টপিকঃ জীবনের গল্প

একটা গল্প শুনবেন। গল্প, শুধুই গল্প। যে গল্পে থাকবে একটা পাগল ছেলে। যার জীবনে উচ্চাকাংখা বলে কিছুই নেই। যে বর্ষাকালে বারান্দায় প্রিয়জনের সাথে বসে টিনের চালে বৃষ্টির শব্দ শুনতে চায়। পরীক্ষা ফেলে বৃষ্টিতে ভিজতে যায়। মাঝে মাঝেই বাড়ি থেকে পালিয়ে কোথায় চলে যায় কেউ জানে না। আর থাকবে একটা মেয়ে, অতি সাধারন। ছেলেটা ভীষন ভালবাসবে মেয়েটাকে। যে ভালবাসা কখোনো কিছু দিয়ে পরিমাপ করা যায় না। আর মেয়েটা? মেয়েদের মন কবে কে বুঝতে পেরেছ?  সে কি চায় নিজেও তা জানবে না।

জানি এই গল্পের পরিনতি ভাল হবে না। তবুও ছেলেটা গল্পটা এগিয়ে নিতে চাইবে। মেয়েটা কি তার সঙ্গ দেবে? অবশ্যই দিবে। কারন মেয়েটাও যে ভালবাসে ছেলেটাকে। মেয়েটা চায় তার ভালবাসা প্রকাশ করতে। আর ছেলেটা চায় ভালবাসা হৃদয় দিয়ে অনুভব করতে। মুখের কথা দিয়ে নয়। ছেলেটা কিছুতেই বুঝে উঠতে পারে না, “দিনের মধ্যে হাজার বার ভালবাসি না বললে কি হয়? ভালবাসা কি কমে যায়?” কিন্তু মেয়েটা বুঝতে চায় না। সারাক্ষণ অপেক্ষায় থাকে। অন্তত একবারের জন্য হলেও ছেলেটা তাকে বলুক। বলুক, “ভালবাসি, শুধুই তোমাকে।“ ছেলেটার মুখের এই ছোট্ট বাক্যটাই তার সকল প্রেরণা। তাইতো সকাল দুপুর সন্ধা নেই ফোনের পর ফোন দিয়ে যায়। শুধু একবার ভালবাসি শোনার অপেক্ষায়।

দুইজনের অনুভুতি, দুই জনের চাওয়া পাওয়া সবই ভিন্ন। তারপরও গল্পটা এগিয়ে চলে। হাসি, কান্না, আনন্দ, ব্যাথা-বেদনার মিশ্রনে।

এটা একটা পাগল ছেলের গল্প। পাগলামি না করলে কি চলে? শুরু হয় তার পাগলামী। হটাৎ করেই সে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় মেয়েটার সাথে। “ভালবাসি ভালবাসি বলে চিৎকার করাটা তার লোক দেখানো মেকি মনে হয়।“ যোগাযোগ বন্ধ করে দিলে কি হবে, তার প্রতিটা স্বপ্ন জুড়ে থাকে মেয়েটা। তার প্রতিটা কাজের প্রেরণা হয়ে থাকে মেয়েটা। তার অনুভুতি জুড়ে তার অস্তিত্ব জুড়ে শুধু সেই মেয়েটা আর মেয়েটা। আর মেয়েটার কি খবর? ছেলেটাকে হাড়িয়ে সে পাগল প্রায়। খায় না ঘুমায় না এমন কি বেঁচে থাকতেও চায় না। তবুও বেঁচে থাকতে হয়। জীবনের প্রয়োজনে।

সময় গড়িয়ে যায়। মাসের পর মাস, বছরের পর বছর। ছেলেটা ভুলতে পারে না মেয়েটাকে। তাকে নিয়েই ভাবে। তাকে নিয়েই স্বপ্ন দেখে। তারপর?

না, এটা একটা গল্প। বাস্তব কিছু নয়। গল্পের মেয়েরা একটু অন্য রকম হয়। তাই মেয়েটা ছেলেটাকে আবার ফোন করে। কথা হয় দুজনার। তারা ভুলে যায় মাঝখানে কয়েক বছর পার হয়ে গেছে। জীবন থেকে তারা হাড়িয়ে ফেলেছে অনেক মুল্যবান সময়। সেই সময়ের প্রয়োজনে ছেলেটা হাড়িয়ে ফেলেছে তার ভালবাসা। মেয়েটা আর তার নেই। বিয়ে করেছে তার পছন্দের অন্য একটা ছেলেকে। যে তার খবর নেয়। দিনের মধ্যে হাজার বার ভালবাসি ভালবাসি বলে তার পায়ে লুটায়।

ছেলেটার আকাশে আজ মেঘের ঘনঘটা। যখন তখন বৃষ্টি নামে। তার এলোমেলো জীবনটা আরো এলোমেলো হয়ে যায়। তবুও সে মেয়েটার ভাল চায়। চাইবে না কেন, দোষটাতো মেয়েটার না। সেই-তো যোগাযোগ বন্ধ করেছিল। নিজের দোষে নিজেকে ছাড়া আর কাউকে তো শাস্তি দেয়া যায় না। তাইতো নতুন করে নতুন ভাবে বাঁচতে চায় সে।

যেহেতু এটা গল্প। তাই শেষ হয়েও শেষ হয় না। কোন একদিন গভীর রাতে ছেলেটার ফোন বেজে ওঠে। রিসিভ করতেই সে শুধু কান্নার শব্দ শুনতে পায়। মেয়েটা কাঁদছে। কাঁদছে তো কাঁদছেই। কান্না জড়ানো কন্ঠেই মেয়েটা বলে, “আমি জানি আমার ফেরার পথ নেই। তবু একটা কথা বলতে চাই। আমি শুধু তোমাকে ভালবাসি। শুধুই তোমাকে। আর কাউকে নয়।“ ফোন কেটে যায়। একাকী ছেলেটা জেগে থাকে। দু চোখে বৃষ্টি নামে। সিদ্ধান্ত নিয়ে নেয়, যা হবার তাই হবে। এভাবে কষ্ট পাওয়ার মানে হয় না। কথা বলে মেয়েটার সাথে। মেয়েটা সাড়া দেয় আগের মত। দুজন দুজনকে পেতে চায় আপন করে। কিন্তু সমাজ?

খুব সহজেই তার সমাধান হয়ে যায়। সে বিয়ে করেছে ঠিকই। তবে একদিনও স্বামীর ঘর করেনি। সে তালাক দিয়ে দিবে স্বামীকে। তারপর দুজন পালিয়ে যাবে। ঘর পালানো ছেলেটার কাছে কাজটা সহজই মনে হয়।

তারপর? তার আর পর নেই। ছেলেটা অপেক্ষায় থাকে মেয়েটার। মেয়েটা ফোন দেয় না। ছেলেটা ফোন দেয়। মেয়েটা ফোন ধরে না। ছেলেটা আবার ফোন দেয়। মেয়েটা ধরে না। ধরে না..................। ছেলেটা আবার ফোন দেয়......................।

গল্পটা শেষ। ছেলেটার সাথে মেয়েটার আর কোনদিন দেখা হয় নি। হয়ত কোনদিন হবেও না। হয়ত মেয়েটা তার স্বামী সংসার নিয়ে সুখে দিন কাটাচ্ছে। কিন্তু মাঝরাতে মেয়েটার বলা একটা বাক্য ছেলেটাকে আজ এলোমেলো করে দিয়েছে। আজও তার কানে বাজে, “আমি জানি আমার ফেরার পথ নেই। তবু একটা কথা বলতে চাই। আমি তোমাকে ভালবাসি। শুধুই তোমাকে। “

