টপিকঃ সাইক্লিং

জীবনের প্রথমবারের মত সাইকেল পাওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিলো ক্লাস নাইনে। ক্লাস এইটে বৃত্তি পাওয়ার পুরস্কার হিসেবে বংশাল থেকে আব্বা কিনে দিয়েছিলেন। সোজা হ্যান্ডেলের একটা হিরো সাইকেল। মারাত্বক ভারী ছিলো সাইকেলটা। সারাজীবন মনে থাকবে সাইকেলটার কথা। না মনে রেখে উপায় আছে? পাচ-পাচটা বছর এই ব্যাটাকে চারতলায় ওঠাতে আর নামাতে হয়েছে। খবর হয়ে যেত একেবারে। যে কটা বছর সাইক্লিং করেছি, বড় ধরনের কোন এক্সিডেন্ট করি নাই। একবার খালি একটা পথশিশুকে মেরে দিয়েছিলাম। দোষটা আমারই ছিলো। ভাগ্য ভালো যে ব্যাটা তেমন একটা ব্যাথা পায়নি।

শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে ওখানকার সুন্দর রাস্তাঘাট দেখে আবারও মাথায় সাইক্লিং এর বায়ুচরা দিলো। জানতে পারলাম, এখানে সাইক্লিং করার সবচেইয়ে সুন্দর জায়গা হলো কর্নিশে। এ কথা শুনে কিছুটা ভীত হলাম। কারণ দেশে সেন্টমার্টিন্সের কর্নিশে সাইক্লিং করার অভিজ্ঞতা তেমন একটা সুখকর ছিলো না। ভাড়ার সবগুলো সাইকেলই ছিলো লক্করঝক্কর মার্কা। ত্রিশ টাকা ঘন্টায় সাইকেল ভাড়া করেছিলাম। সেই সাইকেলের সিট সমানে পিছনের দিকে নেমে যায়। হাইটও অনেক কম। অনেক কষ্টে বেশ কিছুদুর যাবার পরে সিটটা খুলেই পড়লো। তখন আর কি করার? সাইকেলকে হেটে হেটে চালিয়ে নিয়ে হোটেলে ফেরত এসেছিলাম।

সাইক্লিং এর উদ্দেশ্যে আমি আর আমার বৌ বিকেলের দিকে পাশের বিল্ডিং এর এক শ্যালিকাকে (আমার সবচেয়ে প্রিয় শ্যালিকা) নিয়ে বের হলাম। প্রথমে গেলাম কর্নিশে। সেখানে তিনজনে মিলে কিছুক্ষণ জলকেলী করলাম। রবি মামা ডুবে যাওয়ার সাথে সাথেই একজন লাইফগার্ড এসে আমাদেরকে পানিতে নামতে মানা করলো। সিকিউরিটির জন্য রাতে পানিতে নামা নিষেধ। এখানকার বিচগুলো খুব সুন্দর। অলমোস্ট পারফেক্ট। পানি স্বচ্ছ নীল ধরনের। সৈকতটা খুব সুন্দর স্মুথ ঢাল তৈরী করে সমুদ্রে নেমে গেছে। বিচের বালিগুলোও পরিস্কার। কিছু জায়গায় আবার বারবিকিউ স্ট্যান্ড আছে। বেশ কয়েকটা ফ্যামিলী দেখি বাচ্চাকাচ্চাদের ছেড়ে দিয়ে মনের আনন্দে বিচে বসে আড্ডাবাজি করছে। আমরাও একটু রেস্ট নেয়ার জন্য বিচে বসলাম। আমি বিচে বসে অভ্যাসবশত পা টা বালির মধ্যে গাড়তে শুরু করলাম। কিন্তু ইঞ্চি ছয়েক ঢোকার পরেই দেখি শক্ত সারফেস। পা আর ঢুকানো যাচ্ছে না। পুরো বিচেই এই হাল। তখনই বুঝলাম যে, পুরো বিচ এলাকাই আসলে কৃত্তিম। মানুষের তৈরী। এজন্যই এই পারফেক্টনেস। আর এজন্যই বাপ-মা পোলাপানকে ছেড়ে দিয়েও নিশ্চিন্ত মনে থাকতে পারছে।
https://lh3.googleusercontent.com/-28V2TgTNxg8/T8Y-Bd5Xu-I/AAAAAAAAAOc/broyXbs6dqM/s640/SAM_1367.jpg

https://lh4.googleusercontent.com/-Sne6iDPGZ8Q/T8Y-JEr1VeI/AAAAAAAAAOk/6MTF8lvQAB0/s640/SAM_1371.jpg

বিচ থেকে আমরা বের হয়ে সাইক্লিং এর উদ্দেশ্যে সাইকেল ভাড়া নেয়ার স্থানের দিকে হাটা শুরু করলাম। আমার শ্যালিকা এক্ষেত্রে গাইড। প্রতিবার তাকে জায়গাটা কোথায় জিজ্ঞেস করলেই সে ফটিকের মত উত্তর দেয়, “ঐ হোথা”। সে নিজেও মনেহয় কিছুটা কনফিউজড ছিলো লোকেশানের ব্যাপারে। এভাবে হাটতে হাটতে ত্যাক্ত-বিরক্ত হয়ে একটা ক্যাব নিয়ে ফেললাম। সেই ক্যাবেই মিনিট চারেক দ্রাইভের পরে সাইকেল স্ট্যান্ডে পৌছালাম। কর্নিশের মাঝামাঝি জায়গায়, মেইন রোডের ঠিক পাশে, হোটেল হিলটনের উল্টা দিকে স্ট্যান্ডটা। শ্যালিকার সরকারী চাকুরে বাবার আইডি কার্ডের কল্যাণে ঘন্টা প্রতি ত্রিশ দিরহামের সাইকেল বিনা পয়সায় পেয়ে গেলাম। আমি নিলাম একটা গিয়ার সমৃদ্ধ বিএমএক্স সাইকেল। ছোট থেকেই এই ব্র্যান্ডটার প্রতি একটা ঝোক ছিলো। আর আমার বৌ আর শ্যালিকা নিলো তিন চাকার রিক্সা টাইপ সাইকেল। এগুলো ছাড়াও স্ট্যান্ডে দেখলাম চার চাকার রেসিং কার মডেলের প্যাডেল মারা সাইকেলও আছে। আবার ফ্যামিলীদের জন্যে চার আসন বিশিষ্ট চার চাকার সাইকেলের সমাহারও চোখ এড়ালো না।

সাইক্লিং করার জন্য জায়গাটা চমতকার। সমুদ্রের কিনারায় রেলিং দেয়া ওয়াকওয়ে। ওয়াকওয়ের ঠিক সাথেই ডিভাইডার দিয়ে আলাদা করে দেয়া সাইক্লিং এর রুট। আর তারপরই মেইনরোড। কর্নিশের যে জায়গাটায় সাইক্লিং করছিলাম তার একপ্রান্তে একটা ফোয়ারা চত্বর। এখান থেকে আরেকপাশে আলোকিত আবুধাবি শহরের একাংশের দৃশ্য বড়ই দৃষ্টিনন্দন। ওয়াকওয়ে আর সাইক্লিং রুটে আবালবৃদ্ধবনিতা সকলে হয় সাইক্লিং করছে বা স্কেটিং করছে। আবার ওয়াকওয়ে আর সাইক্লিং রুটগুলো নিয়মিতভাবে কিছু ভ্যাকুয়াম-ক্লিনার টাইপ গাড়ি পরিস্কার করে যাচ্ছে। কোথাও কোন ময়লা নেই। সাইক্লিং করে বা হাটাহাটি করে লোকজন হাপিয়ে গেলে দুদন্ড জিরোনোর জন্য রয়েছে রিফ্রেশিং পয়েন্ট। এক তলার সমান উচ্চতাবিশিষ্ট চৌকানা রিফ্রেশ পয়েন্ট দেখে ভেবেছিলাম ভেন্ডিং মেশিন জাতীয় কিছু হবে। কিন্তু কাছে গিয়ে রিফ্রেশ বাটন প্রেস করতেই দেখি মুখে পানি স্প্রে করছে। গরমের মধ্যে এ ব্যাপারটা বেশ আরামদায়ক বৈকি।

https://lh5.googleusercontent.com/-BuTlAsVpK-E/T8Y94_4PgdI/AAAAAAAAAOU/nmcOjgLP1i0/s640/SAM_1374.jpg

https://lh3.googleusercontent.com/-OKqbSqAeNgo/T8Y-1XFrbRI/AAAAAAAAAO4/VifhCbUm59A/s640/SAM_1377.jpg

https://lh6.googleusercontent.com/-s_HU71JWmYc/T8Y_c0YAU1I/AAAAAAAAAPA/oQNG1YKoywI/s640/SAM_1388.jpg

সাইক্লিং শেষে সাইকেল জমা দেয়ার সময় আমি একটু স্টাইল করেই, জোরে চালিয়ে নিয়ে গিয়ে ঘ্যাচ করে ব্রেক কষে সাইকেল পার্ক করলাম। এটা দেখেই ইন্সপায়ার্ড হয়ে কিনা জানিনা, আমার শ্যালিকাও একই কাজ করতে গেলো। ফলস্বরুপ তার তিনচাকার সাইকেল ব্যালেন্স হারিয়ে চিতপটাং, সেই সাথে সেও চিতপটাং। কিন্তু সে বেশ দ্রুতই সামলে নিয়ে উঠে দাঁড়িয়ে দেখি আমার বৌকে বলছে, “কেউতো দেখে নাই। তাই না আপু? হি হি হি”।

ফেরার সময় ঘটলো আরেক ঘটনা। ফেরার জন্য কিছুতেই ট্যাক্সি পাচ্ছিলাম না। তাই বাধ্য হয়ে, হিলটন হোটেলের সামনে গিয়ে দাড়ালাম, যাতে হোটেল থেকে বেরিয়ে আসা ট্যাক্সিগুলো পাকড়াও করা যায়। একটা ট্যাক্সিও পেয়ে গেলাম। আমার বৌ আর শ্যালিকা পিছনে উঠলো। বিপত্তি ঘটলো আমার বেলায়। আমি অভ্যাসবশত, গাড়ির সামনের বামদিকের দরজা খুলে উঠতে গিয়ে দেখি অলমোস্ট ড্রাইভারের কোলে বসে পড়তে যাচ্ছি। ড্রাইভার হতভম্ব হয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। অনেক কষ্টে নিজেকে সামলে নিয়ে আবার ডানদিকের দরজা দিয়ে ক্যাবে উঠলাম। পিছনে হাসির ফোয়ারা ছুটেছে। ড্রাইভারও দেখি আমার দিকে তাকিয়ে হাসতে হাসতে বললো, “আপ মাজাক আচ্ছা কার লেতে হো।” আমি বিড়বিড় করে বাংলায় বললাম, “রাইটহ্যান্ড ড্রাইভের ফাপড় যদি তুই বুঝতি রে......”।       

https://lh4.googleusercontent.com/-6f7AG0BjvwU/T8ZCDAjp4GI/AAAAAAAAAPQ/mHXlfBebuW0/s640/SAM_1476.jpg
বোনাস। দোকানে সাইফাইয়ের ভান্ডার  big_smile

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: সাইক্লিং

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

আমি অভ্যাসবশত, গাড়ির সামনের বামদিকের দরজা খুলে উঠতে গিয়ে দেখি অলমোস্ট ড্রাইভারের কোলে বসে পড়তে যাচ্ছি। ড্রাইভার হতভম্ব হয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। অনেক কষ্টে নিজেকে সামলে নিয়ে আবার ডানদিকের দরজা দিয়ে ক্যাবে উঠলাম। পিছনে হাসির ফোয়ারা ছুটেছে। ড্রাইভারও দেখি আমার দিকে তাকিয়ে হাসতে হাসতে বললো, “আপ মাজাক আচ্ছা কার লেতে হো।” আমি বিড়বিড় করে বাংলায় বললাম, “রাইটহ্যান্ড ড্রাইভের ফাপড় যদি তুই বুঝতি রে......”।

lol2  lol2  yahoo

গল্প-কবিতা - উদাসীন - http://udashingolpokobita.wordpress.com/
ছড়া - ছড়াবাজ - http://chhorabaz.wordpress.com/

Re: সাইক্লিং

Arun লিখেছেন:

lol2  lol2  yahoo

মাইনাস খাইবেনতো মিয়া। হাসির বাক্সের পোস্টে শুধুমাত্র ইমোটিকন দিয়া কমেন্ট করা অ্যালাউড cool

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন Jemsbond (৩১-০৫-২০১২ ১৫:২৯)

Re: সাইক্লিং

জীবনে এই সাইকেল চালাইতে গিয়া কত যে হাটুর গিড়া ছুইলা শুকাই গেছে কইতাম ই পারি না  cry cry

এক হাত ছাইড়া প্র্যক্টিস  dontsee , এরপর দুইহাত ছাইড়া আবার এসব কত কি করতাম  dream dream

এইখানে কিছু পুলাপাইন আগে চাক্কা উডাইয়া চালায় দেইখা আমি ও একদিন অফিসের পিয়নের সাইকেল নিয়া মানামা শহরে গুরান্নি দিয়া আইলাম  thumbs_up thumbs_up । কিন্তু দুলাভাই দেইখা বকা দিয়া থামাই দিছে  sad sad , নাইলে সাইক্লিং আমার ফেবারেট  thumbs_up



ড্রাইভারও দেখি আমার দিকে তাকিয়ে হাসতে হাসতে বললো, “আপ মাজাক আচ্ছা কার লেতে হো।” আমি বিড়বিড় করে বাংলায় বললাম, “রাইটহ্যান্ড ড্রাইভের ফাপড় যদি তুই বুঝতি রে......”।

lol2 lol2 lol2 lol2 lol2

আফনে কি দুবাইতে নাকি  thinking thinking

আসুম  hehe

নিবন্ধিতঃ১১/০৩/২০০৯ ,নিয়মিতঃ১০/০৩/২০১১, প্রজন্মনুরাগীঃ১৯/০৫/২০১১ ,প্রজন্মাসক্তঃ২৬/০৯/২০১১,
পাঁড়ফোরামিকঃ২২/০৩/২০১২, প্রজন্ম গুরুঃ০৯/০৪/২০১২ ,পাঁড়-প্রাজন্মিকঃ২৭/০৮/২০১২,প্রজন্মাচার্যঃ০৪/০৩/২০১৪।
প্রেম দাও ,নাইলে বিষ দাও

Re: সাইক্লিং

jemsbond লিখেছেন:

lol2 lol2 lol2 lol2 lol2
আফনে কি দুবাইতে নাকি  thinking thinking
আসুম  hehe

আমি সিলেটে। যখন আবুধাবি গিয়েছিলাম তখনকার কাহিনী এইডা neutral

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: সাইক্লিং

হা হা হা। আপনি যেভাবে রস মিশিয়ে ভ্রমণকাহিনীগুলো বলেন, সেখানে বোরিং ভ্র্মণের গল্পগুলো একেবারে দারুন উপভোগ্য হয়ে ওঠে। বেশ ভালো সময় কাটিয়েছেন কাউয়া ভাই।

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: সাইক্লিং

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

মাইনাস খাইবেনতো মিয়া। হাসির বাক্সের পোস্টে শুধুমাত্র ইমোটিকন দিয়া কমেন্ট করা অ্যালাউড cool

আপত্তি নেই, জীবনে অনেকবার পেয়েছি৷ অভ্যাস হয়ে গেছে৷  lol

গল্প-কবিতা - উদাসীন - http://udashingolpokobita.wordpress.com/
ছড়া - ছড়াবাজ - http://chhorabaz.wordpress.com/

Re: সাইক্লিং

উদাসীন লিখেছেন:

হা হা হা। আপনি যেভাবে রস মিশিয়ে ভ্রমণকাহিনীগুলো বলেন, সেখানে বোরিং ভ্র্মণের গল্পগুলো একেবারে দারুন উপভোগ্য হয়ে ওঠে। বেশ ভালো সময় কাটিয়েছেন কাউয়া ভাই।

ধন্যবাদ উদাসীনদা। সময়গুলো আসলেই ভালো কেটেছিলো big_smile

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: সাইক্লিং

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

আমি সিলেটে। যখন আবুধাবি গিয়েছিলাম তখনকার কাহিনী এইডা neutral

donttell donttell donttell donttell donttell

সাইক্লিং এর উদ্দেশ্যে আমি আর আমার বৌ বিকেলের দিকে পাশের বিল্ডিং এর এক শ্যালিকাকে (আমার সবচেয়ে প্রিয় শ্যালিকা) নিয়ে বের হলাম।

না মানে ইয়ে মানে  tongue_smile tongue_smile tongue_smile tongue_smile

নিবন্ধিতঃ১১/০৩/২০০৯ ,নিয়মিতঃ১০/০৩/২০১১, প্রজন্মনুরাগীঃ১৯/০৫/২০১১ ,প্রজন্মাসক্তঃ২৬/০৯/২০১১,
পাঁড়ফোরামিকঃ২২/০৩/২০১২, প্রজন্ম গুরুঃ০৯/০৪/২০১২ ,পাঁড়-প্রাজন্মিকঃ২৭/০৮/২০১২,প্রজন্মাচার্যঃ০৪/০৩/২০১৪।
প্রেম দাও ,নাইলে বিষ দাও

১০

Re: সাইক্লিং

jemsbond লিখেছেন:
তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

আমি সিলেটে। যখন আবুধাবি গিয়েছিলাম তখনকার কাহিনী এইডা neutral

donttell donttell donttell donttell donttell

সাইক্লিং এর উদ্দেশ্যে আমি আর আমার বৌ বিকেলের দিকে পাশের বিল্ডিং এর এক শ্যালিকাকে (আমার সবচেয়ে প্রিয় শ্যালিকা) নিয়ে বের হলাম।

না মানে ইয়ে মানে  tongue_smile tongue_smile tongue_smile tongue_smile

কিতা কইবার চান? thinking

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১১

Re: সাইক্লিং

আমি সাইকেল চালানো শিখেছি ভার্সিটিতে এসে। এখনো রাস্তায় চালাতে ভয় লাগে। আর চোখের ডাক্তারেরও কড়া বাড়ন।

১২

Re: সাইক্লিং

যথারীতি কিছু বলার নেই।    hehe hehe hehe  দিতেই হচ্ছে।  clap clap clap

"সংকোচেরও বিহ্বলতা নিজেরই অপমান। সংকটেরও কল্পনাতে হয়ও না ম্রিয়মাণ।
মুক্ত কর ভয়। আপন মাঝে শক্তি ধর, নিজেরে কর জয়॥"

১৩ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন তার-ছেড়া-কাউয়া (৩১-০৫-২০১২ ২১:৪২)

Re: সাইক্লিং

আগন্তুক মিলন লিখেছেন:

আমি সাইকেল চালানো শিখেছি ভার্সিটিতে এসে। এখনো রাস্তায় চালাতে ভয় লাগে। আর চোখের ডাক্তারেরও কড়া বাড়ন।

যে গরম পরছে। সাইকেল আর কি চালাইবেন?

আরণ্যক লিখেছেন:

যথারীতি কিছু বলার নেই।    hehe hehe hehe  দিতেই হচ্ছে।  clap clap clap

কিছুই বলার নাই? আমিতো ভাবলাম অনেক কিছু কইবেন hehe hehe
একটা মজার জিনিস দেখলাম আজকে। লেখার মধ্যে যদি কোন শব্দের মধ্যেও গালি জাতীয় শব্দ অংশবিশেষ হিসেবে থাকে, তবে সেটা * হয়ে যায়  lol2

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৪

Re: সাইক্লিং

হ্যাঁ কিছু শব্দতে যত্নসহকারে ফিল্টার বসানো হয়েছে।  tongue_smile

আমার avonটা মনে হয় তোমারটার চেয়েও ভারী ছিল -- মনে নাই তুমি ঐটা কখনও চারতলায় তুলছিলা কি না। আহ্ আমার সেই সুইস সাইকেল ভ্রমনের কাহিনী মনে পড়লো। তবে ছবিগুলো ডিজিটাল না করে ঐটা লেখার মানে হয় না .....  sad

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৫

Re: সাইক্লিং

শামীম লিখেছেন:

হ্যাঁ কিছু শব্দতে যত্নসহকারে ফিল্টার বসানো হয়েছে।  tongue_smile

আমার avonটা মনে হয় তোমারটার চেয়েও ভারী ছিল -- মনে নাই তুমি ঐটা কখনও চারতলায় তুলছিলা কি না। আহ্ আমার সেই সুইস সাইকেল ভ্রমনের কাহিনী মনে পড়লো। তবে ছবিগুলো ডিজিটাল না করে ঐটা লেখার মানে হয় না .....  sad

অ্যাভনটা চালানোর বা ঘাড়ে ওঠানোর সৌভাগ্য আমার হয় নাই। ক্লাস সিক্সে থাকার সময়ই ঐটা বাড়িতে রপ্তানী করা হয়েছিলো। বাচ গায়া lol আপনার সুইস সাইকেল ভ্রমণ এবং সেখানে হাটুর মাংস উঠে যাবার কাহিনীর জন্য অপেক্ষায় থাকলাম big_smile

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৬

Re: সাইক্লিং

হায়রে সাইক্লিং, পুলাপান দেশ থেইকা আইসা ধুমায়া সাইকেল কিনছিলো মিজৌরীতে আহারে কি সুন্দর ফাকা রোড, তারউপরে সাইকেলের জন্য আলাদা ট্র্যাক, পরে ২ দিন চালায় কোমর এমুন ব্যাথা, গেস হোয়াট?? রাস্তা সব পাহাড় কেটে বানানো  tongue তার ২ দিন পর সব লাইন বাইন্ধা ওয়ালমার্ট গিয়ে ফেরত দিয়া আসছে

Rhythm - Motivation Myself Psychedelic Thoughts

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৭

Re: সাইক্লিং

বিশ্বাস করুন বইয়ের লেখক দের ও ভ্রমন কাহিনি পড়ে এত মজা পাই নাই  smile thumbs_up thumbs_up

১৮

Re: সাইক্লিং

আহমাদ মুজতবা লিখেছেন:

হায়রে সাইক্লিং, পুলাপান দেশ থেইকা আইসা ধুমায়া সাইকেল কিনছিলো মিজৌরীতে আহারে কি সুন্দর ফাকা রোড, তারউপরে সাইকেলের জন্য আলাদা ট্র্যাক, পরে ২ দিন চালায় কোমর এমুন ব্যাথা, গেস হোয়াট?? রাস্তা সব পাহাড় কেটে বানানো  tongue তার ২ দিন পর সব লাইন বাইন্ধা ওয়ালমার্ট গিয়ে ফেরত দিয়া আসছে

পাহাড়ি রাস্তায় সাইকেল চালাইলেতো খবর হয়ে যাওয়ার কথা। ভালোই করেছেন ফেরত দিয়ে।

ত্রিনিত্রির রাশিমালা লিখেছেন:

বিশ্বাস করুন বইয়ের লেখক দের ও ভ্রমন কাহিনি পড়ে এত মজা পাই নাই  smile thumbs_up thumbs_up

অনেক অনেক ধন্যবাদ।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৯

Re: সাইক্লিং

সুন্দর রিভিউ  thumbs_up

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

২০

Re: সাইক্লিং

একসময় সাইক্লিংটা আমার কাছে নেশার মত ছিল। আমি আমার এক বন্ধু ( বর্তমানে তানজিলের মামা) সায়েদাবআদ হতে কতবার যে টঙ্গি পর্যন্ত সাইক্লিং করেছি তার হিসাব নেই। একবার অভিসার হলের সামনে মোটামুটি একটা এক্সিডেন্ট করে বেশ ব্যথা পেয়েছিলাম। সবচেয়ে বেশী মজা পেতাম ক্যান্টনমেন্ট হতে জিয়া এয়ারপোর্ট রাস্তায়।