টপিকঃ বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

২৫ জানুয়ারি রওনা হয়ে ২৬ তারিখ সকালে পৌছাই খাগড়াছড়ি। একটি মাহেন্দ্রা গাড়ি রিজার্ভ করে নিয়ে সারা দিনের জন্য বেরিয়ে পড়ি খাগড়াছড়ি ভ্রমণে। একে একে দেখে ফেলি “আলুটিলা গুহা”, “রিছাং ঝর্ণা”, “শতবর্ষী বটবৃক্ষ” আর “ঝুলন্ত সেতু”।
পরদিন ২৭ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি থেকে রাঙ্গামাটির দিকে রওনা হই একটি চান্দের গাড়ি রিজার্ভ করে। পথে থেমে দেখে নিই “অপরাজিতা বৌদ্ধ বিহার”। ২৭ তারিখ দুপুরের পরে পৌছাই রাঙ্গামাটি। বিকেল আর সন্ধ্যাটা কাটে বোটে করে কাপ্তাই লেক দিয়ে “সুভলং ঝর্ণা” ঘুরে।
২৮ তারিখ সকাল থেকে একে একে দেখে এলাম ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি ও রাজবন বিহার। দুপুরের পরে বাসে করে রওনা হয়ে যাই রাঙ্গামাটি থেকে বান্দারবানের উদ্দেশ্যে। রাতটা কাটে বান্দরবানের “হোটেল ফোরস্টারে”।
পরদিন ২৯ তারিখ সকালে একটি জিপ ভাড়া করে নিয়ে চলে যাই নীলগিরিতে। নীলগিরি থেকে ফেরার পথে দেখে নিলাম শৈলপ্রপাত। বিকেলটা কাটিয়ে দিলাম নীলাচলে সূর্যাস্ত দেখে।


৩০শে জানুয়ারি সকালে সবাই ঘুম থেকে উঠি কিছুটা দেরি করেই, আজকে রাতেই ফিরবো ঢাকা, বাসের টিকেট কেনাই আছে। সকালের নাস্তা সরলাম সেই রি-সং সং রেস্টুরেন্টে। তারপর সেখান থেকে দুটি সি.এন.জি নিয়ে চলে আসলাম মেঘলাতে।

মেঘলা পর্যটন কেন্দ্র বান্দরবান শহর থেকে ৪ কিলোমিটার দূরে পাহাড়ের খাদে বাধ নির্মাণ করে কৃত্রিম হ্রদের সৃষ্টি করে এটি তৈরি করা হয়েছে। প্রবেশের টিকেট মূল্য ১০ টাকা। ঢালু একটা পথ ধরে নামতে হয় প্রথমেই।
https://scontent-a-sin.xx.fbcdn.net/hphotos-xpa1/t31.0-8/p720x720/1921047_10203196085920961_3498317478967013372_o.jpg
{মেঘলার ম্যাপ}


এখানে রয়েছে শিশু পার্ক, নৌকা ভ্রমণের ব্যবস্থা আছে, রয়েছে ২টি ঝুলন্ত সেতু এবং একটি মিনি চিরিয়াখানা, আছে একটি ওয়াচ টাওয়ারও, আর আছে একটা ক্যাবল কার (নাম মাত্র)। বিশ্রাম এর জন্য বেশ কটি বসার যায়গা আছে।
https://fbcdn-sphotos-h-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xpa1/t31.0-8/p600x600/10454414_10203196075360697_8073839153483318173_o.jpg


https://fbcdn-sphotos-b-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xfp1/t31.0-8/p180x540/10256410_10203196075480700_5532234679685586781_o.jpg


আমরা প্রথম বাম দিকের ঝুলন্ত সেতুটি পার হয়ে একটি ছাউনির নিচে বসলাম বিশ্রামের জন্য। বাচ্চা আর মেয়েরা সমনের দিকে গেলো দেখার জন্য, সাথে রইলো স্বপন। ইস্রাফীলও গেলো কিছুক্ষণ পরে।
https://fbcdn-sphotos-f-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xpf1/t31.0-8/p480x480/10450128_10203196076600728_3873458596865123193_o.jpg


https://fbcdn-sphotos-e-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xaf1/t31.0-8/p480x480/10491345_10203196077240744_7277088585451317185_o.jpg


কিচ্ছু ক্ষণের মধ্যেই বসির প্রকৃতির ডাকে সার দেয়ার জন্য অস্থির হয়ে গেলো।  সমনেই একটা টয়লেটের সাইন আছে দেখেছি আমি, ঐদিকেই যেতে বললাম। আমি এক-এক কাঠের বেঞ্চিতে শুয়ে আছি, মাথার উপরে ছনের ছাউনি।
https://fbcdn-sphotos-d-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xpa1/t31.0-8/p480x480/10551509_10203196075920711_5208160778141762367_o.jpg


সমনেই জলের উপর দিয়ে শীতল বাতাসের কোমল পরশ নিচ্ছি গায়ে। কিন্তু কেউই আর ফিরছে না। বসে থাকতে থাকতে শেষ পর্যন্ত প্রায় এক ঘণ্টা পরে ফোন দিয়ে জানলাম ওরা আছে চিরিয়াখানার কাছে।
https://fbcdn-sphotos-c-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xfp1/t31.0-8/p480x480/10551687_10203196077880760_2141808101013991920_o.jpg


https://fbcdn-sphotos-d-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xpf1/t31.0-8/p180x540/10380474_10203196082960887_1116427454437579105_o.jpg


অর্থাৎ এরা অলরেডি পুরো মেঘলা এক চক্কর ঘরে এসে পরেছে!! আমি ৪৫ মিনিটের পথে পা না বাড়িয়ে উল্টো পথে ১০ মিনিটের কম সময়ে পৌঁছে গেলাম চিরিয়াখানা কাছে।
https://fbcdn-sphotos-e-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xpa1/t31.0-8/s960x960/10519755_10203196074720681_1346394048226422612_o.jpg


https://fbcdn-sphotos-f-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xfp1/t31.0-8/p180x540/10521191_10203196084000913_330325012536929896_o.jpg



https://scontent-a-sin.xx.fbcdn.net/hphotos-xap1/t31.0-8/p600x600/10505208_10203196084200918_6299940049889662696_o.jpg
ওরা সবাই হেঁটে হেঁটে ক্লান্ত। তাই ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসে কিছুটা মসয় রেস্ট নিয়ে আবার আমরা হাটা শুরু করি ফেরার পথে।


https://fbcdn-sphotos-h-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xap1/t31.0-8/p180x540/10498441_10203196078920786_1282899959886161140_o.jpg
ঘুরা পথে যাওয়ার সময় এখন থেকে চমৎকার মিষ্টি আনারস কিনে এনে ছিল আমার জন্য।



https://fbcdn-sphotos-b-a.akamaihd.net/hphotos-ak-xpf1/t31.0-8/p180x540/10496960_10203196081400848_1107312996249194081_o.jpg



https://scontent-a-sin.xx.fbcdn.net/hphotos-xfp1/l/t31.0-8/p180x540/10550109_10203196085040939_6383085357392052843_o.jpg



https://scontent-a-sin.xx.fbcdn.net/hphotos-xfp1/t31.0-8/p180x540/10469167_10203196085840959_5752593911369891756_o.jpg

আগামী পর্বে দেখা হবে স্বর্ণ মন্দিরে।


পূর্বের পর্বগুলি -
খাগড়াছড়ির পথে”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – প্রথম পর্ব”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – আলুটিলা গুহা”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – রিছাং ঝর্ণা”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – শতবর্ষী বটবৃক্ষ”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – ঝুলন্ত সেতু”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – অপরাজিতা বৌদ্ধ বিহার”।
রাঙ্গামাটি ভ্রমণ – সুভলং ঝর্ণা ও কাপ্তাই হ্রদে নৌবিহার”।
রাঙ্গামাটি ভ্রমণ – ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি ও রাজবন বিহার”।
বান্দরবান ভ্রমণ – নীলগিরি”।
বান্দরবান ভ্রমণ – শৈলপ্রপাত”।
বান্দরবান ভ্রমণ – নীলাচল”।


প্রথম প্রকাশ : ঝিঁঝি পোকা
https://fbcdn-sphotos-a-a.akamaihd.net/hphotos-ak-ash3/249083_10201394970614204_700541791_n.jpg

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

দারুন লাগল ভ্রমণ.......কথন আর ছবি

জাযাল্লাহু আন্না মুহাম্মাদান মাহুয়া আহলুহু......
এই মেঘ এই রোদ্দুর

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

ছবি-Chhobi লিখেছেন:

দারুন লাগল ভ্রমণ.......কথন আর ছবি

ধন্যবাদ ছবি আপু

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন RubaiyaNasreen(Mily) (১৮-০৭-২০১৪ ১১:০৯)

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

আপনি তো ভ্রমণ বিশারদ হয়ে গেলেন !!! big_smile চমৎকার সব ছবি

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

জায়গাটা সুন্দর। ওইখানে ঝুলন্ত একটা কার আছে, ওইটায় উঠেন নাই ? রীতিমত থ্রিলিং  big_smile

আমি এইটা নিয়ে লিখতে চাচ্ছিলাম, কিন্তু হার্ডডিস্ক ক্রাশ করাতে সব কিছু হারিয়ে গেছে। sad
কাজিনের কাছে ছবিগুলো আছে কিন্তু সে ছবি রেখে আসছে রাজশাহীতে।

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

কলা আর ডাব দেখে খাইতে মন চাইতেসে । এত রাইতে কই পাই  crying

মুইছা দিলাম। আমি ভীত !!!

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

RubaiyaNasreen(Mily) লিখেছেন:

আপনি তো খাগড়াছড়ি বিশারদ হয়ে গেলেন !!! big_smile চমৎকার সব ছবি

মিলি আপু, এটা কিন্তু বান্দরবান  ghusi

মেহেদী৮৩ লিখেছেন:

জায়গাটা সুন্দর। ওইখানে ঝুলন্ত একটা কার আছে, ওইটায় উঠেন নাই ? রীতিমত থ্রিলিং

আমরা যেখানে বসা ছিলাম তার সামনেই ঐ বস্তুটি ছিলো। উঠি নাই কারণ ঐটা ক্যাবল কারের ধারে কাছের কিছু না। আমি প্রথম ক্যাবলকারে চড়ি কলকাতার Science City তে। মিসেসও সাথেই ছিলো।

http://static.panoramio.com/photos/large/42191469.jpg
Science City


দ্বিতীয়বার চড়ি মালয়শিয়ার Genting Highlands এর বিশাল ক্যাবলকারে।

http://upload.wikimedia.org/wikipedia/commons/7/79/Genting_Highland_Malaysia_(13).JPG
Genting Highlands

মেহেদী৮৩ লিখেছেন:

আমি এইটা নিয়ে লিখতে চাচ্ছিলাম, কিন্তু হার্ডডিস্ক ক্রাশ করাতে সব কিছু হারিয়ে গেছে। sad
কাজিনের কাছে ছবিগুলো আছে কিন্তু সে ছবি রেখে আসছে রাজশাহীতে।

আপনার চমৎকার একটা লেখার অপেক্ষায় রইলাম।

ফারহান খান লিখেছেন:

কলা আর ডাব দেখে খাইতে মন চাইতেসে । এত রাইতে কই পাই  crying

সকাল সকাল চেলে যায়েন দোকানে।  hehe

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

ঠিক করে দিলাম

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

clap clapঅনেকসুন্দর টপিক দস্যু ভাই এই ফাঁকে বান্দরবন ঘুরা হয়া গেলো  smile
স্বর্ন মন্দির দেখার অপেক্ষায় থাকলাম জলদি জলদি দেন  hug hug
মাগার এইডা কি হইলো দস্যু ভাই  ,

অলরেডি পুরো মেঘলা এক চক্কর ঘরে এসে পরেছে!

কার ঘরে   tongue আরেক জায়গায় সময় মসয় হয়ে গেছে  smile

মানুষ মাত্রই মরন শীল , কিন্ত নশ্বর নয় ।।

১০

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

রহস্য মানব লিখেছেন:

clap clapঅনেকসুন্দর টপিক দস্যু ভাই এই ফাঁকে বান্দরবন ঘুরা হয়া গেলো  smile
স্বর্ন মন্দির দেখার অপেক্ষায় থাকলাম জলদি জলদি দেন  hug hug
মাগার এইডা কি হইলো দস্যু ভাই  ,

অলরেডি পুরো মেঘলা এক চক্কর ঘরে এসে পরেছে!

কার ঘরে   tongue আরেক জায়গায় সময় মসয় হয়ে গেছে  smile

আন্তরিক ধন্যবাদ আপনাকে রহস্য মানব ভাই। স্বর্ণ মন্দিরের টপিক আসবে দ্রুতই।
সরি বানান ভুল গুলির জন্য।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১১

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

মেঘলা-তে অন্তত দশবার গিয়েছি। কিন্তু এ নিয়ে লেখা তো হয়নি কিছুই, ছবি তোলাও হয় নি। sad

আপনার ছবি ও বর্ণনা ভালো লাগলো। smile

আমার সকল টপিক

কোনো কিছু বলার নেই আজ আর...

১২

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

গৌতম লিখেছেন:

আপনার ছবি ও বর্ণনা ভালো লাগলো।

ধন্যবাদ গৌতম দা।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৩

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

tongue স্বর্ণ মন্দিরের টপিক ক্যাবেল কারে করে  ফোরামের আসতেছে  tongue_smile এর জন্য এক মাস লাগতেছে!  tongue
lol lol

আমি অপেক্ষা করতেছি!   dream dream তাইলে মনে হয় পারফেক্ট টাইমে আমি ফোরামে হাজির হইছি!  cool
এই পার্ট মিস করে গেছি দেখি!   roll

ছবি গুলো ভাল হইছে!  thumbs_up

১৪

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

Jol Kona লিখেছেন:

tongue স্বর্ণ মন্দিরের টপিক ক্যাবেল কারে করে  ফোরামের আসতেছে  tongue_smile এর জন্য এক মাস লাগতেছে!  tongue
lol lol

আমি অপেক্ষা করতেছি!   dream dream তাইলে মনে হয় পারফেক্ট টাইমে আমি ফোরামে হাজির হইছি!  cool
এই পার্ট মিস করে গেছি দেখি!   roll

ছবি গুলো ভাল হইছে!  thumbs_up

রোজার সময় ব্যাস্ততা এখু বেশি থাকে বলে শেষে সময় করে উঠতে পারি নাই। আবার ঈদের পরে কম্পিউটার নষ্ট হওয়ার কারণে আরো পিছিয়ে গেছি।
এসে যাবে আজ বা কাল।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৫

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

[
রোজার সময় ব্যাস্ততা এখু বেশি থাকে বলে শেষে সময় করে উঠতে পারি নাই। আবার ঈদের পরে কম্পিউটার নষ্ট হওয়ার কারণে আরো পিছিয়ে গেছি।
এসে যাবে আজ বা কাল।

ওয়েটিং ফোর দ্যা নেক্সট ট্রিপ!  dancing
আমি কিন্তু বাক্স পেট্রা গুছায় রেডি!  tongue খালি এখন আপনার  লেখার সাথে ভ্রমণে বের হবার পালা! big_smile

১৬

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

Jol Kona লিখেছেন:
মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

[
রোজার সময় ব্যাস্ততা এখু বেশি থাকে বলে শেষে সময় করে উঠতে পারি নাই। আবার ঈদের পরে কম্পিউটার নষ্ট হওয়ার কারণে আরো পিছিয়ে গেছি।
এসে যাবে আজ বা কাল।

ওয়েটিং ফোর দ্যা নেক্সট ট্রিপ!  dancing
আমি কিন্তু বাক্স পেট্রা গুছায় রেডি!  tongue খালি এখন আপনার  লেখার সাথে ভ্রমণে বের হবার পালা! big_smile

লেখা শেষ, ছবি বাছাই শেষ, ছবি আপলোড দিতেছি, তারপর যায়গামত বসাইতে যত সময় লাগে আরকি।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।