টপিকঃ রাজনৈতিক অস্থিরতায় দাতারা মুখ ঘুরিয়ে নিয়েছে এ কথা বলার উপায় নেই।

বিশ্বব্যাংকের সহযোগী সংস্থা আইডার ঋণ ব্যবহারে বাংলাদেশ প্রথম সারিতে রয়েছে। উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান অনেক উপরে। গত অর্থবছরের তুলনায় চলতি অর্থবছরে অর্থছাড়ের পরিমাণ বেড়েছে প্রায় ১ কোটি ৪১ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার। এ সময়ে সবচেয়ে বেশি অর্থছাড় করেছে বিশ্বব্যাংক। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। শুধু ফেব্রুয়ারি মাসে (এক মাসে) উন্নয়ন সহযোগীরা অর্থছাড় করেছে মোট ৯ কোটি ৭৩ লাখ মার্কিন ডলার। এর মধ্যে ঋণের পরিমাণ ৮ কোটি ৮৯ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার এবং অনুদান হচ্ছে ৮৩ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার। রাজনৈতিক অস্থিরতার প্রভাব এখনও সরাসরি বৈদেশিক সহায়তার ক্ষেত্রে পড়েনি বলেই সাত মাসে বৈদেশিক সহায়তা বেড়েছে। সরকারী সম্পদ ব্যবহারে সক্ষমতা বৃদ্ধি, সরকারী কর্মকর্তাদের আন্তরিকতা, নতুন নতুন দাতা দেশ যুক্ত হওয়া এবং বাংলাদেশে সহায়তার প্রয়োজনীয়তা দাতাদের বোঝাতে পারার কারণেই বৈদেশিক সহায়তা বেড়েছে। সরকারের দায়িত্বশীলদের তৎপরতা এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সফল নেগোশিয়েশনের ফলেই উন্নয়ন সহযোগীদের আস্থা অর্জন সম্ভব হয়েছে। রাজনৈতিক অস্থিরতা বৈদেশিক সহায়তার ক্ষেত্রে কোন খারাপ প্রভাব ফেলতে পারেনি। তার প্রমাণ হচ্ছে হরতাল অবরোধ সত্ত্বেও দাতাদের অর্থছাড় বেড়েছে। রাজনৈতিক অস্থিরতায় দাতারা মুখ ঘুরিয়ে নিয়েছে এ কথা বলার উপায় নেই। সহায়তা বরং বাড়ছে। গত তিন বছর ধরে প্রতিবছর বিশ্ব ব্যাংকের ডিসবাসমেন্ট তার আগের বছরের চেয়ে বেশি হয়েছে। এ সকল তথ্য পর্যালোচনান্তে আশা করা জায় আগামীতে বৈদেশিক সহায়তা আরও বাড়বে।