ভ্রমণ - লালাখাল

ছবি গুলো ভাল হয়েছে।  thumbs_up
দেখে তো নদীরমতই বড় মনে হচ্ছে। খাল বলে কেন!  thinking

এখানার সবগুলো পর্বের যায়গায় এক ট্রিপেই গিয়েছিলেন নাকি? মোট কয় দিনের ট্রিপ?

Re: সিলেট ভ্রমণ - লালাখাল

সেলিম রাজ লিখেছেন:

অসাধারণ মায়াবী প্রকৃতির দেশ আমাদের বাংলাদেশ । দারুন উপভোগ্য হয়েছে পর্বটি smile
চলতে থাকুক...

ঠিক বলেছেন, আমাদের দেশের রূপের কোন শেষ নাই, সময় আর স্থানের সাথে সাথে তা পরিবর্তন হয়।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: সিলেট ভ্রমণ - লালাখাল

সদস্য_১ লিখেছেন:

ছবি গুলো ভাল হয়েছে।  thumbs_up
দেখে তো নদীরমতই বড় মনে হচ্ছে। খাল বলে কেন!  thinking

এখানার সবগুলো পর্বের যায়গায় এক ট্রিপেই গিয়েছিলেন নাকি? মোট কয় দিনের ট্রিপ?

মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ প্রিয় সদস্য_১ ভাই।
জ্বী ভাই সবগুলিতে একই ট্রিপে গিয়ে ছিলাম। টপিকের শুরুতেই লেখা আছে।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।