সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন সীমান্ত ঈগল (মেহেদী) (০৭-০১-২০১১ ২২:৪১)

টপিকঃ ইভটিজিং প্রতিরোধে ইসলাম

আজকাল পত্রিকা খুললেই দেখা যায় ইভটিজিং কারণে প্রাণ দিল অমুক কিশোরী, অমুক শিক্ষার্থী............. সরকার ও প্রসাশন ইভটিজিং প্রতিরোধে একের পর এক পদক্ষেপ নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু তারপরও কিছুতেই দমছেনা ইভটিজাররা। বর্তমানে ইভটিজিং একটি অপ্রতিরোধ্য সামাজিক অপরাধের রুপ ধারণ করেছে।আসলে আমাদের বুঝা উচিত শুধুমাত্র মহান আল্লাহ তা'য়ালার প্রদত্ত শাসন ব্যাবস্থা ও তার অনুসৃত বিধানের মাঝেই কল্যাণ নিহিত রয়েছে। যদি সমাজে ও ব্যক্তিগত জীবনে সঠিকভাবে পর্দার/হিজাবের বিধান মানা হয়, তাহলে ইভটিজিং বলে কোন সমস্যাই থাকত না। আসুন দেখি ইভটিজিং রোধে ইসলাম কতটুকু কার্যকর.............!!!

## পর্দা/হিজাবের আলোচনায় মানুষ সাধারণত নারীদের পর্দার কথাই বলে থাকে। যা হোক পবিত্র কোরআন মাজীদে মহান আল্লাহ তা'য়ালা নারীদের পর্দার কথা আলোচনার আগে সূরা নূর এ বলেন-
"(হে নবী,) আপনি মু'মিন পুরুষদেরকে বলে দিন, তারা যেন তাদের দৃষ্টিকে (নিম্নগামী ও) সংযত করে রাখে এবং তাদের লজ্জাস্থানসমূহকে হেফাজত করে; এটাই (হচ্ছে) তাদের জন্যে উত্তম পন্থা; (কেননা) তারা (নিজেদের চোখ ও লজ্জাস্থান দিয়ে) যা করে, আল্লাহ তা'য়ালা সে সম্পর্কে পূর্ণাংগভাবে অবহিত রয়েছেন।" [সূরা নূর, আয়াত-৩০]

** নারীর প্রতি পুরুষের দৃষ্টি পড়লে কোন অসংগত ও নির্লজ্জ চিন্তা তার মনে এসে যেতে পারে। সেজন্যে মহান আল্লাহ তা'য়ালা উক্ত আয়াতে তার দৃষ্টিকে অবনত রাখতে বলেছেন।

## আবার সূরা নূর এর ৩১ নং আয়াতে বলেছেন-
"(হে নবী, একইভাবে) আপনি মু'মিন নারীদেরও বলে দিন, তারা যেন তাদের দৃষ্টিকে নিম্নগামী  করে রাখে এবং নিজেদের লজ্জাস্থানসমূহের হেফাযত করে, তারা যেন তাদের সৌন্দর্য প্রকাশ করে না বেড়ায়, তবে তাদের (শরীরের) যে অংশ (এমনিই) খোলা থাকে (তার কথা আলাদা), তারা যেন তাদের বক্ষদেশ মাথার কাপড় দ্বারা আবৃত করে রাখে।...................................."(শেষ পর্যন্ত)

## এছাড়াও সূরা আল-আহযাবের ৫৯ নং আয়াতে মহান আল্লাহ তা'য়ালা বলেছেন-
"হে নবী, আপনি আপনার পত্নীদেরকে, আপনার কন্যাদেরকে ও মু'মিন নারীদেরকে বলে দিন, তারা যেন তাদের চাদর (থেকে কিয়দংশ) নিজেদের উপর টেনে নেয়, এতে করে তাদের চেনা (অনেকটা) সহজ হবে এবং তাদের কোন রকম উত্ত্যক্ত করা হবে না, (জেনে রেখো) আল্লাহ তা'য়ালা ক্ষমাশীল ও পরম দয়ালু।

>>> এখন ধরে নেয়া যাক দু'বোন যমজ। উভয়ই সমান সুন্দরী। রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে উভয়ে। তাদের একজন ইসলামী পর্দায়/হিজাবে আবৃতা; অর্থাৎ কব্জি পর্যন্ত হাত এবং মুখমন্ডল ছাড়া তার সারা শরীর আবৃতা অথবা মুখমন্ডলও আবৃতা। আরেকজন পশ্চিমা পোষাক (উচ্ছৃংখল পোষাক), যেমন- মিনি স্কার্ট অথবা শর্ট পরিহিতা। সামনের রাস্তার ওপারে কয়েকজন বদমাস ছেলে কোন মেয়েকে উত্ত্যক্ত করার জন্যে ওঁত পেতে বসে আছে। এখন বলুনতো সে কাকে উত্ত্যক্ত করবে? যে পশ্চিমা পোষাক (উচ্ছৃংখল পোষাক) মিনি স্কার্ট অথবা শর্ট পরিহিতা তাকে? নাকি হিজাব পরিহিতা তাকে? স্বাভাবিকভাবেই ছেলেগুলো মিনি স্কার্ট অথবা শর্ট পরিহিতাকেই উত্ত্যক্ত করবে। এধরণের পোষাক পরোক্ষভাবে বিপরীত লিঙ্গের প্রতি পোষাক পরিহিতার নিজেকে উত্ত্যক্ত করার এবং নির্যাতন করার নিরব আমন্ত্রণ জানায়। আল-কোরআন যথার্থই বলেছে যে, 'হিজাব/পর্দা' নারীকে পুরুষদের নির্যাতন (ইভটিজিং) হতে রক্ষা করে।

