সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ইলিয়াস (১৬-১০-২০১৫ ১৫:১৯)

টপিকঃ বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

২০১৪ইং সালের ২৫শে জানুয়ারির রাতে “খাগড়াছড়ির পথে” রওনা হয়ে ২৬ তারিখ সকালে পৌছাই খাগড়াছড়িতে।
২৬ তারিখ দুপুরের খাওয়া দাওয়া সেরে বের হই খাগড়াছড়ির “আলু-টিলা গুহা”, “রিছাং ঝর্ণা”, “শতায়ূবর্ষী বটবৃক্ষ”, ও “হর্টি কালচার পার্ক” এর “ঝুলন্ত সেতু” দেখতে।

২৭ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি থেকে রাঙ্গামাটির দিকে রওনা হই একটি চান্দের গাড়ি রিজার্ভ করে। পথে থেমে দেখে নিই “অপরাজিতা বৌদ্ধ বিহার”
২৭ তারিখ দুপুরের পরে পৌছাই রাঙ্গামাটি। বিকেল আর সন্ধ্যাটা কাটে বোটে করে "কাপ্তাই লেক" দিয়ে “সুভলং ঝর্ণা” ঘুরে।

২৮ তারিখ সকাল থেকে একে-একে দেখে এলাম “ঝুলন্ত সেতু”, “রাজবাড়ি” ও “রাজবন বিহার”। দুপুরের পরে বাসে করে রওনা হয়ে যাই রাঙ্গামাটি থেকে বান্দরবানের উদ্দেশ্যে। রাতটা কাটে বান্দরবনের “হোটেল ফোরস্টারে”

২৯ তারিখ সকালে একটি চান্দের গাড়ি ভাড়া করে নিয়ে চলে যাই “নীলগিরিতে”। নীলগিরিতে অনেকটা সময় কাটিয়ে ফেরার পথে “চিম্বুক” পাহাড় চূড়া আর “শৈলপ্রপাতের” শীতল জলের ছোঁয়ায় কিছুটা সময় পার করে ফিরে আসি শহরে।


২৯ জানুয়ারির বিকেলটা কাটাবো নীলাচলে। নীলাচলের চূড়ায় দাঁড়িয়ে দেখবো সূর্যাস্ত। বান্দরবান শহর থেকে এর দূরত্ব মাত্র ৫ কিলোমিটারের মত। শহরের কাছের সবচেয়ে উঁচু পাহার এটি, এর উচ্চতা প্রায় দেড় হাজার ফুটের মত।
একটু দেরি করেই খেতে হল দুপুরের খাবার সেই পরিচিত রেস্টুরেন্টে। বিকেলে শহরের ট্রাফিক মোড়ের কাছ থেকে একটা মাহেদ্রার রিজার্ভ নিলাম আমরা নীলাচলের জন্য আপ-ডাউন ভাড়া ৫০০ টাকা নিয়েছিলো মনে হয়। নীলাচলে গেলে সব সময়ই গাড়ি আপ-ডাউন হিসেবেই ভাড়া নিতে হবে। নইলে ফেরার সময় নীলাচলে কিছুই পাওয়া যায় না। এর আগেও গিয়েছি এখানে, তাই চেনা রাস্তায় আবার যেতে ভালোই লাগছে।
https://c1.staticflickr.com/1/690/21994206928_efe9e93763_b.jpg
{সামনের মোড় থেকে নীলাচলের চূড়া}


বেশ কয়েকটা ভিউ পয়েন্ট আছে এখানেও। দক্ষিণ-পশ্চিম দিকের ভিউ পয়েন্টে দাঁড়ালে দেখা যায় সূর্যাস্তের সময় মেঘেদের সাথে আলোর লুকোচুরি খেলা।

https://c2.staticflickr.com/6/5708/21994193438_49e97eb808_b.jpg

পূর্ব-দক্ষিণ দিকে গেলে দেখা যাবে দূরের থানচি রোড চিক সুরত মতো বিছিয়ে আছে পাহারের বাকে-বাকে।

https://c1.staticflickr.com/1/697/22192252131_10461ac49c_b.jpg
{ছোট-বড় পাহার চার ধারে, এরই মাঝে একে-বেকে চলে গেছে পাহাড়ি পথ "বান্দরবান-থানচি" রোড}


চার পাশেই ছড়িয়ে আছে ছোট-বড় উঁচু-নিচু পাহার সারি। কখনো মেঘ আবার কখনো ধোঁয়াশা খেলা করছে পাহারদের সাথে। বর্ষায় মেঘের লেখা আর মনোহর। এখানে আছে অনেকগুলি বসার যায়গা, প্রতিটিই একটি আরেকটি থেকে আলাদা ধরনের।

https://c1.staticflickr.com/1/625/21993853380_fabe0d4766_b.jpg


বিলাকের পর থেকেই সূর্য পাটে যাওয়ার আগ পর্যন্ত সোনালী রোদ বিছিয়ে থাকে চার ধারে। সূর্য অস্ত যাওয়ার পরেও তার আলোর ছটা খেলা করে মেঘের মাঝে। এই সব দেখতে দেখতে কখন যে সময় কেটে যাবে টেরও পাওয়া যায় না। সূর্য অস্ত গিয়েছে, সারা দিনের দৌড়-ঝাপ শেষে আমরাও এখন ফিরবো হোটেলে। আগামী পর্বে দেখা হবে বান্দরবানের অন্য স্পটে, আজ দেখুন নীলাচলের কিছু ছবি।

https://c2.staticflickr.com/6/5789/21995101729_fa7f96c520_b.jpg
{দূরে পাহাড়ি গ্রাম}


https://c1.staticflickr.com/1/645/22155812176_75c26447aa_b.jpg
{ইস্রাফীল+শম্পা}


https://c2.staticflickr.com/6/5648/21995091949_49721afcde_b.jpg
{দস্যু পরিবার}



https://c2.staticflickr.com/6/5737/21560917733_a4cc531b79_b.jpg
{সাইয়ারা দাঁড়িয়ে আছে বিকেলের কনে-দেখা হলদে রোদে}



https://c1.staticflickr.com/1/672/21560915363_5ce55264d3_b.jpg
{দূরের এমন একটা বাড়িতে রাত কাটানোর মজাই হবে আলাদা}



https://c1.staticflickr.com/1/593/21560911703_9810be91f6_b.jpg



https://c2.staticflickr.com/6/5642/22181918355_69529608df_b.jpg
{সাইয়ারা ও বুসরা}



https://c2.staticflickr.com/6/5621/21993848570_e221f001bb_b.jpg
{দস্যু পরিবার}


https://c2.staticflickr.com/6/5687/22181913815_1df07f8870_b.jpg
{স্বপন নাকি সূর্য নিবে মাথায়}



https://c2.staticflickr.com/6/5677/21559146604_9aec7719e7_b.jpg
{শেষ বিকেলের আড্ডা}


https://c2.staticflickr.com/6/5661/21559144514_d3bd719020_b.jpg


পূর্বের পর্বগুলি -
খাগড়াছড়ির পথে”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – প্রথম পর্ব”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – আলু-টিলা গুহা”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – রিছাং ঝর্ণা”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – শতবর্ষী বটবৃক্ষ”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – ঝুলন্ত সেতু”।
খাগড়াছড়ি ভ্রমণ – অপরাজিতা বৌদ্ধ বিহার”।
রাঙ্গামাটি ভ্রমণ – সুভলং ঝর্ণা ও কাপ্তাই হ্রদে নৌবিহার”।
রাঙ্গামাটি ভ্রমণ – ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি ও রাজবন বিহার”।
বান্দরবান ভ্রমণ – নীলগিরি”।
বান্দরবান ভ্রমণ – শৈলপ্রপাত”।
বান্দরবান ভ্রমণ – নীলাচল”।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

সুন্দর টপিক হয়েছে  clap
নীলাচলে কয়েকটি কটেজ হচ্ছে। ভবিষ্যতে গেলে হয়তো থাকা যাবে।
আমার কাছে নীলাচলটা নীলগিরি থেকে সুন্দর মনে হয়েছে।
ধন্যবাদ আপনাকে।

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

অনেক সুন্দর হয়েছে দস্যু ভাই। আপনার বিশাল কপাল, সবসময়ই খালি ঘুরে বেড়ান। এভাবে ঘুরে বেড়ালে এত্তো দিনে বাসা থেকে ত্যাজ্য পুত্র করে বাসার বাহিরেই বাহির করে দিতো  sad

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন mizvibappa (২২-০৬-২০১৪ ০০:৩৮)

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

দারুণ উপভোগ্য ছিল দস্যুদা। এত এনার্জি পান কেমনে ভাই??? মানে এতো জার্নি করার। কিছু টিপস/ মসল্লা পাত্তি দেন ভাই।

পলায়ূণ মিয়া লিখেছেন:

ঘুরে বেড়ালে এত্তো দিনে বাসা থেকে ত্যাজ্য পুত্র করে বাসার বাহিরেই বাহির করে দিতো


ও ভাইওওও আপনের বাসার ঠিকানা মনে আছে তো  tongue tongue tongue  lol2

সব কিছু ত্যাগ করে একদিকে অগ্রসর হচ্ছি

লেখাটি CC by-nd 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

'দস্যু পরিবার'  lol
দারুন পোস্ট, ছবিগুলো অসাধারন।
১২ নাম্বার ছবিটা অনেক ভাল লেগেছে। thumbs_up

আল্লাহ এক, অদ্বিতীয় ও সর্ব শক্তিমান।

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

দারুন সুন্দর পরিবেশে দারুন সন্দর দস্যু পরিবার   smile শেয়ার করায় আন্তরিক মজা পেলাম।  thumbs_up

মুইছা দিলাম। আমি ভীত !!!

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

আপনার পারিবারিক ভ্রমন এর ছবি সহ সাবলীল বর্ননা বেশ ভাল লাগলো !!

এনিওয়ে আপনার পিচ্চিটা অনেক কিউট নাম কী ভাতিজির. ?

ভালোবাসা উষ্ণতা জাগায় বটে......
তবে এ কাজটি দ্রুততার সাথে করে ভদকা.......

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

ভালোবাসার কোড লিখেছেন:

সুন্দর টপিক হয়েছে  clap
নীলাচলে কয়েকটি কটেজ হচ্ছে। ভবিষ্যতে গেলে হয়তো থাকা যাবে।
আমার কাছে নীলাচলটা নীলগিরি থেকে সুন্দর মনে হয়েছে।
ধন্যবাদ আপনাকে।

আসলে দুইটাই সুন্দর, দুইটাই একই রকম। সময় কম থাকলে নীলাচলে গেলেই নীলগিরির স্বাদ পেয়ে যাবেন।

পলায়ূণ মিয়া লিখেছেন:

অনেক সুন্দর হয়েছে দস্যু ভাই। আপনার বিশাল কপাল, সবসময়ই খালি ঘুরে বেড়ান। এভাবে ঘুরে বেড়ালে এত্তো দিনে বাসা থেকে ত্যাজ্য পুত্র করে বাসার বাহিরেই বাহির করে দিতো  sad

সমস্যা কি? তখন ঘরজামাই হয়ে কারো ঘরে ঢুকে যেতেন।  hehe

mizvibappa লিখেছেন:

দারুণ উপভোগ্য ছিল দস্যুদা। এত এনার্জি পান কেমনে ভাই??? মানে এতো জার্নি করার। কিছু টিপস/ মসল্লা পাত্তি দেন ভাই

আমার শরীরের অবস্থা তো দেখছে, যেই হারে মোটা হইতেছি আর ব্যথা বারতেছে তাতে কয়েক দিন পরে হয়তো আরো জার্নি করতে পরবো না, তাই কঠিন যায়গাগুলিতে সময় থাকতে ঘুরে আসতে চাই।
টিপস একটাই - "নিজের মনে ভ্রমণের আগ্রহ জাগান"।

আহসান_আল_রাব্বি লিখেছেন:

'দস্যু পরিবার'  lol
দারুন পোস্ট, ছবিগুলো অসাধারন।
১২ নাম্বার ছবিটা অনেক ভাল লেগেছে। thumbs_up

পলু ভাই আমাকে প্রশ্ন করছিলো কি মনে আছে? আমার জবাবটাও নিশ্চই তাহলে মনে হবে।  love

ফারহান খান লিখেছেন:

দারুন সুন্দর পরিবেশে দারুন সন্দর দস্যু পরিবার   smile শেয়ার করায় আন্তরিক মজা পেলাম।  thumbs_up

শুভকামনা রইলো আপনার জন্য ফারহান ভাই।

কোথাও কেউ নেই লিখেছেন:

আপনার পারিবারিক ভ্রমন এর ছবি সহ সাবলীল বর্ননা বেশ ভাল লাগলো !!

এনিওয়ে আপনার পিচ্চিটা অনেক কিউট নাম কী ভাতিজির. ?

ধন্যবাদ।
মেয়ের নাম - সাইয়ারা নাজিবা সোহেন

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

কাল রাতে দেখেছি! কমেন্ট করা হয় নাই big_smile যাক খুঁচা খাবার আগেই পোস্ট দিলেন! big_smile

ছবি গুলো সুন্দর আসছে!  thumbs_up আর পিচ্চি গুলো হেব্বি ইঞ্জয় করছে! আমি কিছুটা হিংসিত ওদের দেখে! dontsee

ইস!!! ছোট থাকতে আব্বু-আম্মু কত জায়গায় ঘুরাতে নিয়া যাইত! শুক্রবার মানে পিকনিক ডে big_smile নাইলে বাসায় থাকলে পোলাউ আর মুরগির কাবাব রান্না! love

১০

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

এমন সুন্দর বর্ণনা আর ছবি দেখলেই যেতে মন চায়  smile

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১১

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

নীলাচলে সবচাইতে চমৎকার লেগেছে সন্ধ্যেয় আলো কমে এলে নীলাচল থেকে বান্দরবান শহরের দৃশ্যটা। মনে হয় হাজার হাজার জোনাক ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। এত সুন্দর দেখায়। আর এত উপর দিয়ে!!! আমার মনে হয় না কোন ক্যামেরা দিয়ে সেই সৌন্দ্যর্যকে ধরা সম্ভব।  আমি ফোনে ছবিটা তুলেছিলাম। কিন্তু হার্ডডিস্ক নষ্ট হওয়ার সেই ছবি কিছুই নাই আমার কাছে। দেখি ব্যাকাপ থেকে রিস্টোর করতে পারলে শেয়ার করবো। smile

১২

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

ভাইয়া সবসময় দলবল নিয়ে ঘুরে বেড়াতে ভালবাসেন সেটা বোঝা যায়।  smile  smile

জীবন গিয়েছে চলে আমাদের কুড়ি কুড়ি বছরের পর তখন আবার যদি দেখা হয় তোমার আমার . . . . . .

১৩

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

Jol Kona লিখেছেন:

কাল রাতে দেখেছি! কমেন্ট করা হয় নাই big_smile যাক খুঁচা খাবার আগেই পোস্ট দিলেন! big_smile

ছবি গুলো সুন্দর আসছে!  thumbs_up আর পিচ্চি গুলো হেব্বি ইঞ্জয় করছে! আমি কিছুটা হিংসিত ওদের দেখে! dontsee

ইস!!! ছোট থাকতে আব্বু-আম্মু কত জায়গায় ঘুরাতে নিয়া যাইত! শুক্রবার মানে পিকনিক ডে big_smile নাইলে বাসায় থাকলে পোলাউ আর মুরগির কাবাব রান্না! love

হুম, আপনার খোচার কারণেই এতদূর আসা  sad
পিচ্চিগুলা ভালোই মজা করেছে, আর একটুও সমস্যা করে নাই  dancing


RubaiyaNasreen(Mily) লিখেছেন:

এমন সুন্দর বর্ণনা আর ছবি দেখলেই যেতে মন চায়  smile

আমারও dream

মেহেদী৮৩ লিখেছেন:

নীলাচলে সবচাইতে চমৎকার লেগেছে সন্ধ্যেয় আলো কমে এলে নীলাচল থেকে বান্দরবান শহরের দৃশ্যটা। মনে হয় হাজার হাজার জোনাক ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। এত সুন্দর দেখায়। আর এত উপর দিয়ে!!! আমার মনে হয় না কোন ক্যামেরা দিয়ে সেই সৌন্দ্যর্যকে ধরা সম্ভব।  আমি ফোনে ছবিটা তুলেছিলাম। কিন্তু হার্ডডিস্ক নষ্ট হওয়ার সেই ছবি কিছুই নাই আমার কাছে। দেখি ব্যাকাপ থেকে রিস্টোর করতে পারলে শেয়ার করবো। smile

রাতের খবর বলতে পারলাম না, আমরা রাতের আগেই নেমে এসেছিলাম।

oporazita লিখেছেন:

ভাইয়া সবসময় দলবল নিয়ে ঘুরে বেড়াতে ভালবাসেন সেটা বোঝা যায়।  smile  smile

দলবল নিয়ে!!! নাহ, একজন সঙ্গি হলেই যথেষ্ট, বেশি হলে বোনাস।  wink

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৪

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

ভ্রমণ কাহিনী আর ছবি দুটাই দারুণ হয়েছে।  thumbs_up

"সংকোচেরও বিহ্বলতা নিজেরই অপমান। সংকটেরও কল্পনাতে হয়ও না ম্রিয়মাণ।
মুক্ত কর ভয়। আপন মাঝে শক্তি ধর, নিজেরে কর জয়॥"

১৫

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

নেক্সট নেক্সট!  dream

১৬

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

মেহেদী৮৩ লিখেছেন:

নীলাচলে সবচাইতে চমৎকার লেগেছে সন্ধ্যেয় আলো কমে এলে নীলাচল থেকে বান্দরবান শহরের দৃশ্যটা। মনে হয় হাজার হাজার জোনাক ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। এত সুন্দর দেখায়। আর এত উপর দিয়ে!!! আমার মনে হয় না কোন ক্যামেরা দিয়ে সেই সৌন্দ্যর্যকে ধরা সম্ভব।  আমি ফোনে ছবিটা তুলেছিলাম। কিন্তু হার্ডডিস্ক নষ্ট হওয়ার সেই ছবি কিছুই নাই আমার কাছে। দেখি ব্যাকাপ থেকে রিস্টোর করতে পারলে শেয়ার করবো। smile


বলেন কি মশাই ! মাথা তো ঘুরায়ে দিলেন !!

মুইছা দিলাম। আমি ভীত !!!

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৭

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

আরণ্যক লিখেছেন:

ভ্রমণ কাহিনী আর ছবি দুটাই দারুণ হয়েছে।  thumbs_up

ধন্যবাদ মূল্যায়নের জন্য।

Jol Kona লিখেছেন:

নেক্সট নেক্সট!  dream

আবার শুরু করলেন  sleeping

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৮

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

ছবিগুলো অসাধারন হয়েছে...+++

You are the one who thinks that i didn't get the point, so do i think of you...what a coincidence!!

১৯

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

ছবি আর লোকেশন দু'টোই চমৎকার  thumbs_up

"We want Justice for Adnan Tasin"

২০

Re: বান্দরবান ভ্রমণ – “নীলাচল”

faysal_2020 লিখেছেন:

ছবিগুলো অসাধারন হয়েছে...+++

ধন্যবাদ ফয়সাল ভাই।

আউল লিখেছেন:

ছবি আর লোকেশন দু'টোই চমৎকার  thumbs_up

ধন্যবাদ আউল ভাই।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।