টপিকঃ আমায় এই ভাবে না মেরে একবারে গলা টিপে হত্যা কর

বাচ্চা ছেলেটা যেদিন নতুন কিনে খেলনা ভেঙ্গে সেখান থেকে মোটর বের করে ব্যাটারি দিয়ে চালায় । তখন তার বাবা বলে ওঠে " আমার ছেলে ইঞ্জিনিয়ার হবে ।"
ঠিক তার পরেই শুরু হয় ইঁদুর দৌড় । বাবা-মা ছেলেদের দাবড়ানি দেয় আর ছেলে গুলা দৌড়ায় ।
বাচ্চা মেয়েটা যেদিন পুতুলের মুখে থার্মোমিটার গুজে দিয়ে জ্বর মাপার চেষ্টা করে । ঠিক তখনি তার বাবা-মা বলে ওঠে "আমার এই মেয়ে ডাক্তার হবে ।"
আবারো সেই ইঁদুর দৌড় শুরু ।
ছেলেমেয়ে মেতে ওঠে এক অসম ইঁদুর দৌড়ে । কিছু ইঁদুর জিতে যায় । আরে ভাই যাবেই ত ।
১০০ টা ইঁদুর একসাথে দৌড়ালে ১ ইঁদুর ত জিতেবেই।
এর পর শুরু হয় বাবামায়ের আস্ফালন । সফল ইঁদুরের বাবামা বলে "আমার ছেলে/ মেয়ের পায়ে অনেক জোর। সেই দৌড়ানি দেয় । আমি ওরে আগে প্রতিদিন হরলিক্স খাইয়াওতাম ।" এদিকে যে সকল ইঁদুর হেরে গেল তাদের বাবা-মায়ের চিল্লাচিল্লি শুরু হয় "তোরে কি আমি হরলিক্স কম খাওাইসিলাম ?" হেরে যাওয়া ইঁদুর গুলর তখন অবস্থা আরও খারাপ হয় ।
আচ্ছা এই ইঁদুর দৌড়ে সবচেয়ে বেশি লাভবান হয়ে কে বলতে পারেন ?
হরলিক্স কোম্পানি ।
তাহলে কেন এমন হয় ? এমন কি হবার কথা ছিল ?
ছেলেটা যখন চারের মার দিয়ে টিমকে জেতায় । তখন তার কোচ তার বাবা মা কে বলে "আপনার ছেলে একদিন বাংলাদেশের প্রাণ সাকিব আল হাসান হবে । " তখন তারা বলে " শুধু ব্যাট ঘুরালে ত পরীক্ষায় A+ হবে না !!!"
সবাইকে কি A+ পেতে হবে ?
আসলেই পেতে হবে । জাতির এখন মৌলিক চাহিদা পাঁচটি " খাদ্য , বস্ত্র , বাসস্থান ,শিক্ষা এবং A+ প্লাস পাওয়া " । সরকারও সবগুলা চাহিদা মেটাতে না পারলেও A+ এর চাহিদা ঠিকই মিটিয়ে চলছে ।
আবার মেয়েটার গানের গলায় যখন আসে পাশের মানুষজন মুগ্ধ হয়ে বলে " আপনার মেয়ের গলাটা কিন্তু বেশ মিষ্টি " তখন কেন এই উত্তর আসে " গান গাইলে কি জ্ঞান বাড়ে ? গানটান করে কি লাভ ?"
সব কিছুইতেই আমাদের লাভ খোজা খুঁজি । এটা কি মুদির দোকান নাকি জীবন ? খালি লাভ ক্ষতির হিসাব কেন ?
লাভ ক্ষতির হিসাব করে যদি সবাই চলত তাহলে আমি আজকে যেই সফটওয়্যার দিয়ে লেখা লেখি করছি সেই সফটওয়ারের কোন অস্তিত্ব থাকত না । কেন জানেন ?
কারণ সফটওয়্যারটি(অভ্র) লিখেছেন একজন ডাক্তার । তার কি ঠেকা পরেছিল অ্যানাটমি পড়া বাদ দিয়ে সফটওয়্যার এর কোড লেখা । কি লাভ ছিল এর মদ্ধে ? কি লাভ বলতে পারেন ।

Re: আমায় এই ভাবে না মেরে একবারে গলা টিপে হত্যা কর

বেশ ভালো লিখেছেন।

You are the one who thinks that i didn't get the point, so do i think of you...what a coincidence!!

Re: আমায় এই ভাবে না মেরে একবারে গলা টিপে হত্যা কর

ইঁদুর দৌড় টা শুরু করেন (শুধুমাত্র) বাবা মা এই কথাটা ভুল। বাচ্চাকে এই দৌড়ে যোগ দিতে আস্ফালনে ভুমিকা রাখেন আত্মীয় স্বজন(মামা-খালা-ফুফু-দাদা-দাদী-নানা-নানী), বন্ধু-বান্ধব, স্কুল-টিচার, প্রাইভেট টিউটর ইত্যাদি। আমার ছেলেটা ছোট, যা পড়ে তার চার গুন দুষ্টুমি করে।কিন্তু একদিন লক্ষ্য করলাম, সে সন্ধ্যায় পড়তে বসে, ভাল হওয়ার চেষ্টা করছে । ব্যাপার হলো, সে ঐ দিন টিউটোরিয়াল পরীক্ষার রেজাল্ট এনেছিল ,আমি যথারীতি উচ্চসিত প্রশংসা করে ছেড়ে দিয়েছি। কিন্তু কে বা কারা তাকে বুঝিয়েছে এটা ভাল রেজাল্ট নয়, ভাল রেজাল্ট হলো A+(গোল্ডেন), তাই এই জন্য তাকে ভাল পড়াশুনা করতে হবে।... ছেলেটা আর তার সামনে বইয়ের পাহাড় দেখে মনটা খারাপ হয়ে গেল।...এই দূরন্ত শৈশবে কে তাকে এই ঘৃণ্য প্রতিযোগিতায় ঠেলে দিল??? neutral

আল্লাহ আমাকে কবূল করুন

Re: আমায় এই ভাবে না মেরে একবারে গলা টিপে হত্যা কর

আপনার ভাবনার বিষয়টি অত্যন্ত যুগোপযোগী এবং প্রাসঙ্গিক। তবে এ থেকে পরিত্রাণের উপায় কী বলতে পারেন? আসলে আমাদের সকল কার্যকলাপ, চিন্তা-চেতনার মাঝে আমাদের সামাজিক ও নৈতিকমুল্যবোধর দৈন্যদশা প্রতিফলিত হয় এবং এটা তারই উদাহরণ মাত্র। হয়তো কোনদিন আমরা শুধরাবো। Let’s wait for the day.

HSC English

Re: আমায় এই ভাবে না মেরে একবারে গলা টিপে হত্যা কর

সর্ম্পূণ আমার কাহিনীরে ভাই sad হইতে চাইছিলাম কম্পুর মিস্ত্রি হইলাম আমি কি  crying crying crying যাই হোক সবই কপাল আর এই সমাজ ব্যবস্থার দোষ sad

সব কিছু ত্যাগ করে একদিকে অগ্রসর হচ্ছি

লেখাটি CC by-nd 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: আমায় এই ভাবে না মেরে একবারে গলা টিপে হত্যা কর

হুমায়ূন আহমেদ এর নাটক থেকে একটা সময় বাংলাদেশে বেশ বড়ো মাপের একটা বিদ্রোহ জেগে উঠেছিলো, মানুষ বিষয়টা নিয়ে ভাবছিলো। পরে অবশ্য খাত-বেখাত হয়ে সেই উজ্জ্বীবিত অবস্থান থেকে পুরো বাংলাদেশকেই সরিয়ে আনা হয়। উক্তিটা ছিলো জোসস -- "তুই রাজাকার!"। একটা ময়না পাখিকে এই উক্তিটা বেশ কসরৎ করে শেখানো হয় আর পরে ওটা নাটকের বিশেষ একটা চরিত্রকে উদ্দেশ্য করেই প্রয়োগ করা হয়েছিলো যে চরিত্রটা আমাদের ঐ সময়কার সমাজের সাথে সরাসরি সম্পর্কিত ছিলো।

আগামীতে এইসব গনহারে জিপিএ ৫ বা এ+ পাওয়া শিক্ষার্থীদের জন্যেও সম্ভবত আরেকটা ধাক্কা আসতে যাচ্ছে। হয়তোবা অদূর ভবিষ্যৎ সময়ে আমরা এটাও শুনবো যে -- "তুই জিপিএ ৫!" এবং সেটা নাটকের ঐ ভয়াবহতাযুক্ত উক্তিটার মতোই ভয়াল আকার নেবে।

মহাসচিব, এফওএসএস বাংলাদেশ। সদস্য, লিনাক্স মিন্ট বাংলাদেশ। ব্যক্তিগত ব্লগঃ রিং-দ্য ডন 'র ব্লগ

রিং'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: আমায় এই ভাবে না মেরে একবারে গলা টিপে হত্যা কর

একজন পরিচিত কিন্ডার গার্ডেন-এর শিক্ষক বলেছিল যে;

তার স্কুলের বাচ্চাদের প্রায় অভিভাবক/ভাবিকারা বাচ্চাদের পরীক্ষার খাতায় নম্বর বেশী দেওয়ার জন্য শিক্ষকদের পার্সোনালী টাকা বা উপহার সরবরাহ করে (সবাই না) । শুধু মাত্র একটি বা দুটি নম্বর বেশী দেবার জন্য শিক্ষকের দেওয়া অনৈতিক প্রস্তাবে সাড়া দেওয়া অভিভাবিকা সম্পর্কেও বলল।

এই ভাবে নাম্বার বেশী নিয়ে কি লাভ হয় তা জানার জন্য প্রশ্ন করতেই সে বলল, এই ধরনের অভিভাবকেরা বেশীর ভাগই অল্প শিক্ষিত অথচ স্থানীয়দের মাঝে তুলনামূলক বেশী টাকার মালিক। তারা তাদের সমগোত্রীয়দের সাথে বড়াই বা বাহাদুরী দেখানোর উদ্দেশ্যেই এই কাজ গুলি করে থাকে। তাদের মানষিকতা এমন যে, টাকা দিয়েই সব কিছু সম্ভব তা টাকা যে পথেই আসুক।

কচি বাচ্চাদের পিছনে "কুলির মোট (বইয়ের বোঝা)", ৪~৫ টা টিউটর, কম্পিউটার গেম ইত্যাদি। ভাবখানা এমন এসব দিলেই বাচ্চারা বিল-গেটস হয়ে যাবে।

মন্তব্যঃ আমি জানি না এই "কুলির মোট" বহনকারী কোমলমতি শিশুরা জীবনের বোঝা নিতে পারবে কি না। বার বার অঞ্জন দত্তের একটা গানের কলি মনে আসছেঃ  "চশমাটা খসে গেলে মুশকিলে পড়ি, দাদা আমি এখনও যে স্কুলে পড়ি।।"

(স্বগোক্তি:  ও মোর আল্লাহ কি লিখতে কি লিখলাম ? )

????????????????????????????????????????????????????????????????????
Nothing Like Anything
????????????????????????????????????????????????????????????????????

Re: আমায় এই ভাবে না মেরে একবারে গলা টিপে হত্যা কর

ছোট কালে শুনতাম অমুকে ছেলে এ+ অমুকে মেয় এ+ তুই  roll কি করলি ! তার পর অমুকের ছেলে এই চাকরি করে এত্তো টাকা বেতন তুই  roll কি করলি ! আর যখন সব কিছু ছেড়ে টাকা ইনকামের জন্য যন্ত্র প্রায় এখন বলে তুই অনেক বদলে গেছিস ! বলার কিছু নেই এটাই বাস্তবতা।

নাই