## উল্লেখ্য যে, ইসলামী শরীয়া আইনে কোন পুরুষ যদি ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত হয় এবং আদালতে সে অপরাধ প্রমাণিত হয়, তাহলে তার শাস্তি প্রকাশ্য মৃত্যুদন্ড। অনেক অমুসলিম এ সম্পর্কে বলেন, ইসলাম একটি নিষ্ঠুর এবং বর্বর ধর্ম। আমি তাদের প্রশ্ন করব, আল্লাহ না করুন, ধরুন কোন বদমাশ আপনার স্ত্রী, আপনার মা, আপনার বোন বা কন্যা কে ধর্ষণ করল। আপনি বিচারকের আসনে আসীন। অপরাধীকে আপনার সামনে আনা হল। আপনি কি করবেন? বেশীরভাগই বলবেন, আমি তাকে মৃত্যুদন্ড দিব। আবার কেউ কেউ বলবেন, আমি তাকে কঠিন নির্যাতন চালিয়ে মৃত্যুদন্ড দিব। অনেক অমুসলিমকে জিজ্ঞেস করে একই উত্তরই পাওয়া গেছে। তাহলে ইসলাম দোষ করল কোথায়?

>>> এবার আসুন একটি চিত্রনাট্য অংকন করা যাক। যেখানে দেখা যাবে যে, বাংলাদেশে "ইসলামী হিজাব" অনুসৃত হচ্ছে। যখনই কোন পুরুষ কোন নারীর দিকে তাকাচ্ছে এবং তার মনে অশ্লীল চিন্তা আসতে পারে মনে করে দৃষ্টি ফিরিয়ে নিচ্ছে। প্রত্যেক নারী ইসলামী হিজাব/পর্দার বিধান অনুসরন করছে (অর্থাৎ কব্জি পর্যন্ত হাত এবং মুখমন্ডল ছাড়া তার সারা শরীর আবৃত অথবা মুখমন্ডলও আবৃত)। এর পরেও কোন অসৎ পুরুষ ধর্ষণের মত অপরাধ করলে ইসলামের দন্ডবিধি অনুযায়ী দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি 'প্রকাশ্য মৃত্যুদন্ড' দেওয়া হচ্ছে। এখন আমি আপনাদেরকে জিজ্ঞেস করতে চাই, এ দৃশ্যপটে যে চিত্র অংকন করা হয়েছে, এমন একটা পরিবেশে বাংলাদেশে  ইভটিজিং/ধর্ষণের মত ঘটনা কি বাড়বে? একই সমান থাকবে? নাকি কমবে?

অটঃ- ডাঃ জাকির নায়েকের মূল থিম অনুকরণে লিখিত। {ইসলাম সম্পর্কে অমুসলিমদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব}

** যে কেউ কপি-পেষ্ট করে অন্য যেকোন ফোরামে দিতে পারেন। অনুমতির প্রয়োজন নেই।

Re: ইভটিজিং প্রতিরোধে ইসলাম

রংমহলে ঢু মেরে আপনার টপিকটি নজরে পড়লো। সেখানে আমার পোষ্ট সংখ্যা অনেক কম তাই ............।
আপনার প্রাপ্যটি এখানে দিলাম। আর হ্যা অনেক সুন্দর টপিকটির জন্য ধন্যবাদ।

Allah is a better planner... so whenever u'r plan fails, cheer up... Allah has a better plan for you

Shahanur79'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ইভটিজিং প্রতিরোধে ইসলাম

Shahanur79 লিখেছেন:

রংমহলে ঢু মেরে আপনার টপিকটি নজরে পড়লো। সেখানে আমার পোষ্ট সংখ্যা অনেক কম তাই ............।
আপনার প্রাপ্যটি এখানে দিলাম। আর হ্যা অনেক সুন্দর টপিকটির জন্য ধন্যবাদ।

আপনাকে ধন্যবাদ

Re: ইভটিজিং প্রতিরোধে ইসলাম

ইদানিং টিভিতে একটা স্টিল কম্পানীর  বিজ্ঞাপনে যা একখান  ইভটিজিং দেখাইলো। পরিবার নিয়ে দেখা অসম্ভব।

এম. মেরাজ হোসেন
IQ: 113
http://www.iq-test.cc/badges/4774105_3724.png