টপিকঃ ছোট গল্প: পুনর্ভব

ছোট গল্প: পুনর্ভব


প্রায় প্রতিদিনই তো রাত করে আমায় ফিরতে হয়। মধ্যরাতের শেষ বাসটিকে বিদায় জানিয়ে মিনিট পনেরোর পথ হাঁটছিলাম। জনবিরল রাস্তা; দু’এক জন পথচারি থাকেই তো। অথচ সেদিন কাউকে পেলাম না, আশ্চর্য! বাতিগুলোকে একটু ম্লান মনে হচ্ছে...কিন্তু তাই বা হয় কী করে? এবারে চোখটা দেখাতেই হবে আর কী ভেবে ভেবে এগুচ্ছিলাম। হঠাৎ মাটি ফুঁড়েই যেন একজন সঙ্গী পেয়ে গেলাম। বুকটা অজানা কোনো একটা অস্থিরতা কাটিয়ে উঠে যেন স্বস্তি খুঁজতে চাইল। শীতের নিশুতি রাত; আপাদমস্তক গরম কাপড়ে মোড়া বলে ঠিক বুঝলাম না আমার কোনো প্রতিবেশি কিনা। আমি যেদিকে হাঁটছি ঠিক সেদিকেই যাচ্ছে। বাহ্‌! ভালোই হলো ভাবলাম। তখনো জানতাম না কী অপেক্ষা করছে আমার জন্যে।

হাঁটতে হাঁটতেই দেখলাম আমার সঙ্গী পথচারিটি দ্রুত ব্যবধান কমিয়ে আনছে। মনে হচ্ছে হাঁটার প্রতিযোগিতা বুঝি! আমিও কী মনে করে একটু গতি বাড়িয়ে দিলাম। চোখের কোণা দিয়ে দেখলাম: তারও গতি বেড়েছে। এহে! এই রাতবিরেতে খেলতে চাও? ঠিক আছে, আমিও নাছোড়বান্দা। দ্রুত পা চালালাম...এখন প্রায় ছুটছি...সেও ছুটছে। তখনি ভুলটা করে ফেললাম-ডানে মোড়টা না নিয়ে সোজা যেদিকে পরিত্যক্ত একটা ইস্কুল আছে সেদিকে পা বাড়ালাম। মিনিট পাঁচেক ছোটার পর হুঁশ ফিরে এল-আমি এদিকে কেন? আজব! চারপাশে তাকাতেই গা হিম হয়ে গেলো। প্রায় বিশ গজ দূরে ‘সে’ ও দাঁড়িয়ে আছে! ঠিক একি ভঙ্গি-আপাদ-মস্তক আমার কাপড়ে মোড়া, আমার চোখজোড়া যেন সেখানে বসানো, চশমাটাও আমারি...ঠান্ডার মধ্যেও একটা ঘামের বিন্দু শিরদাঁড়া বেয়ে নামতে চাইছে। এ যে আমিই ...শুধু তার মুখে লেগে থাকা একখানা ক্রুর হাসি ছাড়া। এমন আতান্তরে কখনো পড়িনি; পায়ের নীচে ক্ষয়াটে ধূসর মাঠ যেন দুলে উঠলো। চোখটা একটু বুজতেই যেন অতীতের কিছু দৃশ্য শাঁ শাঁ উড়ে গেল...এই একি মাঠ, ভয়ার্ত একটা মানুষের মুখ...ধীরে ধীরে অনুপ্রবেশ...অস্তিত্বের দখলদারিত্বে হেরে যেতে থাকা বিবর্ণ একটা সত্তা। আচমকা সব মনে পড়ে গেলো...অজানা থেকে এসেছিলাম...কৌতুহলে মানুষ হতে চেয়েছিলাম। অজান্তে শিকার করেছিলাম উদাসীন একটা মন কে। কে জানত তার বুকে এতটা কষ্ট ছিল! এ ক’টা দিন তাঁর মতই হতে চেয়েছিলাম, কিন্তু এতটা গভীর ক্ষত শুধু মানুষই বয়ে বেড়াতে পারে। বুঝতেই পারিনি ধীরে ধীরে পরাজিত হচ্ছিলাম! ঝুঁকে পড়া সেই আগুন্তকের ক্রুর হাসিটা হটাৎ কোমল হয়ে যায়! নির্নিমেষ তাকিয়ে থেকে ক্ষমা করে দেয় বুঝি। মানুষই বুঝি পারে এতটা দুর্বোধ্য হতে! এরপর আর কিছু মনে নেই আমার!

--------------------------------------------------------------***************-------------------------------------------------------------------------

ইস্কুলের মাঠে হঠাৎ নিজেকে আবিষ্কার করলাম! বন্ধ হাতঘড়ির রেডিয়াম আলোয় তারিখটা দেখে আঁতকে উঠলাম! ইয়া আল্লাহ! ছয়মাস সাতদিন কোথা দিয়ে গেলো!  কিছুই বুঝতে পারছি না। ধুলো ঝেড়ে দিক ঠিক করে হাঁটতে থাকলাম। একটা অন্য রকম বিষাদে মনটা ভরে আছে। কিন্তু কেন? মন বলছে সব জানি, কিন্তু কিছুই মনে পড়ছে না! আশ্চর্য!!


----উদাসীন
২২।০২।১১

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

উদাসীন লিখেছেন:

ছয়মাস সাতদিন কোথা দিয়ে গেলো!

এত দিন কোথায় গেলো তা আমরাও বুঝতে পারি নাই  whats_the_matter

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

এ্যাবস্ট্রাক্ট গল্প...........  thinking

এম. মেরাজ হোসেন
IQ: 113
http://www.iq-test.cc/badges/4774105_3724.png

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

বাংলা সিনেমার কথা মনে পড়িয়া গেল।

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

ভুতের গল্প নাকি...?

রাহাত'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nd 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

দ্যা ডেডলক লিখেছেন:
উদাসীন লিখেছেন:

ছয়মাস সাতদিন কোথা দিয়ে গেলো!

এত দিন কোথায় গেলো তা আমরাও বুঝতে পারি নাই  whats_the_matter

হা হা ধন্যবাদ। আসলে এখানে দু'টো সত্তা আছে। শেষের জনই আসল দেহের মালিক; ফিরে পেতে তার কিছু সময় লেগে যায়। কিছু মনে পড়ে পড়ে করেও আদতে কিছুই মনে পড়ে না।

মিলন লিখেছেন:

বাংলা সিনেমার কথা মনে পড়িয়া গেল।

ঠিক বুঝলাম না  surprised কীসে মিল পেলেন??

রাহাত লিখেছেন:

ভুতের গল্প নাকি...?

ঐ রকমের আর কী..কিছুটা রহস্য আছে।

সবাইকে ধন্যবাদ।

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

উদাসীন লিখেছেন:

কে জানত তার বুকে এতটা কষ্ট ছিল!

  ghusi

ভুত বেচারা আর মানুষ ধরবেনা , শিক্ষা হয়ে গেসে ।

"I know not with what weapons World War III will be fought, but World War IV
will be fought with sticks and stones."
    -Albert Einstein

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

এইটা বুঝতে বিভিন্ন সময়ে ৩ বার পড়তে হয়েছে। তবুও বুঝলাম কি না কে জানে  wink প্রথম লিংকটা ৩য় বার পড়ার সময়ে চোখে পড়লো -- এটা পড়ে মনে হল গল্প বুঝেছি।  smile

পেছনের সহযাত্রীকে খুঁজে পাওয়াটা অবাক করেছে, শীতের রাতে জড়োসর হয়ে বাসায় যাওয়ার তাড়া থাকার কথা। একবার ভাবলাম প্রথম আর দ্বিতীয় প্যারাতে দুইটি অস্তিত্ব মনোলগ দিয়েছে হয়তো; কিন্তু তা নয় - কারণ সেক্ষেত্রে ফলো করে মাঠে যাবে না।

যা হোক, আপনার লেখার বিশেষ বৈশিষ্টটা দেখে মনে মন হাসলাম - হুঁ.. হুঁ.. উদাসীন ভাই কি আর এটা মিস করবে! হোক কবিতা কিংবা গল্প -- এর ভেতরে "উদাসীন' কথাটা থাকবেই।

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

ধন্যবাদ শামীম ভাই  blushing
আমি থাকবো আর 'উদাসীন' ব্যাটা থাকবে না তা কী করে হয়  hehe

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১০

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

এ গল্প আরো ডিটেল হলে ভাল হতো। গল্পে আকার ইঙ্গিতের বদলে পাঠক ব্যাখ্যা চায়, পরিস্থিতিটা ফিল করতে চায়। খুব ভাল সাবজেক্ট।  clap

ভেতরে  বাইরে আগুন
তবু এ হৃদয় বড় উচাটন
কখন আসবে ফাগুন

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১১

Re: ছোট গল্প: পুনর্ভব

ভালোই হয়েছে।

jahidul raju