সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন তার-ছেড়া-কাউয়া (১৮-০৪-২০১৩ ০০:২৪)

টপিকঃ দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

পূর্বেঃ দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-২

পরের দিন সকাল সকাল নাস্তা করে আমরা সবাই বেরিয়ে পড়লাম কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে। প্ল্যানটা এরকম যে, কক্সবাজারে দুপুর নাগাদ পৌছে একটু জলকেলী করে  আবার টেকনাফের উদ্দেশ্যে রওনা দিবো। বাসে উঠেই আমি ঘুমানোর পায়তারা করতে লাগলাম। কিন্তু সকলে মিলে সাফল্যের সাথে আমাকে ঘুমাতে দিলো না। এভাবে চলতে চলতে আমাদের ক্ষুধা পেয়ে গেলো। চকোরিয়া আসতে আর কতো দেরী বুঝতে পারছিলাম না। তার একটু পরেই চকোরিয়াতে এসে বাস থামলো। এই হোটেলে আগে কখনো আসি নাই। ছোট লোকাল টাইপ বাসের রেস্টুরেন্ট। এখানে কতক্ষণ থামতে পারে বাস জানার জন্যে আমি বাসের চ্যাংড়া মতন হেল্পারকে জিজ্ঞেস করলাম, “আচ্ছা, বাস এখানে কতক্ষণ থামবে?” ওপাশ থেকে শুধুমাত্র দুটো শব্দের উত্তর এলো, “অষ্টান্ন মিনিট।” উত্তর শুনে আমি হতবাক। পাশে অর্নবও ছিলো। আমরা মুখ চাওয়াচাওয়ি করলাম। বাস এখানে আটান্ন মিনিট থামবে। লে হালুয়া! এক ঘন্টাও না? একেবারে কাটায় কাটায় আটান্ন মিনিট! অর্নব পরে বললো যে, “তোর কথা অস্পষ্ট তো। ও মনেহয় ভেবেছে যে, কক্সবাজার পৌছাতে আর কতক্ষণ লাগবে, এটা জিজ্ঞেস করেছিস।” কিন্তু তাই বলে কক্সবাজারে পৌছাতেও এক ঘন্টা বা দেড় ঘন্টা না, একেবারে প্রেসাইস আটান্নো মিনিট!!?? সেদিন সেই রেস্টুরেন্টে মিষ্টান্ন খাইনি, আর সেই অষ্টান্ন মিনিটের রহস্যও আজ অবধি উৎঘাটন করতে পারিনি।


কক্সবাজারে পৌছানোর পরে সবগুলোর মাথা খারাপ হয়ে গেলো। লাগেজ-টাগেজ সবসহ দৌড়ে দৌড়ে বিচের দিকে ছোটা শুরু করলো। বিচে পৌছেই একটা বসার জায়গা ভাড়া নেয়া হলো। তারপর  যে ওরা এরকম বেয়াল্লাপণা শুরু করবে বুঝি নাই। আশেপাশের মানুষজনকে তোয়াক্কা না করে, প্রায় উলঙ্গ হয়ে কাপড় পরিবর্তন করে দৌড়ে দৌড়ে পানিতে নেমে গেলো। শুধুমাত্র আমি আর শুভ্র থেকে গেলাম “হেফাজতে লাগেজ” হিসেবে। সে সময় হাতে থাকা ক্যামেরার সদ্ব্যবহার করতে ভুলি নাই। সাগরের মনোরম দৃশ্য ফ্রেমে বন্দী করার পাশাপাশি ওদের বেশ কিছু নাঙ্গু ছবি তুলে রেখেছিলাম।  পরবর্তীতে ঢাকায় এসে বেশ কিছুদিন ওগুলো দিয়েই ব্ল্যাকমেইল করে ভালোই উদরপূর্তি হয়েছিলো।

https://lh3.googleusercontent.com/-OJgeHtbyVe0/UW1M6ZPEyGI/AAAAAAAAAeI/uYVoDrOCQPQ/s604/21838_1341408419994_4754110_n.jpg
ত্রিশ টাকায় কক্সবাজার ভ্রমণ

https://lh3.googleusercontent.com/-EdzvxQPvHXI/UW1M7dLC-UI/AAAAAAAAAeQ/sHn7u15woDc/s604/21838_1341408459995_3063167_n.jpg

https://lh5.googleusercontent.com/-a7wqERSWVdE/UW1M8zraCeI/AAAAAAAAAeY/Vo0aUflEGDU/s604/21838_1341408499996_360422_n.jpg
জলকেলীর আনন্দ!

কক্সবাজারে জলকেলী শেষে আমরা টেকনাফের উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম বিকেল পাঁচটার দিকে। টেকনাফে পৌছে গেলাম সন্ধ্যা সাতটা সাড়ে-সাতটার দিকে। ওখানেও স্থানীয় একজন সরকারী কর্মকর্তা আঙ্কেলের সৌজন্যে, এরকম পিক-সিজনেও একটা হোটেলে রুম পেয়ে গেলাম। লাল-নীল বাতির হোটেলটা তেমন একটা সুবিধার মনে না হলেও, এটাই নাকি এখানকার সবচেয়ে আলিশান হোটেল! হোটেলে সবাই একটু ফ্রেশ হয়ে নিলো। আমি, শুভ্র আর অর্নব সবার আগে ফ্রেশ হলাম। এ সময় চায়ের তৃষ্ণা মেটাতে ভাবলাম একটু বাইরে যাই। শুভ্রকে না নিয়ে অর্নবকে নিয়ে বের হলাম।

শুভ্রকে না নেয়ার একটা কারণও আছে। ওকে নিয়ে বের হওয়া মানে বিরাট বিপদ সাথে নিয়ে বের হওয়া। ছেলেদের সবচেয়ে দুইটি প্রয়োজনীয় জিনিস সে ব্যবহার করেনা। এর মধ্যে একটা হচ্ছে মানিব্যাগ। আর অন্যটা হচ্ছে মোবাইল। এজন্যে সে প্রত্যেক ট্যুরে একজন করে পার্সোনাল ম্যানেজার নিয়োগ দেয়! এই ট্যুরে তার ম্যানেজার ছিলো নাহিদ। ট্যুরে শুভ্রর টাকা-পয়সা এবং মোবাইলে কলের ব্যাপারগুলো নাহিদ ডিল করে। সে সময় নাহিদ ফ্রেশ হচ্ছিলো। আর ম্যানেজার ছাড়াতো আর শুভ্র বাইরে বের হতে পারেনা। ইন্টারেস্টিং বিষয় হচ্ছে, ও মাস্টার্সের থিসিস করার সময় প্রথম মোবাইল ব্যবহার করা শুরু করে। সেটাও ওর বাবার। ছেলে খুবই ভালো। একবার গ্রাফিক্স কার্ড কেনার জন্যে টাকা-পয়সার দরকার ছিলো। কথা প্রসঙ্গে একদিন সে কথা ওকে বলেছিলাম। পরেরদিনই দেখি পাঁচ হাজার টাকা নিয়ে হাজির। টাকাটা আমার হাতে দিয়ে বললো, “নে। কার্ড কেন। বাপের দেয়া বাজার আর টিউশন ফির টাকা মাইরা আম্মার কাছে রাখছিলাম। পরে এক সময় শোধ দিয়া দিস। ” এরকম অদ্ভুত মানুষ যে শুধু গল্প-উপন্যাসে থাকেনা, বাস্তবেও থাকে, তা শুভ্রকে দেখে বুঝেছিলাম।   

আমি আর অর্নব স্থানীয় একটা বাজারে গেলাম। বাজারে অনেক বার্মিজ প্রোডাক্টের দোকান। লক্ষ্য করলাম যে, সবাই অদ্ভুত এক স্থানীয় ভাষার কথা বলছে। পরে জেনেছিলাম যে, ওটা আরাকানী ভাষা। যদি বাংলা বলে তবে সেটাও আরাকানীর সাথে মিশিয়ে আরও অদ্ভুত হাইব্রিড ভাষায় পরিণত করে। আমরা ঘুরতে ঘুরতেই অন্যরাও এসে পড়লো। ওরা যখন দরদাম করে বার্মিজ স্যান্ডেল কিনছিলো, তখন আমি আর অর্নব একটা চায়ের দোকান খুজে পেলাম। চা খাওয়ার জন্যে দোকানে বসলাম। বললাম, “ভাইগ্না, একটা লাল চা, আর একটা দুধ চা দাও।” সময় গড়ালো। একটু পরে ভাইগ্না দুইটা কাপ এগিয়ে দিলো। খানিকটা বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করলাম যে, আমার লাল চা ঠিকঠাক থাকলেও, অর্নবের দিকে বাড়িয়ে দেয়া কাপটায় চা নামক তরল পদার্থের রঙ সাদা! সারাদিনের জার্নি আর ক্ষুধায় ক্লান্ত, ফর্সা অর্নবের চোখমুখ তখন রাগে লাল চায়ের বর্ণ ধারণ করা শুরু করেছে। ব্যাপারটা বুঝতে পেরে কিছু বলার আগেই অর্নবকে থামিয়ে, তাড়াতাড়ি দোকানীকে উদ্দেশ্য করে বললাম, “ভাইগ্না, একটা টি-ব্যাগ দাও দেখি।” ভাইগ্না টি-ব্যাগ দিলে সেটা সুন্দর করে অর্নবের কাপের দুধে চালান করে দিলাম। হয়ে গেলো দুধ চা। আমরা এই ঘটনা থেকে শিক্ষা পেলাম যে, টেকনাফের স্থানীয় লোকজন শুধু যে বাংলা বলতে পারেনা তা নয়, বাংলা বললে বুঝতেও পারেনা। পরেরদিন সেন্টমার্টিন্সে গিয়ে আরও একটা জিনিস আবিষ্কার করেছিলাম যে, এরা যেভাবে আরাকানী অ্যাক্সেন্টে বাংলা বলে, ঠিক সেভাবেই লেখে।
https://lh3.googleusercontent.com/-DoE-PZTRoC8/UW1NbpLJzHI/AAAAAAAAAgA/aX8F1ERVd2Y/s604/21838_1341573424119_564511_n.jpg
[চলবে]

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন Jol Kona (১৬-০৪-২০১৩ ১৯:৪৯)

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

খানিকটা বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করলাম যে, আমার লাল চা ঠিকঠাক থাকলেও, অর্নবের দিকে বাড়িয়ে দেয়া কাপটায় চা নামক তরল পদার্থের রঙ সাদা! সারাদিনের জার্নি আর ক্ষুধায় ক্লান্ত, ফর্সা অর্নবের চোখমুখ তখন রাগে লাল চায়ের বর্ণ ধারণ করা শুরু করেছে। ব্যাপারটা বুঝতে পেরে কিছু বলার আগেই অর্নবকে থামিয়ে, তাড়াতাড়ি দোকানীকে উদ্দেশ্য করে বললাম, “ভাইগ্না, একটা টি-ব্যাগ দাও দেখি।” ভাইগ্না টি-ব্যাগ দিলে সেটা সুন্দর করে অর্নবের কাপের দুধে চালান করে দিলাম। হয়ে গেলো দুধ চা। আমরা এই ঘটনা থেকে শিক্ষা পেলাম যে, টেকনাফের স্থানীয় লোকজন শুধু যে বাংলা বলতে পারেনা তা নয়, বাংলা বললে বুঝতেও পারেনা। পরেরদিন সেন্টমার্টিন্সে গিয়ে আরও একটা জিনিস আবিষ্কার করেছিলাম যে, এরা যেভাবে আরাকানী অ্যাক্সেন্টে বাংলা বলে, ঠিক সেভাবেই লেখে।

নতুন কিছু জানলাম! ছোট্ট ছোট্ট পয়েন্ট গুলো কেউ  বলে না big_smile  । কখনও গেলে ব্যাপারটা মাথায় থাকবে!!!! smile

পরের পর্বের অপেক্ষায়!!!! smile

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

অনেক ভালো লেগেছে। পরের পর্বের অপেক্ষায়..

লেখাটি CC by-nc-nd 3. এর অধীনে প্রকাশিত

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন দ্যা ডেডলক (১৬-০৪-২০১৩ ২১:১৯)

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

পুরা সিরিজ এক থাকে পড়লাম। ভালোই লাগলো।  thumbs_up

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

অর্নবের দিকে বাড়িয়ে দেয়া কাপটায় চা নামক তরল পদার্থের রঙ সাদা

পুরাই লোল

===
মিয়া শেষে ছবি দেখালে হাঁসতে হাঁসতে পেট ব্যাথা হয়ে গেল  lol2 lol2 lol2 lol2 lol2 lol2 lol2

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

শুধুমাত্র আমি আর শুভ্র থেকে গেলাম “হেফাজতে লাগেজ” হিসেবে। 


লাল-নীল বাতির হোটেলটা ***


একটু পরে ভাইগ্না দুইটা কাপ এগিয়ে দিলো। খানিকটা বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করলাম যে, আমার লাল চা ঠিকঠাক থাকলেও, অর্নবের দিকে বাড়িয়ে দেয়া কাপটায় চা নামক তরল পদার্থের রঙ সাদা!

" হেফাজতে ইজ্জত " বাহিনীর প্রধান হইতে আর  দেরি নাই আপনার !! বন্ধুদের ইজ্জত নিয়া টানাটানি ?  big_smile big_smile big_smile


লাল -নীল বাতি ?  ঘটনার আড়ালে ঘটনাটা কি ?  lol lol lol


যেমন মামা তেমন ভাইগ্না !! তার কাটা আর কারে কয় !!  lol2 lol2 lol2

জানি আছো হাত-ছোঁয়া নাগালে
তবুও কী দুর্লঙ্ঘ দূরে!

লেখাটি CC by-nc-nd 3. এর অধীনে প্রকাশিত

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

আবদুল্লাহ আল রিফাত লিখেছেন:

অনেক ভালো লেগেছে। পরের পর্বের অপেক্ষায়..


ধন্যবাদ রিফাত।

দ্যা ডেডলক লিখেছেন:

পুরা সিরিজ এক থাকে পড়লাম। ভালোই লাগলো।  thumbs_up

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

অর্নবের দিকে বাড়িয়ে দেয়া কাপটায় চা নামক তরল পদার্থের রঙ সাদা

পুরাই লোল
মিয়া শেষে ছবি দেখালে হাঁসতে হাঁসতে পেট ব্যাথা হয়ে গেল  lol2 lol2 lol2 lol2 lol2 lol2 lol2

ধন্যবাদ ডেডলক। সিরিজ কিন্তু এখনও শেষ হয়নি। আর আমাদেরও হাসতে হাসতে অবস্থা খারাপ হয়ে গিয়েছিলো lol

জামিল মণ্ডল লিখেছেন:

" হেফাজতে ইজ্জত " বাহিনীর প্রধান হইতে আর  দেরি নাই আপনার !! বন্ধুদের ইজ্জত নিয়া টানাটানি ?  big_smile big_smile big_smile
লাল -নীল বাতি ?  ঘটনার আড়ালে ঘটনাটা কি ?  lol lol lol
যেমন মামা তেমন ভাইগ্না !! তার কাটা আর কারে কয় !!  lol2 lol2 lol2

এইসব দুষ্টু চিন্তা বাদ দেন shame আর হ্যাঁ, তারকাটাই। যে ব্যথা পেয়েছিলাম রে ভাই worried

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

যথারীতি বিনোদিত হলাম। সেই সাথে আমার অভিজ্ঞতা একটু জুড়ে দেই। টেকনাফে বসবাসরত আরাকানী মানুষগুলো বেশ Hostile হয়ে থাকে। তাদের ঘরবাড়ির দিকে গেলে কেমন অদ্ভুত চোখে তাকিয়ে থাকে এবং সম্পূর্ণরুপে এড়িয়ে চলে।

পুনশ্চ: এইবার আর তবারক দিতে ভূল করলাম না।

কত কি শিখতে ইচ্ছা করে। এখনও শেখা হলো না কিছুই।

লেখাটি CC by-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

পরের পর্বের অপেক্ষায়..

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

cslraju লিখেছেন:

যথারীতি বিনোদিত হলাম। সেই সাথে আমার অভিজ্ঞতা একটু জুড়ে দেই। টেকনাফে বসবাসরত আরাকানী মানুষগুলো বেশ Hostile হয়ে থাকে। তাদের ঘরবাড়ির দিকে গেলে কেমন অদ্ভুত চোখে তাকিয়ে থাকে এবং সম্পূর্ণরুপে এড়িয়ে চলে।
পুনশ্চ: এইবার আর তবারক দিতে ভূল করলাম না।

ঘরবাড়িতে যাবার সৌভাগ্য বা দূর্ভাগ্য কোনটাই হয়নি। আল্লায় বাঁচাইছে দেখা যায় neutral আর ধন্যবাদ রাজু ভাই আলসেমী ছাড়ার জন্যে wink

ফায়ারফক্স লিখেছেন:

পরের পর্বের অপেক্ষায়..


পরবর্তী হরতালের দিন ইনশাল্লাহ lol

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১০

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

hahahaha, bepok moja pailam vai  lol2 lol2

মুইছা দিলাম। আমি ভীত !!!

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১১

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

https://lh3.googleusercontent.com/-DoE-PZTRoC8/UW1NbpLJzHI/AAAAAAAAAgA/aX8F1ERVd2Y/s604/21838_1341573424119_564511_n.jpg

lol2 lol2 lol2 lol2 lol2 পগেপগে lol2 lol2 lol2 lol2 lol2

সব পর্বে এখনো চোখ বোলাইনি। এখন আরশোলা নিধনে কিঞ্চিৎ ব্যস্ত। পরবর্তীতে সবগুলো পর্ব এক সাথে পড়বো এবং তার পর কেমন লাগল সেটি এসে জানাবো। big_smile

হে আল্লাহ, তুমি সকলের মঙ্গল কর; তোমার রহমতের আশ্রয়ে আশ্রিত কর..... আমীন
সঠিক পদ্ধতিতে ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করুন এবং আপনার ওয়ার্ডপ্রেস সাইটটিকে সুরক্ষিত রাখুন

কাজী আলী নূর'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

১২

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

বরাবরের মত জোস লাগলো thumbs_up আপনারা সবাই যে একেকটা পিস ছিলেন...বোঝাই যাচ্ছে! hehe তা ইয়ে..নাঙ্গুবাবাদের কয়েকটা ফটুক জাতিকে দেখিয়ে দিতেন। অবশ্য আপনার বন্ধুরা এই ফোরাম ভিজিট করলে কপালে সমূহ দু:খ নেমে আসার সম্ভাবনা আছে।

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৩

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

ফারহান খান লিখেছেন:

hahahaha, bepok moja pailam vai  lol2 lol2

ধন্যবাদ ফারহান big_smile

কাজী আলী নূর লিখেছেন:

lol2 lol2 lol2 lol2 lol2 পগেপগে lol2 lol2 lol2 lol2 lol2
সব পর্বে এখনো চোখ বোলাইনি। এখন আরশোলা নিধনে কিঞ্চিৎ ব্যস্ত। পরবর্তীতে সবগুলো পর্ব এক সাথে পড়বো এবং তার পর কেমন লাগল সেটি এসে জানাবো। big_smile


হম্ম। অপেক্ষায় থাকলাম।

উদাসীন লিখেছেন:

বরাবরের মত জোস লাগলো thumbs_up আপনারা সবাই যে একেকটা পিস ছিলেন...বোঝাই যাচ্ছে! hehe তা ইয়ে..নাঙ্গুবাবাদের কয়েকটা ফটুক জাতিকে দেখিয়ে দিতেন। অবশ্য আপনার বন্ধুরা এই ফোরাম ভিজিট করলে কপালে সমূহ দু:খ নেমে আসার সম্ভাবনা আছে।

ধন্যবাদ উদাসীনদা। বন্ধুরা নিয়মিত ফোরাম এবং আমার ব্লগ ভিজিট করে। তার উপর কিছুদিনের মধ্যেই ঢাকায় যাবো। কি দরকার শুধু শুধু মার খাওয়ার lol

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৪

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

হে হে মজা পেলাম big_smile

Seen it all, done it all, can't remember most of it.

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৫

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

অমিত ০০৭ লিখেছেন:

হে হে মজা পেলাম big_smile


ধন্যবাদ অমিত।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৬

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

শেষ পর্যন্ত্য কি অষ্টান্ন মিনিটে পৌঁছাতে পেরেছিলেন?
এই পর্বের সমাপ্তি টা বেশ হয়েছে... lol2 lol2
আমার অভিজ্ঞতা অনুযায়ী সেন্টমার্টিন দ্বীপে এইরকম আরো বেশি বেশি ছবি পাবার কথা, পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।

You are the one who thinks that i didn't get the point, so do i think of you...what a coincidence!!

১৭

Re: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়া......, পর্ব-৩

faysal_2020 লিখেছেন:

শেষ পর্যন্ত্য কি অষ্টান্ন মিনিটে পৌঁছাতে পেরেছিলেন?
এই পর্বের সমাপ্তি টা বেশ হয়েছে... lol2 lol2
আমার অভিজ্ঞতা অনুযায়ী সেন্টমার্টিন দ্বীপে এইরকম আরো বেশি বেশি ছবি পাবার কথা, পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।


আরও ঘন্টা দেড়েক লেগেছিলো মনেহয়। আপনার কমেন্ট দেখে কয়েকটা বানান ভুল সম্পাদণা করলাম। ধন্যবাদ ভাই।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(