সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন স্বপ্নীল (২৪-০৬-২০১১ ১০:১৮)

টপিকঃ আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

আজ থেকে শুরু হলো একটা নতুন সিরিজ "আমি এবং আমার ক্যাম্পাস"।এই সিরিজের মাধ্যমে আমরা একেকজন মানুষের ক্যাম্পাসকে তুলে ধরব তারই দৃষ্টিকোণ থেকে।বেশ কিছু জিনিস আমরা জানতে চাইব আমাদের অতিথির কাছ থেকে আর সেটার মাধ্যমেই আমরা অতিথি ও তার ক্যাম্পাসকে আপনাদের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করব।আশা করি আপনাদের ভাল লাগবে।




http://i.imgur.com/noruB.gif



আজকের অতিথি ইমরান তুষার।সে পড়াশোনা করে ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে  বা ইউ আই ইউ যেটা বাংলাদেশে ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।



http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A28.jpg



পুরো কাজটা শেষ করার জন্য আমি ও ইমরান গত কয়েকদিন বেশ ধৈর্য্য ধরেছি।আমাদের ভাগ্য খুবই খারাপ।ইমরানের নেট কানেকশনে হঠাৎ প্রবলেম দেখা দিল,সে আর ছবিই আপলোড করতে পারছিল না, আর বিদ্যুত সমস্যা তো আছেই।একবার মনে হয়েছিল আর বোধহয় দেয়া হবে না এই টপিক।শেষ পর্যন্ত সেটা করতে পারায় আল্লাহর কাছে হাজার শুকরিয়া।ইমরানকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।সে সত্যি অনেক কষ্ট করেছে।তার সাথে বারবারই বিভিন্ন বিষয়ে শলা-পরামর্শ করতে হয়েছে,ঠিক তখনই বুঝেছি,ছেলেটি খুবই ট্যালেন্টেড এবং চমৎকার একজন মানুষ।আই এম ইমপ্রেসড!!!


তো চলুন জেনে নেই আজকে ইমরান ও তার ক্যাম্পাস সম্পর্কে.......



ক্যাম্পাস সম্পর্কে কিছু কথা.........
-আমি যখন ইউ আই ইউ থেকে ভর্তি ফরম নিলাম, তখনও আমি জানতাম না যে এই ইউনিভার্সিটির আরো ক্যাম্পাস আছে। ভর্তি ফরম জমা দিয়ে যখন এডমিট কার্ড টা হাতে পেলাম, দেখলাম ওখানে ভেন্যু লেখা “সুগন্ধা ক্যাম্পাস”। তো খোঁজ – খবর নিয়ে বের হলো এই ক্যাম্পাস কারওয়ান বাজারে, এফ ডি সি এর পাশে। গেলাম পরীক্ষার দিন। আমি বাইরে দাঁড়িয়ে দেখলাম ৪ তলা একটি বিল্ডিং। আমার সিট পড়েছিলো ৪ তলায়।  পুরো ক্যাম্পাসেই সিসিটিভি ক্যামেরা রয়েছে। প্রতিটা ক্লাসে রয়েছে ৩টা করে এসি। কম্পিটার ল্যাব, লাইব্রেরী, স্টাডিরুম, কমন রুম, ইনডোর গেমস, ক্যান্টিন সবই রয়েছে। ক্যাম্পাসের নিচে গ্যারেজ এবং সাথে আছে ফটোকপির ও প্রিন্ট এর দোকান।



বর্তমানে পড়ালেখার বিষয়..........
-আমাদের এই ক্যাম্পাসটা বি বি এ ক্যাম্পাস। তবে ইউ আই ইউ এর সব বিবিএ স্টুডেন্ট এখানে পড়েন না। নতুন এবং ৫ম / ৬ষ্ঠ সেমিস্টারের ছাত্র-ছাত্রীরা আছে এখানে। যারা আরো সিনিয়র তারা মেইন ক্যাম্পাসে। তাই আমাদের এখানে বিবিএ এর সাবজেক্টগুলোই পড়ানো হয়।

আমাদের সেমিস্টার শুরুতে ৩টি সাবজেক্ট বাধ্যতামূলক দিয়ে দেয়া হয়ঃ Business Mathematics, Introduction to Business, Pre-English/ Basic English । এখানে Pre-English টা যারা ভর্তি পরীক্ষায় ইংরেজিতে দূর্বল স্টুডেন্ট হিসেবে প্রতীয়মান হয়েছে তাদের জন্য নন-ক্রেডিট বাধ্যতামূলক একটা সাবজেক্ট। পরের সেমিস্টারে এরা পাবে বাধ্যতামূলক Basic English যা ক্রেডিট সাবজেক্ট। আর যারা ভর্তি পরীক্ষায় ইংরেজিতে দক্ষতা দেখাতে পারবে, তারা একবারে  Basic English পাবে। তো আল্লাহর রহমতে আমি ক্রেডিট সাবজেক্ট টা পেয়েছিলাম।

এখন আমার ২য় সেমিস্টার চলছে। আর এবার আমার বিষয়গুলো হলোঃ Financial Accounting 1, Management, Composition and Communication Skills । আমাদের ফ্যাকাল্টি অর্থাৎ শিক্ষকমন্ডলী ভালোই পড়াতে পারেন। তবে সত্যি কথাটা হলো, এখানে পড়ার স্রোতে একবার খেই হারিয়ে ফেললে হাবুডুবু খেতে খেতে পরান আর মগজ দুটোই খাঁচা ছাড়া হওয়ার চান্স আছে।



বর্তমান সেমিস্টার যেমন যাচ্ছে.......
-আমার এবারের সেমিস্টার এর সাবজেক্ট গুলো তো আগেই বললাম। সমস্যা হলো তিনটা ম্যা'ম তিনভাবে পড়ায়। ইংরেজি আর একাউন্টিং আমার কাছে ভালো লাগে তাই এই দুটোয় কোন সমস্যা নাই। কিন্তু ম্যানেজম্যান্ট ক্লাসে ঘুম আটকে রাখা কি যে কষ্টের কাজ! ক্লাসে মনে হতে থাকে' “আমাকে কেউ একটা খাট দাও, আমি ঘুমাবো”। আর যখন ক্লাস শেষ পর্যায়ে থাকে, তখন ভাবি, “আল্লাহ কি দুনিয়ার সবার খুধা আমার পেটে দিয়ে দিলো? আস্তা একটা গরু খাওয়া মনে হয় কোন ব্যাপার হবেনা”। আর তাই ম্যানেজমেন্ট ক্লাস শেষ হলেই দৌড় দিয়ে ক্যান্টিনে।

আচ্ছা, আজাইরা প্যাঁচাল বাদ দিয়ে আসল কথায় আসি,  এই সেমিস্টারে সাবজেক্ট গুলো অনেকই গুরুত্বপূর্ণ। তাই চেষ্টা করে যাচ্ছি একটু মনোযোগী হতে পড়ালেখায়। কিন্তু গতি খবই ধীর। তাই হাল্কা চিন্তিত বোধ করছি। জুলাইতে প্রথম মিডটার্ম। দেখা যাক কেমন হয়।



ক্যাম্পাসে প্রিয় টিচার, বন্ধু-বান্ধব ও অন্যান্য কাছের মানুষ যারা আছে তাদের সম্পর্কে......
-আমি যাদের ক্লাস পেয়েছি তাদের মধ্যে একজনকেই ভালো লেগেছে...আমার বিজনেস ম্যাথ এর সাজিদ স্যার। কিন্তু দুঃখের বিষয় সে আমাদের সেমিস্টার শেষ এর আগেই অন্য কোথাও জয়েন করে ফেলেন। তাঁর পড়ানোর ধরণ ছিলো বোরিং কিন্তু প্রচন্ড পরিমাণে কার্যকর। কোন কারণে আর কোন ক্লাস মিস দিলেও তাঁর ক্লাস মিস দিতাম না কখনো। সে যাওয়ার পর যিনি আসলেন, তিনি আমাদের ম্যাথ -এ ডুবিয়ে দিয়ে গেলেন। তাই তাঁর অনেক ক্লাসই করিনি। বাসায় বসে নিজে এবং বন্ধুরা মিলে করেছি।

বন্ধুদের কথা বলতে গেলে বলতে হয়, পুরো ক্যাম্পাসে একমাত্র আমরাই আছি যাদের ফ্রেন্ডস গ্রুপ সব মিলিয়ে ১৭ জনের। আর আমরা ১৭ জনই সবসময় একসাথে থাকি। মজাও করি প্রচুর। সবাই বাইরে বেড়াতেও গিয়েছি এবং যাচ্ছি এখনো। ক্যাম্পাসে ঝামেলাতেও পড়েছি অনেক। এত বড় গ্রুপ দেখে কেউ কেউ হয়তো হিংসাও করতো। আমরা গায়ে লাগাইনা কখনো। তবে একটা বিষয়ে গ্রুপের প্রত্যেকে সিরিয়াস, আর তা হলো পড়ালেখা। কখনো অযথা ক্লাস মিস দেয়ার পক্ষে কেউ নেই, যে যাকে যেভাবে পারি হেল্প করি। একদম কাছের বন্ধুদের কথা বলতে গেলে নাম আসে শাওন, তানিম, বিশাল, অনন্যা...ইত্যাদি। একেকজন বন্ধু অন্তপ্রাণ। খুবই ভালো লাগে যখন ভাবি যে এই ধরণের কিছু বন্ধু পেয়েছি।


ক্যাম্পাসে হয়ে যাওয়া কোন বিশেষ প্রোগ্রাম বা অনুষ্ঠান সম্পর্কে স্মৃতিচারন.....
-ক্যাম্পাসে আসার পর এখনও কোন প্রোগ্রাম এখানে অনুষ্ঠিত হয়নি। তবে জুলাই এর ৭ তারিখে একটি বড় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। দুঃখের সাথে বলতে হয়, আমরা এই সেমিস্টার শেষে এই ক্যাম্পাস ছেড়ে দিচ্ছি। আর তাই একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন। ভলান্টিয়ার হিসেবে নাম দিয়েছি (আমার আবার ট্যালেন্ট কম কিনা)। দেখা যাক কেমন হয় প্রোগ্রাম।



ক্যাম্পাসে যাওয়া থেকে একদম বাসায় ফিরে আসা পর্যন্ত প্রতিটা দিন যেভাবে কাটে......
-আমার ক্লাস সপ্তাহে ৪ দিন, রবি থেকে বুধ। প্রতিদিন ক্যাম্পাসে যাই তিন ফ্রেন্ড একসাথে গাড়িতে। গল্প করতে করতে আর গান শুনতে শুনতে। আসার সময় আমরা হঠাৎ হঠাৎ ঠিক করি কোথাও যাওয়ার প্ল্যানিং। টিএসসি অথবা হাকিম চত্বর, কিংবা রমনার গাছের নিচে বা বাংলা একাডেমীর উল্টো পাশের পার্কটাতে চলে আড্ডাবাজি। প্রায় প্রতিদিনই বাসায় ফিরতে ফিরতে ৫টা বেজে যায়, যেখানে ক্লাস শেষ হয় ৩টায়।



প্রথম ভর্তি হবার পর দেখা ক্যাম্পাস আর এখনকার ক্যাম্পাসের পার্থক্য .......
-ক্যাম্পাসটা দেখে ওইদিন আহামরি কিছু মনে হয়নি। কিন্তু পরে যখন ক্লাস শুরু করলাম, আস্তে আস্তে ক্যাম্পাসটা ভালো লাগতে শুরু করলো। এবং এখন মনে হচ্ছে ধানমন্ডির মেইন ক্যাম্পাসের তুলনায় এই ক্যাম্পাস হাজার গুণ ভালো। চারিদিক খোলা, ভিড় কম, সবসময় পরিষ্কার, প্রত্যেক ফ্লোরে বিশাল বারান্দা আর চমৎকার একটা ক্যান্টিন। অথচ ওই ক্যাম্পাসে গেলে কেন যেন শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে যায়। ওখানের ক্যান্টিন টা তো জ্বলন্ত চুলা। সব দিক দিয়ে বিবেচনা করে আমার এই ক্যাম্পাসটা অসাধারণ লাগে। প্রথম যখন ক্যাম্পাসে আসি, তখন কেন জানি ক্যাম্পাসটাকে হাস্পাতাল আর নিজেকে তাঁর রোগী মনে হচ্ছিলো। কিন্তু পরবর্তিতে এই ক্যাম্পাসের প্রেমে পড়ে গিয়েছি। এটাকে ছেড়ে যেতে হবে ভেবে কষ্টই লাগছে। কিন্তু ভাড়া নেয়া জায়গায় আর কত?



ক্যাম্পাসে ঘটে যাওয়া বিশেষ কোন মজার ঘটনা...........
-প্রথম ছবিটা লক্ষ্য করলে দেখা যাবে আমাদের বারান্দায় যাওয়ার জন্য গ্লাস ডোর রয়েছে। জানালাগুলোও বিশাল। জানালা টপকেও আসা যায় বারান্দায়। তো এই বারান্দায় আসতে গেলে মানুষ কি যে চিন্তা করে কে জানে, অন্যমনষ্ক ভাবে হাঁটতে হাঁটতে সোজা জানালার দিকে যাওয়া শুরু করে আর বন্ধ জানালা কে খোলা জানালা মনে করে......  lol2 lol2 lol2 lol2
বারি খেয়ে পড়ে গিয়েছে মাটিতে এমন রেকর্ডও আছে, এমনকি ক্যাম্পাসের স্টাফরাও...ধুপধাপ... lol2 lol2 lol2 lol2

ওহ! আরেকটি কথা, বাংলাদেশের ক্রিকেট খেলার সময় খেলা দেখতাম ক্যাম্পাসে। শেষ যে খেলাটায় বাংলাদেশ জিতলো......তখন আমাদের আর পায় কে? কারওয়ান বাজার রোড বন্ধ করে দিয়েছিলাম বিজয় মিছিল করে।



ক্যাম্পাসের যে দিকটি সবচে বেশি ভাল লাগে.........
-ক্যাম্পাসটার প্লাস পয়েন্ট হলো এটা অত্যন্ত খোলামেলা, কেন যেন খুব সহজেই এখানে মিশে যাওয়া যায়। শহরের যান্ত্রিকতাটা এখানে কম অনুভূত হয়। সবাই কম-বেশি রিল্যাক্স মুডে থাকে (পড়া-লেখার চাপটুকু বাদে)।


যে দিকটি একদমই ভাল লাগে না..........
-এই ক্যাম্পাসের মাইনাস পয়েন্ট হলো, একই ইউনিভার্সিটির অধীনে হয়েও এই ক্যাম্পাস অন্যান্য কো-কারিকুলার কার্যক্রম থেকে একরকম আলাদা। মেইন ক্যাম্পাসে বিভিন্ন ক্লাব থাকলেও, এই ক্যাম্পাসে স্বতন্ত্র কোন ক্লাব নেই। ফলে ওই ক্যাম্পাসে ক্লাব গুলো কোন প্রোগ্রাম আয়োজন করলে তার খবর পাওয়া যায়না। ফলে ওই ক্যাম্পাস থেকে কোনো অনুষ্ঠান হলে ওখানে এই ক্যাম্পাসের অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা একদমই নগণ্য। এই ব্যাপারটা একদমই ভালো লাগেনা।


বর্তমান ক্যাম্পাসের উন্নতিতে কোন মতামত বা পরামর্শ.......
-এই মুহুর্তে এ ব্যাপারে বলতে চাচ্ছি না। কারণ ক্যাম্পাস যেহেতু পরিবর্তন হচ্ছে তাই কিছুই বলার নেই।


ছবিগুলো তোলার সময়কার অভিজ্ঞতা .........
আমি যখন ছবি তোলার দায়িত্ব পেলাম, তখন মাথা দুটো চিন্তা ঢুকলো, ক্যামেরা আর ক্যাম্পাসে সবার সামনে ছবি তোলা। ক্যামেরার ব্যবস্থা তো হল, কিন্তু সবার সামনে কিভাবে ছবি তুলবো? ভাবতেই কেমন জানি লাগছে। তাই সকাল ৮:৩০টায় ক্যাম্পাসের জন্য রয়না দিলাম, ইচ্ছা স্টুডেন্ট বেশি আসার আগেই যত পারা যায় ছবি তুলে ফেলতে হবে। তুললামও। অনেক ছবি তুলতে পারলাম। যা পাচ্ছি তুলছিই। লাইব্রেরীর ছবি তুলতে গিয়ে লাইব্রেরিয়ান যখন লাঞ্চ আওয়ারে বের হলেন, তখনই তাঁর অ্যাসিস্ট্যান্ট কে পটিয়ে লাইব্রেরীর একটি ছবি তুলে ফেললাম। তেমন কোন মজার ঘটনা ঘটেনি, কিন্তু নার্ভাস ছিলাম মেয়েদের ভয়ে। মেয়েদের ভয়ে স্টাডিরুমের পুরো ছবি তুলতে পারিনি। কোন মতে তুলে এসে পড়েছি।



ইমরানের তোলা তার ক্যাম্পাসের ছবিগুলো

ছবিতে আমাদের ক্যান্টিনের বাইরের বি-শা-ল লম্বা বারান্দা দেখা যাচ্ছে। এখান দিয়ে সোজা হেঁটে ডানেও লম্বা বারান্দা আছে।

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A10.jpg


২, ৩, ৬, ৭, ৯ ও ১০ নং ছবিতে ৪র্থ তলার ক্যান্টিনের বিভিন্ন অংশ দেখা যাচ্ছে। ক্যান্টিনের সাথেই ইনডোর গেমস- টেবিল টেনিস এবং ক্যারাম বোর্ড খেলার জায়গা।

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A15.jpg


ছবিতে আমি
http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A18.jpg


ছবিতে লাইব্রেরী।

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A20.jpg


ছবিতে আমাদের স্টাডি রুম। তখন সব মেয়েরা ছিলো, তাই ভালো মত তুলতে পারিনি ছবিটা। blushing

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A21.jpg

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A23.jpg

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A24.jpg


ছবিতে আমাদের কম্পিউটার ল্যাব।

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A33.jpg

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A34.jpg

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A36.jpg


ছবিতে আমাদের দোতালার করিডোর এর একাংশ। নাক বরাবর রুম টা ক্লাসরুম, বাকি গুলো ফ্যাকাল্টি মেম্বারস রুম।

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A37.jpg


ছবিতে আমাদের একটি ক্লাস। দরজা খোলার ব্যবস্থা করতে না পারায় বাইরে দরজার ছোট্ট গ্লাস দিয়ে তোলা ছবি।

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A39.jpg


১৩ ও ১৪ নং ছবি আমাদের দোতালার করিডোর

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A40.jpg

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/A41.jpg


ক্যাম্পাসে ঘনিষ্ঠ বন্ধুরা

http://i1112.photobucket.com/albums/k493/sopn2sa/Imran%20Tushar/AA.jpg



কেমন লাগল আজকের পর্বটি তা এখানে অবশ্যই জানাবেন।আপনাদের মতামতটুকু এই সিরিজের এগিয়ে চলায় অনেক অবদান রাখবে বলেই আমি বিশ্বাস করি।

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

বেশ গুছিয়ে উপস্থাপন করা হয়েছে। ভাল লাগল। smile

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

স্বপ্নীল ভাই ধন্যবাদ thumbs_up

You came a long way to find something that isn't out here. Don't you see? It's not about you. It's about them.

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

চমৎকার! ক্যাম্পাসটা আসলেই সুন্দর আর বেশ হাই ফাই! সবচে' ভালো লেগেছে যেটা, সেটা হল টেকনিক্যাল কথাবার্তা কম ছিল, ইমরানের ভার্সিটি লাইফটা সম্পর্কেই আগাগোড়া গল্প করা হয়েছে! thumbs_up এবং নেগেটিভ বিষয়গুলো পারতপক্ষে একদমই উঠে আসে নি, এসেছে ইমরান কতটা এনজয় করছে তার খুব পজেটিভ একটা চিত্র!http://blaise.us/emots/point.gif মনে হল নিজের ভার্সিটির জীবনে ফিরে গেলাম! এবং সে সময় কি কি পাই নি এসব কথা মনে আসল না, বরং কত্তো কিছু পেয়েছি, কিভাবে অনেক অ-নে-ক এনজয় করেছি, তাই মনে হতে লাগল!   dream

স্বপ্নিল একটা প্লাস পাবেই! তবে ইমরানের পোস্টের সাথে সাথেই সেও একটা রেপু অবশ্যই পাবে! ওর খাটনিটুকুর পর ওকে রেপু না দিলে গুরুতর অন্যায় হয়ে যায়! isee

তোমার আগের যেই সিরিজটা, "কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নিল";- মনে হয়েছিল এটা যদি কয়েকজন মিলে নেওয়া যেত, তাহলে অনেক বেশি বেশি লেখা উঠে আসত! আরও অনেক বেশি ফোরামিস্ট সম্পর্কে জানা যেত! কিন্তু পরে সেই ভাবনাটা বাতিলের খাতায় চলে গেল, কারন সেক্ষেত্রে তোমার সাক্ষাতকারের যেই স্পেশালিটি ও কোয়ালিটিটা আছে, যেই মজা আর সারপ্রাইজটা আছে, সেটা নষ্ট হবে!

কিন্তু এই সিরিজটায় আরও কেউ কেউ চাইলে অংশ নিতে পারে মনে হয়! যে ইস্টুডেন্ট, এমনকি যে টীচার সেও হতে পারে! তাহলে খুব দারুন একটা সমৃদ্ধ সিরিজ হয়ে যাবে! তুমি আরেকটা পোস্ট কর, সিরিজের লিস্ট দিয়ে, বরাবরের মতো! আর সেটাকেও স্টিকি করা হোক আগেরটার মতো! ফোরামে তুমি কিছু দারুন কাজ শুরু করেছ, এজন্য থাম্বস আপ thumbs_up! (মানে হইল গিয়া বুড়া আঙ্গুল তুললাম!)

আল্লাহুম্মা ইন্নাকা য়াফু্‌ঊন - (হে আল্লাহ আপনি ক্ষমাশীল)
তুহীব্বুল য়াফওয়া - (আপনি মাফ করতে ভালবাসেন)
ফা' ফু আন্নী - (আমাকে মাফ করে দিন।)

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

দারুণ একটা টপিক শুরু করেছেন thumbs_up thumbs_up thumbs_up সব ভার্সিটিগুলোর অবস্থা বের হয়ে আসবে এতে। কোথাও ভর্তি হতে চাইলে ডিসিশন নেয়া খুব সহজ হবে। আপনি আপাতত একটা লিস্ট করেন কে কোন ভার্সিটিতে পড়ে তা নিয়ে(তবে ইতিমধ্যে করে ফেলেছেন বোধহয়), তারপর এক এক করে পাবলিশ করেন big_smile প্রায় সবগুলো ভার্সিটিরই স্টুডেন্ট পাওয়া যাবে বোধহয়

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

IT অর্থাৎ ইমরান তুষার ভাইয়ের ক্যাম্পাসের বিবরন শুনে খুবই ভাল লাগল। নিঃসন্দেহে চমৎকার একটা টপিকের জন্য স্বপ্নিল ভাইকে রেপু । আর ইমরান তুষার ভাই কই ? কমেন্ট করলে তাকে রেপু প্রদান করা হবে ।  smile

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন স্বপ্নীল (২২-০৬-২০১১ ০৯:৫৭)

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

সবাইকে অনুরোধ,ইমরান ছেলেটা অনেক কষ্ট করেছে।তাই শুধু আমাকে একলা রেপু দিয়েন না,সাথে ইমরানকেও দিন প্লিজ।



অয়ন খান লিখেছেন:

বেশ গুছিয়ে উপস্থাপন করা হয়েছে। ভাল লাগল। smile

অভিযাত্রিক লিখেছেন:

স্বপ্নীল ভাই ধন্যবাদ thumbs_up


ত্রিনিত্রির রাশিমালা লিখেছেন:

IT অর্থাৎ ইমরান তুষার ভাইয়ের ক্যাম্পাসের বিবরন শুনে খুবই ভাল লাগল। নিঃসন্দেহে চমৎকার একটা টপিকের জন্য স্বপ্নিল ভাইকে রেপু । আর ইমরান তুষার ভাই কই ? কমেন্ট করলে তাকে রেপু প্রদান করা হবে ।  smile


ধন্যবাদ অয়ন,অভিযাত্রিক ও ফিরোজ তোমাদের তিনজনকে।

মুন লিখেছেন:

মনে হল নিজের ভার্সিটির জীবনে ফিরে গেলাম! এবং সে সময় কি কি পাই নি এসব কথা মনে আসল না, বরং কত্তো কিছু পেয়েছি, কিভাবে অনেক অ-নে-ক এনজয় করেছি, তাই মনে হতে লাগল!   dream


মুনপু,যাক,কিছুটা হলেও সেটা করতে পেরেছি ভেবে খুবই ভাল লাগছে  big_smile

মুন লিখেছেন:

স্বপ্নিল একটা প্লাস পাবেই! তবে ইমরানের পোস্টের সাথে সাথেই সেও একটা রেপু অবশ্যই পাবে! ওর খাটনিটুকুর পর ওকে রেপু না দিলে গুরুতর অন্যায় হয়ে যায়! isee


আমি ঠিক এটাই বলছিলাম "কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল" সিরিজের প্রত্যেকটা পর্বে।সবাই শুধু আমাকেই রেপু দেয়,অথচ আমার সাথে "অতিথি" ও কত কষ্ট করে,সেটা একবারও ভেবে দেখে না।এটা মোটেই মানতে পারি না।

মুন লিখেছেন:

কারন সেক্ষেত্রে তোমার সাক্ষাতকারের যেই স্পেশালিটি ও কোয়ালিটিটা আছে, যেই মজা আর সারপ্রাইজটা আছে, সেটা নষ্ট হবে!


একদম ঠিক।ভেরিয়েশন আনার জন্যই নতুন সিরিজ শুরু করলাম আর "কিছুক্ষণ উইথ স্বপ্নীল" সিরিজে একটু ব্রেক দিচ্ছি।

মুন লিখেছেন:

কিন্তু এই সিরিজটায় আরও কেউ কেউ চাইলে অংশ নিতে পারে মনে হয়! যে ইস্টুডেন্ট, এমনকি যে টীচার সেও হতে পারে! তাহলে খুব দারুন একটা সমৃদ্ধ সিরিজ হয়ে যাবে! তুমি আরেকটা পোস্ট কর, সিরিজের লিস্ট দিয়ে, বরাবরের মতো! আর সেটাকেও স্টিকি করা হোক আগেরটার মতো! ফোরামে তুমি কিছু দারুন কাজ শুরু করেছ, এজন্য থাম্বস আপ thumbs_up! (মানে হইল গিয়া বুড়া আঙ্গুল তুললাম!)

অনেক ধন্যবাদ,তোমাকে।শুধু কমেন্টের জন্যই তোমার রেপু পাওনা।এত সুন্দর করে কেউ কমেন্ট করে!!!যাই হোক,তোমার আইডিয়াটুকু মাথায় থাকল  thumbs_up

দক্ষিণের-মাহবুব লিখেছেন:

দারুণ একটা টপিক শুরু করেছেন thumbs_up thumbs_up thumbs_up সব ভার্সিটিগুলোর অবস্থা বের হয়ে আসবে এতে। কোথাও ভর্তি হতে চাইলে ডিসিশন নেয়া খুব সহজ হবে। আপনি আপাতত একটা লিস্ট করেন কে কোন ভার্সিটিতে পড়ে তা নিয়ে(তবে ইতিমধ্যে করে ফেলেছেন বোধহয়), তারপর এক এক করে পাবলিশ করেন big_smile প্রায় সবগুলো ভার্সিটিরই স্টুডেন্ট পাওয়া যাবে বোধহয়


নাহ,লিস্ট করি নাই।একদম হুট করে একেকটা পর্ব সাজাবো।ঘনঘন এরকম করব না।নাহলে সবাই ইন্টারেস্ট হারিয়ে ফেলবে।

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

দারুন টপিক.....স্বপ্নীলকে অনেক অনেক ধন্যবাদ এবং শুভকামনা...আরও এগিয়ে যাও এই দোয়াই করছি......

জাযাল্লাহু আন্না মুহাম্মাদান মাহুয়া আহলুহু......
এই মেঘ এই রোদ্দুর

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

ছবি-Chhobi লিখেছেন:

দারুন টপিক.....স্বপ্নীলকে অনেক অনেক ধন্যবাদ এবং শুভকামনা...আরও এগিয়ে যাও এই দোয়াই করছি......

ছবিপু,তোমাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ।আমার কোনো ঠিক ঠিকানা নাই।যতদিন আগ্রহ আছে ততদিন আমিও আছি।হুট করে আগ্রহ শেষ হয়ে যাবার সমস্যা আছে আমার  dontsee

১০

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

স্বপ্নীল লিখেছেন:
ছবি-Chhobi লিখেছেন:

দারুন টপিক.....স্বপ্নীলকে অনেক অনেক ধন্যবাদ এবং শুভকামনা...আরও এগিয়ে যাও এই দোয়াই করছি......

ছবিপু,তোমাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ।আমার কোনো ঠিক ঠিকানা নাই।যতদিন আগ্রহ আছে ততদিন আমিও আছি।হুট করে আগ্রহ শেষ হয়ে যাবার সমস্যা আছে আমার  dontsee

আল্লাহ যেন তোমার এই সুন্দর আগ্রহগুলো শেষ না করেন.......
অট: ইমরানকেও + দিয়েছি ।

জাযাল্লাহু আন্না মুহাম্মাদান মাহুয়া আহলুহু......
এই মেঘ এই রোদ্দুর

১১

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

সপ্নীল ভাইকে অনেক ধন্যবাদ এত সুন্দর একটা পোষ্টের জন্য। দারুন গুছিয়ে লিখেছেন।

এই গরমে স্বাক্ষর আর কি দিমু........

১২

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

ব্যতিক্রমধর্মী উদ্দ্যোগ ও লেখা ভাল লাগলো। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে। স্বপ্নীল ও ইমরান তুষার ভাইকে ধন্যবাদ।

১৩

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

খুব ই ভাল আর ব্যতিক্রমী পোষ্ট। এরকম আরো চাই। smile

জাগরণে যায় বিভাবরী ...

১৪

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

যখন টপিকটি পড়েছে বসের হাতে তখন ভাল না হইয়া যাইব কই?  smile
স্বপ্নীল ও ইমরান তুষার ভাইকে ধন্যবাদ। thumbs_up

ভাল সাক্ষাৎকার  wink

۞ بِسْمِ اللهِ الْرَّحْمَنِ الْرَّحِيمِ •۞
۞ قُلْ هُوَ اللَّهُ أَحَدٌ ۞ اللَّهُ الصَّمَدُ ۞ لَمْ * • ۞
۞ يَلِدْ وَلَمْ يُولَدْ ۞ وَلَمْ يَكُن لَّهُ كُفُوًا أَحَدٌ * • ۞

১৫

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

দারুন একটা বিষয় এবং দারুন একটা সিরিজ। স্বপ্নীল ও ইমরান তুষারকে ধন্যবাদ ।

১৬

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

প্রথমেই ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি দেরি করে উত্তর দেয়ার জন্য। ক্লাস করে কেবল বাসায় আসলাম।

এবার অন টপিক। স্বপ্নীল ভাই আমাকে যখন এই টপিকের কথা বললেন, তখন থেকেই অনেক উত্তেজিত ছিলাম। http://i180.photobucket.com/albums/x294/public_account_of_lin/emoticonz/sb/karate.gif কিন্তু কাজ করতে গিয়ে আসলেই অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। আমার তোলা ছবি গুলো আপলোড করতেই পারছিলাম না। প্রথমদিনেই গেল আমার নেট। এরপএর তার পরিবর্তন করাতে লাগলো একদিন। তারপর ক্লাস আর ফ্যামিলি প্রবলেম। সাথে লোডশেডিং ফ্রি। hairpull তো কষ্ট হলেও স্বপ্নীল ভাইয়ের কথাই ফলেছে, সবার মন্তব্য পড়ে স-ব কষ্ট মুছে গিয়েছে। http://i180.photobucket.com/albums/x294/public_account_of_lin/emoticonz/sb/lala.gif

মুন লিখেছেন:

চমৎকার! ক্যাম্পাসটা আসলেই সুন্দর আর বেশ হাই ফাই! সবচে' ভালো লেগেছে যেটা, সেটা হল টেকনিক্যাল কথাবার্তা কম ছিল, ইমরানের ভার্সিটি লাইফটা সম্পর্কেই আগাগোড়া গল্প করা হয়েছে! thumbs_up এবং নেগেটিভ বিষয়গুলো পারতপক্ষে একদমই উঠে আসে নি, এসেছে ইমরান কতটা এনজয় করছে তার খুব পজেটিভ একটা চিত্র!http://blaise.us/emots/point.gif মনে হল নিজের ভার্সিটির জীবনে ফিরে গেলাম! এবং সে সময় কি কি পাই নি এসব কথা মনে আসল না, বরং কত্তো কিছু পেয়েছি, কিভাবে অনেক অ-নে-ক এনজয় করেছি, তাই মনে হতে লাগল!   dream

মুনাপু, আমি আসলে তাই-ই চেয়েছিলাম। আমি ভার্সিটি লাইফ উপভোগ করতে চাই, ভোগ নয়। http://i180.photobucket.com/albums/x294/public_account_of_lin/emoticonz/sb/happy.gif

মুন লিখেছেন:

স্বপ্নিল একটা প্লাস পাবেই! তবে ইমরানের পোস্টের সাথে সাথেই সেও একটা রেপু অবশ্যই পাবে! ওর খাটনিটুকুর পর ওকে রেপু না দিলে গুরুতর অন্যায় হয়ে যায়! isee

ত্রিনিত্রির রাশিমালা লিখেছেন:

IT অর্থাৎ ইমরান তুষার ভাইয়ের ক্যাম্পাসের বিবরন শুনে খুবই ভাল লাগল। নিঃসন্দেহে চমৎকার একটা টপিকের জন্য স্বপ্নিল ভাইকে রেপু । আর ইমরান তুষার ভাই কই ? কমেন্ট করলে তাকে রেপু প্রদান করা হবে ।  smile

স্বপ্নীল লিখেছেন:

সবাইকে অনুরোধ,ইমরান ছেলেটা অনেক কষ্ট করেছে।তাই শুধু আমাকে একলা রেপু দিয়েন না,সাথে ইমরানকেও দিন প্লিজ।

ছবি-Chhobi লিখেছেন:

অট: ইমরানকেও + দিয়েছি ।

শান্ত বালক লিখেছেন:

ব্যতিক্রমধর্মী উদ্দ্যোগ ও লেখা ভাল লাগলো। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে। স্বপ্নীল ও ইমরান তুষার ভাইকে ধন্যবাদ।

ইলিয়াস লিখেছেন:

দারুন একটা বিষয় এবং দারুন একটা সিরিজ। স্বপ্নীল ও ইমরান তুষারকে ধন্যবাদ ।

অনেক ধন্যবাদ আপনাদের সবাইকে। hug

আর স্বপ্নীল ভাই, আপনাকে অনেক অনেক অনেক ধন্যবাদ আমার এত সমস্যা মুখ বুজে সহ্য করার জন্য।  hug আপনার এই কাজের প্রতি রইলো অনেক অনেক অনেক শুভ কামনা। http://i180.photobucket.com/albums/x294/public_account_of_lin/emoticonz/sb/vic.gif

ইমরান তুষার'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৭

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

কি মুশকিলরে বাবা, রেপু দেওয়ার জন্য ইমরানকে রীতিমতোন সার্চ লাইট দিয়ে খুজাখুজি করতে হচ্ছে! waiting তোমাকে খুজতে এই টপিকে আমার কয়েকবার ঢু মারা লাগছে!  waiting

kidding যাই হোক, তোমার ভার্সিটি জীবন ত মনে হচ্ছে খুবই মজার...। বটগাছে এক আধটু শেয়ার করো না কেন হু?  dream

আল্লাহুম্মা ইন্নাকা য়াফু্‌ঊন - (হে আল্লাহ আপনি ক্ষমাশীল)
তুহীব্বুল য়াফওয়া - (আপনি মাফ করতে ভালবাসেন)
ফা' ফু আন্নী - (আমাকে মাফ করে দিন।)

১৮

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

মুন লিখেছেন:

কি মুশকিলরে বাবা, রেপু দেওয়ার জন্য ইমরানকে রীতিমতোন সার্চ লাইট দিয়ে খুজাখুজি করতে হচ্ছে! waiting তোমাকে খুজতে এই টপিকে আমার কয়েকবার ঢু মারা লাগছে!  waiting

হ আমারও। ৪ বারের বার পেলাম ইমরানকে।

۞ بِسْمِ اللهِ الْرَّحْمَنِ الْرَّحِيمِ •۞
۞ قُلْ هُوَ اللَّهُ أَحَدٌ ۞ اللَّهُ الصَّمَدُ ۞ لَمْ * • ۞
۞ يَلِدْ وَلَمْ يُولَدْ ۞ وَلَمْ يَكُن لَّهُ كُفُوًا أَحَدٌ * • ۞

১৯ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ইমরান তুষার (২২-০৬-২০১১ ২০:২৫)

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

মুন লিখেছেন:

কি মুশকিলরে বাবা, রেপু দেওয়ার জন্য ইমরানকে রীতিমতোন সার্চ লাইট দিয়ে খুজাখুজি করতে হচ্ছে! waiting তোমাকে খুজতে এই টপিকে আমার কয়েকবার ঢু মারা লাগছে!  waiting

kidding যাই হোক, তোমার ভার্সিটি জীবন ত মনে হচ্ছে খুবই মজার...। বটগাছে এক আধটু শেয়ার করো না কেন হু?  dream

সাইদুল ইসলাম লিখেছেন:

হ আমারও। ৪ বারের বার পেলাম ইমরানকে।

হে হে হে ...... সরি, বাসায় আসতে দেরি হয়ে গেছে, তাই।
হুম মুনাপু, বটগাছ বিভাগে এখনও আমার পোস্ট পরেনি, বুদ্ধি দেয়ার জন্য ধন্যবাদ। http://i180.photobucket.com/albums/x294/public_account_of_lin/emoticonz/sb/yay.gif

ইমরান তুষার'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

২০ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন স্বপ্নীল (২৩-০৬-২০১১ ০২:২১)

Re: আমি এবং আমার ক্যাম্পাস : পর্ব ১ : অতিথি: ইমরান তুষার

আপডেট: মূল টপিকটিতে আরো কিছু জিনিস সংযোজন করা হল।


আশরাফুল আলম,শান্ত বালক,নাকিব,সাইদুল,ইলিয়াস ভাই, ইমরান তুষার -সবাইকে ধন্যবাদ মতামত জানানোর জন্য।পরবর্তি পর্বটুকু হুট করেই আসবে।আগে-ভাগে কোন প্ল্যান করে আসবে না,তবে কয়েকটা দিন গ্যাপ দিয়ে দিব,নাহলে সবাই আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে।