টপিকঃ আমরা অনেকেই হয়তো জানিনা

আমরা অনেকেই হয়তো জানিনা,

১। ২০০৯ থেকে দেশ এবং প্রবাসের একদল নিবেদিত প্রাণ ছেলেমেয়ে মিলে আইসিএসএফ (ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইমস স্ট্র্যাটেজি ফোরাম) নামের একটি নেটওয়ার্ক বা কোয়ালিশন শুরু করে।

২। বিশ্বের প্রায় ৩৮ শহরের তরুণ প্রজন্মের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সংগ্রামী কিছু তরুণ-তরুনীদের মধ্যে এই সংগঠনটি ছড়িয়ে পড়েছে।

৩। সম্পূর্ণ স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে গড়ে তোলা এই সংগঠনটিতে কোনো তথাকথিত স্তরবিন্যাস নেই। রাজনৈতিক কিংবা প্রাতিষ্ঠানিক পৃষ্ঠপোষকতাহীন এই সংগঠনটিতে একে একে জড়ো হয়েছে ১৩টি সংগঠন, যার মধ্যে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নেতৃত্ব দেয়া সবচেয়ে প্রভাবশালী বাংলা ব্লগগুলোও।

৪। এ সংগঠনে যুক্ত হয়েছেন অক্সফোর্ড-কেমব্রীজ-হার্ভার্ডসহ পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রখর মেধাবী দেশপ্রেমিক ছেলেমেয়েরা, দেশ-বিদেশের নাম করা সব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা, রয়েছেন আইনজীবি, সাংবাদিক এবং নানা পেশাজীবিরা, রয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ পরিবারের সদস্যরা।

৫। এ সামষ্টিক কর্মযজ্ঞে কেউ নিজের ব্যক্তিগত নাম বা যশের জন্য কাজ করেন না। প্রচলিত ধারার কমিটি, সাব-কমিটি নির্ভর বিবৃতি সেমিনার এবং প্রচারনির্ভর কর্মকাণ্ডের বাইরে গিয়ে ওরা নিভৃতে গড়ে তুলেছে একের পর এক আর্কাইভ।

৬। যুদ্ধাপরাধী বিচারের এ মহৎ উদ্যোগের সামনে শত শত প্রতিবন্ধকতা জেনেই সংগঠনটি তৈরী হয়। যুদ্ধাপরাধ সংশ্লিষ্ট তথ্য সংগ্রহ, সংরক্ষণ, গবেষণা, বিচারে আইনী সহায়তা প্রদান, অপপ্রচারের জবাব দেয়া, জনমত তৈরী করা, সমমনাদের একাত্ম করাসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ফোরামে বিচার প্রক্রিয়ার বিরুদ্ধে সব ধরণের অপ-প্রচার এবং ষড়যন্ত্র এই নেটওয়ার্কের সদস্যরা মোকাবিলা করে আসছে। এরাই টোবি ক্যাডম্যান, স্টিফেন, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, বা গ্রেগ হার্টলিদের নানা বিভ্রান্তিমূলক বিবৃতি এবং রিপোর্টগুলোর সমুচিত জবাব দিয়ে এসেছে।

প্রাণ দিয়ে দেশটাকে ভালবাসা ছাড়া এ সংগঠনটির আর কোন স্বার্থ নেই। যুদ্ধাপরাধী বিচারে আর কোন ভূমিকা রাখতে পারি আর না পারি, আসুন, নিঃস্বার্থ দেশপ্রেমিক এ সংগঠনটির ডাকে আমরা অন্ততঃ একাত্ম হই। কারণ এখন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের মানুষের ঐক্য বড় বেশি জরুরী। আসুন, আইসিএসএফ এর এ আহ্বান ছড়িয়ে দিই গোটা বিশ্বজুড়ে। যুদ্ধাপরাধী বিচারের সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশের জন্য কাজ করার এটাই হয়তো শেষ সুযোগ আমাদের।

ICSF প্রেস রিলিজঃ ২৪ ডিসেম্বর ২০১২

You'll never reach your destination if you stop and throw stones at every dog that barks.

Re: আমরা অনেকেই হয়তো জানিনা

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার অবিলম্বে বাস্তবায়ন করা হোক, ডিসেম্বর মাস চলে যাচ্ছে, অথচ এখনো একজনের বিচারের রায়ও জাতি পেলোনা  sad

মুক্ত অভি'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন মামুন.pb (২৫-১২-২০১২ ০০:৪৩)

Re: আমরা অনেকেই হয়তো জানিনা

খুবই ভালো একটি উদ্যোগ।রাজনৈতিক দলগুলোর পৃষ্ঠপোষকতার বাহিরে হয়েই ভালো হয়েছে,তাহলে ইতিহাসের এই আর্কাইভ হতো উক্ত দলের মতো করে।ভালো একটি উদ্যোগের জন্যে ওদেরকে সাধুবাদ জানাচ্ছি।
যুদ্ধোঅপরাধীর বিচার চার বছর তো ঝুলে আছে,এখন চাই দ্রুত বিচার হোক।

ওয়াসকর্ম ও ওয়াসকৃত মস্তিস্ক্য প্রতিটা দলের মাঝেই দেখা যায়।রাজনৈতিক দলীয় ফ্যন/মুরীদ মাত্রই ক্ষীনদৃষ্ট সম্পন্ন।দেশী,বিদেশী,খ্যাতমান বা অখ্যত যেমনই হোক,কপিক্যাটকে বর্জন করে নকলের অরিজিনালটা গ্রহন করে তাদের মেধা ও সাহস অনুপ্রনিত করি।

Re: আমরা অনেকেই হয়তো জানিনা

সুন্দর শেয়ার