টপিকঃ চাঁদের বুড়ি

আনন্দে থৈ থৈ বাড়িটা জুড়ে ।মিনা ,রিনা ,ঝুমা ,লাড্ডু ,বিলু ,মিলুরা সবাই এবার এসেছে গ্রামের বাড়িতে ঈদ করতে ।
তাই দেখে ওদের দাদুরও সেকি আনন্দ ।রোজার দুদিন আগে থেকেই শুরু হয়ে গেল ঈদের দিনের আয়োজনের পশরা ।
একপাশে চৌকি নিয়ে চাচীরা বসে গেলেন সেমাই তৈরীতে ।
নকশী ,পশরী ,ফুলকি সহ নানা রকম বাহারী পিঠা আগেই বানানো হয়েছে ।
আনন্দ আর হাসি খুশির বাতাসে যেন বাড়িটা গম গম করছে ।

২৯ই রমযান সেদিন ।সবাই ছাঁদে দাড়িয়ে আছে চাঁদ দেখার আশায় ।
ছেলেমেয়েরা রেলিং ঘেসে হৈ হুল্লুর বাঁধাচ্ছে একটু পর পর ।একটু তারা কি মেঘের ওপাশের আকাশ দেখলেই অমনি ওরা "চাঁদ উঠেছে !চাঁদ উঠেছে " বলে চিত্কার চেচামেচি জুড়ে দিচ্ছে ।
ছাদের অন্য মা -চাচীরা দাদুকে ঘিরে বসে আসে ।বাবা -কাকারাও নিতান্তই জড়ের মত দাড়িয়ে নেই ।
কাকা তাঁর পুরোনো দিনের রেডিওটা কানে ধরে আছে ।বাবা হয়তো তার শহরের কোন বন্ধুকে ফোন করে চাঁদ উঠেছে কিনা জানতে চাইছেন ।

ধীরে ধীরে রাত গভির হয়ে এলো ।মসজিদ থেকে মাইকে ঘোষণা দিল ,চাঁদ উঠেনি ।তারাবিহ পড়ানো হবে ।

ছেলেমেয়েরা ইতমধ্যে একটু যেন স্তিমিত হয়ে পড়েছে ।আনন্দ ,খুশিতেও যেন একটু ভাঁটা ।
ছাঁদের রেলিং এ উঠে বাইরে পা ছড়িয়ে বসেছিল মিন ।মায়ের বকুনিতেও নড়লনা সে ।তেমনি মুখ ভাড় করে বসেইল রইল ।
রিনা ,ঝুমা ,লাড্ডু ,মিলুরও মুখ ভাড় ।
কিন্তু এ দলে বিলুকে দেখা গেলনা ।কেউ লক্ষ্যও করলনা যে বিলু সেখানে নেই ।

সিঁড়ি পেরিরে একতলার দুটো ঘরের মাঝ দিয়ে বাইরে যাওয়ার রাস্তা ।গেইট পেরিরে বাড়ি বাইরে চলে এলো বিলু ।
একটা বড় মাটির সড়ক চলে গেছে বাড়িটার সামনে দিয়ে ।সড়কের একপাশে একটা বিরাটাকার বট গাছে ।আর সেই বটগাছেই একটা সাদ কাপড়ের মত কি জানি জ্বলমল জ্বলমল করছে ।
ব্যপারটা ছাদ থেকেই দেখেছিল বিলু ।ওটা দেখে ভারি কৌতুহল ওর ।তাই সবার অজ্ঞাতসারে চুপি চুপি নিচে নেমে এসেছে ও ।

গাছটার কাছে গিয়েই অবাক হয়ে গেল বিলু ।একটু থুরথুরে বুড়ি কুজো হয়ে লাঠিতে ভর দিয়ে দাড়িয়ে আছে ।

সাদা চুল ফোকলা দাঁতে
বুড়ি হাসি খিলখিয়ে অই
এই না দেখে বিলু সোনার
মনে জাগে বড্ড ভয় ।

: কে গো তুমি বুড়ি দাদু ?
ভয়ে ভয়ে প্রশ্ন করে বিলু ।

শুনে আবারও বুড়ি খিলখিলিয়ে হাসে ।যেন ভারি একটা মজার কথা বলেছে ও ।
: সেকি আমাকে চিনিস নে রে তুই খোকা ?
বুড়ির কথা শুনে বিলুর ভয় খানিকটা কাটে ।একটু এগিয়ে সামনে যায় ।বুড়ির সাদা শাড়ির চাকচিক্যে আবছা আবছা বুড়ির মুখটা দেখতে পায় ও ।
নাহ ! কিছুতেই ও মনে করতে পারে না বিলু ।
: সেকিরে খোকা ? আজকাল কি তবে তোরা রুপকথা একেবারেই পড়িস নে ?
এবার ভারি বেজার দেখায় বুড়ির মুখ ।বিলু ওকে না চিনতে পারায় যেন বড্ড কষ্ট পেয়েছেন ।
: আমি যে চাঁদের বুড়ি রে ...
বুড়ির শেষকথাটা শুনে বিলুর বড্ড হাসি পায় ।
: চাঁদের বুড়ি ? যাও তা আবার হয় নাকি ?
তাচ্ছিল্যের চোখে তাকায় ও বুড়ির দিকে ।যেন সে কেন পাগল কি মাথা নষ্ট লোকের দিকে তাকিয়ে আছে ।
বুড়ির মুখটা যেন একেবারেই কালো হয়ে যায় ।
লাঠিটা গাছে ঠেস দিয়ে শিকরে ধপ করে বসে পড়েন ওনি ।
: সব ভুলে গেছিস রে তোরা ..রুপকথার গপ্প ..চাঁদের মা বুড়ির কথা ..সুতা কাঁটার কথা ..

বুড়ি যেন এবার মৃদ্যু স্বরে কান্নাই জুড়ে দেয় ।
বিলুর যেন একটু মায়া হয় ।পাশের একটা শিকরে হাটু গেড়ে সেও বসে পড়ে ।
: এই রুপকথা ..চাঁদের বুড়িটা কেগো বুড়ি মা ?
বুড়ি উত্তর দেয় না ।কান্না থামলেও মুখটা তাঁর বেজায় ভাড় ।
: কোন ভাল গেইম বুঝি ? ডিভিডি আছে তোমার কাছে ?
কিংবা আছে তোমার পিসিতে ?আমাকে দেবে ?

: দিদি ,পিসিকে বুঝি তোরা ঐভাবে ডাকিস এখন ।ছোকড়া মিচকা শয়তান !
রাগে যেন জ্বলজ্বল করে বুড়ির চোখ ।তারপর একটা প্রকান্ড ঝড়ো বাতাসে যেন হঠাত্ করেই মিলিয়ে যায় বুড়িটা ।

রাতে এসে মাকে বেশ করে জড়িয়ে ধরে বিলু ।মা তার কম্পিউটার পাগল ছেলেটার এত আহ্লাদি ভাব কোত্থেকে এলো ভেবে পান ।
: মা একটু কথা বলব ?
সুযোগ বুঝেই যেন প্রশ্নটা করার সুযোগ নেয় বিলু । মা অবাক চোখে তাকান ।দুষ্ট ছেলেটার মতিগতি বুঝে পান না ওনি ।
কি এমন প্রশ্ন যে ,কম্পিউটার ওকে দিতে পারে না ।
সায় দেন ওনি ।
: রুপকথার চাঁদের বুড়ি কে মা ?
ছেলের প্রশ্নে যেন এবার যেন কিছু হড়কেই যান মা ।যে ছেলে মাছ ধরে পিসিতে ,গাড়ি চালায় পিসিতে সে ছেলে শুনতে চাইছে রুপকথা ।জানতে চাইছে চাঁদের বুড়ির কথা ?
হেসে ছেলেকে কাছে টেনে নেন মা ।
তারপর একে একে খোলে বলেন সব ।
বিলু যেন এক স্বপ্নের রাজ্যে ভাসতে থাকে ।এ এক অদ্ভুত জগত্ ।এ জগত্ এর কাছে তুচ্ছ যেন সব ।

গল্প শেষে মা ঘুমিয়ে পড়ে ।বিলু বালিশ গাল ডুবিয়ে ভাবতে থাকে চাঁদের বুড়ির কথা ।রুপকথার সে জগত্ এর কথা ....আজই যেন সে নিবন্ধিত হয় কল্পনার এ শিশুদের রাজ্যে ...

Re: চাঁদের বুড়ি

সুন্দর হয়েছে thumbs_up thumbs_up ভাল লাগলো

Re: চাঁদের বুড়ি

জাভেদ!!! কথাটা সত্যি এখন তাই। এই চার-কোনা বাক্সের যুগে রুপকথার গল্প গুলো কই জানি হারায় যাচ্ছে!!!  roll

ভাল লাগছে!

Re: চাঁদের বুড়ি

ক্লান্ত পথিক লিখেছেন:

সুন্দর হয়েছে thumbs_up thumbs_up ভাল লাগলো

ধন্যবাদ ভাই

Jol Kona লিখেছেন:

জাভেদ!!! কথাটা সত্যি এখন তাই। এই চার-কোনা বাক্সের যুগে রুপকথার গল্প গুলো কই জানি হারায় যাচ্ছে!!!  roll

ভাল লাগছে!

ধন্যবাদ আপু

Re: চাঁদের বুড়ি

ভাল তো ভাল না clap clap clap clap clap

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত