সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন তার-ছেড়া-কাউয়া (২১-০৬-২০১১ ০৯:৪২)

টপিকঃ মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

বিশাল রুমের আরামদায়ক উষ্ণতায়, একটি আরামদায়ক আসনে বসে আছে অ্যাসিস্টেন্ট প্রফেসর মিমো। পুরো নাম মিমো আজো। রুমটি হলো ইলেকট্রনিক্স ডিপার্টমেন্টের হেড, প্রফেসর ম্যাক হিড এর রুম। এই মুহুর্তে প্রফেসর ম্যাক হিড সমানে পায়চারী করে চলেছে। মিমো বুঝলো যে, আজকে নির্ঘাত তার উপর কেয়ামত নাজিল হবে। কারণ হেভী ডিউটি ঝারী মারার আগেই ম্যাক সাহেব এরকম করেন।
প্রফেসর ম্যাক, রুমের স্বচ্ছ গ্লাস প্যানেলগুলো অস্বচ্ছ মুডে দিয়ে দিলেন এবং মিমোর সামনের চেয়ারে এসে বসলেন। গলাটা যতটা সম্ভব স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করে বললেন,
-    মিমো, তুমি আমাদের এই ইউনিভার্সিটিতে কতদিন হলো যোগ দিয়েছো?
-    ১ বছর ১১ মাস ২৬ দিন।
উত্তর শুনে ম্যাকের ভ্রুগুলো কুচকে গেলো এবং  সে রাগে ফেটে পড়লো,
-    ঘন্টা আর মিনিটের হিসেবটাও দিয়ে দিতা। ঐটা বাকী রেখেছো কেন? এখনো তোমার জয়েন করার দুইবছর পুরো হয় নাই , আর এর মধ্যে, এটা নিয়ে দুই দুইবার তুমি আমাকে আর আমার ডিপার্টমেন্টকে ঝামেলায় ফেলে দিয়েছো। জয়েন করার পর তুমি ঝামেলা বাধালে তোমার রোবটিক্সের ফোরথ ল নিয়ে। আর এবার ঝামেলা বাধিয়েছো তোমার ন্যানো ....ওয়াটএভার শিট (বিষ্ঠা) নিয়ে।
-    কিন্তু স্যার   রোবটিক্সের ফোর্থ-ল টা ঠিক ছিলো। আমি আপনাকে কয়েকটা সিমুলেশন দেখিয়েছিলাম। তখন আপনিই আমাকে ইন্টারন্যাশনাল সায়েন্স কনফারেন্সে এটার উপর প্রেসেন্টেশন করতে বলেছিলেন।
-    হ্যা বলেছিলাম। বিশাল একটা ভুল করেছিলাম। সায়েন্স একাডেমীর বিখ্যাত প্রফেসররা এটা নিয়ে অনেক হাসি-তামাশা করে এটাকে বাতিল রায় দিয়েছিলো। আর আমার ডিপার্টমেন্টকে সতর্কবার্তা পাঠিয়েছিলো ইউনিভার্সিটি কমিশন।
-    স্যার, তারা যে সঠিক ছিলো তার গ্যারান্টি কি? তাছাড়া এবারের কাজটার উপরে একমাস আগে যখন এখানে একটা প্রেসেন্টেশন করলাম তখনও কিন্তু আপনি কিছু বলেননি আমাকে।
-    হ্যা, বলিনি। কারণ তখনও আমাকে সরকার থেকে লাল-চিঠি পাঠায়নি। কিন্তু গতকাল আমাকে তারা আমাকে লালচিঠি পাঠিয়েছে এবং বলেছে এটা নিয়ে যেন আর তুমি কোন তামাশা খাড়া না কর। যদি কর, তাহলে আমাদের ফান্ডিং বন্ধ করে দিবে সরকার।
-    কিন্তু স্যার, এটা খুবই ইম্পোর্টেন্ট একটা কাজ। এটার প্রেসেন্টেশন আমাকে এবারের সায়েন্স কনফারেন্সে করতেই হবে।
-    (গর্জে উঠলেন ম্যাক) করো। সেক্ষেত্রে তোমাকে বরখাস্ত করা হবে এখান থেকে।
-    (গম্ভীর স্বরে) ঠিক আছে স্যার। আমি আমার ইস্তফার চিঠিটা দিয়ে যাচ্ছে একটু পরে। কিন্তু আমি কনফারেন্সে যাবোই।
প্রফেসর ম্যাক এবার কিছুটা হতাশ হলেন। এই ছেলেটা বড়ই একরোখা। ছেলেটাকে অত্যন্ত স্নেহ করেন ম্যাক। তাদের প্রত্যন্ত অঞ্চলে অবস্থিত এই বিশ্ববিদ্যালয়ে মিমোর মত শিক্ষক পাওয়াও মুশকিল। এবার ম্যাক কিছুটা নরম স্বরে বললেন,
-    শোনো মিমো। সরকারের একটা বড় প্রজেক্ট তোমার প্রেসেন্টেশনের কারণে আটকায় যাবে। পাবলিক ক্ষ্যাপায় লাভ কি বলো? তাছাড়া প্রজেক্টটা বেশ ভালো বলেই মনে হচ্ছে। অনেক টাকার ইনভেসমেন্ট।
-    স্যার, প্রজেক্ট বড় হলেই যে ভালো হবে তার গ্যারান্টি কি? ১৫০ বছর আগে যখন আমাদের দেশের উপকূল অঞ্চলে প্রথম রিনিউয়্যাবল পাওয়ার প্ল্যান্টটা বসানো হয়েছিলো, তখন সেটা নিয়ে অনেক লাফালাফি করেছিলো সরকার। আল্টিমেট রেজাল্ট ছিলো, শুধুমাত্র ভুল মেসারমেন্টের কারণে স্থাপিত প্রপেলারগুলো যথেষ্ট এনার্জি জেনারেট করতে পারতো না। পরেতো পুরো প্রজেক্ট এলাকাই সমুদ্রের তলে চলে গিয়েছিলো। এইটা বাদ দ্যান। বছর ৩০ আগে, আমার মামা রমিজ যখন স্মার্টিয়া টেকনোলজীর বিরুদ্ধে অনেক লেখালিখি শুরু করলো, তখনও সরকার থেকে হ্যান-কারুঙ্গা, ত্যান-কারুঙ্গা মেলা কথা বলেছিলো। আল্টিমেট রেজাল্ট হচ্ছে স্মার্টিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়া। সরকার যে সবসময় ঠিক করবে তাতো ঠিক না স্যার।
-    বুঝলাম। কিন্তু আমাদের দিকটাও তোমার ভেবে দেখা দরকার। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের এই ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রনিক্স ডিপার্টমেন্ট, সরকারের ফান্ডিং ছাড়া চালানো সম্ভব না।
-    আমি বুঝেছি স্যার। আমি বললামই তো যে, আমি ইস্তফা দিয়ে দিচ্ছি।
প্রফেসর ম্যাক এবার একটু সময় নিলেন। এই ত্যাড়া মালকে সোজা করা এককথায় অসম্ভব। তাছাড়া বান্দর একদিনে মাথায় ঊঠে নাচেনা, দিনের পর দিন লাই দিলেই একদিন মাথায় উঠে নাচে। এই বাদর মিমোও এখন তার মাথায় উঠে নাচছে। কিন্তু কিছু করার নাই। নাচতে দিতে হবে। কারণ এই বাদরটাকে ছাড়া তার খেলাও(ডিপার্টমেন্ট) যে জমবেনা। একটু গলা খাকাড়ি দিয়ে বললেন,
-    শোনো মিমো, এই মর্মে আমাকে একটা অ্যাপ্লিকেশন দাও যে, ওরগ্যানিক খাবার খেয়ে তোমার ডায়রিয়া হয়েছে বিধায় তুমি শয্যাশায়ী, থুক্কু ,টয়লেটশায়ী। অতএব আগামী তিনদিন তুমি অফিসে আসতে পারবেনা। আর অ্যাপ্লিকেশন সাবমিশনের ডেট দিয়ো গতকালের। তাহলেই হবে (চোখেমুখে একটা হাসি খেলে যায়)।
-    (হেডের দিকে কৃতজ্ঞ দৃষ্টি দিয়ে) ধন্যবাদ স্যার। অনেক ধন্যবাদ।
-    তুমি যে কাজে হাত দিয়েছো তাতে মনেহয় আমার আরেকটু হেল্প তোমার লাগবে। কারণ যেই মুহুর্তে কেন্দ্র জানবে ,যে তুমি চিঠি পাওনি। সেই মুহুর্ত থেকে তোমার উপর নানাধরনের হয়রানি শুরু করবে। আমার ধারণা, সবার আগে তোমার ক্রেডিট কার্ড বন্ধ করে দেয়া হবে। কাজেই আমারটা নিয়ে যাও। কাজে দিবে।
মিমো এবার কথা বলার ভাষা হারিয়ে ফেললো। এই লোকটা ওকে স্নেহ করে তা ও জানে, কিন্তু এত বেশি, তা জানতো না।
-    স্যার....
-    কিছু বলার দরকার নেই মিমো। দুই বছর আগেও তুমি ঠিক ছিলে, এবারও ঠিক আছো। যাও, তোমার যেটা করার দরকার সেটা কর। বেস্ট অফ লাক।
(চলবে)

মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-২
মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-৩

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

চলুক......। এবারের শুরুটা অনেক গোছানো লাগছে।  আবারও আপনার লেখা পেয়ে ভালো লাগলো।

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

রেজওয়ানুর লিখেছেন:

চলুক......। এবারের শুরুটা অনেক গোছানো লাগছে।  আবারও আপনার লেখা পেয়ে ভালো লাগলো।

   

ধন্যবাদ। একটা অদ্ভুত জিনিস হইলো যে, আমি সায়েন্স ফিকশান জাতীয় কিছু লিখলেই ক্যান জানি মনে হয় যে, আপনে সবার আগে কমেন্ট করবেন। এন্ড হইলোও তাই। এইবারের লেখাটা রয়েসয়ে লিখবো। সময় নিয়ে লিখবো। আমার ধারণা একটা অ্যাকশান-প্যাকড কাহিনী বেরিয়ে আসবে এইবার

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

দারুন লিখেছেন কাউয়া ভাই
দ্রুত পরের পর্ব চাই ।

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

ভাল লাগল... চলতে থাকুক............

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

মোঃজাবেদ হোসেন লিখেছেন:

দারুন লিখেছেন কাউয়া ভাই
দ্রুত পরের পর্ব চাই ।

ধইন্যবাদ। দ্রুত হবে না।

অদ্ভূত সেই ছেলেটি লিখেছেন:

ভাল লাগল... চলতে থাকুক............

ধইন্যবাদ  big_smile

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

এইডা অনেক ভালাই হইতেছে, আগায়া যান  big_smile big_smile

সারিম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

সারিম লিখেছেন:

এইডা অনেক ভালাই হইতেছে, আগায়া যান  big_smile big_smile

্ধইন্যবাদ  big_smile মিমো আসবে ধীরে  big_smile

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

মাথা আউলাইয়া যাওয়ার কারণে পড়তে পারলাম না পুরোটা। অর্ধেক পড়েই ক্ষ্যান্ত দিতে হইল sad তবে দোষ লেখকের না দোষ পিয়নের দেয়া টেটলি চায়ে। চা খেতে গিয়া মাথা নষ্ট angry

১০

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

দক্ষিণের-মাহবুব লিখেছেন:

মাথা আউলাইয়া যাওয়ার কারণে পড়তে পারলাম না পুরোটা। অর্ধেক পড়েই ক্ষ্যান্ত দিতে হইল sad তবে দোষ লেখকের না দোষ পিয়নের দেয়া টেটলি চায়ে। চা খেতে গিয়া মাথা নষ্ট angry

২য় পর্ব পড়ার সময় টেটলি চা ব্যান করা হোক  angry

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১১

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

চাইন-জ পিকচন মাথায় ঢুকে না sadকিন্তু এটা কেমনে যেন ঢুকে গেলো  big_smile আগে সম্মাননা লন। পরে মন্তব্য করছি; পরের পর্ব আগে পইরা লই big_smile

আমাকে কোথাও পাবেন না।

১২

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

পলাশ মাহমুদ লিখেছেন:

চাইন-জ পিকচন মাথায় ঢুকে না sadকিন্তু এটা কেমনে যেন ঢুকে গেলো  big_smile আগে সম্মাননা লন। পরে মন্তব্য করছি; পরের পর্ব আগে পইরা লই big_smile

পিলাসের লাইগা ধইন্যবাদ পলাশ ভাই  big_smile পরের পর্বখানও মাথায় ঢুকবো ইনশাল্লাহ  big_smile

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৩

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

পরের পর্বখানও মাথায় ঢুকবো ইনশাল্লাহ

অধ্যেক পইড়া চইলা আইছি। বাকিটা বিকালে পড়বো  smile

আমাকে কোথাও পাবেন না।

১৪

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

পলাশ মাহমুদ লিখেছেন:
তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

পরের পর্বখানও মাথায় ঢুকবো ইনশাল্লাহ

অধ্যেক পইড়া চইলা আইছি। বাকিটা বিকালে পড়বো  smile

বেস্ট অফ লাক পলাশ ভাই

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৫

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

অসম্ভব সুন্দর।  ফ্রি সায়েন্স ফিকশান পড়তেছি হুররে.. yahoo yahoo

এই গরমে স্বাক্ষর আর কি দিমু........

১৬

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

বেস্ট অফ লাক পলাশ ভাই

এইমাত্র দ্বীতিয় পর্ব পরে শেষ করে উপলদ্ধি করলাম প্রথম পর্ব আমার মনে নাই। আবারো ব্যাক করে পড়লাম। ভালোই তো লিখছেন। তবে ২য় পর্বটা জাকানাকা big_smile

আমাকে কোথাও পাবেন না।

১৭

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

সবার এত মজার মজার মন্তব্য পড়তে পড়তে হঠাৎ মনে হইলো মন্তব্যগুলো সবই পড়া শেষ, বাট, এইমাত্র মনে হলো আমিতো গল্পই পড়ি নাই...

আমার কি মাথা ঘুড়লো, নাকি মন ঘুড়লো ঠিক বুঝতে পাড়লাম না...

তয়, সবার মন্তব্য পড়ে মনে হলো ভালই হইছে... তাই গল্প পড়ার আগেই বলি "আগাইয়া যান, আমরা প্রজন্ম মহল আপনার লেখা পড়ার অপেক্ষায় আছি (যদিও আমি আছি কিনা তাতে ঘোড় সন্দেহ আছে...তয় মন খারাপ কইরেন না, সবগুলাই পইরা লমু, হু...  thumbs_up)"

কিছুটা সময়-ই, কিছুটা অন্যরকম...

১৮

Re: মাটির মানুষ (আবারো সায়েন্স ফিকশান) পর্ব-১

asraful লিখেছেন:

অসম্ভব সুন্দর।  ফ্রি সায়েন্স ফিকশান পড়তেছি হুররে.. yahoo yahoo

ধইন্যবাদ  big_smile পয়সা খরচ কইরা অবশ্য কেউ আমার সায়েন্স ফিকশান পড়বো না  big_smile

পলাশ মাহমুদ লিখেছেন:

এইমাত্র দ্বীতিয় পর্ব পরে শেষ করে উপলদ্ধি করলাম প্রথম পর্ব আমার মনে নাই। আবারো ব্যাক করে পড়লাম। ভালোই তো লিখছেন। তবে ২য় পর্বটা জাকানাকা big_smile

সাত মিনিট আগে কইলেন যে, "এতো দেখি একশন ফ্লিম কাহিনী khelbona" আর এহন কইতাছেন যে ২য় পর্ব ভালু হইছে?  কাহিনী কি বুঝলাম না  thinking

পথকলি লিখেছেন:

(যদিও আমি আছি কিনা তাতে ঘোড় সন্দেহ আছে...তয় মন খারাপ কইরেন না, সবগুলাই পইরা লমু, হু...  thumbs_up

হাজমোলা খায়া নিয়া তারপর পইড়েন, নাইলে কাহিনী হজম করতে কষ্ট হইবো

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(