সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আশিকুর_নূর (২১-১১-২০১২ ১৩:৩৫)

টপিকঃ মুক্ত সফটওয়্যার ও জিএনইউ-লিনাক্স বিষয়ক কর্মশালা

প্রিয় সূধী
আগামী ২৪শে নভেম্বর ২০১২ইং শনিবার ফাউন্ডেশন ফর ওপেন সোর্স সলিউশনস বাংলাদেশ এর আয়োজনে রাজশাহী বিভাগের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার উপজেলা পরিষদ ভবনে আয়োজিত হতে যাচ্ছে "তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে মুক্তপ্রযুক্তি ভিত্তিক সফটওয়্যার শিল্পের কার্যকারীতা এবং বর্তমান বৈশ্বিক অবস্থা প্রেক্ষিত: জিএনইউ ।। সফটওয়্যার মুক্তি ।। জিএনইউ/লিনাক্স" শিরোনামে "মুক্ত সফটওয়্যার ও জিএনইউ-লিনাক্স" বিষয়ক এক কর্মশালা।

আয়োজন সূচীঃ
# জিএনইউ, মুক্ত সফটওয়্যার, জিএনইউ/লিনাক্স কি এবং কেন?
# ডেবিয়ান, উবুন্টু, লিনাক্স মিন্ট কী এবং কেন?
# বর্তমান বিশ্বে মুক্তপ্রযুক্তি ভিত্তিক সফটওয়্যার শিল্পের অবস্থা
# বাংলাদেশে মুক্তপ্রযুক্তি ভিত্তিক সফটওয়্যারের বর্তমান অবস্থান ও আগামীর সম্ভাবনা
# লিনাক্স মিন্ট ১৩ 'মায়া' ইন্সটলেশন ও ব্যবহারিক সহযোগীতা সেবা

স্থান:
উপজেলা পরিষদ, শিবগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী

সময়:
সকাল ১০টা

আগ্রহীদেরকে http://goo.gl/bPxs0 লিংক থেকে প্রাপ্ত ফর্মে তথ্য দিয়ে অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে অনুরোধ করছি।

--
যোগাযোগে:

রিং
01671411437
শরীফ
01674855049


আশা করি উত্তর বঙ্গে আগ্রহীগন যোগ দিবেন।

আশিকুর_নূর'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-nd 3. এর অধীনে প্রকাশিত

Re: মুক্ত সফটওয়্যার ও জিএনইউ-লিনাক্স বিষয়ক কর্মশালা

ঢাকার বাইরে এ ধরনের আয়োজনকে সাধুবাদ। thumbs_up

Re: মুক্ত সফটওয়্যার ও জিএনইউ-লিনাক্স বিষয়ক কর্মশালা

বাহ! দারুণ কাজ। শুভেচ্ছা রইলো।

আমার সকল টপিক

কোনো কিছু বলার নেই আজ আর...

Re: মুক্ত সফটওয়্যার ও জিএনইউ-লিনাক্স বিষয়ক কর্মশালা

বিডিনিউজ২৪এ এসেছে খবরটি: http://tech.bdnews24.com/details.php?shownewsid=4457

বহুদিন আগে একটি বা একাধিক বিপ্লবী(!) স্যাটায়ার লিখেছিলাম লিনাক্স নিয়ে। সেটা পড়ে চাপাইনবাবগঞ্জের আব্দুর রব ভাই লিনাক্স সিডি চেয়েছিলেন টেকটিউনসের পোস্টের কমেন্টে। আমি পাঠিয়ে দিয়েছিলাম কুরিয়ার করে। সেই থেকে শুরু। উনি ওটা ফেলে না রেখে ছড়িয়ে দিয়েছেন বলে জেনেছিলাম। কিছুদিন পরে জানালেন অনেকগুলো দোকানে এখন সেই মিন্ট চালাচ্ছে। আসলেই অবাক হয়েছিলাম। দুই একটা ছোট খাটো সমস্যার সমাধান হলে আর সকলেই ব্যবহার করবে বলে জানিয়েছিলেন।

ঘটনাটা মনে আছে অন্য আরো কারণে। উনি সিডি (কিংবা সিডিগুলো - নপিক্স সহ) পেয়ে দাম কিংবা খরচ কিভাবে দেবেন জানতে চেয়েছিলেন মেইলে/ফোনে। আমি পাঠানোর খরচ ৩০ টাকা কিংবা সিডির খরচ মিলিয়ে ১০০ টাকার পাঠাতে ব্যস্ত হতে মানা করেছিলাম ওনাকে, একান্তই যদি দিতে হয় তবে এটা আমাকে না দিয়ে বরং অন্য আগ্রহী কারো পেছনে খরচ করতে (সিডি রাইট করে দেয়া ইত্যাদি) অনুরোধ করেছিলাম। আমাকে অবাক করে দিয়ে আমার ঠিকানায় এক ঝুড়ি আম চলে এসেছিলো পরের সিজনে!

এর পর এই বিষয়ের সমস্যা সমাধান ইত্যাদি ব্যাপারে অনেকবার লিনাক্স টেকি ভাইদের সাথে ওনার কথা হয়েছে ইমেইলে, মুঠোফোনে। এর ধারাবাহিকতায় এইরকম আয়োজনের আগ্রহ এবং ফলাফল এই সুযোগ। প্রচন্ড কাজের চাপের কারণে নড়াচড়ার জো নাই যে সময়ে সেরকম সময়ে এটার তারিখ পড়ে যাওয়াতে আর যাওয়া হবে না, কিন্তু আমার শুভেচ্ছা থাকবে সবসময়ে।

আশা করি ঢাকা থেকে বের হয়ে টাঙ্গাইল, সিলেট (২-বার), নরসিংদি, দিনাজপুর, খুলনা, রাজশাহী ... ... ... এবার চাঁপাই --- এভাবে পুরা দেশেই ছড়িয়ে পড়বে সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান ও টেক সাপোর্ট। শরীরের যন্ত্রণা উপেক্ষা করে, ক্লান্তিকর যাত্রা সয়ে এবং পকেটের টাকা খরচ করে যেই পাগলরা এইসব দৌড়াদৌড়ি করছেন তাদেরকেও শুভেচ্ছা জানাই।

দৌড়াদৌড়ি করা কিংবা ডোনেট করা সকলের পক্ষে সম্ভব না, কিন্তু তাই বলে অবদান রাখা যাবে না তা তো নয়। প্রচার প্রসারের অনেকগুলো ডাইমেনশন আছে। ভীতি কাটানোর জন্য গিম্প নিয়ে সিরিয়াস গুতাগুতির কথা সহজ করে জানাতে চেষ্টা করছি, আর লিব্রে অফিস নিয়ে অনেক কিছু লিখে ফেলেছি (অপ্রকাশিত) - ট্রেনিং প্রোগ্রামও করিয়েছি একটা অফিসিয়ালি, আর আমার থিসিসের ছাত্রদেরকে লিব্রে অফিস দিয়েই সব কাজ করাই (এটা ছাড়া তাদের উপায়ও নাই, কারণ অফিসে আমার পিসিতে শুধুমাত্র লিনাক্স চলে)।

