টপিকঃ ওয়ার্ন-সিমোন নাটকের নতুন পর্ব

[কপি-পেস্ট]
শেন ওয়ার্ন তাহলে মোটেও বদলাননি! এখনো নারীপ্রীতি যথেষ্ট কাজ করে ৩৮ বছর বয়সী সাবেক টেস্ট ক্রিকেটারের মধ্যে! এমনই দাবি করেছেন সিমোন কালাহান, ওয়ার্নের সাবেক স্ত্রী। বিয়ে-বিচ্ছেদের পরও দুজন একসঙ্গে ইংল্যান্ডে বসবাস করছিলেন। সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ায় ফিরে যান সিমোন। দাবি করেন, আবারও প্রতারিত হয়েছেন তিনি, নতুন করে কোনো মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলেছেন ওয়ার্ন। আর ওয়ার্ন দাবি করেন, সব মিথ্যা। পয়সার জন্য পত্রিকায় গল্প ছড়াচ্ছেন সিমোন।
ওয়ার্নের নারীঘটিত ব্যাপার-স্যাপার নতুন নয়। ১০০১ হলো সর্বকালের সেরা স্পিনারের টেস্ট-ওয়ানডেতে ব্যাটসম্যান বধের সর্বমোট সংখ্যা। আর ১০০০ হলো শেন ওয়ার্নের সুন্দরীদের হৃদয়-বধের সংখ্যা। ওয়ার্নের অননুমোদিত জীবনীগ্রন্থ ‘স্পান আউট’-এর লেখক পল বেরি দাবি করেছেন, শুনে অবিশ্বাস্য মনে হলেও ওয়ার্নের ‘অননুমোদিত’ শয্যাসঙ্গিনীর সংখ্যা এতটাই!
মাঠের ওয়ার্ন যত আলোচিত, মাঠের বাইরের ওয়ার্নও তার চেয়ে খুব কম নন। সোনালি চুলের ওয়ার্ন ক্রিকেটের সার্থক ‘প্লেবয়’। মুঠোফোনে কুৎসিত বার্তা পাঠানো কোনো মেয়েকে, কিংবা ফাঁস হয়ে যাওয়া গোপন ক্যামেরার ছবি−নারীঘটিত কেলেঙ্কারিতে যেভাবে সম্ভব, সব পথেই জড়িয়েছেন ওয়ার্ন। নিন্দুকেরা এও বলেন, উইকেট শিকারের চেয়ে কম তীব্র নয় ওয়ার্নের সুন্দরীর হৃদয় শিকারের নেশা!
মাঠের বাইরের এই লালকালির ‘রেকর্ড’ প্রভাব ফেলেছিল তাঁর দাম্পত্য জীবনেও। ২০০৫ সালে ওয়ার্নের গোপন অভিসারের খবর ফাঁস হয়ে যাওয়ার পর স্ত্রী সিমোন কালাহান ওয়ার্নের সঙ্গে সম্পর্ক চুকিয়ে ফেলার ঘোষণা দেন। তবে ওয়ার্ন এরপরও সিমোনের সঙ্গে পুনর্মিলনের চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন। শোনা যাচ্ছিল, হৃদয়ের টানে ওয়ার্ন-সিমোন আবারও একসঙ্গে হবেন। গত এপ্রিলে সত্যি সত্যিই সিমোন ফিরে আসেন ওয়ার্নের জীবনে। ইংল্যান্ডে ওয়ার্নের বাড়িতে একসঙ্গে পুরোনো সংসার আবারও পেতে বসেন। কিন্তু হুট করে এই কদিন আগে নিউ আইডিয়া পত্রিকাকে সিমোন জানিয়ে দেন, আবার প্রতারণার শিকার হয়েছেন তিনি। ওয়ার্ন সেই পুরোনো পথেই হাঁটছেন। চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁর ‘অভিযান’।
গত জুলাই থেকেই ওয়ার্নের আচরণ নাকি সন্দেহজনক মনে হচ্ছিল সিমোনের কাছে। এ নিয়ে ওয়ার্নের সঙ্গে কথাও বলেছিলেন। যদিও ওয়ার্ন বেশ জোরগলাতেই তাঁকে আশ্বস্ত করেছেন, এইবার কোনো উল্টোপাল্টা কাজ তিনি করছেন না। কিন্তু এর ঠিক কদিন পরই ধরা পড়ে যান ওয়ার্ন। একদিন বাচ্চাদের স্কুলে পাঠানোর জন্য তৈরি করছিলেন, এমন সময় ওয়ার্নের মোবাইল থেকে একটি মেসেজ ভুল করে সিমোনের মোবাইলে চলে আসে। যেখানে লেখা, ‘হাই, বিউটিফুল, আমি আমার বাচ্চাদের সঙ্গে কথা বলছি। পেছনের দরজা খোলাই আছে।’ সিমোনের অভিযোগ, নিশ্চয়ই কোনো মেয়েকে ‘বিশেষ নিমন্ত্রণ’ দিয়ে রেখেছিলেন ওয়ার্ন। এবং বিষয়টি অনৈতিক বলেই ‘অতিথি’কে ডাকা হচ্ছে পেছনের দরজা দিয়ে। সঙ্গে সঙ্গে সিমোন পাল্টা মেসেজ পাঠান−‘প্রতারক, তুমি ভুল জায়গায় মেসেজ পাঠিয়েছ!’
‘ওই মেয়েটি আমাদের বাড়ির পেছনের দরজাও চেনে। এর মানে হলো বাড়িতে এর আগেও ও এসেছিল। এবং অবশ্যই অনেক দিন ধরেই এই চਆর চলছে’−ক্ষিপ্ত সিমোন পত্রিকাটিকে জানিয়েছেন, ‘ও এ-রকম কিছু করলেই আমি আমার হৃদয়ের গভীরে টের পেয়ে যাই। নিজের ওপর খুব রাগ হচ্ছিল। ওকে বিশ্বাস করে আমি আবার ধোঁকা খেয়েছি। ও যে রকম দাবি করে, আসলে মোটেও সে রকম মানুষ নয়।’
সাবেক স্ত্রীকেই প্রতারক বলে দাবি করলেন ওয়ার্ন। জানালেন, হঠাৎ করে নয়, সিমোনের সঙ্গে গত আগস্টেই তাঁর আলাপ হয়েছিল চুড়ান্ত বিচ্ছেদের। সে অনুযায়ী ইংল্যান্ড থেকে সিমোন ফিরে গেছেন অস্ট্রেলিয়ায়। এর পেছনে অন্য কোনো কারণ নেই। ‘আমাদের বিয়ে-বিচ্ছেদ হয়েছে এক বছর হলো। সিমোন আর আমি চুড়ান্ত বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিই গত আগস্টের ৫ তারিখ। তখন এই সিদ্ধান্ত কাউকে জানানো হয়নি। কারণ সিমোন বলেছিল, এটা আমাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার। অন্যদের এতে টেনে আনার দরকার কী।’ ভাঙা কাচ আর ভাঙা মন কখনো জোড়া লাগে না−নতুন করে উপলਵি হলো তাঁর, ‘আমরা যুক্তরাজ্যে নতুন করে সম্পর্কটাকে প্রাণ দিতে চেয়েছিলাম। তা হয়নি। তাই আপসে দুজন দুজনের পথ বেছে নিয়েছি। আমাদের এই বিচ্ছেদের একমাত্র কারণ, আমরা দুজনই বুঝতে পেরেছিলাম, সব শেষ হয়ে গেছে। এর পেছনে আর কোনো কারণ নেই, অন্য কেউ নেই। অন্য কারও সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক চলছে না।’
কে সত্যি বলছেন, আর কে মিথ্যা−বোঝা যাচ্ছে না। যদিও অতীত রেকর্ড সন্দেহের চোখে তাকাতে বাধ্য করছে ওয়ার্নের দিকেই!
[url]তথ্যসূত্র http://www.prothom-alo.com/mcat.news.de … p;mid=OA==[/url]

এসেছিস যখন তখন দেয়ালে একটা আঁচড় রেখে যা

Re: ওয়ার্ন-সিমোন নাটকের নতুন পর্ব

ওয়ার্ন আর কত মেয়েকে সামলাবে এক সাথে?????????একটু ভুলেই ধরা খেয়ে গেল