টপিকঃ গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

আমাদের পড়শি দেশ নেপাল। বেড়ানোর জন্য হিমালয় কন্যা নেপাল খুব চমৎকার এক দেশ।কাছের দেশ হওয়াতে সহজে এবং মোটামুটি কম খরচে ঘুরে আসা যায়। নেপালে ঘোরার জন্য অনেক সুন্দর সুন্দর স্থান আছে। আমি মোট ছয় বার গিয়েছি নেপাল তারপরও আবারও যাবার ইচ্ছে আছে সুযোগ পেলেই ।  পাহাড় আমার কি যে ভাল লাগে । মনের মাঝে একটা সুপ্ত ইচ্ছে আছে আমার । আমি পাহাড়ের কোল ঘেঁষে একটা চমৎকার বাংলো বানাব । তারপর   ব্যালকনিতে বসে বসে সূর্যাস্ত দেখব । স্বপ্ন পূরণ হোক বা নাই হোক ,স্বপ্ন দেখতে কোন বারন তো নেই । 


পাহাড়ের কোলে অবস্থিত এই দেশের প্রতিটা শহরেই আছে দেখার মত কিছু না কিছু । প্রকৃতি আর পাহাড় প্রেমীদের মুগ্ধ করার উপাদানে ঠাসা এই দেশ ।  রাজধানীকাঠমান্ডুর খুব কাছেই ললিতপুর জেলায়  আছে  এক চমৎকার বোটানিক্যাল গার্ডেন , গোদাভরি উদ্যান  এমন ই এক স্থান। ফুলচউকি পাহাড়ের  পাদদেশে অনেক সুন্দর একটা বাগান। এছাড়াও পাখি দেখার জন্য আর সহজ ট্রেকিং এর জন্যও এ জায়গাটার আলাদা একটা আকর্ষণ আছে।   
   

কাঠমান্ডু থেকে গাড়িতে করে গেলে পঁয়তাল্লিশ কি পঞ্চাশ মিনিট সময় লাগে পৌঁছাতে । আমি মোট দুবার গিয়েছি এখানে ।  প্রথমবার যখন আমি আর মাহমুদা আপু যাই তখন বর্ষা কাল। পুরোটা সময় জুড়ে হালকা বৃষ্টি হচ্ছিল। আমরা যখন বাগানের সামনে নামলাম তখন বৃষ্টি শেষ কিন্তু তার রেশটা রয়ে গেছে।এখানে নেপালের বোটানিক্যাল গার্ডেন।টিকেট কেটে ভিতরে ঢুকতেই কানে আসছিলো ঝম ঝম শব্দ।মনে হচ্ছিল বৃষ্টির শব্দ। কিছুদুর যাওয়ার পর খুজে পেলাম শব্দের উৎস।প্রবল বেগে ছোট্ট এক জলধারা বয়ে চলেছে।   

http://i.imgur.com/A2FkODH.jpg

চারপাশে ভেজা  গাছপালা বিশাল এলাকা জুড়ে।

http://i.imgur.com/DU0lFy6.jpg


দ্বিতীয় বার যখন যাই পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে তখনও বরষাই বলা চলে। সেপ্টেম্বর এর মাঝামাঝি সময়ে। শহরের কাছে হওয়াতে এটা কাঠমান্ডুবাসীর পিকনিক আর ডেটিং স্পট।আর সেকারনেই হয়তো কিছু কিছু গাছে   আঁকারআঁকির  চিহ্ন। অমুক প্লাস সমুক। যা মোটেও ভাল লাগছিল না।ভালোবাসা প্রকাশের মাধ্যম   অনেক কিছুই হতে পারে নিরীহ বৃক্ষরাজি ছাড়া। 

http://i.imgur.com/yPgjP1b.jpg


এখানে বহু প্রজাতির গাছ আছে ।রকমারি ফুলের গাছ যেমন আছে তেমন আবার ফুল ছাড়া বড় বড় গাছ ও দেখা যায়।


http://i.imgur.com/Vk7ET4f.jpg

অর্কিড ,ক্যাকটাস আর অনেক নাম না জানা গাছপালা। হঠাত দেখি দোলনচাঁপা। কি মিষ্টি ঘ্রান!! তবে রঙ টা একটু হলদেটে।


