সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন স্বপ্নীল (৩০-০৬-২০১১ ১১:৫৪)

টপিকঃ কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

পূর্বকথা:  "কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল" একটি সাক্ষাৎকার নেয়ার সিরিজ।এখানে বিভিন্ন মানুষের ছোটো-খাটো সাক্ষাৎকার নেয়ার চেষ্টা করা হয়।আজকেরটা পর্ব ৬ ।যারা এই সিরিজের  পর্ব ১ ,২, ৩, ৪ ও ৫ পড়েন নাই তারা  নিচের লিংকে যেয়ে পড়ে নিতে পারেন:

কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ১- অতিথি: সালেহ আহমদ

কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ২- অতিথি: সমন্বয়ক শিপলু  

কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৩- অতিথি: ছবি আপু  

কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৪- অতিথি: আহমাদ মুজতবা 

কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৫ - অতিথি: রূপসী-রাক্ষসী




আজকের পর্ব কথা:

বেশ কিছুদিন গ্যাপ যাবার পর আবার আপনাদের মাঝে হাজির হলাম "কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল" সিরিজের নতুন ইন্টারভিউ নিয়ে।পড়তে পড়তে যেন বিরক্তি না এসে যায় আর ব্যাক্তিগত ব্যস্ততা- সেজন্য এই গ্যাপ। "কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল" সিরিজের এখন পর্যন্ত নেয়া সব ইন্টারভিউই সরাসরি চ্যাটের মাধ্যমে পুরোটা একসাথে নেয়া হয়েছে, আগে - ভাগে প্রশ্ন পাঠানোর কোন সিস্টেম নেই। এই ইন্টারভিউটুকুও তার ব্যতিক্রম নয়।


আমি ইদানিং একদমই সময় পাচ্ছি না। তাই এই ইন্টারভিউ সিরিজের ভবিষ্যত নিয়ে আমি কিছুটা সন্দিহান। বেশ কঠিন হয়ে যাচ্ছে এরকম একটা ইন্টারভিউ তৈরির জন্য সময় ম্যানেজ করা, ব্যাক্তিগত জীবনের নানা রকম ঝামেলায়  নিজেকে এরকম গুরুত্বপূর্ন একটা কাজের জন্য ঠিকভাবে প্রিপেয়ার করতে পারছিনা। তবুও আজকে আপনাদের নতুন একটা ইন্টারভিউ উপহার দিতে পেরে মনে হয় যেন বিশ্ব জয় করে ফেলেছি  yahoo


এবারের পর্বে ভেরিয়েশন আনার জন্যে চিন্তা করলাম প্রবাসে যে আমাদের প্রিয় ভাইয়েরা কষ্ট করে থেকে দেশের জন্য বিপুল রেমিটেন্স পাঠাচ্ছেন তাদের কারো একজনকে সবার সামনে তুলে ধরলে কেমন হয়?এতে এই সিরিজে একটু ভিন্ন স্বাদও পাওয়া যাবে।সেই ভেবেই এবারের অতিথি ঠিক করলাম আমাদের jemsbond  ভাই ওরফে আকাশ ভাই


jemsbond বাহরাইনে থাকেন।প্রজন্মের সাথে আছেন সেই ২০০৯ সাল থেকে যদিও এখন পর্যন্ত খুব কম পোস্টই করেছেন।বেশ মজাই লেগেছে উনার ইন্টারভিউ নিয়ে।ইন্টারভিউ নেয়ার সময় বেশ কবারই হাসতে হাসতে অবস্থা খারাপ উনার কথা শুনে।আবার কখনো কখনো এত খারাপ লেগেছে যে কি বলব। উনার ইন্টারভিউতে বেশ সুন্দর করেই প্রবাসে থাকা আমাদের দেশের মানুষের জীবন -যাপন,আবেগ অনুভুতিটুকু উঠে এসেছে।উনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ কষ্ট করে ইন্টারভিউটুকু দেয়ার জন্য।





ইন্টারভিউ


jemsbond ভাই, কেমন আছেন?
-ভাল আছি।

আপনার পুরো নাম কি?
-আমার পুরো নাম – জানে আলম আর ডাক নাম – আকাশ, তবে মা-বাবা আদর করে বাবু ডাকে (তবে আপনারা কেউ ডাইকেন না আবার  tongue) ।


এত কিছু থাকতে jemsbond  নাম নেয়ার রহস্য কি?  thinking
-রহস্য কিছুই না, প্রজন্মতে যখন আসি, তখন মাথায় এই নামটাই ঘুরতেছিল।


ঠিক এই নামটাই কেনো? জেমস বন্ড বেশি পছন্দ করেন?  isee
- বড় জটিল প্রশ্ন করেন তো আপনি, আমার এখন বুক কাপতেছে  nailbiting  কিছু সিক্রেট মিশন এর কারনে এই নামটাই বড় বেশি পছন্দ হয়। নিজেকে জেমসবন্ড ভাবতেও ভাল লাগে, মাঝে কিছু সময় নামটা চেঞ্জ করার ইচ্ছা হয়েছিল, তবে কেন যেন করা হয় নাই  sad


বাংলা ফোরামে এতদিন থেকেও নামটা বাংলা করা হয়নি বা অভ্যর্থনা কক্ষেও পরিচয় দেয়া হয়নি, কেন?
-কারনটা অলসতা এবং কিছু ভুল বোঝার কারনে হয়েছিল । মনে করেছিলাম চেঞ্জ করব, কিন্তু ব্যস্ততা আর অলসতার কারনে করা হয়নি। আর অভ্যর্থনা কক্ষেও পরিচয় দেয়া হয়নি, কারন শুরুটাই এক রকম টেস্ট এর মত হয়ে গেছিল, তারপর আর দেব দেব করে দেয়া হইনি।


ফোরামে এখন খুব একটা পোস্ট করেন না,কারণটা জানতে পারি?
-একরকম লজ্জা লজ্জা লাগে, প্রথম প্রথম ভাবতাম লিখব, তারপর কি লিখব ভাবি কিন্তু লিখতে গেলে আর কলম চলে না ।


প্রজন্ম ফোরাম আপনার জীবনের সাথে কিরকম জড়িয়ে আছে?
-বেশ ভাবগম্ভির প্রশ্ন। আসলে আমি যখন প্রজন্মতে আসি তখন বাংলা ফোরাম সম্পর্কে কোন ধারনাই ছিল না। আমি তো মনেই করি নাই যে বাংলাতেও ফোরাম আছে । বর্তমানে প্রজন্ম আমার দৈনন্দিন কাজের একটা অংশ হিসেবে জড়িয়ে আছে, তাই বলা খুব মুশকিল।


আপনার আশপাশের কেউ জানে এ ফোরাম সম্পর্কে?
-নাহ, কেউ জানে না । তবে দুইদিন আগে আমার এক ফ্রেন্ড এর কাছে প্রজন্ম ফোরাম সম্পর্কে জানিয়েছি। মনে হয় সেও আসতে পারে। আপনার লেখা সে পড়ে এবং সাথে আমার মন্তব্যগুলিও।


কয় বছর হল বিদেশে?দেশে কয়বার গিয়েছেন?
-মনে হয় ৪ বছর হয়ে গেল । এখনও দেশে যাইনি , তবে এ বছর যাওয়ার চিন্তা আছে ।


বিদেশে কখন, কিভাবে গেলেন? যাওয়ার আগে দেশে কি করতেন?
-বিদেশ আসাটা একরকম ভাগ্যের নির্মম পরিহাস হয়ে গেল আমার মতে। কারন জীবনে কখনো স্বপ্নেও ভাবিনি আমি বিদেশ আসব । যাওয়ার আগে আমি ঢাকা পলিটেকনিক এ পড়ালেখা করতাম, তার পাশাপাশি টুকটাক পার্ট টাইম জবও করতাম।


ঠিক কিভাবে এলেন সেটা জানতে চাচ্ছি।পুরনো স্মৃতি একটু কষ্ট করে আমাদের জন্য মনে করুন।  waiting
-বুঝতে পারছি আপনি ছাড়বেন না, আমি যত এড়িয়ে যাই তত টাইট করে ধরছেন দেখছি  ghusi

যাই হোক, আসলে আমরা পরিবারে মাত্র পাঁচ প্রাণী – মা, বাবা, দু-বোন এবং আমি ।আমার বড় দুলাভাই এই দেশেই থাকতেন এবং আমার বোনেরও ইচ্ছে ছিল আমি বিদেশ যাই, কিন্তু আমি রাজি হচ্ছিলাম না । একদিন পাসপোর্ট বানানোর জন্য আমার সাইন নিয়ে সেটার কপিও পাঠিয়ে দেয় আমার অবর্তমানে। যখন জানতে পারি তখন হাতে মাত্র ২৮ দিন বাকি ।

শেষমেষ রাজি হচ্ছিনা দেখে খুব ভাল একটা লজিক দাড় করাল । যেমন - আমি যদিও বাবা-মার এক মাত্র ছাউয়াল, তারপরও আমাকে অনেক বড় হতে হবে এবং আমি যদি ডিপ্লোমা পাশ করি, তাহলে চার-বছর পর আমার মা-বাবা কে আমি মাসিক সংসার খরচ দিতে পারব ৪ থেকে ৭ হাজার টাকা। যদি আমি আরও পড়ালেখা করতে চাই, তাহলে আমাকে বিসিএস পাশ করতে হবে, তার মানে আরও ৬ বছর, ততদিনে আমার মা-বাবা আরও বুড়ো হয়ে যাবে। যদি তা আমি পাশ করে বের হই, তাহলে কত টাকা মাসিক ইনকাম করতে পারব, আপনারাই একটা অনুমান দাড় করান । ততদিনে আমার এবং আমার আশেপাশের পরিবেশ সব কিছু ধরাছোয়ার বাইরে চলে যাবে ( বর্তমানের বাজার দরটাই দেখেন) । সেই রকম একটা স্বপ্ন পূরুন করার ইচ্ছাই এখানে আসা ।

তবে আমার ভাই এত টাকা-পয়সার দিকে মন নেই । কিন্তু পারিবারিক কিছু কারনে বাধ্য হয়েছি। সেই সুখি মানুষ এর গল্পটা আপনাদের হয়ত মনে আছে, আমার সেই রকম হতে মনে চায়।


প্রথম যখন বিদেশে এলেন, তখনকার সময়ের স্মৃতিটুকু আমাদের সাথে শেয়ার করুন।
-প্রথম যখন আসি, তখন তো দুই দিন শুধু ঘুম আর ঘুম, কারন রাত আর দিন কিছুই বুঝতে পারিনি। যখন ঘুম ভাঙল, তখন মনে করছি এখনও স্বপ্ন দেখছি, হয়ত এখনই ঘুম ভেঙ্গে যাবে আর মা বলবে : "১২ টা বাজে, এখনও ঘুমে, ওঠ" । আসলে প্রথম স্মৃতি মনে করলেও গায়ে কাটা দিয়ে উঠে  dontsee

যাই হোক যখন ঘুম ভাঙল, ততদিনে ৭ দিন হয়ে গেছে, এবার বাস্তবে ফিরে আসি। প্রথম চিন্তা কি করা যায়। এখানে বাংলাদেশি যারা আছে, তারা সবাই যে ধরনের কাজ করে তা আমার দ্বারা সম্ভব না -এটা আমি যখন বুঝতে পারি তখন অনেক দেরি হয়ে গেছে, কারন ভিসার টাকা জমা হয়ে যাওয়া আরকি । সবাই খুব খুব পরিশ্রমের কাজ করে যা দেখতেও বুক ফেটে যায় আরকি । একে তো প্রখর রোদ, তার উপর আবার গরম বাতাস  ghusi

নতুন দেশ, নতুন ভাষা এবং আমার আশেপাশের যারা বাঙালি ছিল, তারা সবাই একই ধরনের কাজে সংশ্লিষ্ট ছিল আর আমি তাদের থেকে ভিন্নমাত্রার কাজ খুজছিলাম । অনেককে প্রশ্ন করেছিলাম যে "এই ধরনের কাজ ছাড়া অন্য কোন কাজে যোগদান করা সম্ভব কিনা?" সবার একই উত্তর: এইটাই বেশ, কারন তারা সবাই এক ধরনের টার্গেট নিয়ে আসে। যেমন : যদি ৩ থেকে ৫ বছর হাড় ভাঙ্গা খাটুনি করে, তাহলে মোটামুটি একটা আয় নিয়ে দেশে ফিরে যাবে, আর জীবনেও আসবে না এই দেশে  angry

তবে আমার ভাগ্য ভাল যে ১৫ দিনের মাথায় একটা কোম্পানিতে ইন্টারভিউ দিই যার দরুন সেখানেই চাকরি হয় । কারন আমার দু-একটা পজিটিভ দিক ছিল তা হল –
১. কম্পিউটার ব্যবহার জানতাম ।
২. হিন্দি ভাষাও পুরোদমে ( দেশে থাকতে চ্যানেল দেখে দেখে )
৩.ইংলিশও মোটামুটি বলতে পারতাম ।

সেই থেকে শুরু আর থামি নাই ভাইজান । আরও অনেক স্মৃতি আছে, যা এখন বললেও দুই দিন পার হয়ে শেষ হবে  smile


বেশ ভাল লাগল আপনার কথাগুলো। আচ্ছা, বাহরাইনের সাথে আমাদের বাংলাদেশের কি কি পার্থক্য চোখে পড়েছে আপনার?
-অ-নে-ক।
প্রথমত, তাদের আইন-কানুন খুবই ভাল যা বলার মত না। ধরেন, আপনি যদি রাত ৩ টায়ও রাস্তা দিয়ে হাটেন, তারপরও কেউ বলবে না কেন আপনি বাইরে । পুরোপুরি বাংলাদেশি চলা ফেরা, তবে আইন মানাটা সবার জন্য প্রযোজ্য। আর যদি বাংলাদেশে রাত ১২টার পরে  ঢাকায় চিপাচাপায় জান, তাইলে তো – হয় মামুরা ধরছে না হয় ভাগ্নেরা  lol

দ্বিতীয়ত, আমাদের দেশে রাস্তায় হয়ত আপনারা বিভিন্ন এক্সিডেন্ট দেখে থাকবেন যেখানে সব কিছু শেষ হবার পর পুলিশ আসে। আর এখানে আপনি গাড়ি এক্সিডেন্ট করলে একচুল না নড়ে তখনই সার্জেন্টকে ডেকে আনবে এবং সে আসলে সবকিছুর ফয়সালা হবে ।

এরকম আরও অনেক পার্থক্য আছে তার মধ্যে গুরুত্বপূর্ন হল – এখানে কোন দলীয় বা বিরোধিদলীয় ঝামেলাগুলো নেই ।


বাহরাইনের কোন জিনিসগুলো সবচে বেশি ভাল লাগে?
-রোদগুলি যা চরম লাগে- একবারে গা পুড়ে যায় আরকি । আসলে এখানে রোদ ছাড়া আমার চোখে আর কিছু নাই দেখার মত, কারন এখানে রাতে আপনার ভাল লাগবে, কিন্তু দিনে ভাল লাগবে না । কারন যেই দেশে শুধু রাতের দৃশ্য দেখতে ভাল লাগে, সেই দেশ কখনো ভাল হয় না। আপনি বুঝতে পারছেন কি মিন করছি আমি? আর হ্যা, এখানকার মসজিদগুলি দেখতে খুব সুন্দর।


বাহরাইনের মানুষজন কেমন?
-বাহরাইনের মানুষজন আসলে ঠিক অতটা ভাল না । কারন এখানে শিয়া সম্প্রদায়ের অধিকতর লোক থাকে , যারা সুন্নিহদের সাথে খুব একটা ভাল ব্যবহার করে না । যেমন: আপনি রাস্তা দিয়ে যাচ্ছেন, কোন কারন ছাড়াই আপনাকে একটা চড় দিয়ে চলে যাবে আর আপনি কিছুই বলতে পারবেন না। যদি আপনি এর প্রতিবাদ করেন, তাহলে পুলিশ তাদের পক্ষে যাবে কারন তারাও শিয়া । তবে কিছু সুন্নিহ লোক আছে যারা খুব ভাল এবং তারাই উপর বড় বড় পদে আছে এবং সব কিছু কন্ট্রোল করে থাকেন।তবে এখন কিছুদিন আগে মুসলিম দেশে গোলমালের পর তাদের চরিত্র বেশ একটা বদলে গেছে । তবে যেই জিনিসটা মূলে আছে, তা হলো- এখানকার নারীরা দেখতে খুব সুন্দর  love


হাহাহা.বিয়ে করে ফেলার প্ল্যান আছে নাকি কাউকে?কারো সাথে পরিচয় নেই?  tongue
-নারে ভাই, আরবি বিয়া করলে জবেহ করে ফেলবে । তবে তারা মিটমিট করে চায়, আমি লক্ষ করছি, সেটা ভালবাসা কিনা জানিনা, তবে ১০০% জানি এটা কু-মতলব  nailbiting


সমস্যাটা কি বুঝতে পারছিনা,জবেহ করে ফেলবে কেন?  confused
-আসলে তারা বেশ ভাল করে জানে যে এটা সম্ভব না। এখানে কোন আরবি ছেলে যদি কোনো নারীকে বিয়ে করতে চায়, তাহলে তাকে মানে সেই নারীকে একটা গাড়ি, থাকার জন্য একটা বাড়ি অথবা ফ্ল্যাট এবং মোটা অঙ্কের টাকা দিতে হবে যা আমাদের দেশের রেওয়াজে নেই । আমরা যদি মন-প্রান দিয়া ভালবাসি, তাহলে টাকা-পয়সা চাইনা, তবে এখানে এটা দিতে হবে বাধ্যতামূলক।

আর অনেক নারীর বিয়ে ঠিক বয়সে হয়না বলে তারা আমাদের সাথে, বিশেষ করে ভিনদেশি যারা – ভারত, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশ -এর নাগরিকদের বিভিন্ন লোভ দেখায় নিজের সব আকাঙ্ক্ষা পুরণের জন্য । আর যদিও তারা সব কিছু করবে, তবে বিয়ে করবে না, তাহলে লাভ কি? আপনি বিয়ে করতে চাইলেও তারা তা দেবে না, হয় আপনাকে রেপ কেস করে সৌদি পাঠিয়ে দেবে, আর সেখানে গেলে তো হবেন – আল্লাহু আকবর। আরও অনেক সমস্যা আছে, তাই তাদের থেকে অন্তত বাংলাদেশ এর যত দুরুত্ব, ততটুকু দুরুত্ব রাখা ভাল বলে আমি মনে করি  nailbiting


বুঝতে পেরেছি।অবস্থা দেখি খুব জটিল।যাই হোক,বাহরাইনে ঘটা মজার কিছু ঘটনা আমাদের সাথে শেয়ার করুন।   isee
-মজার কোন ঘটনাই নাই। প্রবাস জীবন আমার মতে কোন মজার জীবন হতে পারে না ।
তবে এখন আপনার সাথে চ্যাট করে (ইন্টারভিউ দিয়ে) মজা লাগতেছে এইটাই মজার ঘটনা। নিজেরে খুবই বড় বড় মনে হচ্ছে  big_smile


আপনার প্রতিদিনের রুটিন সম্পর্কে একটু আইডিয়া দেবেন?
-সকাল ৭: ৩০ এ ঘুম থেকে উঠে অফিসের জন্য তৈরি হওয়া ।৮ টায় রওনা দিয়ে অফিস আসতে আসতে ৮.৩০, কখনো ৮.১৫ তেই এসে যাই।কম্পিউটার ওপেন করে কিছু পেন্ডিং কাজ ফিনিশ করা, ১০ টায় চা অথবা স্যান্ডউইচ খাওয়া । আবার কাজের মাঝে বিজি হয়ে যাওয়া । ২ টা থেকে ৪ টা পর্যন্ত প্রজন্ম, টেকনিটিউনস,প্রথম-আলো ব্লগে ঘোরাঘুরি করা, সাথে ফেসবুক, আরও হাবি-জাবি। ৬ টায় বাসায় যাওয়া ।

অফিসের কোন চিন্তা যাতে মাথায় না আসে তার জন্য – প্রথমে টিভির চ্যানেল খুলে সনি এবং স্টার প্লাস খুলে নাটক দেখি – দেখতে দেখতে ৭.৩০ অথবা ৮.০০ বাজলে রাতের খানা খাই । তারপর মুভি দেখে রাত ১২.০০ টায় ঘুম । এই আমার রুটিন। তার মধ্যে মাঝে মাঝে দেশের কারো সাথে কথা বলি যার জন্য বাইরে যেতে হয় । ( বাংলা চ্যানেল আমার বিরক্তির বড় কারন যার দরুন বাংলা চ্যানেল দেখি না তবে মাঝে মধ্যে দেখি)


ভবিষ্যতের স্বপ্ন নিশ্চয়ই দেখেন,সেই স্বপ্ন সম্পর্কে আমাদের একটু বলা যাবে?
-আমি আমার জীবন নিয়ে খুবই Confused, আমার কোন স্বপ্ন নেই, তবে অনেক টাকা কামানোর একটা দুঃস্বপ্ন আছে।


দেশে যারা আছে তাদের জন্য নিশ্চয়ই খারাপ লাগে।সে সম্পর্কে জানতে চাই।
-আসলে আমি সবসময় চাই আমার যারা কাছের মানুষ দেশে আছে তারা ভাল থাকুক । কিন্তু আমার একটা দোষ -মাঝে মধ্যে এই সংসার জিনিসটা খুবই বিরক্তি লাগে, এর চেয়ে না হওয়া আরও ভাল ছিল । যাই হোক এখন তো একটাই স্বপ্ন দেখি – মাকে দেখি না অনেকদিন হয়ে গেল, আগে মাকে দেখব, তারপর সবকিছু।



যাই হোক,আমি তো অনেক প্রশ্ন করলাম।আমাকে কিছু জিজ্ঞেস করতে চান??  worried
-আসলে প্রশ্ন করাটা খুব কঠিন। কিছুক্ষন আগেও অনেক প্রশ্ন মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিল, এখন বলতে পারছি না, তাই আমার কোন প্রশ্ন নাই । তবে একটা সিম্পল প্রশ্ন – আপনি আজ কি দিয়ে ভাত খাইছেন ?  big_smile


আমি আজ চিংড়ি মাছ আর চিচিংগা ভাজি দিয়ে ভাত খেয়েছি,খুবই টেস্টি।কিছুক্ষণ পর শাক দিয়ে আবার ভাত খাব  tongue_smile


সবশেষে, আকাশ ভাই, আপনার সম্পর্কে আমার জানার বেশ আগ্রহ ছিল,আজকে সেটা পূরন হলো।আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ আমাকে সময় দেয়ার জন্য।

-আমিও আনন্দিত হইলাম আপনাকে সময় দিতে পেরে। হয়ত আজকের পর থেকে প্রজন্মেতে আমি বদলে যেতে পারি । আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ ।




এই ছিল আকাশ ভাইয়ের ইন্টারভিউ।কেমন লাগল এই ইন্টারভিউটুকু সেটা জানানোর জন্য অনুরোধ রইল সবার প্রতি। ধন্যবাদ।

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

কেন জানি, এই ইণ্টারভিউ টাই আমার সবচে ভাল লাগসে, আমার বাবা দীর্ঘদীন প্রবাসে ছিলেন, এজন্য হয়তো। দুইজনকেই অনেক ধন্যবাদ।

জাগরণে যায় বিভাবরী ...

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

ভাল লাগল  smile
চালিয়ে যান।

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

বরাবরের মতই জটিল হয়েছে  thumbs_up

۞ بِسْمِ اللهِ الْرَّحْمَنِ الْرَّحِيمِ •۞
۞ قُلْ هُوَ اللَّهُ أَحَدٌ ۞ اللَّهُ الصَّمَدُ ۞ لَمْ * • ۞
۞ يَلِدْ وَلَمْ يُولَدْ ۞ وَلَمْ يَكُن لَّهُ كُفُوًا أَحَدٌ * • ۞

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

ভাল লাগল ইন্টারভিউ পড়ে। জেমসবন্ড(আকাশ) ভাই সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারলাম। আর এ ও বুঝতে পারলাম উনি অনেক মজার মানুষ।  smile

সালেহ আহমদ'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

মাকে দেখি না অনেকদিন হয়ে গেল, আগে মাকে দেখব, তারপর সবকিছু।

এই লাইনটার কাছে অন্যসবগুলো বিষয়ই বুঝি ম্লান হয়ে গেল।  হয়তো পুরোপুরি বোঝা সম্ভব নয় আরেকজনের পক্ষে তবুও কথাটার মাঝে যে তীব্রতা তা বোঝা যায় সহজেই। আশা করি আপনি শীঘ্রই আপনার মাকে দেখতে পারবেন।  thumbs_up

[img]http://twitstamp.com/thehungrycoder/standard.png[/img]
what to do?

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

নাকিব লিখেছেন:

কেন জানি, এই ইণ্টারভিউ টাই আমার সবচে ভাল লাগসে, আমার বাবা দীর্ঘদীন প্রবাসে ছিলেন, এজন্য হয়তো। দুইজনকেই অনেক ধন্যবাদ।

অন্য ইণ্টারভিউ গুলি থেকে একটু আলাদা লাগলো ... তবে আমার ও এটা পড়ে বেশ লাগলো ... জেমস বন্ড সম্পর্কে জানতে পারলাম ... বাহরাইনের প্রবাস জীবন সম্পর্কে জানতে পারলাম ... কিছু কিছু জায়গা নিজের সাথে মিলিয়ে নিলাম... আম্মুকে সামনা সামনি দেখি না কত দিন হল  crying   crying   crying

ঘরের কোনে মনের বনে, তোমার সাথে জোছনা স্নান...
তোমার দুহাত থাকলে হাতে; স্বপ্নে জাগে মধুর প্রাণ।
ছড়া সব করে রব

নাদিয়া জামান'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

প্রবাসী জীবন আসলেই কষ্টের। জীবিকার টানে মানুষ কত কঠিন কাজই না করতে পারে।

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

বন্ড ভাই একটা অ্যাড শেয়ার করছিলেন। অ্যাড দেখে চোখ দিয়ে পানি বাইর হইয়া গেছিলো। সেইটাই বন্ড ভাইয়ের টপিকে আমার ছিলো প্রথম কমেন্ট। বন্ড ভাইয়ের নামের সাথে ওনার কামের কুনো মিল নাই(পজিটিভ অর্থে)। এইটাই এই সিরিজে পড়া এখন পর্যন্ত বেস্ট ইন্টারভিউ  thumbs_up

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১০

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

স্বাক্ষাৎকার এই পর্বটাই আমি প্রথম পড়লাম। বেশ বড়। তবে খুব ভাল লেগেছে।  thumbs_up
এরকম আরকিছু স্বাক্ষাৎকার নিয়ে একটা বই লিখে ফেলেন।

১১

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

অনেক ভাল লাগল, কিন্তু বন্ড ভাই কই সম্মাননা দিব যে  surprised

১২

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

bond ভাই এবং স্বপ্নীল ভাইকে অনেক ধন্যবাদ। কিন্তু bond ভাই কই? রেপু দিমু কেমনে?

ইমরান তুষার'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৩

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

আজ আর একজন সম্পর্কে জানতে পারলাম....স্বপ্নীল তুমি এগিয়ে যাও এই দোয়া করি । এভাবে একে একে অনেক ইন্টারভিউ নিতে থাকো...

জাযাল্লাহু আন্না মুহাম্মাদান মাহুয়া আহলুহু......
এই মেঘ এই রোদ্দুর

১৪

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

-আমি আমার জীবন নিয়ে খুবই Confused, আমার কোন স্বপ্ন নেই, তবে অনেক টাকা কামানোর একটা দুঃস্বপ্ন আছে।

হুম, তাহলে কিন্তু সুখী মানুষ হতে পারবেন না।
tongue_smile
আর বরাবরের মতই স্বপ্নের নীল ভাইকে অনেক গুলো ধইন্যা lol

রক্তের গ্রুপ AB+

microqatar'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

১৫

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

সবার সাথে তাল মিলিয়ে আমিও বলব এটাই তোমার শ্রেষ্ঠ ইন্টারভিউ। তোমাকে এবং বন্ড ভাইকে ধন্যবাদ প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতাগুলো শেয়ার করায়।

১৬

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

সবাইকে অনেক ধন্যবাদ । আসলে শরম লাগতাছে কি যে বলি আমি চুপি চুপি সবার কমেন্ট পরছিলাম  hehe
সবাইকে আবার ও অনেক অনেক ধন্যবাদ এবং সাথে স্বপ্নীল কে ও ধন্যবাদ । আর কিছু বলতে পারুম না  smile

(অফটপিক ঃ দুদিন ধরে জ্বরে ভুগছি তাই অফিসে আসিনি আজ এসেই কমেন্ট করলাম )

নিবন্ধিতঃ১১/০৩/২০০৯ ,নিয়মিতঃ১০/০৩/২০১১, প্রজন্মনুরাগীঃ১৯/০৫/২০১১ ,প্রজন্মাসক্তঃ২৬/০৯/২০১১,
পাঁড়ফোরামিকঃ২২/০৩/২০১২, প্রজন্ম গুরুঃ০৯/০৪/২০১২ ,পাঁড়-প্রাজন্মিকঃ২৭/০৮/২০১২,প্রজন্মাচার্যঃ০৪/০৩/২০১৪।
প্রেম দাও ,নাইলে বিষ দাও

১৭

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

ইন্টিভিন্টি ভালো লাগলো...

বাহারাইনের মেয়েদের কথা পড়ে অবাক হলাম না, তবে বিরক্ত...এখনো এমন অবস্থা চলে কেমন করে?  sad

শেষ গানেরই রেশ নিয়ে যাও চলে, শেষ কথা যাও ব'লে!
সময় পাবে না আর, নামিছে অন্ধকার!
গোধূলিতে আলো-আঁধারে-পথিক যে পথ ভোলে!!

১৮

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

চালিয়ে যান। দেখু না, হাসিনা/ খালেদার ইন্টার ভিউ নেয়া যাই কি না?

আমাকে মেসেজ পাঠাতে লিখুন skytouch <space> Your message তারপর সেন্ড করুন 7171 নাম্বারে যে কোন অপারেটর থেকে।

www.skytouch2u.com

১৯

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

ধন্যবাদ big_smile wink

২০

Re: কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল: পর্ব ৬ - অতিথি: jemsbond

jemsbond লিখেছেন:

সবাইকে অনেক ধন্যবাদ । আসলে শরম লাগতাছে কি যে বলি আমি চুপি চুপি সবার কমেন্ট পরছিলাম  hehe
সবাইকে আবার ও অনেক অনেক ধন্যবাদ এবং সাথে স্বপ্নীল কে ও ধন্যবাদ । আর কিছু বলতে পারুম না  smile

(অফটপিক ঃ দুদিন ধরে জ্বরে ভুগছি তাই অফিসে আসিনি আজ এসেই কমেন্ট করলাম )

উপস..ওষুধ খান আর রেস্ট নেন।এখন কিছুটা কমছে নাকি?আপাতত আর কিছু বলার দরকার নেই। আগে সুস্থ হোন,তখন সবার কমেন্টের রিপ্লাই দিয়েন।



নাকিব লিখেছেন:

কেন জানি, এই ইণ্টারভিউ টাই আমার সবচে ভাল লাগসে, আমার বাবা দীর্ঘদীন প্রবাসে ছিলেন, এজন্য হয়তো। দুইজনকেই অনেক ধন্যবাদ।


অনেক ধন্যবাদ নাকিব।তোমার বাবার প্রবাসে থাকার সময়কার তোমাদের স্মৃতি নিয়ে কিছু লিখবে আশা করি।

অন্তিক লিখেছেন:

ভাল লাগল  smile
চালিয়ে যান।


হেহেহে..ধরা পড়ছ।এইবারের মত পাশ মার্ক দিয়া দিলাম যাও  tongue

সাইদুল ইসলাম লিখেছেন:

বরাবরের মতই জটিল হয়েছে  thumbs_up

হুম..তোমারে আর কিছু কইলাম না  wink

সালেহ আহমদ লিখেছেন:

ভাল লাগল ইন্টারভিউ পড়ে। জেমসবন্ড(আকাশ) ভাই সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারলাম। আর এ ও বুঝতে পারলাম উনি অনেক মজার মানুষ।  smile


আসলেই বেশ মজার মানুষ।ইন্টারভিউ নেবার পর আকাশ ভাই এত খুশি হইছেন যে আমার জন্য সব সময় নাকি উনি টাইম বের করবেন যখন চ্যাট করতে চাইব,যত বিজিই থাকেন না কেন  hehe

হাঙ্গরিকোডার লিখেছেন:

মাকে দেখি না অনেকদিন হয়ে গেল, আগে মাকে দেখব, তারপর সবকিছু।

এই লাইনটার কাছে অন্যসবগুলো বিষয়ই বুঝি ম্লান হয়ে গেল।  হয়তো পুরোপুরি বোঝা সম্ভব নয় আরেকজনের পক্ষে তবুও কথাটার মাঝে যে তীব্রতা তা বোঝা যায় সহজেই।

আপনি সেই যে পলাইলেন আর খবর নাই।ভয় পাইসেন কিনা কে জানে  donttell

নাদিয়া জামান লিখেছেন:

অন্য ইণ্টারভিউ গুলি থেকে একটু আলাদা লাগলো ... ... আম্মুকে সামনা সামনি দেখি না কত দিন হল  crying   crying   crying

আমার কাছেও এটা অন্যসব গুলা থেকে পুরো ডিফারেন্ট মনে হইসে।ধন্যবাদ নাদিয়া@ ২০০...ডট.কম ।
আপনার মাকে দ্রুত দেখুন সেটাই দোয়া করি।

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

এইটাই এই সিরিজে পড়া এখন পর্যন্ত বেস্ট ইন্টারভিউ  thumbs_up

হাহাহা..অনেকেই বলছেন দেখে বেশ ভাল লাগছে।নেয়ার সময়ই চেষ্টা করেছি এটাকে অন্যরকম করে ফুটিয়ে তুলতে।

সদস্য_১ লিখেছেন:

স্বাক্ষাৎকার এই পর্বটাই আমি প্রথম পড়লাম। বেশ বড়। তবে খুব ভাল লেগেছে।  thumbs_up
এরকম আরকিছু স্বাক্ষাৎকার নিয়ে একটা বই লিখে ফেলেন।

ভাই, আপনাকে ধন্যবাদ।আপনি বাকি ৫ টা পর্বও পড়ে নিতে পারেন।টপিকের সবার উপরে লিংক দেয়া আছে।
অথবা ,এই  "কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল" সিরিজের সব ইন্টারভিউ এক জায়গায় !!! টপিক থেকে সবগুলো বের করে পড়ে নিতে পারেন।


আশিফ শাহো লিখেছেন:

অনেক ভাল লাগল, কিন্তু বন্ড ভাই কই সম্মাননা দিব যে  surprised

ইমরান তুষার লিখেছেন:

bond ভাই এবং স্বপ্নীল ভাইকে অনেক ধন্যবাদ। কিন্তু bond ভাই কই? রেপু দিমু কেমনে?


তোমাদের দুজনকেই ধন্যবাদ।কমেন্ট করছে এখন।

ছবি-Chhobi লিখেছেন:

আজ আর একজন সম্পর্কে জানতে পারলাম....স্বপ্নীল তুমি এগিয়ে যাও এই দোয়া করি । এভাবে একে একে অনেক ইন্টারভিউ নিতে থাকো...


খুব বেশি নিতে পারব না মনে হয়।আমি এই সিরিজের ভবিষ্যত নিয়ে সন্দিহান।সময় পাচ্ছিনা।

microqatar লিখেছেন:

আর বরাবরের মতই স্বপ্নের নীল ভাইকে অনেক গুলো ধইন্যা lol

হেহেহে..আপনেরে ধইন্যা  big_smile

ইলিয়াস লিখেছেন:

সবার সাথে তাল মিলিয়ে আমিও বলব এটাই তোমার শ্রেষ্ঠ ইন্টারভিউ। তোমাকে এবং বন্ড ভাইকে ধন্যবাদ প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতাগুলো শেয়ার করায়।

অনেক ধন্যবাদ ইলিয়াস ভাই আপনাকেও।

রূপসী-রাক্ষসী লিখেছেন:

ইন্টিভিন্টি ভালো লাগলো...

বাহারাইনের মেয়েদের কথা পড়ে অবাক হলাম না, তবে বিরক্ত...এখনো এমন অবস্থা চলে কেমন করে?  sad

ধইন্যাপাতা পুরান অতিথি  tongue

আসলেই অবস্থা কিছুটা ভয়াবহই বলা চলে।

আকাশছোঁয়া লিখেছেন:

চালিয়ে যান। দেখু না, হাসিনা/ খালেদার ইন্টার ভিউ নেয়া যাই কি না?


আমারে মারার শখ আর কি  dontsee

দক্ষিণের-মাহবুব লিখেছেন:

ধন্যবাদ big_smile wink


ধুর..এইসব কি কমেন্ট কর।আজ থেকে তোমার সাথে কথা বন্ধ  angry