সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন দ্যা_থটমেকার (২২-০৭-২০১১ ২২:৫৬)

টপিকঃ একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

আগে ১ম খন্ড পইড়া আসেন। আগে পইড়া থাকলে রিভিশান দিয়ে আসেন, বহুত ফায়দা হইব।

-----------------------------------------------------------------------------------------------------------

.......... আমি তার দিকে ঘুরে তাকাইলাম আর তখনি আমার মনে পড়ে গেলো, অতিরিক্ত উত্তেজনার ঠেলায় আমি মানিব্যাগ আনতেই ভুইল্য গেছি  hairpull !!! যাই হোক রিকশার কাছে আগাইয়া গেলাম।

: উঠেন
আমি: আপনি ফারজানা  blushing ?
(মেয়েটা বেশ সুন্দরী, সেই সাথে মাথায় স্কার্ফ দেয়ায় বেশ মার্জিতও মনে হচ্চিল  dancing । তাই কনফিউজড হইয়া গেছিলাম। যে মেয়ে সারারাত ফোনে অপরিচিত ছেলেদের সাথে কথা কয় সে এমন  মার্জিত  thinking  !!!!)
: কেন? আপনি কি অন্য কাউকে এক্সপেক্ট করতাছিলেন? ( বাঁশ দেয়ার একটা চান্স ও ছাড়ে না এই মেয়ে  sad sad )।
আমি: না না তা কেন... আমি তো তোমার জন্যই ওয়েট করতেছি.... ( সাহস গুলায় খাইয়া ফালাইছি। একবার আপনি আরেক বার তুমি কইরা কইতেছি  ghusi !!)
যাই হোক কথা না আগাইয়া নিজেই আগাইয়া গেলাম। রিকশা তে দুজনের মধ্যে যত টুকু দুরত্ব রেখে বসা যায় ততটুকু রেখে বসলাম আর মনে মনে রিকশার কারিগররে গালাইতে লাগলাম। হালায় কেন যে সিট এত বড় বানাইছে  hairpull .....
মাথায় এখন একটাই চিন্তা, পকেট তো খালি.... কি করা যায়। আল্লাহর কি কাম ভাই.. রিকশা আগাতেই দেখি নাসির দোস্ত চায়ের দোকানে বইসা চা-সিগ্গি টানতাছে। আস্তে করে রিকশা সাইড করতে কইলাম।
আমি:এক সেকেন্ড, আমি একটু আসছি!
: কোথায় যাচ্ছো ? (আবার কৌন বনেগা আমার পতি –টাইপ কোশ্চেন  angry )
তাহার কোশ্চেন না শোনার ভান করে এক ছুটে নাসিরের কাছে গেলাম। খুব ক্লোজ দোস্ত তো, তাই কথা কইয়া টাইম  নষ্ট করলাম না। অর পকেট থেকে মানিব্যাগ টা নিয়া ৫০০ টাকার একটা নোট বাইর কইরা নিলাম। অয় কিছু কওয়ার আগে তা’হার কাছে ব্যাক করলাম। রিকশা উঠামাত্র আবার সেই কোশ্চেন,
: কোথায় গেছিলে?
আমি: আর বলো না, অই ছেলেটাকে দেখলা না, আমার বন্ধু নাসির। সারাদিন সিগ্গি খাইয়া টাকা-পয়সা ফুরায়। আর খালি আমার কাছ থেকে ধার নেয়। তো কিছু টাকা দিয়ে আসলাম অরে  hehe
: তাই.... টাকা ফেরোত দিবে তো ? (চিন্তা করা যায়!! দুদিন ও হয়নি , আমার টাকার হিসাব নেয়া শুরু  thinking  !)
যাই হোক, রিকশা চলতে থাকল। সিমলা পার্ক যাওয়ার আগে একটা রাস্তা পরে, রাস্তাটার নাম ভুইলা গেছি। ওই রাস্তাটা আমার খুব প্রিয় একটা রাস্তা। দুইপাশে বড় বড় গাছের সারি তো তাই। রাস্তা টা আসতেই বললাম
আমি: জানো এই রাস্তাটা আমার খুব প্রিয়। এইদিক  দিয়া যাইতে আসতে আমার খুব ভালো লাগে  smile
: ও আল্লাহ তাই... এটাতো আমারও খুব পছন্দের একটা রাস্তা। আচ্ছা ঠিক আছে। আমরা এই রাস্তার পাশেই ঘর বানাবো। (খাইছে আমারে.... বাংলালায়ন ও এতো স্পিডে চলে না  surprised )
আমি: হে হে হে...
অবশেষে সিমলা পার্ক পৌছালাম। বদমাইশ রিকশা’অলা ব্যাটায় পরিস্থিতির সুযোগ নিল। ১৫ টাকার ভাড়া সে ২০ টাকা নিয়ে নিলো  angry। আল্লায় তার ভালো করুক। যাই হোক, আগাইতে ধরলাম। সিমলা পার্ক আপনারা কেউ গিয়ে থাকলে খেয়াল করবেন, সেখানে বিভিন্ন চিপায়-চাপায় দুটি করে চেয়ার রাখা। এগুলান হইলো ফুচকা-আলা দের ট্রিক্স। আপনি গিয়া বসলেই চটপটি ফুচকা লইয়া হাজির হইব।
তো প্রথম দিনেই তো আর চিপায় বসা যায়না.....আর আমি সেরকম ছেলেও না  big_smile । তাই মোটামুটি ভালো এক্সপোজড্ একটা জায়গা বেছে বসে পড়লাম। তার পর কিছুক্ষন গল্প-স্বল্প, ফুচকা চটপটি খাইতে খাইতেই গেলো বিকাল টা ফুরায়ে। ভালো সময় গুলো যে কেন এত দ্র্রুত ফুরায় বুঝি না। যাই হোক, যে খানে দুই জন এক হয়েছিলাম, অর্থাৎ ফায়ার-সার্ভিসের মোড় পর্যন্ত এগেইন রিকশায় আগায় দিয়া বিদায় নিলাম।
আয়েশ কইরা একটা সিগ্গি ধরাইয়া রিকশায় উঠলাম। এবারের গন্তব্য তপুর মেস। উদ্দেশ্য, সারাদিনের ঘটনা নিয়ে জোস রংবাজি করা  dancing

তপুর মেসে পৌছাইয়া দেখি তপুর রুমে অনেক ভিড়। চিল্লা-চিল্লি ও চলতেছে সমান তালে। কোনোমতে ভিড় ঠেইলা ভিতরে ঢুকলাম , ঢুকে দেখি আরেক বন্ধু জুয়েল তপুরে মারে মারে অবস্থা। ৫-৭ জন মিলে জুয়েলরে ঠেকানোর + তপুরে বাচানোর চেষ্টা করতেছে। জুয়েল মিয়ায় আবার আমারে মারাত্নক অনার করে। আমি যাইতে সে অভিযোগ দিতে শুরু করলো,
জানিস দোস্ত, এই মামুর ব্যাটায় আমার গার্ল ফেন্ডের সাথে সারারাইত ফোনে কথা কইছে। আইজ আবার সিমলা পার্কে দেখা করতে গেছিল শুনলাম। শুনে তো আমার মাথা হট । তপুর দিকে তাকাইতেই সে ইশারায় আমার চুপ করতে বলল। আর সেই ইশার জুয়েলের নজরে ক্যাচ-আপ হইয়া গেলো  worried ...... জুয়েল তপুর কলার ছাইড়া আমার দিকে দিল ঝাপ........

ভাই সত্যিই হাত ব্যাথা করতাছে। কাইল বাকি টুকু পইড়েন....  big_smile

স্রোতের বিপরীতে উদ্যত!

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

আপনারে মাইনাস-পিলাস কিছুই দেওয়া যাইতাছে না। পারলে পিলাস দিতাম। কিন্তু দেওয়া যাচ্ছে না sad অনেক ভালো হচ্ছে। থাইমেন না  thumbs_up

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

মজাই লাগছে পড়তে big_smile big_smile এই পর্বের মাঝখানে ভেবেছিলাম কমেন্ট করব "আপনার গল্পের(ফ্রেমের tongue) ভবিষ্যত নিয়ে শঙ্কিত আমি। কিন্তু গল্প শেষ হইল শংকা ছাড়াই big_smile
পেলাচ দেয়া যাচ্ছে না কেন? whats_the_matter

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আশিফ শাহো (২২-০৭-২০১১ ১৪:০১)

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

পিলাচ ফিচ্চার থেকে ব্যান ক্যান? তারাতারি এখানে ওখানে একটু ভাল ভাল কমেন্ট করেন ৫০ টা পোষ্ট না হলে মনেহয় উনাকে কিচ্ছু দেয়া যাবে না  thinking

যাহোক কাহীনিটা দারুন  thumbs_up

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

কি অশান্তি... কাহিনী তো শেষ হয় নাই। আসল কালইমেক্স, না থুক্কু কমুনা আগেই...... tongue

স্রোতের বিপরীতে উদ্যত!

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

আবারো মুলা ঝুলাইছে  angry angry angry

Gentlemen, you can't fight in here, this is the war room!

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

mcctuhin লিখেছেন:

আবারো মুলা ঝুলাইছে  angry angry angry

উহ্হু, যাই করি খালি ভুল হয়। আচ্ছা খাড়ান.... ফাইনাল পার্ট আপলোড করতাছি।

স্রোতের বিপরীতে উদ্যত!

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

২য় + দিতে পারলাম না দুঃখিত hairpull

রোযা প্রতেক নর নারির উপর ফরয,তাই আসুন আমরা ফরয আদায় করি।

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

হো হো  lol2
দারুণ লিখছেন আপনি  thumbs_up

১০

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

দারুন লাগছে, ভাই।

১১

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

আগান ।  smile smile পড়ে মজা পাইতেসি ।  smile

১২

Re: একটি শর্ট লাভ স্টোরী (আমার আর্কাইভ থেকে) ২য় খন্ড

ZOOM লিখেছেন:

২য় + দিতে পারলাম না দুঃখিত

আপনি সময় করে পড়েছেন, এটাই যথেষ্ট  smile

কণিষ্ক লিখেছেন:

হো হো 
দারুণ লিখছেন আপনি

ধন্যবাদ ভাই  smile

রাশেদুল ইসলাম লিখেছেন:

দারুন লাগছে, ভাই।

আপনার দারুন লেগেছে জেনে আমার দারুনতর বোধ হইতেছে  wink

ত্রিনিত্রির রাশিমালা লিখেছেন:

আগান ।    পড়ে মজা পাইতেসি ।

পড়ার জন্য ধন্যবাদ ভাই  smile

স্রোতের বিপরীতে উদ্যত!