নোট: রংমহল এ পূর্ব প্রকাশিত।

হুজুর কইছে, "কোরআন শরীফে আছে- তোমরা নামাজ থেকে বিরত থাক।" আমি তাই নামাজ পড়ি না। হুজুর যদি ইচ্ছা করে "অপবিত্র অবস্থায়" শব্দ দুটো বাদ দেয়, তার জন্য তো আমি দায়ী না।

Re: জীবনের গল্প

৭৩ বার প্রদর্শন কিন্তু কোন রিপ্লাই নাই  দেখে ঢুকলাম। এখন গল্পটা পড়ে আমিও লেখার কিছু খুঁজে পাচ্ছি না sad

তবে গল্পটা ভাল হয়েছে, গল্পের বাচনভঙ্গিটা সুন্দর। thumbs_up

if ($কম্পিউটার != "উইন্ডোজ" && $লিনাক্স != "উবুন্টু" && $ইন্টারনেট != "ফেসবুক") {print 'I am a real user !';}

নিউরোন তরঙ্গের লগবই

কলম কবির'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: জীবনের গল্প

কলম কবির লিখেছেন:

গল্পটা পড়ে আমিও লেখার কিছু খুঁজে পাচ্ছি না। তবে গল্পটা ভাল হয়েছে, গল্পের বাচনভঙ্গিটা সুন্দর।

ধন্যবাদ কষ্ট করে পড়ার জন্য। আমি ভেবেছিলাম কেউ হয়ত পড়ে নাই।

হুজুর কইছে, "কোরআন শরীফে আছে- তোমরা নামাজ থেকে বিরত থাক।" আমি তাই নামাজ পড়ি না। হুজুর যদি ইচ্ছা করে "অপবিত্র অবস্থায়" শব্দ দুটো বাদ দেয়, তার জন্য তো আমি দায়ী না।

Re: জীবনের গল্প

বাংলারমাটি লিখেছেন:
কলম কবির লিখেছেন:

গল্পটা পড়ে আমিও লেখার কিছু খুঁজে পাচ্ছি না। তবে গল্পটা ভাল হয়েছে, গল্পের বাচনভঙ্গিটা সুন্দর।

ধন্যবাদ কষ্ট করে পড়ার জন্য। আমি ভেবেছিলাম কেউ হয়ত পড়ে নাই।

পড়লাম ভাল লাগল ধন্যবাদ আপনাকে শেয়ার করার জন্য। smile

অপ্রিয়

Re: জীবনের গল্প

পড়লাম... ফেরার আশায় কতজনই কতভাবে চেয়ে থাকে... বলার কিছু নেই।

Re: জীবনের গল্প

সুজন রায় লিখেছেন:

পড়লাম ভাল লাগল ধন্যবাদ আপনাকে শেয়ার করার জন্য। smile

আপনাকেও ধন্যবাদ, কষ্ট করে পড়ার জন্য।

রাশেদুল কবির লিখেছেন:

পড়লাম... ফেরার আশায় কতজনই কতভাবে চেয়ে থাকে... বলার কিছু নেই।

হ্যা, এইটা কিন্তু গল্প নয়। কারো জীবনে ঘটে যাওয়া সত্য ঘটনা।

হুজুর কইছে, "কোরআন শরীফে আছে- তোমরা নামাজ থেকে বিরত থাক।" আমি তাই নামাজ পড়ি না। হুজুর যদি ইচ্ছা করে "অপবিত্র অবস্থায়" শব্দ দুটো বাদ দেয়, তার জন্য তো আমি দায়ী না।

Re: জীবনের গল্প

এই টপিকটা ক্যান আগে চোখে পড়ে নাই। hairpull
পিলাচ। সহজ সরল কিন্তু সুন্দর গল্প। smile

Re: জীবনের গল্প

মন টাইয় খারাপ হয়ে গেলো  sad

Re: জীবনের গল্প

সাদাত হাসান লিখেছেন:

মন টাইয় খারাপ হয়ে গেলো  sad

মন খারাপ কইরেন না। আমরা আছি না। wink
আপনার একটা ব্যবস্থা হয়ে যাবে hehe

১০

Re: জীবনের গল্প

ছেলাটা কে শাস্তি দেওয়ার জন্যই মেয়েটি মাঝ রাতে ফোন দিয়ে এলোমেলো করে দিয়েছিল  neutral

বাংলারমাটি লিখেছেন:
রাশেদুল কবির লিখেছেন:

পড়লাম... ফেরার আশায় কতজনই কতভাবে চেয়ে থাকে... বলার কিছু নেই।

হ্যা, এইটা কিন্তু গল্প নয়। কারো জীবনে ঘটে যাওয়া সত্য ঘটনা।

আপনি গল্পের মাঝে কয়েকবার লিখলেন এটা বাস্তব নয় গল্প।  waiting

১১

Re: জীবনের গল্প

সেলিম রাজ লিখেছেন:

ছেলাটা কে শাস্তি দেওয়ার জন্যই মেয়েটি মাঝ রাতে ফোন দিয়ে এলোমেলো করে দিয়েছিল  neutral

এইটা ভাল বলেছেন। সত্যি হওয়ার সম্ভবনা ১০০%


সেলিম রাজ লিখেছেন:
বাংলারমাটি লিখেছেন:

হ্যা, এইটা কিন্তু গল্প নয়। কারো জীবনে ঘটে যাওয়া সত্য ঘটনা।

আপনি গল্পের মাঝে কয়েকবার লিখলেন এটা বাস্তব নয় গল্প।  waiting

হয়ত কিছু গল্প থাকে যেগুলো বাস্তব নয় আবার অবাস্তব ও নয়। অনেকটা সত্য মিথ্যার মাঝামাঝি। কিন্তু সেগুলো সত্য ঘটনা। হয়ত এরকম ই কিছু।

১২

Re: জীবনের গল্প

দক্ষিণের-মাহবুব লিখেছেন:
সাদাত হাসান লিখেছেন:

মন টাইয় খারাপ হয়ে গেলো  sad

মন খারাপ কইরেন না। আমরা আছি না। wink
আপনার একটা ব্যবস্থা হয়ে যাবে hehe

তো ভাই ব্যবস্থা করেন। এভাবে আর কত দিন।

আমিও কিন্তু আপনার মত সবাইকে নিয়ে tongue

১৩

Re: জীবনের গল্প

সাদাত হাসান লিখেছেন:
দক্ষিণের-মাহবুব লিখেছেন:

মন খারাপ কইরেন না। আমরা আছি না। wink
আপনার একটা ব্যবস্থা হয়ে যাবে hehe

তো ভাই ব্যবস্থা করেন। এভাবে আর কত দিন।

আমিও কিন্তু আপনার মত সবাইকে নিয়ে tongue

তাহলে তো হয়েই গেল। yahoo সিনিয়র হিসেবে আপনিই এগিয়ে আসুন না। love আমি আপনার সাথে আছি।

১৪

Re: জীবনের গল্প

অসাধারণ গল্প। আপনার নিয়মিত লেখা উচিত। মাহবুব ভাইয়ের হুমকি দেয়া ঠিকই আছে।  wink

আমি বাংলায় ভালোবাসি
আমি বাংলাকে ভালোবাসি

১৫

Re: জীবনের গল্প

প্রাতিভাসিক লিখেছেন:

অসাধারণ গল্প। আপনার নিয়মিত লেখা উচিত। মাহবুব ভাইয়ের হুমকি দেয়া ঠিকই আছে।

ধন্যবাদ ভাই। নিয়মিত লেখার চেষ্টা করব। আসলে কিছুদিন যাবৎ ব্যাস্ত আছি। তাই সময় পাচ্ছি না।

হুজুর কইছে, "কোরআন শরীফে আছে- তোমরা নামাজ থেকে বিরত থাক।" আমি তাই নামাজ পড়ি না। হুজুর যদি ইচ্ছা করে "অপবিত্র অবস্থায়" শব্দ দুটো বাদ দেয়, তার জন্য তো আমি দায়ী না।