পাইরেসীর গ্লানী থেকে বেরিয়ে এসে মাথা উঁচু করে পথ চলার পথের বাঁধাগুলো আস্তে আস্তে সব দুর হয়ে যাক। দেশে ইতিমধ্যেই বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবে লিনাক্স চলছে - না চলে উপায় কি; অফিসিয়ালি পাইরেসী করে ধরা খেলে সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের মান সম্মান কোথায় থাকবে? দেশের রেলওয়ের বুকিং সিস্টেম চলে লিনাক্সে, বড় দুইটা ব্যাংক (ইসলামী, বেসিক) ওপেনসোর্স নিয়েই পথ চলছে (জাহিদ সুমন ভাই হয়তো ভাল বলতে পারবেন)। আর এদিকে বেশ কয়েকটা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানও পুরাপুরি (সার্ভার এন্ড থেকে ডেস্কটপ ইউজার পর্যন্ত) লিনাক্সে চলছে। প্রিন্টিং ইন্ডাস্ট্রির সমস্যাগুলোও জয় করা গিয়েছে। আমাদের সমস্ত ব্যানার, পোস্টার ইত্যাদি পল্টনের যেই প্রতিষ্ঠান থেকে করাই সেটা বেশ বড় একটা প্রিন্ট প্রতিষ্ঠান (আর এস গ্রাফ) - তাদের প্রায় পুরাটাই লিনাক্স মিন্টে চলে। আর এদিকে বই ছাপানোর সমস্যাটাও দুর হয়ে গেছে (আজিজ মার্কেটের শুদ্ধস্বরের কর্ণধার টুটুল ভাই হয়তো ভালো বলতে পারবেন)। আর হয়ত না জেনেই কত সাধারণ পাবলিক যে অ্যান্ড্রয়েড চালায় সেটাও তো লিনাক্স।

বনের মোষ তাড়ানো রাখালদের এবং সচেতন মুক্তিকামী সকলকে অভিনন্দন। বনের মোষ তাড়ানি মনে হলেও আসলে এগুলো নিজের স্বার্থেই করা -- আমি আমার থাকার জায়গার চারপাশ পরিষ্কার করলে সেটা আমার স্বাস্থ্যসম্মত জীবনকেই নিশ্চিত করে যেভাবে - এটাও তাই। আমার দেশের কলঙ্ক ও দূর্নাম কমলে এর সুফলের ভাগীদার হব আমিও -- তাই আমি এ ধরণের কাজের জন্য মোটেও নিজেকে নিঃস্বার্থ পাগল বলি না।

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: মুক্ত সফটওয়্যার ও জিএনইউ-লিনাক্স বিষয়ক কর্মশালা

শামীম ভাইয়ের কথাগুলোর সাথে একমত। চাইলে অনেক বাধা সহজেই দূর করা যায়। একবারে-একসাথে সব ধরনের পাইরেসিকে হয়তো অনেকে না বলতে পারবেন না, কিন্তু চাইলে একটু একটু করে নিজেকে পাইরেসিমুক্ত করা যায়।

আমার সকল টপিক

কোনো কিছু বলার নেই আজ আর...

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন রিং (২৩-১১-২০১২ ০০:৩৬)

Re: মুক্ত সফটওয়্যার ও জিএনইউ-লিনাক্স বিষয়ক কর্মশালা

ইনশাল্লাহ আমি যোগ দেবো এই আয়োজনে।

শামীম ভাইয়ের সাথে পুরোপুরি একমত। আমারও কিছু মজার অভিজ্ঞতা আছে দেশের বেশ কিছু স্থানে। লেখার হাতটা শুধু যদি কোনমতে আপনার কাছাকাছিও হতো তাহলেই লিখে ফেলতাম। আফসোস সেই সামর্থ্য বোধহয় হবে না কখনোই!!!

শামীম লিখেছেন:

আশা করি ঢাকা থেকে বের হয়ে টাঙ্গাইল, সিলেট (২-বার), নরসিংদি, দিনাজপুর, খুলনা, রাজশাহী ... ... ... এবার চাঁপাই --- এভাবে পুরা দেশেই ছড়িয়ে পড়বে সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান ও টেক সাপোর্ট। শরীরের যন্ত্রণা উপেক্ষা করে, ক্লান্তিকর যাত্রা সয়ে এবং পকেটের টাকা খরচ করে যেই পাগলরা এইসব দৌড়াদৌড়ি করছেন তাদেরকেও শুভেচ্ছা জানাই।

দাদা হালকা একটা সংশোধনীর প্রয়োজন দেখতে পাচ্ছি এই অংশে। এফওএসএস বাংলাদেশের আয়োজনের সূচনাই করেছিলাম রাজশাহী বিভাগ থেকে। তারপর দিনাজপুর, খুলনা(২), ঢাকা (১৪), টাঙ্গাইল(৩), সিলেট(২), নরসিংদী(৩)র আয়োজনগুলো।

শারীরিক কারনেই পকেটের স্বাস্থ্য সবসময়েই করুন থাকে। যদি আরেকটু বেশী শ্রম বেচতে পারতাম তো কামাই আরেকটু বেশী হতো। আর তাতে এই রকম দৈন্যদশার আয়োজন হতো না। সারা দেশে দিতাম "চরম দাবড়ানি"। দেশের মানসম্মান যে মানুষগুলোর কাছে তুচ্ছ তাঁদের সামনে দাঁড়িয়ে বলতাম কি করে তাঁদের কারনে আমরা আগামী দিনে প্রযুক্তি বিশ্বে শাসিত ও শোষিত হতে যাচ্ছি।

আজকে চ্যানেল ৭১ এ একটা সাক্ষাৎকার দেখেছিলাম সকালে। ক্যাসপারস্কি বিষয়ক কিছু কথা বার্তা বলতে এসে ক্যাসপারস্কির এশিয়া অঞ্চলের প্রধান নির্বাহী দুমদাম বলতে থাকলেন -- "বাংলাদেশ পাইরেসীর আখড়া। শতকরা ৯০ শতাংশ কম্পিউটার ব্যবহারকারী এখানে চোরাই সফটওয়্যার ব্যবহার করে। তবে মজার বিষয় এই ৯০ শতাংশের ৮০ শতাংশই ক্যাসপারস্কির গ্রাহক এবং যদিও বা তাঁরা উইন্ডোজ এবং অন্যান্য সফটওয়্যার পাইরেসী করে কিন্তু এই ক্যাসপারস্কি তাঁরা কিনেই চালায় এবং যথা সময়ে আপগ্রেডও করে।"

খুব মনে চাইছিলো যে চ্যানেলে ফোন করে সংবাদ প্রতিবেদককে জানিয়ে দিই যে আমরা এখন আর চুরি করি না। বরংচ ক্যাসপারস্কি নিজেদের সিস্টেম লেভেল ব্যাকআপে যে লিনাক্স ব্যবহার করছে, পৃথিবীর ৯৩ শতাংশ সার্ভার সহ বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর ন্যায় আমাদের দেশেও রয়েছে সেই জিএনইউ/লিনাক্স সিস্টেমের ব্যবহারকারী। সংখ্যাটা এখন দশ হাজারের কাছাকাছি আর সেটা আগামী বছরের মধ্যেই পঁচিশ হাজারের কোটা পেরুবে। বাংলাদেশকে চোরের জাতিতে রুপান্তরের পেছনে বিশাল একটা অবদান যে ঐ পশ্চিমা শোসকদেরও সেটাও বলতে চাইছিলাম।

কিন্তু মুঠোফোনটা হাতে নিয়েও থমকে গেলাম, যেতে হলো। এখনো যে আমার আশেপাশেই কাউকে কাউকে বেশ উচ্চকন্ঠেই বলতে শুনি/দেখি --

...........
একসময় দেশে আইন হলো প্রকাশ্যে ধুমপান করলে ৫০টাকা জরিমানা। তখন আইনের প্রয়োগও হলো। প্রকাশ্যে ধুমপান করা লোকজন ছেড়ে দিয়েছিলো। সেই সময় আপনি যদি কাউকে ধুমপান করতে দেখে ধমক দিতেন তাহলে সে হয়তো তা আরাল করতে চেষ্টা করতো নয়তো ফেলে দিতো। কিন্তু এখন বর্তমান যুগে সেই ৫০ টাকা বারিয়ে ১০০ টাকা করা হয়েছে কিন্তু তার প্রয়োগ নাই। এখন যদি কাউকে আপনি গিয়ে ধমক দেন ধুমপানের জন্য তাহলে হয় উল্টো ধমক খেয়ে আসবেন। আর ক্ষেত্র বিষেসে মাইরও খাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা আছে। তাই আইন থাকলেও আপনার এখন ধমক দেবার অধিকার নাই, এটা হয়েছে আইনের প্রয়োগ নাই এই জন্যই।

এখন আপনারা বলছেন আইন আছে, আমিও জানি আইন আছে। আইন মানছে না বলে দেশের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। আমিও জানি ক্ষুন্ন হচ্ছে। কিন্তু এখন আমার কিছুই করার নাই। আমি পারি না এখন উইন্ডোজের অর্জিনাল ভার্সন অফিসে দিয়ে একাউন্ট থেকে সেই টাকা নিতে। যদি ৩০টাকার সিডি আমি এখন ৮ হাজার টাকা দিয়ে কিনা তাহলে হয় আমাকে অফিসের লোকজন বলবে আমি ছাগল নয়তো পাগল হয়ে গিয়েছি। কারন যদি আইন এর প্রয়োগ নাই।

এখন বলবেন তাহলে টাকা দিয়ে না কিনে লিনাক্স ব্যবহার করুন। কিন্তু সেটা আমার দ্বারা সম্ভব নয়। আমার অফিসের লোকজন যেটাতে সাচ্ছন্দবোধ করবে আমি সেটাই তাকে দেব। হোক সেটা ম্যাক, হোক উইন্ডোজ, হোক লিনাক্স। কিনতে লাখ টাকা লাগলেও আমি তাকে সেটা দিবো। যদি আইনের প্রয়োগ হয় তাহলে লাখ টাকা দিয়ে কিনে দেব যদি আইনের প্রয়োগ না থাকে তাহলে তা ৩০ টাকার সিডি কিনে দেব। এই জন্য আমার বিন্দু পরিমান লজ্জা নাই।

এমনিতেই আগের মতো যুক্তি দিয়ে ফোরামিকদেরকে বোঝাই না। কারন ২+২=৪ জেনেও যাঁরা মানবে না তাঁদের পেছনে সময় আর শ্রম নষ্ট না করে আমি বরংচ দেশের যতটা পারি সেবা করি, যতটুকু পারি নিজের জ্ঞানের বিচ্ছুরন ঘটাই আগ্রহীদের মাঝে। হয়তোবা এই শ্রম পুরোই বিফলে যাবে, কোন ফলই দেবে না। আমি জানি -- সব পরিশ্রমে তো আর ফল মেলে না, কখনো কখনো শুধু আন্তরিক তৃপ্তিটুকুই যে পরমপ্রাপ্তি।

রিং'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: মুক্ত সফটওয়্যার ও জিএনইউ-লিনাক্স বিষয়ক কর্মশালা

রিং লিখেছেন:

দাদা হালকা একটা সংশোধনীর প্রয়োজন দেখতে পাচ্ছি এই অংশে। এফওএসএস বাংলাদেশের আয়োজনের সূচনাই করেছিলাম রাজশাহী বিভাগ থেকে। তারপর দিনাজপুর, খুলনা(২), ঢাকা (১৪), টাঙ্গাইল(৩), সিলেট(২), নরসিংদী(৩)র আয়োজনগুলো।

আচ্ছা আচ্ছা ... ...  সাধারণত কোনকিছু লেখার সময়ে তথ্যের নির্ভুলতার জন্য আমি একবার চেক দিয়ে নেই। কিন্তু এটা লেখার সময়ে লেখার মত সময়ের বিলাসিতা ছিলনা হাতে কিন্তু কিছু একটা লিখতে খুব ইচ্ছা করছিলো তাই এক প্রকার বাধ্য হয়েই লেখার সময়ে কোন রকম ডেটা চেক করিনি।

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত