সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন তার-ছেড়া-কাউয়া (১১-১০-২০১২ ২২:৪৫)

টপিকঃ পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

কক্সবাজার ভ্রমণ বাংলাদেশের ভ্রমণপিপাসু মানুষজনের জন্যে খুব কমন একটা ব্যাপার। নিজের কথাই বলি। ২০০৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত এটা ছিলো আমার চতুর্থবারের মতন কক্সবাজার ভ্রমণ। কিন্তু অনেকগুলো কারণে এবারের যাত্রা স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এবারই প্রথমবারের মতন সিলেট হতে কক্সবাজার যাত্রা করলাম। এবারই প্রথমবারের মতন হাইফান্ডা হোটেলে রাত্রীযাপন করলাম এবং এবারই প্রথমবারের মতন দৌড়ের উপর না থেকে পুরোপুরি হলিডে স্টাইলেই ভ্রমণ সম্পন্ন করলাম।

যাত্রা হলো শুরুঃ
সিলেট থেকে সরাসরি কক্সবাজারের কোন এসি বাস সার্ভিস নেই। বাধ্য হয়ে সিলেট থেকে চট্টগ্রামে যাবার একমাত্র এসি সার্ভিস সৌদিয়ার দুটি টিকেট খরিদ করে তাতে চেপে বসলাম আমি আর আমার স্ত্রী। পথে বলবার মত কিছু হয়নি। আসলে দুজনে এমন ঘুম ঘুমিয়েছি যে কিছু টেরই পাইনি। বাস ছেড়েছিলো রাত দশটায়। চিটাগং এর দামপাড়ায় এসে পৌছালাম সকাল সাড়ে ছটায়। চিটাগং এ এসেই কক্সবাজারে যাবার বাসের টিকেট কেটে ফেললাম। ঝামেলা এড়ানোর জন্যে সৌদিয়ারই টিকেট নিলাম। বাস সকাল সাড়ে আটটায়। দুই ঘন্টা পরে। একটু ফ্রেশ হওয়ার জন্যে এবং খাওয়াদাওয়া করার জন্যে রাস্তার উল্টো দিকের কিংসের দোকানে হাজির হলাম। তখনো ঘড়িতে সাতটা বাজেনি। ওরা সবেমাত্র দোকান খুলি খুলি করছে। বাইরে ক্লোসড প্ল্যাকার্ড ঝুলানো। তারপরও আমরা ঢুকে পড়লাম। আমরাই দিনের প্রথম কাস্টমার। সেখানে একটু হাত-পা ছড়িয়ে বসলাম। ওয়াশরুমে গিয়ে একটু ফ্রেশ হয়ে এসে অনেকক্ষণ সময় নিয়ে আয়েশ করে প্যাটিস আর কফি খেলাম। খাওয়া-দাওয়া করতে করতেই সাড়ে আটটা বেজে গেলো। আমরা বিল মিটিয়ে সৌদিয়ার কাউন্টারে চলে আসলাম।

যাত্রাপথ এবং সহ যাত্রীগণঃ
এই ছাড়ছি, এই ছাড়বো করতে করতে বাস ছাড়লো নয়টার সময়। বাস মোটামুটি ফাকা। আমরা বাসের বামদিকে সি সারির সিট নিয়েছি। বেশ আরামদায়ক সিট। আমাদের ডানদিকে এক কাপল তাদের দুই বাচ্চা এবং তাদের এক ভাইকে নিয়ে হয়েছে আমাদের সহযাত্রী। আর আমাদের পিছনে বসেছে আরেক কাপল। মনেহয় সদ্য বিবাহিত। আর দুইজন সিঙ্গেল যাত্রী। আমরা এ কজন ছাড়া পুরো বাস ফাকা।

বাস হেলতে দুলতে এসে পৌছালো বহদ্দারহাট। চট্টগ্রাম নগরীর গাবতলী। এখানে দেখি দুটো ফ্লাইওভার বানাচ্ছে। এ দুটো বানাতে গিয়ে রাস্তার যা অবস্থা করেছে তাতে, আসলেই ফ্লাই করে চলে যাওয়াই শ্রেয় মনে হচ্ছিলো। এ জায়গাটা পার হওয়ার সময় বাস যেভাবে দুলুনি দিলো , তাতে কিংসের প্যাটিস পেটের ভিতরে নান্নার খিচুড়ি হয়ে যাওয়া শুরু করলো। ভাগ্য ভালো যে দুজনই অ্যাভোমিন খেয়েছিলাম। তাই তেমন কিছু হয়নি। কিন্তু আমাদের ডানপাশে বসা ফ্যামিলীর সানগ্লাস পড়া কর্তী মনেহয় অ্যাভোমিন খাননি। একটু পরে দেখি উনি চিতকার-চেচামেচি আরম্ভ করলেন,
-    ওরে বাবারে। আমারে মাইরা ফেললোরে। ঐ তুমি এইখানে গাড়ি থামাও। আমি মইরা গেলাম। (স্বামীর দিকে তাকিয়ে) তুমি আমারে মারার প্ল্যান করসো......
স্বামী বেচারা বেশ কিছুক্ষণ মহিলার মাথায় হাতবুলায় দিয়ে শেষে মহিলার ভাইকে নিয়ে এসে বসালো। আর নিজে গেলো ছেলেকে শান্ত করতে। পিচ্চি ছেলে খালি বলে, “বাবা, গালি এভাবে তলতেতে কেন? বলো না বাবা? মা এমন কলে কেন বাবা? বলো না বাবা? ” এসব দৃশ্য দেখে আমরা সেফসাইডে থাকার জন্যে আস্তে করে উঠে পিছনে চলে গেলাম। আর যাওয়ার সাথে সাথেই মহিলা হোয়াক হোয়াক করে বমি করা শুরু করলো। বমি করে শান্ত হলেও কথা ছিলো। সমানে চিল্লানো শুরু করলো। “ড্রাইভাররে গাড়ি থামাতে বলো। আমি যাবো না। আমি এইখানেই থাকবো। ” 
পিছনে এসে বসে দেখি আমাদের পাশে বসা নববিবাহিত কাপলের মধ্যে স্বামীর অবস্থা খারাপ। কপালে হাত দিয়ে বসে আছে। আমি জিজ্ঞেস করলাম,
-    কি হয়েছে ভাই?
-    মাথা ঘুরাচ্ছে। বমি বমি লাগছে।
-    ঠিক হয়ে যাবে। অসুবিধা নাই।
-    ভাই, ট্রেনে করে চিটাগং আসলাম শুধুমাত্র জার্কিং এর ভয়ে। আমি জার্কিং সহ্য করতে পারি না। কিন্তু ট্রেনে ভালোই জার্কিং হইছে। এখন আবার এখানেও জার্কিং। এখান থেকে সিএনজি দিয়ে যাওয়া যাবেনা ?
-    হ্যা। যাবে।
-    কতক্ষণ লাগবে?
-    দুই-তিন দিন লাগবে মনেহয়।
-    কি বলেন ভাই??!!!
-    দেখেন, দুই বছর আগেও রাস্তা অনেক ভালো ছিলো। চিটাগং থেকে কক্সবাজার এসেছিলাম সাড়ে তিন ঘন্টায়। এখন যেভাবে জায়গায় জায়গায় কার্পেট-বোম্বিং এর মতন করে রাস্তা ভেঙ্গেছে তাতে বাসেই মনেহয় অনেকক্ষণ লাগবে। আর সিএনজিতে আরও বেশিক্ষণ লাগবে। তারচেয়ে বাসেই যান। আর সুপারভাইজারকে দিয়ে অ্যাভোমিন আনিয়ে খান। ভালো লাগবে।
লোকটা আমার কথা শুনে অ্যাভোমিন আনিয়ে খেলো। অ্যাভোমিন খাওয়ার মিনিট পাচেকের মধ্যে সেও বমি করে ভাসিয়ে দিলো।

চকরিয়ার বিরতি আর অবশেষে কক্সবাজারঃ
বাসের ভিতরের বোমারুদের বমি করা আর সামনের মহিলা বোমারুর চিতকার-চেচামেচির মধ্যেই আমরা চকোরিয়া পৌছালাম। এখান থেকে কক্সবাজার আরও সত্তর কিলোমিটার। মহিলা বোমারুকে ধরাধরি করে বাস থেকে নামানো হলো। তাদের ফ্যামিলী যাত্রা থেকে সেখানেই বিরতী নিলো। আমরা হালকা খাওয়াদাওয়া করে আবার যাত্রা শুরু করলাম। নববিবাহিত পুরুষ বোমারুর অবস্থা বেশ ভালো মনে হলো। সে আমার সাথে গল্পগুজব শুরু করে দিলো। এভাবেই গল্পগুজব করতে করতেই কক্সবাজার পৌছে গেলাম। এসে দেখি বাস শহরের ভিতরে না ঢুকিয়ে শহরের বাইরে টার্মিনালে থামালো। সুপারভাইজার আমাদের আর নবদম্পতিকে একটা টমটমে উঠিয়ে দিলো। আমাদের বুকিং রয়েছে হোটেল ওশান প্যারাডাইজে, আর সীগ্যালে। এরপর ঘটলো সবচেয়ে প্যাথেটিক ঘটনা। আমাদের টমটম ড্রাইভার হোটেলের সামনে থামিয়ে উপকারী বন্ধুর মতো আমাদের বললো,
-    ছলেন অন্য হোটেলে নিয়ে যাই যে। এ হোটেলে অনেক বেশি খরচ যে।
পুরো থতমত খেয়ে গেলাম। জানি আমাদের চেহারা মফিজ। তাই বলে এতটা না যা, এই বদ ব্যাটা এই কথা বলবে! আমি উপকারী ড্রাইভারকে কোনমতে বললাম, “বুকিং আছে।” তারপর ভাড়া শেয়ার করতে চাইলে বোমারু ভাই রীতিমতো হুঙ্কার দিয়ে বললো,
-    এইটা করতে যাইয়েন না। তাইলে কিন্তু আঞ্জান শহরে মারামারি লাগায় দিমু।
আমরা কোনমতে নবদম্পতিকে একটা কেলানো হাসি উপহার দিয়ে তাদের কাছ থেকে বিদায় নিলাম আর, হোটেলের দিকে পা বাড়ালাম।
হোটেল ওশান প্যারাডাইজ
[চলবে]

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

সাবলীল লেখায় ভ্রমণ কাহিনী মন্দ লাগছে না।

কত কি শিখতে ইচ্ছা করে। এখনও শেখা হলো না কিছুই।

লেখাটি CC by-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

আমি ও ঘুরে আসলাম ৩ মাস আগে  thumbs_up এই হোটেলের পাশেই হোটেল বিলসন এ ছিলাম। ওশান প্যারাডাইজ, আর সীগ্যাল হেব্বি হোটেল  thumbs_up নেক্সট টাইম থাকুম এইখানে দেখি  thumbs_up ভাড়া-টারা জানি ৪০০০ + ছিল তখন, এই সিজনে কেমন চলছে জানাইয়েন একটু, আর সেনমাটিন গেছিলেন? ছবি -টবি দিয়েন  thumbs_up

۞ بِسْمِ اللهِ الْرَّحْمَنِ الْرَّحِيمِ •۞
۞ قُلْ هُوَ اللَّهُ أَحَدٌ ۞ اللَّهُ الصَّمَدُ ۞ لَمْ * • ۞
۞ يَلِدْ وَلَمْ يُولَدْ ۞ وَلَمْ يَكُن لَّهُ كُفُوًا أَحَدٌ * • ۞

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

বরাবরের মতো সুন্দর হয়েছে। প্লাস নেন।

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

যখন মনে হইতেসিলো আপনাদের সাথে আমিও কক্সবাজার চলে গেছি তখনি দেখি লেখা দুম করে শেষ  worried

মুইছা দিলাম। আমি ভীত !!!

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

thumbs_up সুন্দর হয়েছে ভ্রমণ কাহিনী। পরবর্তী পর্বের অপেক্ষায় থাকলাম।

আমাকে আমার মতো থাকতে দাও,আমি নিজেকে নিজের মতো গুছিয়ে নিয়েছি,যেটা ছিল না ছিল না সেটা না পাওয়া ই থাক,সব পেলে নষ্ট জীবন।

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

cslraju লিখেছেন:

সাবলীল লেখায় ভ্রমণ কাহিনী মন্দ লাগছে না।

ধন্যবাদ।

দ্যা ডেডলক লিখেছেন:

বরাবরের মতো সুন্দর হয়েছে। প্লাস নেন।

অনেক ধন্যবাদ।

সাইদুল ইসলাম লিখেছেন:

আমি ও ঘুরে আসলাম ৩ মাস আগে  thumbs_up এই হোটেলের পাশেই হোটেল বিলসন এ ছিলাম। ওশান প্যারাডাইজ, আর সীগ্যাল হেব্বি হোটেল  thumbs_up নেক্সট টাইম থাকুম এইখানে দেখি  thumbs_up ভাড়া-টারা জানি ৪০০০ + ছিল তখন, এই সিজনে কেমন চলছে জানাইয়েন একটু, আর সেনমাটিন গেছিলেন? ছবি -টবি দিয়েন  thumbs_up

সীগ্যাল ভালো হোটেল।যদিও পার্সোনালী আমি সিগ্যাল তেমন পছন্দ করি না। আর ইদানিং দেখলাম ওশান প্যারাডাইজ, কক্স-টুডে, লং বিচ এগুলো হোটেল রিভিউয়ে প্রথমের দিকে। সেন্টমার্টিন যাইনি। কিছু ছবি দিবো সামনের পর্বে। 

ফারহান খান লিখেছেন:

যখন মনে হইতেসিলো আপনাদের সাথে আমিও কক্সবাজার চলে গেছি তখনি দেখি লেখা দুম করে শেষ  worried

শেষতো হবেই। প্রথম পর্ব বলে কথা। হা হা হা।

শিশির লিখেছেন:

thumbs_up সুন্দর হয়েছে ভ্রমণ কাহিনী। পরবর্তী পর্বের অপেক্ষায় থাকলাম।


ধন্যবাদ। চেষ্টা করবো তাড়াতাড়ি পরবর্তী পর্ব দেয়ার।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

আহারে! আমারো বউ নিয়া যাইতে ইচ্ছা লয় কিন্তু বউই নাই dontsee
খাড়ান আইসা লই কক্সবাজার থিকা । তারপর একখানা এডভেঞ্চার পোস্ট দিমুনে।আফনেতো ভাবিরে নিয়া গেছেন তাই আপনেরটা লুতুপুতু( কিছুটা হইলেও ) হইব সন্দেহ করচতেছি big_smile

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

চলুক।

I am not far, but alone. Like a pair of rail tracks in winter morning.............

১০

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

আপনার লেখায় রম্যের গন্ধে থাকা প্রায় দায় হয়ে যাই , এখানে কমতি রাখেন নি smile । বিশেষ করে বাচ্চার ডায়ালগ আর সহযাত্রী লেডির ওয়াক ওয়াক  lol lol

চলুক..........

নিবন্ধিতঃ১১/০৩/২০০৯ ,নিয়মিতঃ১০/০৩/২০১১, প্রজন্মনুরাগীঃ১৯/০৫/২০১১ ,প্রজন্মাসক্তঃ২৬/০৯/২০১১,
পাঁড়ফোরামিকঃ২২/০৩/২০১২, প্রজন্ম গুরুঃ০৯/০৪/২০১২ ,পাঁড়-প্রাজন্মিকঃ২৭/০৮/২০১২,প্রজন্মাচার্যঃ০৪/০৩/২০১৪।
প্রেম দাও ,নাইলে বিষ দাও

১১ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ত্রিনিত্রির রাশিমালা (১১-১০-২০১২ ০৩:৫২)

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

ওসেন প্যারাডাইজ এ আমার ফ্রেণ্ড রা ছিল তো । কক্স টূডে তে আমি আছি tongue । আমাকে জানালে ভাল হত । পরিচিত তো হতে পারতাম অন্তত।
এবং বাই দ্যা ওয়ে কোণ ফাইভ স্টার হোটেল ঐ টমটম ওয়ালা দের কমিশন দেয় নাহ । দ্যাটস ওহাই tongue

১২

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

আজিকার দিনের প্রজন্মে পঠিত প্রথম কোন টপিক  smile
আমার ব্যপক রস আস্বাদনের উদ্দেশ্যে যথার্থই স্বার্থক রূপ লাভ করিয়াছে   clap

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

একটু পরে দেখি উনি চিতকার-চেচামেচি আরম্ভ করলেন,
-    ওরে বাবারে। আমারে মাইরা ফেললোরে। ঐ তুমি এইখানে গাড়ি থামাও। আমি মইরা গেলাম। (স্বামীর দিকে তাকিয়ে) তুমি আমারে মারার প্ল্যান করসো......

দিব্য চোখে কল্পনা করতঃ হাসিতে হাসিতে অবস্থা কাহিল হইয়া গেল  lol2


পুনশ্যঃ ভ্রমন বর্ণনার সহিত যাবতীয় খরচাদির উল্লেখ করিবার অনুরোধ রহিল  hug

একজন মানুষের জীবন হচ্ছে - ক্ষুদ্র আনন্দের সঞ্চয়। একেকজন মানুষের আনন্দ একেক রকম ...
এসো দেই জমিয়ে আড্ডা মিলি প্রাণের টানে !
   
স্বেচ্ছাসেবকঃ  ফাউন্ডেশন ফর ওপেন সোর্স সলিউশনস বাংলাদেশ, নীতি নির্ধারকঃ মুক্ত প্রযুক্তি।

১৩

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

মাসুদ৩০১১ লিখেছেন:

দিব্য চোখে কল্পনা করত

আসলেই তাই, ব্যাপার খানা দিব্য চোখেই দেখার মত।   isee

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৪ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন invarbrass (১১-১০-২০১২ ১৩:৩৩)

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

কাউয়া ভাইয়ের পর্যবেক্ষণ শক্তি অসাধারণ যে। বরাবরের মতই লেখাটি চমৎকার হয়েছে যে। ওশেন প্যারাডাইযের ভাড়া কত তা ঝাতি ঝানতে চায় যে। ভ্রমণ সম্প্রতি সংঘটিত হয়েছিলো কিনা (তথা রেট আপডেটেড কিনা) তাও জানতে মন ছায় যে।

সিকুয়েলের অপেক্ষায় রইলাম যে। tongue

Calm... like a bomb.

১৫

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

কালমঠ লিখেছেন:

আহারে! আমারো বউ নিয়া যাইতে ইচ্ছা লয় কিন্তু বউই নাই dontsee
খাড়ান আইসা লই কক্সবাজার থিকা । তারপর একখানা এডভেঞ্চার পোস্ট দিমুনে।আফনেতো ভাবিরে নিয়া গেছেন তাই আপনেরটা লুতুপুতু( কিছুটা হইলেও ) হইব সন্দেহ করচতেছি big_smile


মিয়া বিবাহ করেন। টের পাইবেন। এখন নর্মাল জার্নিই চরম অ্যাডভেঞ্চার এনে দেয় lol

রাশ লিখেছেন:

চলুক।

চলবে।

ত্রিনিত্রির রাশিমালা লিখেছেন:

ওসেন প্যারাডাইজ এ আমার ফ্রেণ্ড রা ছিল তো । কক্স টূডে তে আমি আছি tongue । আমাকে জানালে ভাল হত । পরিচিত তো হতে পারতাম অন্তত।
এবং বাই দ্যা ওয়ে কোণ ফাইভ স্টার হোটেল ঐ টমটম ওয়ালা দের কমিশন দেয় নাহ । দ্যাটস ওহাই tongue


আমিতো জানিই না যে আপনি ওখানে আছেন sad মিস হয়ে গেলো।

মাসুদ৩০১১ লিখেছেন:

আজিকার দিনের প্রজন্মে পঠিত প্রথম কোন টপিক  smile
আমার ব্যপক রস আস্বাদনের উদ্দেশ্যে যথার্থই স্বার্থক রূপ লাভ করিয়াছে   clap
\দিব্য চোখে কল্পনা করতঃ হাসিতে হাসিতে অবস্থা কাহিল হইয়া গেল  lol2 পুনশ্যঃ ভ্রমন বর্ণনার সহিত যাবতীয় খরচাদির উল্লেখ করিবার অনুরোধ রহিল  hug


ধন্যবাদ মাসুদ ভাই। খরচ ভালোই হয়েছে। খরচ উল্লেখ করা ব্যাপারটা আমার পছন্দের না। তারপরও পরের পর্বের শেষে আলাদা করে  উল্লেখ করবো।

invarbrass লিখেছেন:

কাউয়া ভাইয়ের পর্যবেক্ষণ শক্তি অসাধারণ যে। বরাবরের মতই লেখাটি চমৎকার হয়েছে যে। ওশেন প্যারাডাইযের ভাড়া কত তা ঝাতি ঝানতে চায় যে। ভ্রমণ সম্প্রতি সংঘটিত হয়েছিলো কিনা (তথা রেট আপডেটেড কিনা) তাও জানতে মন ছায় যে। সিকুয়েলের অপেক্ষায় রইলাম যে। tongue

ধন্যবাদ যে। ঘটনা সাম্প্রতিক যে। গত ছয় তারিখে যাত্রা করেছিলাম যে। পরের পর্ব আসছে যে big_smile

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৬

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

আমিও কিন্তু পড়েছি। প্রথম দিনই।

ভ্রমণ কাহিনী লিখলে খরচ (নিজেরটা দরকার নেই, সম্ভাব্য) উল্লেখ করা বাধ্যতামূলক হওয়া দরকার। এটা আমাদের অধিকার। tongue

"সংকোচেরও বিহ্বলতা নিজেরই অপমান। সংকটেরও কল্পনাতে হয়ও না ম্রিয়মাণ।
মুক্ত কর ভয়। আপন মাঝে শক্তি ধর, নিজেরে কর জয়॥"

১৭

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

ভাই, আপনি কাউয়া মানুষ, ভাবীকে পিঠে চড়িয়ে উড়ে গেলেই পারতেন hehe ঐ দোল-দোল-দোলুনি বাসের যাত্রা থেকে অনায়াসে বাঁচতে পারতেন যে! অবশ্য এই দুলুনি আপনাকে অন্য কোন দুলুনির সুখস্মৃতি মনে করিয়ে দিলে.... tongue ..... তাহলে ঠিকই আছে যে! বেশ উপভোগ্য লেখা - বরাবরই যেমন হয় thumbs_up পরের পর্বে ভাবীর সাথে কেমন মধুর সময় কাটালেন, সেটাও দিয়েন যে... বেশ অনেকদিন আগের কথা - আমাদের বাসটা টাঙ্গাইলের দিকে একটা মাটির বিকল্প রাস্তা ধরে যাচ্ছিলো। ঐ রাস্তা যেমন ফুরাতে চাইছিলো না, তেমনি কড়া শ্যাগিং স্টাইল ঝাঁকুনিও... cry  lol2 একসময় বিপজ্জনক 'চিত-কাইত' হওয়ার ভাবও ধরেছিলো mad জান নিয়ে কোনোমতে ফিরে আসতে পেরেছিলাম donttell ঐদিকের রাস্তাঘাটের এখন কী অবস্থা, কে জানে?

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৮

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

আরণ্যক লিখেছেন:

আমিও কিন্তু পড়েছি। প্রথম দিনই। ভ্রমণ কাহিনী লিখলে খরচ (নিজেরটা দরকার নেই, সম্ভাব্য) উল্লেখ করা বাধ্যতামূলক হওয়া দরকার। এটা আমাদের অধিকার। tongue

খরচ লিখতে কেন জানি ভালো লাগে না। তাই লিখি না।

উদাসীন লিখেছেন:

ভাই, আপনি কাউয়া মানুষ, ভাবীকে পিঠে চড়িয়ে উড়ে গেলেই পারতেন hehe  বেশ উপভোগ্য লেখা - বরাবরই যেমন হয় thumbs_up  বেশ অনেকদিন আগের কথা - আমাদের বাসটা টাঙ্গাইলের দিকে একটা মাটির বিকল্প রাস্তা ধরে যাচ্ছিলো। ঐ রাস্তা যেমন ফুরাতে চাইছিলো না, তেমনি কড়া শ্যাগিং স্টাইল ঝাঁকুনিও... cry  lol2 একসময় বিপজ্জনক 'চিত-কাইত' হওয়ার ভাবও ধরেছিলো mad জান নিয়ে কোনোমতে ফিরে আসতে পেরেছিলাম donttell ঐদিকের রাস্তাঘাটের এখন কী অবস্থা, কে জানে?


ধন্যবাদ। আশা করি পরবর্তীতে একেবারে ফ্লাই করে চলে যাবো big_smile টাঙ্গাইলের রাস্তাঘাট মনেহয় এখন ভালো হয়েছে। অন্তত উত্তরবংগ যাবার সময় যতটুকু রাস্তা পার হতে হয়, তা ভালো আছে।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৯

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

[চলবে]

চলুক যে,  lol সাথে আছি।

২০

Re: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণ

ইলিয়াস লিখেছেন:
তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

[চলবে]

চলুক যে,  lol সাথে আছি।


হা হা হা। ধন্যবাদ ইলিয়াস ভাই। পরের পর্ব চলে এসেছে যে।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(