সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন RubaiyaNasreen(Mily) (২৮-০৮-২০১৫ ০৯:৫৮)

টপিকঃ শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

আগের পর্ব গুলোঃ
প্রথম পর্ব   http://forum.projanmo.com/topic50603.html
দ্বিতীয় পর্ব  http://forum.projanmo.com/topic50744.html
তৃতীয় পর্ব  http://forum.projanmo.com/topic50922.html
চতুর্থ পর্ব   http://forum.projanmo.com/topic51206.html
পঞ্চম পর্ব  http://forum.projanmo.com/topic51268.html
ষষ্ঠ পর্ব     http://forum.projanmo.com/topic51339.html
সপ্তম পর্ব   http://forum.projanmo.com/topic51504.html




  আবারব্যাংকক ও আশেপাশে


ব্যাংকক এ ফিরে সোজা চলে গেলাম হোটেল অ্যাম্বাসেডর এ । আমাদের রিজার্ভেশন আগামি কালের তাই আমরা হোটেলে লাগেজ রুমে লাগেজ রেখে একদিনের মত কাপড় প্যাক করে গাড়ি নিয়ে চলে গেলাম আয়ুত্থা তে । আমাদের আয়ুত্থা  যাবার ঝটিকা সিদ্ধান্তে দলের ছোট দুই সদস্য অত্যন্ত নাখোশ হল । তারা চেয়েছিল ব্যাংককের অন্য কোন হোটেলে একরাত থাকতে আর একটু খানাদানা এবং বিশ্রাম। 

যাক সময় স্বল্পতার কারনে খাবার কিনে নিয়ে গাড়িতে বসেই দুপুরের খাবার সেরে নিলাম । বেলা তখন প্রায় তিনটা। ব্যাংকক থেকে আয়ুত্থা যেতে সময় লাগে দেড় ঘন্টার কিছু বেশি ।  পাঁচটা কি সোয়া পাঁচটা নাগাদ গাড়ি এসে থামল এক পুরাতন প্যাগোডার সামনে । কি নাখান যেন নামটা এখন মনে আসছে না । এটা ওদের ব্যাপক জনপ্রিয় তীর্থ প্লাস টুরিস্ট স্পট ।

http://i.imgur.com/cYUp4uV.jpg

এহেন জায়গা দেখে সফেন আর প্রিয়াম যে কপাল কুচকাল আর সোজা হল না ,কিন্তু আমার বেশ লাগছিল । কেমন একটা পুরান আর স্যাঁতসেঁতে ভাব । স্টুপা গুলো দাঁত বের করে দাড়িয়েছিল মানে ক্ষয়ে যাওয়া ইট দেখে তাই মনে হচ্ছিল ।

এখানকার সন্ন্যাসী গুলো দেখলাম সত্যি কাপড় পরানো । সব গুলা হলুদ কাপড় গায়ে জড়িয়ে আছে।


http://i.imgur.com/h9ZHh0G.jpg

একটা বট কি পিপল গাছে দেখলাম বৌদ্ধ এর মুখ । সবাই সেখানে কাপড় জরিয়ে উইশ/মানত করছে ।


http://i.imgur.com/yGUxREl.jpg

আর একটু থাকার ইচ্ছে থাকলেও থাকতে পারলাম না ক্লান্তি আর ওই দুইজনের গোমরা মুখের কারনে । এর পর সোজা গেস্ট হাউসে । এটাও হুয়াহিনের মত ছোট আর পরিচ্ছন্ন তবে আলো ঝলমলে নয় । প্রচুর গাছপালায় ঘেরা আর কেমন বুনো বুনো ভাব ।

http://i.imgur.com/pSlJIRC.jpg

রুম সার্ভিস অর্ডার করে ফ্রেশ হতে গেলাম , খেয়ে দেয়ে ঘুম । আমাদের থাইল্যান্ড ভ্রমনের সবচেয়ে হেক্টিক দিন পার করলাম । সকালে পাখির কিচির মিচির শব্দে ঘুম ভাঙল । আজ ফেরে যাব অ্যাম্বাসেডর এ । ছোট দুইটা তখন ও গজগজ করছিল ,এক রাতের জন্য কেন এখানে আসলাম ।

মোটামুটি রেডি হয়ে নাস্তা খেতে বের হলাম , ওদের নাস্তা খাওয়ার জায়গায় গিয়ে আমি সব কষ্ট আর ক্লান্তি ভুলে গেলাম ।কি সুন্দর পরিবেশ । পিচ্চি দুইটা ,যাদের দেখে মনে হচ্ছিল কপালে শিং মাছে কাটা দিয়েছে তারাও দেখলাম বেশ প্রফুল্ল হল ।


http://i.imgur.com/Q9FGOSf.jpg


দু পাশে পদ্ম পুকুর আর মাঝে ছাওনি ঘেরা খাবার জায়গা । ইচ্ছে থাকলেও দেরি করলাম না ,ঝটপট খেয়ে রওয়ানা দিলাম ব্যাংকক এ । ঘন্টা দেড়েকের মধ্যে পৌঁছে গেলাম হোটেলে ।

আহ দেখতে দেখতে সময় শেষ হয়ে যাচ্ছে । আগেই ওদের কথা দিয়েছি যে থিম পার্কে নিয়ে যাব। আর বিকেলটা শুধু শপিং এর ।
ব্যাংককের থিম পার্ক ড্রিম ওয়ার্ল্ড আমাদের গন্তব্য । গেটের কাছে নামতেই দেখি ওদের( প্রিয়াম আর সফেন) দাঁত বের করা হাসি ।  আমারও বেশ লাগছিল ঘুরতে ।

https://fbcdn-sphotos-d-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xpf1/v/t1.0-9/38242_1553207072394_926873_n.jpg?oh=36ce20ba3f02a996321c2ca8c55eda14&oe=5678FEE6&__gda__=1450966229_fad880a00b0f0aa72218cdd5dca24350


আমাদের প্রথম রাইড ছিল ক্যাবল কার ,আপু আর ওর মেয়ে এক কার এ আর আমি ও ভাই এক কার এ । এসময় আমি আবিস্কার করলাম আমার হাইট ফোবিয়া  আছে । পাহাড়ে চড়তে এমন লাগে না কিন্তু চারপাশে শুন্যতা ঘেরা উচ্চতা আমার ভাল লাগছিল না ।  আমার ভাই চেহারা দেখে আমার ভয় বা অস্বস্তি আন্দাজ করতে পারছিল আর শাখা মৃগ এর মত মাঝে মাঝে নড়ে চড়ে বসছিল । আমি প্রায় চিৎকার করে বললাম ,দেখ আমার হাইট ফোবিয়া  আছে  এমন করবি না । সে তার দন্ত বিকশিত করে বলল তোমার হাইট ফোবিয়া  ওয়াটার ফোবিয়া টিকটিকি ফোবিয়া সব আছে ,নাই কি ?

https://scontent-sin1-1.xx.fbcdn.net/hphotos-xpa1/v/t1.0-9/38412_1552981906765_3768563_n.jpg?oh=9bc6805e275fce5ad46ff3dccf71162a&oe=5639A04D

নিচে সব কিছু খুব ছোট আর কিউট লাগছিল । পুরা পার্ক এর একটা ভিউ পাওয়া যাচ্ছিল উপর থেকে । যাক মনে মনে দোয়া দরুদ পড়তে পড়তে রাইড শেষ হল ।  এরপর  টয় ট্রেন এ করে ঘোরা আর আরও একটা রাইড এ চড়তে বাধ্য হলাম ।

https://scontent-sin1-1.xx.fbcdn.net/hphotos-xfp1/v/t1.0-9/38242_1553207112395_6590957_n.jpg?oh=96604ac372891dabcd6ed3bfc8c38209&oe=567EFA3A


মাঝে একটু বসে আইস ক্রিম খেতে খেতে সিদ্ধান্ত নিলাম লাঞ্চ এখানেই করব । ওরা হ্যারিকেন   নামের একটা রাইড এ চড়তে চাইল ,আপু বলল এটাই শেষ আর শুধু তোমরা উঠবে আমারা দুজন না । বাপরে এইটার অবস্থা দেখে মনে হল সবাইকে জাম ভর্তা বানাচ্ছে । আমি উঠলে নির্ঘাত বমি করতাম । ওরা ঘেমে অস্থির হয়ে চোখ মুখ লাল করে নেমে এল ।


https://scontent-sin1-1.xx.fbcdn.net/hphotos-xfa1/v/t1.0-9/37538_1552975226598_6825690_n.jpg?oh=b001f17076f6e059d7c957362faee72a&oe=567C4A80

            উপরে ডান থেকে ২য় আর ৩য় তে আমার ভাই আর ভাগ্নিঃ


এবার লাঞ্চ এর পালা ,আজ ওদের দিন তাই লাঞ্চ করলাম কে এফ সি তে । এর পর একটু বসে একটা স্টান্ট শো দেখে কিছু  ছবি তুলে বের হয়ে এলাম । 

https://scontent-sin1-1.xx.fbcdn.net/hphotos-xaf1/v/t1.0-9/38388_1553235793112_5019304_n.jpg?oh=662d4f42a3e1d94d307810e31512e4b2&oe=56763508

এবার কেনাকাটার পালা । শপিং এর জন্য থাইল্যান্ড খুব চমৎকার জায়গা । সারাটা বিকেল এ মার্কেট সে মার্কেট ঘুরে রাতের খাবার খেয়ে ফিরে গেলাম হোটেলে ।
 
পরের দিন ঘুম থেকে উঠলাম এক মিশ্র অনুভূতি নিয়ে ,আজকেই শেষ দিন ভাবতেই একটু মন কেমন কেমন করছিল আবার বাসায় যাব একথা ভাবতেই বেশ ভাল লাগছিল ।
আজ বেশ আয়েশ করেই নাস্তা খেলাম । এরপর একটু বের হলাম কাছেই রবিন্সন এ । চকলেট আর ফল কেনার জন্য । সাথে টুকটাক ফুটপাথ শপিং ।

এরপর ফেরার পালা ,ব্যাগ বোচকা বেধে এয়ার পোর্ট আর সেখান থেকে ঢাকা । থাইল্যান্ড এ সারা বছর এ ভ্রমন করা যায়। বেড়ানো আর শপিং দুই কাজ  এর জন্যই দারুন স্থান এই দেশ।


                                                নটে গাছটি মুড়ালো ,আমার গল্পও ফুরালো    (সমাপ্ত)



বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ আবারও জলকণার খোঁচাখুঁচি তেই  big_smile নাইলে হয়ত দু একদিন পর দিতাম  smile

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

Re: শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

সিরিজটা শেষ করে দিলেন ! sad আমি ভাবছিলাম আরো পর্ব পাবো। যাহোক একটা সফল সিরিজের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ  hug

Re: শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

সুন্দর একটা সিরিজের জন্য ধন্যবাদ smile

আল্লাহ আমাকে কবূল করুন

Re: শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

ইলিয়াস লিখেছেন:

সিরিজটা শেষ করে দিলেন ! sad আমি ভাবছিলাম আরো পর্ব পাবো। যাহোক একটা সফল সিরিজের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ  hug


যার শুরু আছে তার শেষ ও আছে  smile ধন্যবাদ ভাই চমৎকার মন্তব্য আর সম্মাননার জন্য  smile

জারাহ লিখেছেন:

সুন্দর একটা সিরিজের জন্য ধন্যবাদ smile

অনেক অনেক ধন্যবাদ  smile ভাল থাকুন

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

Re: শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

দারুণ ছবি আর ভ্রমণ অভিজ্ঞতা।
আপনার আরও নতুন লেখার অপেক্ষায় রইলাম।

Re: শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

Shoumik লিখেছেন:

দারুণ ছবি আর ভ্রমণ অভিজ্ঞতা।
আপনার আরও নতুন লেখার অপেক্ষায় রইলাম।


অনেক অনেক থ্যাংকস মন্তব্য আর + এর জন্য  smile

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

Re: শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

এক কথায় অসাধারণ। আনার এই সিরিজটা আমার জন্য থাইল্যান্ডের একটা গাইড লাইন হে রইলো। কোন কথা হবে না।  love

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

এক কথায় অসাধারণ। আনার এই সিরিজটা আমার জন্য থাইল্যান্ডের একটা গাইড লাইন হে রইলো। কোন কথা হবে না।  love


অনেক অনেক ধন্যবাদ  smile

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

Re: শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

অনেক ভাল লাগল আপু। আগামীতে অন্য জায়গার ভ্রমণের পোষ্ট পাবো আশা রাখছি ।

জাযাল্লাহু আন্না মুহাম্মাদান মাহুয়া আহলুহু......
এই মেঘ এই রোদ্দুর

১০

Re: শ্যাম রাজার দেশে ( অষ্টম /শেষ পর্ব )

ছবি-Chhobi লিখেছেন:

অনেক ভাল লাগল আপু। আগামীতে অন্য জায়গার ভ্রমণের পোষ্ট পাবো আশা রাখছি ।


ধন্যবাদ  smile দিয়ে দিয়েছি

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো