সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ফয়সল সাইফ (২৯-১০-২০১৩ ১৩:৩২)

টপিকঃ মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?
১ লিখেছেন ফয়সল সাইফ ২২-১০-২০১৩ ১৭:২৯

টপিকঃ মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?
অত্যন্ত জটিল এই ইস্যুটা নিয়ে আলোচনা শুরু করার আগে একটা ভূমিকা দিয়ে নেই। মনে হতে পারে সেটা অপ্রাসঙ্গিক। তবে, আমি মনে করি এর দরকার আছে।
     ধরা যাক, আপনি একটা মাটির দলা হাতে নিলেন। সেটা যত বড় ইচ্ছা নিতে পারেন। এখন আপনাকে জিগ্যেস করা হল, এই মাটির দলাটি কী দিয়ে তৈরী? আপনি অবশ্যই বলবেন অসংখ্যা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অনু দিয়ে। এটা আমরা সবাই জানি, প্রকৃতিতে প্রতিটি বস্তু, সেটা যাই হোক ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অনু দিয়েই গঠিত হয়। এখন আপনাকে আবার জিগ্যেস করা হল, এই মাটির দলাটির গঠন কোথা থেকে শুরু? আপনি অবশ্যই বলবেন এর কেন্দ্র থেকে। এটা আমরা সবাই জানি প্রতিটি বস্তুর গঠন প্রণালী শুরু হয় এর কেন্দ্র থেকে। আপনি যদি জ্যামিতিক দৃষ্টিকোণ থেকে হিসেব করেন, তাহলে শেষ পর্যন্ত এর গঠনের শুরুটা নিশ্চিতভাবেই খুঁজে পাবেন। সেটার অবস্থান থাকবে একেবারে কেন্দ্রে। মানে কেন্দ্রে যে অনুটির অবস্থান, সেখান থেকেই এর গঠন প্রণালী শুরু। এখন আপনি অনুকে কেন্দ্র না মেনে এর চাইতেও গভীরে যাওয়ার চেষ্টা করলেন। তাহলে পাবেন পরমানু। আরও গভীরে কেন্দ্র খুঁজতে গেলে, পাওয়া যাবে পরমানু কণা। তারপরও যদি কেন্দ্র খুঁজতে যান, তাহলে পেতে পারেন আরও কোনো কণা (হিগস বোসন) অথবা এমন কণা, যেটা এখনো আবিষ্কৃতই হয়নি। হতে পারে আর কিছুই পাবেন না। যাই হোক, তাহলেও কিন্তু শেষ পর্যন্ত সর্বশেষ সেই কণাটির নামও কেন্দ্র কণাই থাকবে। আর এই কেন্দ্র খুঁজার শেষ হবে এসে, এই কেন্দ্র কণাতেই। এখান থেকেই মাটির দলাটির গঠন প্রণালীর শুরু।
     এবার মূল আলোচনা শুরু করি। প্রথমে ধর্মীয় বিশ্বাস অনুসারে এগিয়ে যাই।
     ধরুন, আপনি একটা আইফোন দেখতে পেলেন। এটা কে তৈরী (রুপগত উপযোগ) করল?
     অ্যাপল কোম্পানীর কর্মীরা।
  তাঁদের কে সৃষ্টি করল?
  ইশ্বর।
  ইশ্বরকে কে সৃষ্টি করল?
  তিনি নিজেই সৃষ্টি হয়েছেন। কেউ তাঁকে সৃষ্টি করেনি।
  এটা কী সম্ভব?

  শুরুতেই অপ্রাসঙ্গিক মনে হওয়া আলোচ্য অংশটুকু লক্ষ্য করুন। সেটা অনুযায়ী প্রাকৃতিক বস্তুর একটা শুরুর জায়গা থাকবেই। এক্ষেত্রে আমরা ধরে নিতে পারি ইশ্বরই সবকিছুর শুরু। পদার্থ বিজ্ঞান অন্তত সেটাই বলে।

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

     পদার্থ বিজ্ঞানের সহজ সূত্র বলে এর শেষ থাকবেই। তাই সৃষ্টিকর্তারও শেষ থাকবেই। আর যেখানে সৃষ্টিকর্তার শেষ সেখানেই আমরা পেয়ে যাব আমাদের সৃষ্টিকর্তাকে।

খটকা লাগলো। পদার্থবিজ্ঞান তো অনেক কিছুই বলে। যেমন "শক্তির সৃষ্টি নেই, বিনাশ নেই, শুধুমাত্র রূপান্তর আছে"।
সৃষ্টিকর্তারও সৃষ্টি নেই, বিনাশ নেই। আপনার লেখায় একাধিক সৃষ্টিকর্তার শুরু ও শেষের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন দ্যা ডেডলক (২২-১০-২০১৩ ২১:১৩)

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

উপের লেখাটি আপনার নিজের হয়ে থাকলে। এই  মেগা টপিকে আলোচনা করতে পারেন।

'ঈশ্বর ও ধর্ম' এবং আপনার বিশ্বাস

আপনার টপিকের জবাব আমি এখানে দিলাম http://forum.projanmo.com/post578486.html#p578486

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ফয়সল সাইফ (২৯-১০-২০১৩ ১৯:১৩)

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

ভালোবাসার কোড লিখেছেন:
ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

     পদার্থ বিজ্ঞানের সহজ সূত্র বলে এর শেষ থাকবেই। তাই সৃষ্টিকর্তারও শেষ থাকবেই। আর যেখানে সৃষ্টিকর্তার শেষ সেখানেই আমরা পেয়ে যাব আমাদের সৃষ্টিকর্তাকে।

খটকা লাগলো। পদার্থবিজ্ঞান তো অনেক কিছুই বলে। যেমন "শক্তির সৃষ্টি নেই, বিনাশ নেই, শুধুমাত্র রূপান্তর আছে"।
সৃষ্টিকর্তারও সৃষ্টি নেই, বিনাশ নেই। আপনার লেখায় একাধিক সৃষ্টিকর্তার শুরু ও শেষের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

হুম পদার্থ বিজ্ঞান অনেক কিছুই বলে। শক্তির বিনাশ নেই, এটা ঠিক আছে। পদার্থ বিজ্ঞানের এই কথা অনুযায়ী সৃষ্টিকর্তা ইশ্বরের বিনাশ হবে না। কিন্তু আপনি যে বললেন শক্তির সৃষ্টি নেই, সেটা কী করে বললেন? এ ব্যাপারে একটু নিজেকেই জিজ্ঞেস করে দেখুন।

মানুষ কিন্তু এখনো বাংলাদেশের আয়তন কত? উত্তরে বলে ১৪৭৫৭০ বর্গ কিলোমিটার। কিন্তু আয়তন তো ঘনমিটারে লিখতে হয়। বর্গ কিলোমিটার তো দেশের ক্ষেত্রফল।
তাহলে শক্তির সৃষ্টি নেই, এটা কেমন কথা? এটা কী করে প্রমাণ করবেন? শক্তির যদি সৃষ্টি না থাকে তাহলে এটা এলো কোত্থেকে? তবে, এটা ঠিক শক্তিগুলোর সৃষ্টিকাল এত বেশি পুরোনো যে আমরা ধারণাও করতে পারি না।

আর আমি ভাই একাধিক সৃষ্টিকর্তার কথা বলিনি। আমি একজন সৃষ্টিকর্তার কথাই বলতে চেয়েছি। যিনি সবকিছুর শুরু।

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

আমার মতে আছে ।
তবে তার আকার-নিরাকার অথবা প্রক্রিয়া বের করার মত জ্ঞান এখনো মানুষের হয়নি ।
মহাবিশ্বের সকল পদার্থ এসেছে নক্ষত্র থেকে ।  কিন্তু সেই নক্ষত্রের ধংসাবেশে কিভাবে প্রাণ এলো এইটার সাথে মহাবিশ্বের সৃষ্টির কোথাও একটা যোগসূত্র রয়েছে। আমার ধারনা হাস্যকর অথবা যুক্তি হীন মনে হতে পারে তবে
কিন্তু আমি এইটা বিশ্বাস করতে রাজী নই যে সৃষ্টিকর্তা মহাবিশ্বের আগেই ছিল , দুটো এক সাথেই অথবা দুটো একি জিনিস ।
এবং একই সাথে দুটি শক্তির সৃষ্টি হয় একটি কাল এবং আরেকটি সাদা । অনেক জটিল একটা জিনিস । সঠিক ভাবে বলে ব্যাখ্যা করা সম্ভব না ।
আমি মুক্ত চিন্তা করতে ভালবাসি।
এখনে শুধু আমার ধারনা টুকু দিলাম ।

শ্রাবন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ফয়সল সাইফ (২৯-১০-২০১৩ ১৯:১৪)

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

শ্রাবন লিখেছেন:

আমার মতে আছে ।
তবে তার আকার-নিরাকার অথবা প্রক্রিয়া বের করার মত জ্ঞান এখনো মানুষের হয়নি ।
মহাবিশ্বের সকল পদার্থ এসেছে নক্ষত্র থেকে ।  কিন্তু সেই নক্ষত্রের ধংসাবেশে কিভাবে প্রাণ এলো এইটার সাথে মহাবিশ্বের সৃষ্টির কোথাও একটা যোগসূত্র রয়েছে। আমার ধারনা হাস্যকর অথবা যুক্তি হীন মনে হতে পারে তবে
কিন্তু আমি এইটা বিশ্বাস করতে রাজী নই যে সৃষ্টিকর্তা মহাবিশ্বের আগেই ছিল , দুটো এক সাথেই অথবা দুটো একি জিনিস ।
এবং একই সাথে দুটি শক্তির সৃষ্টি হয় একটি কাল এবং আরেকটি সাদা । অনেক জটিল একটা জিনিস । সঠিক ভাবে বলে ব্যাখ্যা করা সম্ভব না ।
আমি মুক্ত চিন্তা করতে ভালবাসি।
এখনে শুধু আমার ধারনা টুকু দিলাম ।

ধন্যবাদ আপনাকে। কিন্তু মহাবিশ্বের আগে থেকেই তো সৃষ্টিকর্তার থাকা উচিত। সৃষ্টিকর্তা আগে থেকে না থাকলে তিনি আর সৃষ্টিকর্তা কেন? এমন হওয়া খুবই সম্ভব, যে ছায়াপথ-নক্ষত্রপুঞ্জ ছিল না; তবে, সৃষ্টিকর্তার অবস্থানের জন্য শুণ্য একটা কিছু ছিল। যা আমরা জানি না।

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

কিন্তু মহাবিশ্বের আগে থেকেই তো সৃষ্টিকর্তার থাকা উচিত।

আগেই বলেছিলাম ব্যাপার টা জটিল কারন সৃষ্টি কর্তা কোন ব্যাক্তি নয় ।
মহাবিশ্ব যদি সৃষ্টিকর্তা সৃষ্টি করে তাহলে সৃষ্টিকর্তাকে কে সৃষ্টি করলো ?
আবার সৃষ্টি কর্তা যদি নিজে নিজে জন্ম নেয় তাহলে মহাবিশ্ব কেন পারবে না ?
তার মানে মহাবিশ্ব এবং সৃষ্টিকর্তার মাঝে কিছু যোগা যোগ রয়েছে । এমনকি আমরাও সম্পর্কিত ।

শ্রাবন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ফয়সল সাইফ (২৯-১০-২০১৩ ১৯:১৯)

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

শ্রাবন লিখেছেন:
ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

কিন্তু মহাবিশ্বের আগে থেকেই তো সৃষ্টিকর্তার থাকা উচিত।

আগেই বলেছিলাম ব্যাপার টা জটিল কারন সৃষ্টি কর্তা কোন ব্যাক্তি নয় ।
মহাবিশ্ব যদি সৃষ্টিকর্তা সৃষ্টি করে তাহলে সৃষ্টিকর্তাকে কে সৃষ্টি করলো ?
আবার সৃষ্টি কর্তা যদি নিজে নিজে জন্ম নেয় তাহলে মহাবিশ্ব কেন পারবে না ?
তার মানে মহাবিশ্ব এবং সৃষ্টিকর্তার মাঝে কিছু যোগা যোগ রয়েছে । এমনকি আমরাও সম্পর্কিত ।


হ্যা আপনার কথা ঠিক আছে। যুক্তি অনুসারে এটা সত্যি, যে সৃষ্টিকর্তা যদি নিজে নিজে জন্ম নিতে পারেন, তাহলে মহাবিশ্বও নিজে নিজে জন্ম নিতে পারবে। কিন্তু সেই যুক্তি অনুসারেই, আমাদের এই সিদ্ধান্তে আসতে হবে, যে সৃষ্টিকর্তা অথবা মহাবিশ্বর মধ্যে যেকোনো একটা সত্ত্বা নিজে জন্ম নিয়েছে। আর তাঁর থেকেই সবকিছুর সৃষ্টি। কারণ আমরা একটি বস্তুর দুটো কেন্দ্র কল্পনা করতে পারি না।
এক্ষেত্রে আমি যেটা বলতে চেয়েছি,  ধরুণ মহাবিশ্বে থাকা নির্দিষ্ট কিছু উপাদান থেকে আমাদের জীবন সৃষ্টি হয়েছে। তাহলে, এখানে যদি সৃষ্টিকর্তার অস্থিত্বের কথা বাদ দেই, তাহলে সোজা দৃষ্টিতে মহাবিশ্বই আমাদের সৃষ্টিকর্তা। মানে মহাবিশ্বই নিজে থেকে সৃষ্টি হয়েছে।
কিন্তু সেক্ষেতে আমাদের মনে চিরকাল একটা প্রশ্ন থাকবেই। কারণ মহাবিশ্ব একটা দৃশ্যমান বিষয়। মহাবিশ্ব মানে মহাবিশ্বের সর্বত্র ছড়িয়ে থাকা সকল উপাদান। এর মানে আমি নিজেও মহাবিশ্বের অংশ। তাহলে মহাবিশ্ব যদি সৃষ্টিকর্তা হয়; আমিও তো সৃষ্টিকর্তা। কিন্তু আমি তো আমার সেই ক্ষমতার কথা জানি না। সৃষ্টিকর্তা হয়ে আমি কেন সেটা জানব না। এর চেয়ে আমরা যদি এই দৃশ্যমান বিষয়টাকে পরিহার করি, বাস্তবে যেটা নিজে থেকে তৈরী হয় নি। এবং এমন একটা অদৃশ্য নির্ভরতাকে স্বীকার করি, যার সম্পর্কে আমরা ঠিক সচেতন নই। তবে, বুঝতে পারি এর অস্থিত্ব রয়েছে। তাহলেই তো সব সমস্যা কেটে যায়।

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

মহাবিশ্বে থাকা নির্দিষ্ট কিছু উপাদান থেকে আমাদের জীবন সৃষ্টি হয়েছে। তাহলে, এখানে যদি সৃষ্টিকর্তার অস্থিত্বের কথা বাদ দেই, তাহলে সোজা দৃষ্টিতে মহাবিশ্বই আমাদের সৃষ্টিকর্তা। মানে মহাবিশ্বই নিজে থেকে সৃষ্টি হয়েছে।

এই প্রশ্নের জবাব সরাসরি নীচের পোস্টে দিয়েছেন invarbrass
http://forum.projanmo.com/post457075.html#p457075

আরো বিস্তারিত পাবেন মহাবিশ্ব এবং ঈশ্বর - একটি দার্শনিক আলোচনা বইতে

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

১০ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ফয়সল সাইফ (২৯-১০-২০১৩ ১৯:৩৪)

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

দ্যা ডেডলক লিখেছেন:
ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

মহাবিশ্বে থাকা নির্দিষ্ট কিছু উপাদান থেকে আমাদের জীবন সৃষ্টি হয়েছে। তাহলে, এখানে যদি সৃষ্টিকর্তার অস্থিত্বের কথা বাদ দেই, তাহলে সোজা দৃষ্টিতে মহাবিশ্বই আমাদের সৃষ্টিকর্তা। মানে মহাবিশ্বই নিজে থেকে সৃষ্টি হয়েছে।

এই প্রশ্নের জবাব সরাসরি নীচের পোস্টে দিয়েছেন invarbrass
http://forum.projanmo.com/post457075.html#p457075

আরো বিস্তারিত পাবেন মহাবিশ্ব এবং ঈশ্বর - একটি দার্শনিক আলোচনা বইতে


মহাবিশ্ব এবং ঈশ্বর - একটি দার্শনিক আলোচনা
এই বইটিতে আমার যে অংশটা সবচেয়ে শক্ত যুক্তি মনে হয়েছে, সেটা হলো শুরুর দিকে---ঘড়ির কারিগরের পিতা:
ঘড়ির যেমন ঘড়ির কারিগর থাকে, তেমনি প্রত্যেক কারিগরেরই পিতা থাকে। তাহলে মহাবিশ্বের কারিগর রূপী ইশ্বরের পিতা কে? আর সেই পিতার পিতাই বা কে?

ভাই আমি তো এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্যই এই টপিকটা লিখেছি।

আর চার্লস ডারউইনের থিওরির ওপর আপনার এত বিশ্বাস কেন? এটা তো প্রমাণিত সত্য নয়। জাস্ট থিওরি। আগে কেউ প্রমাণ করুক, তারপর এটা নিয়ে আলোচনায় আসেন। তা ছাড়া ব্যাপারটা আমার কাছে রাজনৈতিক পক্ষপাতের মতো মনে হয়। মানে যা আমার সাথে মিলে তা-ই সঠিক। না মিললে বেঠিক।

১১

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

আমিও কিছু উল্টাপাল্টা কথা বলি:

ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

... ... কারণ আমরা একটি বস্তুর দুটো কেন্দ্র কল্পনা করতে পারি না।

একটা বস্তুর একাধিক কেন্দ্র কল্পনা না করতে পারলেও আমাদেরকে, বিশেষত সিভিল ইঞ্জিয়ারদেরকে এই জিনিষ নিয়ে ডীল করতে হয়। একটা হল জ্যামিতিক কেন্দ্র আরেকটা হতে পারে ভরকেন্দ্র। সম ঘনত্বের বস্তু না হলে এই দুইটা কেন্দ্র আলাদা হবে।

ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

[মধ্যাকর্ষণ শক্তির টান উপেক্ষা করে একটা বিমান আকাশে চলাচল করতে পারে, যেহেতু পাখিরা সেখানে ঊড়তে পারে।

উপেক্ষা নাকি অতিক্রম করে?

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১২ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ফয়সল সাইফ (২৯-১০-২০১৩ ১৯:১৯)

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

শামীম লিখেছেন:

আমিও কিছু উল্টাপাল্টা কথা বলি:

ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

... ... কারণ আমরা একটি বস্তুর দুটো কেন্দ্র কল্পনা করতে পারি না।

একটা বস্তুর একাধিক কেন্দ্র কল্পনা না করতে পারলেও আমাদেরকে, বিশেষত সিভিল ইঞ্জিয়ারদেরকে এই জিনিষ নিয়ে ডীল করতে হয়। একটা হল জ্যামিতিক কেন্দ্র আরেকটা হতে পারে ভরকেন্দ্র। সম ঘনত্বের বস্তু না হলে এই দুইটা কেন্দ্র আলাদা হবে।

ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

[মধ্যাকর্ষণ শক্তির টান উপেক্ষা করে একটা বিমান আকাশে চলাচল করতে পারে, যেহেতু পাখিরা সেখানে ঊড়তে পারে।

উপেক্ষা নাকি অতিক্রম করে?