http://i.imgur.com/oRXt54T.jpg

এখানে অনেক রকম লতা গুল্ম দেখা যায়। প্রকৃতির কাছে সারাটা বেলা কাটানো খুব একটা মন্দ অভিজ্ঞতা না।  বাগানের যত ভিতরে প্রবেশ করা যায় তত বেশি সবুজের সমারোহ চোখ আর মনকে প্রশান্তি এনে দেয়।

http://i.imgur.com/PFhI2AO.jpg


হাঁটতে হাঁটতে ক্লান্ত হয়ে গেলে বড় বড় পাথরের উপর বসে কিছুখন বিশ্রাম নিলে মন্দ হয় না। আমরা অবশ্য তাই করলাম ।

http://i.imgur.com/vbmn17u.jpg

পাহাড়ের গা বেয়ে একেবেকে উঠে গেছে পাথুরে রাস্তা । মূল ফটক দিয়ে প্রবেশ করার পর দুই পাশের গাছপালা পেরিয়ে ধাপে ধাপে উঠে গেছে পাহাড় কাটা  সিঁড়ি। মূল ফটক এর আগেই জলধারার উপর ছোট্ট কাঠের সাঁকো ।

http://i.imgur.com/dXUm5VK.jpg


ইচ্ছে হলে জলধারার পানিতে কিছুখন পা ডুবিয়ে বসে থাকা যায়। আমার বেশ লাগে এমন করে বসে থাকতে। প্রথম পা ছোঁয়াতে গা শিরশির করে উঠল ঠাণ্ডা পানিতে । যত যাই হোক হিমালয়ের বরফ গলা পানি তো ।

http://i.imgur.com/XJKyvta.jpg

তারপর আবার পথচলা।  সিঁড়িতে উঠার মুখে এক ঝোপ লান্টানা কামারা । আহ দারুন সুন্দর এই ফুল আমার শৈশবের স্মৃতি মনে করিয়ে দিল । ছোটছোট এই ফুল গুলো ছিল আমার পুতুলের ঘর সাজানোর উপাদান ।

http://i.imgur.com/kr7Hwg0.jpg

সিঁড়ি দিয়ে উপরে উঠে গ্রিন হাউস আর অর্কিড এর বাগান দেখা যায়।

http://i.imgur.com/u4fi6rn.jpg

ঘন সবুজ গাছপালা আর লতা গুল্মের মাঝে রঙ বেরং এর ফুলের মেলা দেখলে মনে হয় যেন পঁটে আকা ছবি।

http://i.imgur.com/AUbfFyr.jpg
   
উপর থেকে নিচে তাকালে ধাপে ধাপে দেখা জায় সাজান বাগান আর সবুজের মেলা । ঘুরেফিরে ক্লান্ত হয়ে ভাবলাম এবার ফেরার পালা । নিচে নেমে বেরোবার কিছু আগে বসলাম এক ছাওনিতে ।

নেপালে প্রচুর পর্যটক আসে।তেমন এক পশ্চিমা পর্যটক  কে দেখলাম বুকে বই জড়িয়ে খোলা আকাশের নিচে ঘাসের মাঝে শুয়ে আছে।


http://i.imgur.com/s9mvfZi.jpg

বেচারা মনে হয় ভ্রমনের ক্লান্তি আর বাগানের প্রশান্তি এই দুই এর সংমিশ্রণে আর চোখ  খুলে রাখতে পারে নি।
গেটের কাছে খাবারের রেস্তোরাঁ আছে।ইচ্ছে হলে লাঞ্চ বা হাল্কা খাবার খেয়ে নেয়া যায়। বের হয়ে গাড়িতে উঠার আগে একটু চারপাশটা হাঁটতে গিয়ে দেখি পাহাড়ের ঢালে এক অদ্ভুত সুন্দর দুই রঙের ফুল ঝুলে আছে । নামটা কেউ তখন বলতে না পারলেও পরে জেনেছিলাম এর নাম ফুসিয়া । যাক  সারাটা দিন অনেক মজা করে বিকাল বিকাল আমরা রওনা দিলাম কাঠমান্ডুর পথে আর সাথে করে নিয়ে এলাম একরাশ  ভাললাগা আর শান্ত সবুজ স্নিগ্ধ অনুভুতি। আমাদের সাথে যেহেতু দুই জন বয়স্ক মানুষ ছিলেন আমার আব্বু আর আন্টি তাই আমরা আর ট্রেকিং এ যাই নাই। তবে যে কেউ ইচ্ছা  করলেই পাখি আর  পাহাড়ি প্রকৃতিকে দেখার জন্য ট্রেকিং এ যেতেই পারে ।ফুলচউকি পাহাড়ে ট্রেকিং ক্যাটাগরি হচ্ছে সহজ থেকে মধ্যম পর্যায়ের । বাগান টা যেখানে শেষ সেখান থেকেই শুরু পাহাড়ে উঠার পথ ।শীতকাল ছাড়া অন্যান্য সময়ে প্রচুর পাখি দেখা যায় আর  বসন্তে রডোডেনড্রন অর্থাৎ গুরাস এর বাহার তো আছেই।


নেপালে বাই রোড আর বাই এয়ার দুভাবেই  যাওয়া যায়। বাই রোড যেতে হলে ভারতের  ট্রানজিট ভিসা লাগবে।আজকাল অনেক ট্রাভেল এজেন্সি নানারকম প্যাকেজ ট্যুর এর অফার দেয়। ইচ্ছে হলে সময় সুযোগ মতো ঘুরেই আসা যায়।আর এখন চার দেশের মাঝে গাড়ি চলাচলের যে চুক্তি হচ্ছে তাতে তো বাক্তিগত গাড়ি নিয়েই ঘুরে আসা যাবে ।

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

সত্যি অসাধারণ।

মানুষ মরে গেলে পচে যায়,,,,
বেঁচে থাকলে কারনে-অকারণে বদলায় ।।

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

ভাল লাগায় ভরপুর পোষ্ট

অনেক সুন্দর আপি smile

জাযাল্লাহু আন্না মুহাম্মাদান মাহুয়া আহলুহু......
এই মেঘ এই রোদ্দুর

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

খুব সুন্দর জায়গা।দেখে মনে হয় না ভিন্ন কোন দেশ। ২,১১ আর ১২ নং ছবিটি বেশি ভালো লাগলো।

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

উক্যনু মার্মা লিখেছেন:

সত্যি অসাধারণ।

থ্যাংকস  smile

ছবি-Chhobi লিখেছেন:

ভাল লাগায় ভরপুর পোষ্ট

অনেক সুন্দর আপি

ধন্যবাদ ছবি আপা  smile  smileপড়ার জন্য আর মন্তব্য করার জন্য ।


Shoumik লিখেছেন:

খুব সুন্দর জায়গা।দেখে মনে হয় না ভিন্ন কোন দেশ। ২,১১ আর ১২ নং ছবিটি বেশি ভালো লাগলো।


ধন্যবাদ  smile

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

ছবি সমেত পোষ্টটি ভালো লেগেছে। নেপাল আর ভূটান যাবার ইচ্ছে আর পরি কল্পনা করেও শেষ পর্যন্ত যাওয়া হয় নি আমার। এবার সুযোগ হলে যেতে হবে। গাইড হিসেবে আপনার লেকা তো আছেই।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

বোটানিক্যাল গার্ডেন তো দেখি অনেক সুন্দর...!!!

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

সুন্দর বর্ণনা আর চমৎকার ছবির অসাধারণ সম্মিলন

আল্লাহ আমাকে কবূল করুন

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

ছবি সমেত পোষ্টটি ভালো লেগেছে। নেপাল আর ভূটান যাবার ইচ্ছে আর পরি কল্পনা করেও শেষ পর্যন্ত যাওয়া হয় নি আমার। এবার সুযোগ হলে যেতে হবে। গাইড হিসেবে আপনার লেকা তো আছেই।

 

ইয়ে  লেখা কেন গাইড হিসাবে আমিও যেতে পারি  big_smile  big_smile big_smile  সাইয়ারার খেলার সাথী আর বেবি সিটার হয়ে  smile      অনেক অনেক ধন্যবাদ সুন্দর মন্তব্বের জন্য ।

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১০

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

noakhali.xyz লিখেছেন:

বোটানিক্যাল গার্ডেন তো দেখি অনেক সুন্দর...!!!

আসলেই অনেক সুন্দর  smile

জারাহ লিখেছেন:

সুন্দর বর্ণনা আর চমৎকার ছবির অসাধারণ সম্মিলন

ধন্যবাদ  smile

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১১

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

সুন্দর পোস্ট ! ধন্যবাদ

১২

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

আর ছবি কই sad  এত পুস্কা পোস্ট দিয়া  ককি মন ভরে? এইরাম দিলে পড়ুম না  mad
বলছি না বাসের মত পোস্ট হইলে হবে না  brokenheart
|
তবে ছবি গুলা সুন্দর  big_smile

১৩ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ছায়ামানব (০২-০৯-২০১৫ ২২:২৪)

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

গার্ডেনের নামটা পচা এছাড়া বাকি সবকিছু সুন্দর tongue

ইট-কাঠ পাথরের মুখোশের আড়ালে,
বাধা ছিল মন কিছু স্বার্থের মায়াজালে...

১৪

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

RubaiyaNasreen(Mily) লিখেছেন:

সাইয়ারার খেলার সাথী আর বেবি সিটার হয়ে

সাইয়ারার পরে এই ২১ তারিখে কিন্তু আরেক জন এসে গেছে, নাম রেখেছি নুয়াইরা বিনতে সোহেন

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৫

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

দারুন পোস্ট।
এত দেশ ঘুরেছেন, আপনাকে দেখলে হিংসে হয় kidding kidding

You are the one who thinks that i didn't get the point, so do i think of you...what a coincidence!!

১৬

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

faysal_2020 লিখেছেন:

দারুন পোস্ট।
এত দেশ ঘুরেছেন, আপনাকে দেখলে হিংসে হয় kidding kidding

হিংসে করতে করতে পুড়ে  ছাই হইয়া যান  hehe

১৭

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

Jol Kona লিখেছেন:

আর ছবি কই sad  এত পুস্কা পোস্ট দিয়া  ককি মন ভরে? এইরাম দিলে পড়ুম না  mad
বলছি না বাসের মত পোস্ট হইলে হবে না  brokenheart
|
তবে ছবি গুলা সুন্দর  big_smile


সব সময় রেল দিলে তো ধৈর্য থাকবে না পড়ার  neutral মাঝে মাঝে বাস এমন কি রিকশা ও দিতে হয়  big_smile

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১৮

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

ইলিয়াস লিখেছেন:

সুন্দর পোস্ট ! ধন্যবাদ

আপনাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ  smile

ছায়া মানব লিখেছেন:

গার্ডেনের নামটা পচা এছাড়া বাকি সবকিছু সুন্দর

ওই জায়গাটার নাম ই গোদাভরি  big_smile

মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

সাইয়ারার পরে এই ২১ তারিখে কিন্তু আরেক জন এসে গেছে, নাম রেখেছি নুয়াইরা বিনতে সোহেন।

অভিনন্দন !!! আর কোন প্রবলেম নাই ,দেখেন না জল ও এসে গেছে তাইলে আমি আর জল দুজনেই যাব সাইয়ারা আর  নুয়াইরার জন্য  big_smile big_smile big_smile

faysal_2020 লিখেছেন:

দারুন পোস্ট।
এত দেশ ঘুরেছেন, আপনাকে দেখলে হিংসে হয়


থ্যাংকস  smile ছিলেন কই ?

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১৯

Re: গোদাভরি বোটানিক্যাল উদ্যান

Jol Kona লিখেছেন:
faysal_2020 লিখেছেন:

দারুন পোস্ট।
এত দেশ ঘুরেছেন, আপনাকে দেখলে হিংসে হয় kidding kidding

হিংসে করতে করতে পুড়ে  ছাই হইয়া যান  hehe

আপাতত হিংসে করা ছাড়া কোন উপায় নাই ।

RubaiyaNasreen(Mily) লিখেছেন:
faysal_2020 লিখেছেন:

দারুন পোস্ট।
এত দেশ ঘুরেছেন, আপনাকে দেখলে হিংসে হয়

থ্যাংকস  smile ছিলেন কই ?

অলটাইম দৌড়ের উপর আছি।

You are the one who thinks that i didn't get the point, so do i think of you...what a coincidence!!