টপিকঃ ঘুষের ব্যাপারে উসখুস

বাসায় বসে বসে ভাবছিলাম পরের শুক্রবার কোথায় আড্ডা দেব, এমন সময় আমার কাজিন আনন্দ হন্তদন্ত হয়ে আমার রুমে ঢুকে উত্তেজিত ভঙ্গিতে বলল: নাহ শামীম ভাই, ঘুষকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ না দিলে আর চলতেছে না।

আমি তো হতবাক - এই পোলা কয় কি! অলরেডী দেশে যেমনে ঘুষের মহোচ্ছব চলতাছে... এর উপর আবার প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিলে তো, ঐ রূপের ঝলকে চোখ আন্ধা হইয়া যাইবো; মনের কথাটা কোৎ করে গিলে ফেলে জিজ্ঞেস করলাম: ক্যান?

আনন্দ বেশ ঝাঁঝের সাথে বলতে লাগল: দ্যাখেন যে অফিসেই কোন কাজের জন্য যাই, চা-নাস্তা করার জন্য কিছু চায়। আমিতো নিরূপায় হয়ে এক জায়গায় চা-সিঙ্গারা আনার জন্য ঐ অফিসের পিয়নকে ডেকে ৫০টাকা হাতে দিসলাম - তখন ঐ অফিসার ব্যাটা বলে কি... আরে আপনি দেহি কিসুই বোজেন না, এমুন করলে তো আপনার কাম হইবো না; বেরেনটা এট্টু খরচ করেন - আমি কি কই বোজার চ্যাষ্টা করেন। তখন আমি ঐ ৫০ টাকা পিয়নের কাছ থেকে ফেরৎ নিয়ে ঐ ব্যাটার টেবিলে রাখলাম। ব্যাটা টাকা পকেটে ঢুকাতে ঢুকাতে বলে, ১০০০ টাকা দিতে হইবো। আরে আমি কি পকেটে অত টাকা নিয়ে ঘুরি? ....

ও আরো কিছু বলতে যাচ্ছিলো, আমি বাধা দিয়ে বললাম: তুইতো বেকুবি করছিস, শুরুতেই ৫০ টাকার নোট দেখাইছিস ... ১০০০ টাকা তো চাবেই; উচিৎ ছিলো ১০ টাকা বের করা, তাইলে ঐ ব্যাটা ২০০ টাকার বেশি চাইতো না ---- বলে ঘুষ বিষয়ক বিশেষজ্ঞের মতো ভাব নিলাম।
আনন্দ নিজের ভুল স্বীকার করে বলল: আসলেই ভুল হইছে; কিন্তু যেসব অফিসে ডাইরেক্ট কিসু মাল ছাড়তে বলে? ------- বলে আমার দিকে প্রশ্নবোধক দৃষ্টি নিক্ষেপ করল।

বললাম: ডাইরেক্ট জিগাবি - রেট কত? আমরা তো টেলিফোনের লাইনম্যানের সাথে এভাবেই ডীল করছি, কারণ হুদা কামে বেশী পয়সা দিয়ে তো লাভ নাই, আবার কম দিলেও ধুনফুন করবো; তাই লজ্জা শরম করে লাভ নাই, ডাইরেক্ট রেট জিগাইতে (জিজ্ঞেস করতে) হবে; বি প্রোফেশনাল ম্যান!
ও লা জওয়াব দেখে আমি জিজ্ঞ্যেস করলাম: তা ... তুই প্রাতিষ্ঠানিক রূপের ব্যাপারে কি জানি বলতেছিলি?

দম নিয়ে আনন্দ বেশ সোসৎসাহে বলা শুরু করল: এমন হলে ভালোী হতো না যে, প্রতি অফিসে কোন কাজের কত রেট তা সাইনবোর্ড দিয়ে ঝুলায় রাখবে; তাহলে কাউকেই আর কাজটা করানোর জন্য কত পয়সা পকেটে নিয়ে যেতে হবে তা নিয়ে টেনশন করতে হবে না, আর ওদেরকেও নির্লজ্জ চামারের মত চাইতে হবে না।
আমি আবার ওকে বাধা দিয়ে এক ভ্রু উচিয়ে সিরিয়াস ভঙ্গিতে বললাম: হুঁ তা তো বুঝলাম, কিন্তু ওভাবে সাইনবোর্ড টাঙ্গাতে হলে তো আইনের ব্যাকআপ লাগবে।

ও তো দমে গেলই না, বরং আরো উৎসাহের সাথে বলতে থাকল: আরে সেই কথাটাই তো বলতে চাচ্ছিলাম। এটার আইনগত বৈধতা থাকবে।
শুনে তো আমার আক্কেল গুড়ুম, কোনমতে বললাম: কক্ কিভাবে?
ও বলতে থাকল: বুঝলেন না .... এটা হবে ট্যাক্সেবল ইনকাম। তাতে সাপও মরল আর লাঠিও ভাঙ্গলো না। তবে এ বিষয়ে আইন পাশ করতে হবে আগে।

আমি বললাম: তাহলে তো ওরা আইন দ্যাখায় ইচ্ছামত লোকের গলা কাটবে ......
আনন্দ: না... না... ব্যাপারটা হলো, ওরা এখন যে রেটে ঘুষ নেয় সেই রেটই ফিক্স থাকবে। প্রথমে ক্লায়েন্ট সরকারি ফী যথারীতি জমা দেবে, তারপর নির্ধারিত ঘুষ ফী অফিসেই একজনের কাছে জমা দিবে এবং এখান থেকেও একটা রিসিট নেবে। তারপর সেই রিসিট দেখায় কাজ করায় নেবে। আর অফিসের সংগৃহীত ঘুষফী সেন্ট্রালি ডিসট্রিবিউট হবে - পুলিশের মত। তাতে দ্যাখেন কত লাভ .... ক্লায়েন্টকে অযথা হয়রান হতে হল না .... দেশের অর্থনীতি মজবুত হল ....ঘুষখোরগুলা লাইনে থাকল ..... আর, আপনাদের মত মানুষ যারা সাধারণ মোরালিটির কারণে ঘুষ খেতে পারেনা কিন্তু বাটে পড়ে ঘুষ দিতে বাধ্য হন তারাও খুশি থাকলেন ....

আনন্দ আরো কিছু বলার আগেই জিজ্ঞেস করলাম: অর্থনীতি নিয়া টান দিলা যে?
ও বলতে থাকল: দাড়ান, আগে উপকারের লিস্টটা শেষ করে নেই তারপর ব্যাখ্যা দিচ্ছি, যদি লাগে ..... কই জানি ছাড়লাম ... ও মনে পড়ছে .... আপনারা খুশি থাকলেন .... বৈষম্য দুর হবে ... দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হওয়া লাগবে না .. ইত্যাদি। এখন বলতেছি, ইকোনমিকাল পয়েন্ট অব ভিউ .... .... দেখেন এ দেশে লিগালি যত লেনদেন হয় তার চেয়ে বেশী হয় ইল্লিগালি - এ কথাটা তো মানেন?

বললাম: তা না হয় আপাতত মেনে নিলাম ..... তো?
আনন্দ: এই ইল্লিগাল লেনদেনের ম্যাক্সিমাম হলো ঘুষ ....... আর এটা যদি ট্যাক্সেবল হয় তাহলে রেভিনিউ কত বাড়বে চিন্তা করেন!

আমি: কিন্তু ...
আনন্দ: কিন্তু কিন্তু করেন ক্যান ... এর আগেও তো কালো টাকা সাদা করার অনেক পলিসি করছে সরকার ... কি করে নাই?

আমি: আচ্ছা এটা নাহয় আপাতত মেনে নিলাম কিন্তু বৈষম্য?
আনন্দ: আরে আপনি আবার আপাতত আপাতত করতেছেন ক্যান ... বৈষম্য বুঝলেন না ... এটাতো সবচেয়ে সোজা। অফিসগুলাতে সৎলোকগুলা একই পরিমান কাজ করে কিন্তু ওই কম বেতনে টানাটানি করে সংসার চালায়, অথচ তাদের চেয়ে কম যোগ্যতাসম্পন্ন লোক ঘুষের জোরে কি করে ফেলতেছে ... এখন সেন্ট্রালি ডিসট্রিবিউট হলে তো সেই বৈষম্য দুর হবে ... কি ঠিক বলি নাই?

আমি: এটাও নাহয় বুঝলাম, কিন্তু প্রমোশন বানিজ্যের কি হবে? আমরা আর কতদিন এভাবে নিজেদের আকামগুলো ঢাকতে তত্বাবধায়ক সরকার টাইপের নিত্যনতুন সিস্টেম বের করব?
আনন্দ এ্যাতক্ষনে একটু ব্রেক মারল মনে হল ...

(এই লেখাটি অনেক পূর্বে আমার অন্য ব্লগে প্রকাশিত হয়েছিলো)

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আহমাদ মুজতবা (১৮-০৪-২০০৮ ০৩:০১)

Re: ঘুষের ব্যাপারে উসখুস

দারূন কাহিনী !

পোস্ট খানা চায়ের কাপে ঝড়ে কেন? বুঝলাম না ঠিক

Rhythm - Motivation Myself Psychedelic Thoughts

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ঘুষের ব্যাপারে উসখুস

আহমাদ মুজতবা লিখেছেন:

দারূন কাহিনী !

পোস্ট খানা চায়ের কাপে ঝড়ে কেন? বুঝলাম না ঠিক

এ্যাত্ত বড় একটা তর্ক-বিতর্ক যুক্তি-পাল্টাযুক্তি হয়ে গেল কাহিনীর মধ্যে আর সেটা চায়ের কাপে ঝড়-এ যাবে না?:-O

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ঘুষের ব্যাপারে উসখুস

ওহ টপিকের ভিতর তর্ক থাকলেও বুঝি সেইটা চায়ের কাপে ঝড় হতে পারে

আমি তো ভাবছিলাম তর্ক করার জন্য কোন টপিক ওপেন করলেই এখানে আসবে thinking

Rhythm - Motivation Myself Psychedelic Thoughts

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ঘুষের ব্যাপারে উসখুস

আহমাদ মুজতবা লিখেছেন:

ওহ টপিকের ভিতর তর্ক থাকলেও বুঝি সেইটা চায়ের কাপে ঝড় হতে পারে

আমি তো ভাবছিলাম তর্ক করার জন্য কোন টপিক ওপেন করলেই এখানে আসবে thinking

আমার মাথায় প্যাঁচ লাগায় দিলেন দেখছি thinking hairpull

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ঘুষের ব্যাপারে উসখুস

কেন এটা নিয়ে কি এখন তর্ক করা যাবে না? অবশ্যই যাবে। এই যেমন একটা সমস্যা আছে। ঘুষের ব্যাপারটা অনেক জায়গায় নিলামের মত। যে যত বেশি ঘুষ দেবে সে কাজটা পাবে। সেখানে কীভাবে ফিক্সড রেট দেয়া যাবে? thinking

Re: ঘুষের ব্যাপারে উসখুস

স্বপ্নচারী লিখেছেন:

কেন এটা নিয়ে কি এখন তর্ক করা যাবে না? অবশ্যই যাবে। এই যেমন একটা সমস্যা আছে। ঘুষের ব্যাপারটা অনেক জায়গায় নিলামের মত। যে যত বেশি ঘুষ দেবে সে কাজটা পাবে। সেখানে কীভাবে ফিক্সড রেট দেয়া যাবে? thinking

ভাই এইভাবে যদি তর্কের পয়েন্ট প্রতিটা পোস্টে খুজি তাহলে সবগুলাতেই তর্ক করা যাবে আর সবগুলাই চায়ের কাপে ঝড়ে এসে পড়বে...

Rhythm - Motivation Myself Psychedelic Thoughts

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ঘুষের ব্যাপারে উসখুস

আহমাদ মুজতবা লিখেছেন:

ভাই এইভাবে যদি তর্কের পয়েন্ট প্রতিটা পোস্টে খুজি তাহলে সবগুলাতেই তর্ক করা যাবে আর সবগুলাই চায়ের কাপে ঝড়ে এসে পড়বে...

সব সময় ঝোপ বুঝে কোপ মারতে হয়। পাকা রাস্তায় কোপ দিলে তো কোদাল নষ্ট হয়ে যাবে।  যাই হোক, স্বপ্নচারী ভাইয়ের পয়েন্টটা কিন্তু তর্কের খাতিরেই বের করা হয় নি। এটা আসলেই একটা সমস্যা।

আর আমার যা মনে হয়, ঘুষ অফিসে কাজ সারতে ঘুষ দিতে হবে। কিন্তু সেই ঘুষ আবার কোন অফিসে দেব। আবার সেই অফিসে যদি ঘুষ দিতে হয় ?  surprisedsurprised
এতো বৃত্তাকারে খালি ঘুরতেই থাকবে। surprisedsurprised

Feed থেকে ফোরাম সিগনেচার, imgsign.com
ব্লগ: shiplu.mokadd.im
মুখে তুলে কেউ খাইয়ে দেবে না। নিজের হাতেই সেটা করতে হবে।

শিপলু'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ঘুষের ব্যাপারে উসখুস

প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিলেও আরও সমস্যা আছে। তখন ঘুষ দেবার জন্য আবার ঘুষ দেয়া লাগবে। মানে ঘুষ দেয়ার জন্য সুযোগ করে দিলে সবাই ঘুষ দিবে। ফিক্সড রেটে ঘুষ দিলে আপনার কাজ আগে করে দিবে না যে আগে ঘুষ দিছে তার কাজ আগে করে দিবে? যে আগে ঘুষ দিয়েছে তার কাজ আগে করে দিলে তো ঘুষ দেয়ার কোন মানে থাকবেনা। আরও হচ্ছে আপনি যে ঘুষ দিছেন এটা সেন্ট্রালি ডিস্ট্রিবিউট যে হবে তার নিশ্চয়তা কই। ভাই রাজস্বই যখন সরকারের কোষাগারে জমা হয়না তখন ঘুষের টাকার তো আরও হিসাব থাকবেনা। তখন দুদকে মামলা হবে ঘুষের টাকা আত্মসাতের। তাই ঘুষ যেমন লুকায় দেয়া-নেয়া হচ্ছে তেমনই ভালো আছে কিছু বুঝলেন??

আমি বাঙালী, আমি বাংলাদেশী, আমি দক্ষিণ এশীয়.... কিন্তু সবার উপরে আমি একজন মানুষ... এটিই আমার পরিচয়।

আমি মুক্ত জীবনে বিশ্বাসী তাই আমি লিনাক্স ব্যবহার করি।