আপনি দারুণ যুক্তি দেখিয়েছেন। সত্যিই আমার এটা ভাল লেগেছে।
তবে, আমার প্রশ্ন হলো আপনি, জ্যামিতিক এবং ভরকেন্দ্র কি একসাথে বিবেচনা করবেন? যদি আলাদা আলাদাভাবে বিবেচনা করেন, তাহলেও কি দুটো কেন্দ্র পাবেন? যেকোনো বস্তুর ভর কেন্দ্র তো অবস্থা ভেদে বদলে যাওয়ার কথা। তবে, জ্যামিতিক কেন্দ্র একটাই থাকবে।
আর উপেক্ষা নাকি অতিক্রম? সেটা যাই হোক, আমরা যদি বাস্তবতা বিবেচনা করি, তাহলে তো এটাই যে পাখিরা ঊড়তে পারে বলে বিমান ঊড়া সম্ভব বলে আমরা মনে করেছি।

১৩

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

যেকোনো বস্তুর ভর কেন্দ্র তো অবস্থান ভেদে বদলে যাওয়ার কথা।

না।

ফয়সল সাইফ লিখেছেন:

এখানে পাখি পারে বলেই, বিমানও পারবে বলে মানুষ ভেবেছে।

না।

এটা খুবই প্রিমিটিভ লেভেলের চিন্তা। আকাশে ওড়ার মতন একটা অসাধারণ ব্যাপার তখন থেকেই সাফল্য পেতে শুরু করেছে যখন কিনা পাখির আকাশে ওড়ার ব্যাপারটাকে আদর্শ হিসাবে দেখা মানুষ বন্ধ করেছে। রামায়ণের পুষ্পক রথ বা গ্রীক মিথোলজির দিদালুস-ইক্যারাসের আকাশে ওড়ার কনসেপ্ট থেকে এককালে অনেক চিন্তাভাবনা হয়েছিলো। দ্যা ভিঞ্চি পর্যন্ত অর্নিথপ্টার ডিজাইন করে গিয়েছিলেন। কিন্তু মানুষের আকাশে ওড়ার ব্যাপারটা সফল হতে শুরু করেছে বেলুনের যুগ থেকে। যার ওড়ার টেকনিকের সঙ্গে পাখির আকাশে ওড়ার টেকনিকের কোনওই মিল নেই। সুতরাং ধরে নেওয়া যায় মানুষের আকাশে উড়ানের সাফল্যের ইতিহাস পাখির আকাশে ওড়া থেকে ইন্সপায়ার্ড নয়।

"No ship should go down without her captain."

হৃদয়১'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

১৪

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

সৃষ্টিকর্তার তো কেউ সৃষ্টি করে নাই তার মানে কি দাঁড়ায় জানেন? এর মানে হল সৃষ্টিকর্তা হাজার হাজার কোটি কোটি বছর ধরে আছেন যার কোন সিমা নাই। এইটা আমার মতে ভুল কারন সব কিছুর শুরু আছে dontsee dontsee dontsee আর এত লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি বছর ধরে তিনি কি করছিলেন।  প্লিজ আল্লাহ মাফ করো

১৫ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ফয়সল সাইফ (২৯-১০-২০১৩ ১৯:৩৬)

Re: মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে কি সত্যিই কোনো ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে?

আমি দুঃখিত, আপনার কথা মানতে পারছি না। আপনাকে এ বিষয়ে জানার জন্য অনুরোধ করছি। আধুনিক বিমানের ডানার নকশা, শিকারী ঈগলের ডানার ডিজাইনের সাথে অনেকটা মিল রেখে বানানো হয়েছে। বেলুনের ভেতর ধোয়া ঢুকিয়ে ঊড়ার কাহিনী আছে। কিন্তু একজন মানুষের মাথা খারাপ হলেই কেবল বেলুনে বেধে বিমান চালানোর কথা ভাবতে পারে। নিরলসভাবে পাখিকে পর্যবেক্ষণ করে যাওয়ার মধ্যেই বিমান তৈরীর মূল কারিগরেরা অনুপ্রেরণা খুজতেন।