সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন famay (১৫-০২-২০০৯ ০৯:৫৯)

টপিকঃ কী দোষ .................?????

লোকে বলে ভালোবাসা নাকি কোন বাধা মানে না, কোন ভেধাভেদ বুঝে না, কোন জাতি-সীমানা কিছুই পরো্য়া করে না.....। তবে আজ এই বিশ্ব ভালোবাসা দিবসেই কেন আমার বন্ধুকে কাদতে হলো.........???

  আমার বন্ধু আরসলান, সে পাকিস্তানি। প্রেম-ভালোবাসা থেকে সব সময় জেনো একটু পালিয়ে বেরা্ত। আজকের তারিখ-এ আরসলান এর মতন মানুষ পাওয়া সত্যিই দায়! একজন ভেলো মানুষের মাঝে যেকটি গুন থাকার প্রয়োজন তার সব'কটি আরসলান এর মাঝে বিধাতা দান করেছেন।

আট-দশটা ছেলে মত আরসলানও একদিন এক ললনাকে দেখে প্রেমের রোগ-এ আক্রান্ত হয়ে পরে!(মারাত্বক মেয়ে, জে কেউ দেখলেই পাগল হয়ে জাবে।)অন্তরের গভীরে সুপ্ত চাওয়া গুলো দোলা দিয়ে যেতে লাগে তাকে। মেয়েটির নাম ফারজানা। মেয়েটি বাংলাদেশী। কিন্তু ভালোবাসা কী আর এইসব মানে...?

ফারজানাকে নিয়ে মনেমনে স্বপ্নের রাজপ্রাসাদ গড়ে তোলে।কিন্তু ফারজানা তাকে শুধুই গুডফ্রেন্ড মনে করে! সময় অতিবাহিত হতে থাকে, আরসলান ফারজানাকে ইমপ্রেস করার জন্য বাংলা শিখতে চায়, বেচারা 'আমি তোমাকে ভালোবাসি' ছাড়া তেমন কিছুই বলতে পারতো না।
প্রথমেতো তাও পারতো না "আমি মাকো বালোবাসো,তুমি কিছু না, তুমি বলছো আমি গরু আব ম্যায় বলছো তুমিগরু, তুই আমার ইয়ার..." এজাতিও আরো আধো আধো বাংলা আরসলান-এর মুখ থেকে শুনতে খারাপ লাগতো না....কিন্তু এখন সে মোটামুটি বাংলা বলতে পারে! গত চার মাসের প্রস্তুতি ভেলেন্টাইন-ডে তে মনের কথা বলার। দিনগুনা শুধু আরসলানের না আমাদের সব বন্ধুদের!

  আজ ভেলেন্টাইন-ডে! গতকাল আমাদের নানান প্রস্তুতি শেষ করে আমরা সবাই হাজির। কে জানে কী হবে?  ফারজানাকে ডাকা হলো, সে আসলো। আরসলানের টেনশন আর না্র্ভাসনেস ছিলো দেখার মতন! বেচারা মুখদিয়ে কথাই  বের হতে চাইছে না! বহুত ধরেবেধে সামনে আনা হলো ফরজানার!

আরসলান: হ্যাপি ভেলেন্টাইন-ডে..
ফারজানা: হ্যাপি ভেলেন্টাইন-ডে.....
আরসলান: এক বাত কেহনি থী...
ফারজানা: What......? tell me....
আরসলান: আমি তোমাকে ভালোবাসি-খুব ভালোবাসি, হামকো আপসে বেপানহা 
মোহাব্বাত হ্যায়, আই লাভ ইউ !!!!!!!!!!!

ফারজানা: Arslan you are jokeing ra8....???
আরসলান: No i m not.....i really love you....!!
        আগার হাম আপকো ঠিকঠাক লাগতে হ্যায় তো ফির হা বলদো...
        বহত তারপা হু ম্যায়..অউর মাত তারপাও হামে। জালদি সে কুছ
        বল দো....কুছভি কাহো.......
ফারজানা: নো ওয়ে......নো...।
আরসলান: বাট হোয়াই.....??? কিয়া ম্যায় ইতনা বুরা হু..কি কই মুঝে পেয়ার
         নাহি কার সাকতা???
ফারজানা: bcz you are Pakistani.....bcz of the '71.
আরসলান: কিয়া ইহি মেরা কাসুর হ্যায় কী হাম পাকিস্তানি হায়? '৭১  মে ম্যায়
        নাহি থা....নাহি তুম থি...গালাতি তুমহারি ফ্যামিলিকা নাহি থা...নাহি মেরি
        পারিবার কি!!!!  তো ফির কিউ.....???
ফারজানা: বাই......
আরসলান: পার সুনো তো...আম্মাকো ম্যায়নে তুমহারে বারে মে বাতাচুকা হু!
        আম্মানে কাহাথা আজ তুমহে ঘার লেকার জানেকে্া! আব ম্যায় আম্মাসে কি
        বলবো?বলো তুমি কি বলবে আমি...????
ফারজানা: আই ডোন্ট নো....
আরসলান: তোমারে ছাড়া বাচব না! জি নাহি সাকতা তুমহারে বিনা।
ফারজানা: নট মাই প্রবলেম!
আরসলান: সোনো......একবার ছোচলো.....সুনো..


    ফারজানার জন্য কিনা লাল গোলাপ গুলো তখন মাটিতে শোভা পাচ্ছে! আর ডায়মন্ড রিং -রা আরসলান এর হাতেই আছে! আজ আকাশটা খুব সুন্দর নীল..কোন মেঘ নাই? কিন্তু আরসলানের দু-চোখ জুরে শুধুই আষাড় মাসের বর্ষা!!!
   সে সময় আরসলান আমাকে একটা প্রশ্ন করে..."ইয়ার সাইফ....ম্যায় পাকিস্তানি হু ইস মে মেরি কিয়া গালাতি হ্যায়.....????"
  জাবাটা আমি দিতে পারিনি!

আপনাদের মধ্যে কেউ কী আমার বন্ধুর প্রশ্নের উওর টা দিতের পারেন.......???? এখানে তার কি দোষ ???????????

Re: কী দোষ .................?????

বিষয়টি খুবই দু:খজনক। কিন্তু জাতি সত্ত্বার কাছে যে ভাই, সবকিছুই পরাজিত।:(:(

Re: কী দোষ .................?????

এটা কোন কথা হইলো.............????

Re: কী দোষ .................?????

সব যুদ্ধেরই খারাপ দিক থাকে। এটাও তেমন একটি। এই ব্যাপারটা আমার মধ্যেও আছে। কনো পাকিস্তানীকে সহজে নিতে পারি না বন্ধু হিসেবে। একটা কি যেন কাজ করে। জানি, সে বা আমি কেউই ৭১-এ ছিলাম না। তবুও..।

Re: কী দোষ .................?????

আমার মনে হয় মেয়ে ঠিক কাজই করেছে...

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন অনির্বাণ (১৫-০২-২০০৯ ১৫:৫৯)

Re: কী দোষ .................?????

famay লিখেছেন:

এটা কোন কথা হইলো.............????

ভাই রাগ করবেন না, কিছু দিন আগে ইয়াহু তে চ্যাট করতে গিয়ে একজন পাকিস্তানী বন্ধুর সাথে পরিচয় হয়। খুবই ভাল ছেলে তিনি। মাঝে মাঝে আমাকে মোবাইলে ফোনও করেন। তিনি তার ব্যক্তিগত সুখ, দু:খ আমার সঙ্গে শেয়ার করেন। কিন্তু কেন জানি আমি এটাকে এতো সহজ ভাবে নিতে পারিনা। মোবাইলে তিনি খুবই আন্তরিক ভাবে আমার মা-বাবা, আমার পরিবারের সবাই কেমন আছে জিজ্ঞেস করেন। আমিও তাকে জিজ্ঞেস করি কিন্তু আমার মনে হয় আমার পক্ষে আন্তরিকতার ঘাটতি আছে। মানে তিনি যতটা আন্তরিক আমি ততটা নই। কিছুদিন আগে তিনি বলেছেন আমি নাকি উনার ভাই।তিনি ভাল ইংরেজী বলতে পারতেন না তাই তিনি আমাকে অনুরোধ করেছেন আমি যেন তাকে বাংলা বলাটা শিখাই।

অপরদিকে আমি, আজ পর্যন্ত তাকে মোবাইল করিনি এমনকি ইয়াহু ম্যাসেঞ্জার ব্যবহার ছেড়ে দিয়েছি।

এটা কি আমার সংকীর্ণতা নাকি আমরা বাংলাদেশীরাই এরকম?

Re: কী দোষ .................?????

famay লিখেছেন:

(মারাত্বক মেয়ে, জে কেউ দেখলেই পাগল হয়ে জাবে।)

এধরণের মেয়েরা বিয়ের আগ পর্জন্ত অসংখ্য প্রেমের অফার পায়। প্রোপোজাল পাওয়াটা এদের কাছে পানি ভাত।
তাই এই রকম সহজলভ্য কোন কিছু তাকে আকর্ষন করবে না, এটাই স্বাভাবিক।

তার উপর বাঙালী মেয়ে। এরা আবার বন্ধু ভাবতে চায়। শুধুই বন্ধু। প্রেমিকের মতই এদের উপর অধিকার ফলায়। নাম দেয় বন্ধু। মারাত্বক টাইপের মেয়েদের এরকম অনেক ডেডিকেটেড ফ্রেন্ডও থাকে। তাই তারা ধরে নেয় যে এরকম ফ্রেন্ডশিপ ও সম্ভব।

প্রেম হয় দুভাবে, হৃদয় দিয়ে ও মস্তিস্ক দিয়ে। মস্তিস্কটাকে যখন কাজে লাগাবেন তখন সফল হবার চান্স থাকে। কিন্তু সেটা প্রেম হয় না। অনেকটা ব্যবসার মত হয়ে যায়। আবার আসল প্রেমে মস্তিস্ক কাজ করবে না। প্রথম প্রেমেতো নয়ই।

তিনটা কারণ বললাম প্রেম না হবার।

আপনার বন্ধুর(নাকি আপনার??) কিছুদিন খারাপ লাগবে। প্রথম হলে তো অনেকদিন। তারপর ঠিক হয়ে যাবে। সময়ে সকল ক্ষত সেরে যায়।  এরপর না হয় আবার করা যাবে। big_smile

'৭১ এ পাকিস্থানীরা যা করেছে এদেশের নারীদের উপর যা করেছে, সেসবের নৃশংসতা (বানান কি??) সম্মন্ধে যদি কারো কোন আইডিয়া থাকে তবে সে হাজার ভালবাসলেও যাবে না। ইন ফ্যাক্ট কোন সম্পর্কই তৈরী হবে। বন্ধুত্ব, ভালবাসা তো দুরে থাক।

Feed থেকে ফোরাম সিগনেচার, imgsign.com
ব্লগ: shiplu.mokadd.im
মুখে তুলে কেউ খাইয়ে দেবে না। নিজের হাতেই সেটা করতে হবে।

শিপলু'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: কী দোষ .................?????

কী দোষ .................?????
এরপরে যদি আমি বলি
কার দোষ.................?????

সবকিছুর জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি, এমনকি মৃত্যুর জন্যও...
রয়েল টেকনোলজি | সমকাল দর্পণ | আমার ফেসবুক প্র্রোফাইল | আমার ফেসবুক পেজ | আমার গুগল+

Re: কী দোষ .................?????

আমি ফারজানার বিষয়টা বুঝতে পারছি, বুঝায় বলতেও পারি তবে সম্ভবত আপনি বা আরসলান ব্যাপারটা বুঝতে পারবেন না। আরও অনেকেই বুঝবে না। আমি ওর ডিসিশনটাকে ঠিক মনে করি।

সবাই কিন্তু রবীন্দ্রনাথের "শেষের কবিতা" বুঝে না।

যখন প্রথম কলেজ লাইফে শেষের কবিতা পড়ি, মনে হয়েছিল খুবই বিয়োগাত্বক একটা উপন্যাস। দুঃখজনক পরিণতি। পরে বুঝলাম, উপন্যাসটা ছিল লাবণ্যের অসাধারণ উপলব্ধির একটা গল্প। একটা সময়ে, বয়সে, পরিবেশ-পরিস্থিতিতে কাউকে ভাললাগা থেকে ভালবাসায় গড়ালেও সেটা যে সত্যিকার ভালবাসা হবে এমন নাও হতে পারে। ইনফ্যাচুয়েশন বা মিথ্যে প্রেমও হতে পারে।

কলেজ লাইফে, ভার্সিটি লাইফে দেখেছি মানুষ ঠুস-ঠাস প্রেমে পড়ছে, আবার ভাঙছে! যেন খুব সাধারণ একটা ব্যাপার! একজন বান্ধবী ছিল, সব ছেলে তার প্রেমে পড়ে যেত।:rolleyes: সিরিয়াস প্রেম। দুইটা ছেলে হাত কেটে নাম লিখে ফেলছিল।:rolleyes: আমরা মেয়েটারে ধরলাম, তোর মধ্যে কি আছে যে ছেলেরা তোর প্রেমে পড়ে? ছেলেগুলাকেও মনে হয় দুই একজন অতি উৎসাহী মেয়ে গিয়ে জিজ্ঞেস করেছিল, কাহিনী কি? আমরা অবশ্য সে যাত্রা কোন মহান আবিস্কার করতে পারি নি, কিন্তু একদম সবাই মিলে খুব গম্ভীর সিরিয়াস একটা থিওরী দিয়ে দিলাম। সবাই একবাক্যে বললাম, তোর প্রেম করেই বিয়ে হবে। একাধিক প্রেমও হতে পারে। আমার বান্ধবীটার কি রাগ, আমরা সবাই মিলে তাকে এই বুঝলাম!

সবসময় খুব ভাললাগা, পাগলামী ভালবাসার পেছনে আসলে ইনফেচুয়েশন/ এ্যাট্রাকশনই থাকে। অনেক সময় সেটা দুপক্ষেরই হয়, প্রেম হয়, ভালবাসা হয়, অনেক সময় বিয়ে হয়, তারপরে ভেঙে যায়। এটা এখনকার সমাজে অহরহ দেখা যাচ্ছে। মনগড়া কিছু বলে দিচ্ছি না।

তবে সব ক্ষেত্রে তা নাও হতে পারে। অনেক কঠিন পরিস্থিতিকেও অনেকে মানিয়ে নেয়, আবার উল্টোটাও হয়, অনেকের অনেক সহজ জীবনও কঠিন হয়ে যায়। আমাদের কলেজ লাইফের দুইজন ফ্রেন্ডের রিসেন্ট বিয়ে হল- দীর্ঘ ৬/৭ বছর প্রেম করে খুব সুন্দর একটা পরিণতি হয়েছে তাদের। মেয়েটাকে ছেলেটা স্কুল জীবন থেকে ভালবেসেছে- অনেকবার না শোনার পরও সে মেয়েটাকে ঠিকই হ্যা বলিয়েছিল। তারপর জানাজানির পর অনেক সমস্যা পাড়ি দেয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাদের ভালবাসা সাফল্য পায়। ওদের বিয়ের ঘটনায় সেদিন আমরা বন্ধুরা সবাই ফেইসবুকে খুব একটা উৎসব করে ফেললাম, এতোই মধুর ছিল ঘটনাটা।

এই সফল পরিণতির জন্য জীবন, ভালবাসা এগুলো কি, তা বুঝাটা খুব প্রয়োজন। একজনের কাউকে পছন্দ হলে অপরজনেরও যে তাকেই পছন্দ হবে তা নাও হতে পারে। পরাজয় মেনে নেওয়ার সৎ সাহস থাকা উচিৎ সবারই। আবার শুধু অন্ধভাবে ভালবাসলেই হয় না, দুজনের মধ্যে আন্ডারস্টেন্ডিং দরকার আছে। কারন বিয়ের পরের জীবন অনেক দীর্ঘ। দায়িত্ব থাকে, অনেক কিছুই মেইনটেইন করতে হয়। একটা বিয়ে মানে শুধু ছেলে আর মেয়ের বিয়ে নয়, দুটি পরিবারের আত্নীয়তাও বটে। এই সবকিছু না ভেবে শুধু মনটাকে প্রাধান্য দিলে, মনের পেছনে ছুটলে, কোন না কোন সময় স্বপ্ন-ভঙ্গ হবে। জীবন ত স্বপ্ন নয়। বাস্তব।

এমনও হতে পারত, বিয়ে হয়েও গেল, তারপর একসময় ওরা আবিস্কার করল 'সে স্বপ্নপুরীর রাজকন্যা নয়, এরকমটা সে চায় নি!'

হঠাৎ করে নতুন একটা সংস্কৃতির সাথে নিজেকে মানিয়ে নেওয়া, এটা সম্ভব নাও হতে পারে।

আরসলানের উচিৎ ছিল বন্ধুদের মাধ্যমেই হোক, আর যেভাবেই হোক, ফারজানার ফিলিংসটা আগেই জানতে চেষ্টা করা, ও বেচারী হঠাৎ করে একটা অড সিচুয়েশনে পড়ে গেছে, এবং এইভাবে রিয়েক্ট করেছে। ভালবাসা হুট করে হয়ে যাবে, যাকে চাইবে তাকেই পাবে, এমন ভাবার কি কারন আছে? মানুষের ভালো বন্ধু বানাতেই অনেকদিন লেগে যায়, আর ভালবাসা বিয়ের জন্য কোন সময়ই দিবে না, তা কেন? ফারজানার কি দোষ? তার ফিলিংসটাকেও মর্যাদা দেওয়া উচিত। এরপরে তার ফিলিংস বদলাতেও পারে। যদিও তার এই ডিসিশনটাও ভুল না। শুধু শুধু কম্পেক্স একটা রিলেশনে জেনে-বুঝে কেউ জড়াতে চায় না। ভালবাসাটাই সব কিছু না।

মানুষ এরেঞ্জ ম্যারেজ করে। মোটামুটি চাওয়ার সাথে ৫০%-৮০% মিলে গেলেই অজানা-অচেনা দুটি মানুষ বিয়েতে আবদ্ধ হয়। এই বিয়েগুলো কেমন করে টেকে তাহলে? বিয়ের পর ভালবাসা থাকে, পরিবারের সাপোর্ট থাকে, সমঝোতা থাকে। বরং যারা ভেবে নেয় যে তাদের জীবন আরও সুখের হতে পারত, ওরকম হলে বেশি ভাল হতো, তাদেরই সুখ জোটে না।

আপনার বন্ধুকে আমার দুইটি বার্তা পৌছে দেবেন, বন্ধু হিসেবে-

১. সে ফারজানাকে গভীরভাবে ভালবাসে। মেনে নিলাম সত্যিকার ভালবাসা। তার অনেক কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু সে যাকে সত্যিকার ভালবাসে, তার অনুভূতির কদর যেন করে। তার বন্ধু ফারজানাকে যেন এতোটুকু জানায় যে সে তার সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। যদি মেয়েটার পক্ষ থেকে ছেলেটার প্রতিও কোন ফিলিংস থাকে, তাহলে সে তা জানবে, আর যদি তা না হয়, অন্তত বন্ধুত্বটা একেবারে ভেঙে যাবে না। ভালো বন্ধুত্ব অনেক বিশাল একটা ব্যাপার। ভালবাসার চেয়েও বিশাল।

২. কারও একজনের জন্য জীবন থেমে থাকে না। সে প্রচন্ড কষ্ট পেলেও তার জীবনটাকে সে কিভাবে সাজাবে তা তার ব্যাপার। যদি কেউ কষ্টটাকে কমাতে চেষ্টা করে, সময়ে তা নিভে যায়। আর কেউ যদি তা না চায়, তবে না-পাওয়াটাই তার জীবনের একমাত্র সত্য হয়ে বেঁচে থাকে। যা পায় নি, সে জানে না তা বেস্ট কিনা। হয়ত তা পেলেও জটিলতা আরও বাড়ত!

এটা চরম সত্যি। ভেবে দেখেন, কেমন করে একটা মেয়ে শুধুই একটা চুক্তিনামায় সই করে বছরের পর বছরের গড়া সম্পর্ক, মা-বাবাকে ছেড়ে, একটা অপরিচিত সংসারে যায়, সেখানে মানিয়ে নিতে চেষ্টা করে, কিংবা কোন অপরিচিত দেশে চলে যায়। চাইলেই সেই প্রিয় মুখগুলোকে দেখতে পারেনা। অনেক সময় তাদের অসুস্থতা, মৃত্যুর সময়ও তাদের কাছে থাকতে পারে না। তার নতুন পরিবেশে, নতুন করে ভালবাসা হয়, পরিবার হয়। আবার খুব খুব খুব প্রিয় মানুষ মরে যায়, সেই কষ্টটাও একদিন না একদিন মানুষ সহ্য করে নেয়। এটাই জীবন। পাওয়া, না-পাওয়া জীবনের অংশ।

হয়ত এখন না বুঝলেও একসময় বুঝতে পারবে। 'জ্ঞানী তারাই যারা অন্যের ভুল থেকে শিক্ষা নেয়, নিজে ভুল করে না।' আমার খুব প্রিয় উক্তি। আজ-কাল-কার ছেলে-মেয়েরা মুখিয়েই থাকে ভুল করে শেখার জন্য।:/

এই সত্য ঘটনাটা পড়ে দেখুন।

আল্লাহুম্মা ইন্নাকা য়াফু্‌ঊন - (হে আল্লাহ আপনি ক্ষমাশীল)
তুহীব্বুল য়াফওয়া - (আপনি মাফ করতে ভালবাসেন)
ফা' ফু আন্নী - (আমাকে মাফ করে দিন।)

১০ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আলমগীর (১৫-০২-২০০৯ ২২:০৫)

Re: কী দোষ .................?????

???? এখানে তার কি দোষ ???????????

কোন দোষ নাই, প্রেমের প্রস্তাব দিতেই পারে। কিন্তু প্রস্তাব দিলেই ফারজানার রাজি হতে হবে?

৭১ থাক বা না থাক ফারজানা কাকে ভালবাসবে, বা আদৌ বাসবে কি না তার নিজস্ব বিষয়। একটা ছেলে তার প্রেমে পাগল, বাংলা শিখবে, ৬তলা থেকে লাফ দিবে, এগুলো কোন বিবেচ্য বিষয় না।

ফারাজানার জন্য স্যালুট।

১১

Re: কী দোষ .................?????

কার দোষ, কি দোষ সে প্রসঙ্গে না হয় নাই বা গেলাম....
প্রত্যেক মানুষেরই অধিকার আছে নিজের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার সেটা যে কোন ব্যাপারেই হোক না কেন... বিশেষত প্রেমের ব্যাপারে। এখানে ফারজানা যেই সিদ্ধান্ত নেন না কেন এটা সম্পূর্ণ তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। এখানে জাতীসত্তা না টানাই ভাল। এছাড়াও আরসলান, ফারজানাকে ভালবাসেন এবং এটা তো একতরফাও হতে পারে তাই না ?

তাই, আরসলানকে বলেন, যেন তিনি মন খারাপ না করেন। কারন যার জন্য তিনি মন খারাপ করছেন, তিনি যদি এই ব্যাপারটার স্বীকৃতি নাই দেন তাহলে তার জন্য মন খারাপ করার মতো খারাপ আর কিছু হতে পারেনা। বরং তিনি যেন এমন একজনকে খুঁজে পান যেন তার মন খারাপ হলে, সেই একজনের মন লক্ষগুণ বেশি খারাপ হয়ে যায়..... এই আশাবাদই ব্যক্ত করছি।
( কারো মনে আঘাত দিয়ে থাকলে দুঃখিত )

শিমুল কাঠই হোক আর বকুল কাঠই হোক, আগুনের চেহারাটা একই
                                           _কবিগুরু

১২ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন famay (১৬-০২-২০০৯ ০৮:২৯)

Re: কী দোষ .................?????

ওয়াও.........!!! ভাবিওনি এভাবে সবাই রেসপন্স করবেন! সবাইকে অনেক ধন্যবাদ!
শুরু থেকে আরম্ভ করি....


# অনির্বাণ: মেআটেই না...রাগ করবো কেন.............?

# শিপলু ভাই: ভাই আমি আপনার দেয়া  ভালোবাসা না হবার তিনটি কারনের সাথে আমি শহীত
  এক মত প্রসন করিতেছি....! আর '৭১ কথা যদি বলেন, তাহলে বলি ফারজানা জাস্ট নাম মাত্র
  বাংলাদেশী! ফারজানার জন্ম আমেরিকাতে....ঠিক মত বাংলাও বলতে পারে না।;D

# হাশেম ভাই: এর ''মনে হয় মেয়ে ঠিক কাজই করেছে''...!
  ভাইজান কেন এমনটা মনে হয়....?আমরা কী জানতে পারি?

# স্যার মেহেদী আকরাম বলছেন ''কার দোষ''.................?????
  আমি বলবো ভাগ্যের দোষ !!

# ম্যাডাম মুন'কে বিশেষ ধন্যবাদ না দিয়ে থাকা যাচ্ছে না!
  আমি "শেষের কবিতা"-"দেবদাস" এর কথায় যাব না, কারন সাহ্যিত নিয়ে ভাববার ওতটা
  সাহস বা যোগ্যতা কোনটিই আমার নেই...........।
  কিন্তু মিস্ "মেয়েটির ফিলিংস এর মর্যাদা দেয়া হয়নি এমন কেনো মনে হলো আপনার???
  আমি হয়তো লিখতে ভুলে গিয়েছিলাম মেয়েটির অতীত-এ একজন বয়ফ্রেন্ড ছিল ভারতীয়, এবং
  আর এক ছেলের সাথে ভেরি গুড ফেন্ডশীপ ছিল, যে কিনা পাঠান (পাঠানরা তো মনে পাকিস্তানী
  হয়).....এগুলো সব জানার পরেও সেই মেয়ের সাথে আরসলান দিন-রাত ফারজানার নামই জপে!
  এমন নয় যে হুট-হাট করে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে, ফারজানাকে ঐদিন সকালে ফারজানার এক বান্ধবী'কে
  দিয়ে বলানো হয়েছে যে আজ আরসলান তাকে প্রপজ করবে। তবে কী আমরা ধরে নিতে পারি না
  যে যখন সে দেখা করতে আসলো তাহলে জেনে-বুঝেই এসেছে??? গত তিন মাসে আমরা সবাই
  তাকে বিভিন্ন ভাবে বুঝিয়েছি যে আরসলান তাকে ভালোবাসে! না আরসলান কখোনই এমন আশা
  রাখেনি যে ফারজানার জবাব হ্যা হতেই হবে!
  কাল রাতে ফেইসবুক-এ দেখলাম আরসলান ফারজানকে প্রফাইল কমেন্ট লিখেছে....
  "জানি না বিধাতা আমাকে এত কষ্টের মাঝে ফেললেন, বাট ফা-পাটনার (...ফারজানাকে এনামেই
  আরসলান ডাকে) আপ ফিকার না কারো....হাম দোস্ত থে-হ্যা-অউর হামেশা রাহেংগে। অউর হাম
  আপসে মোহাব্বাত কারতে থে-হ্যায়-অউর হামেশা কারতে রাহেংগে, ইয়েভি এক সাচ হ্যা!
  বাট, আই উইল ওয়েট ফর ইউ আনটিল ম্যাই ডেট্ট!!!
  হুম........ ম্যাডাম মুন ঠিক বলেছেন জীবন ত স্বপ্ন নয়।   ।
  জ্ঞানী কারা তাও আমি জানি না কিন্তু এটুকুই বলবো অন্যের কাছে যাবার কোন দরকার নেই,
  জীবন প্রতিদিন একটি কিছু নতুন শিক্ষা দেয়...

# আলমগীর ভাই...জি না ভাই প্রস্তাব দিলেই ফারজানার রাজি হতে হবে, এমনটা একদমই না!
  আরসলানও এমন কোন আশা ফারজানার কাছ থেকে রাখে না!

# হৃদয়: (y)

১৩

Re: কী দোষ .................?????

famay লিখেছেন:

# হাশেম ভাই: এর ''মনে হয় মেয়ে ঠিক কাজই করেছে''...!
ভাইজান কেন এমনটা মনে হয়....? আমরা কী জানতে পারি?

আপনি তো বলেননি এই মেয়ের আগেও বয়ফ্রেন্ড ছিল এবং প্রপৌজ সম্পর্কে তাকে আগেই ধারণা দেওয়া হয়েছিল? তার মানে সে এই লাইনে পাকা...
সেক্ষেত্রে শামীম ভাইয়ের কথার সূত্র ধরে বলবো: এ ধরণের মেয়েরা বিয়ের আগ পর্যন্ত অসংখ্য প্রেমের অফার পায়। প্রোপোজাল পাওয়াটা এদের কাছে পানি ভাত।
তাই আমি বলবো মেয়েটা যদি এমনই হয় তাহলে তাকে হারিয়ে ছেলেটির ক্ষতির চেয়ে লাভই হয়েছে।
আমি ব্যক্তিগত ভাবে পাকিস্হানীদের তেমন পছন্দ করিনা কারণ সেই ৭১.. তারা যা করেছে ইসলাম ধর্ম কখনো এমন আচরণ সমর্থন করেনা। আর আমিও দেশ বিদেশ ঘুরে আসা ছেলে, এসব পাকি'দের ভালমতো চেনা আছে।

১৪

Re: কী দোষ .................?????

অ.ট.:

ফা-পাটনার

হুমম "রব নে বানা দি জোড়ি" থেকে অণুপ্রাণিত মনে হচ্ছে।

১৫

Re: কী দোষ .................?????

তাই!!! আমি অবশ্য দেখি নাই এখনো...........

১৬ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন রাশ (১৬-০২-২০০৯ ১৬:৫২)

Re: কী দোষ .................?????

অ: ট:

পাকিস্হানীগুলা যে আসলেই বদ নাম্বার ওয়ান সেটা তাদের দেশের ভেতরের গন্ডোগোল দেখলে সহজেই বুঝা যায়। এদের বর্তমান অবস্হা এবং অতীত ইতিহাস বলে এরা একটা ক্রেজি, গোড়া, আর রক্তপিপাসু জাতী।

একদিন টিভিতে (গোপন ক্যামেরায় তোলা ) ওদের দেশের একটা খোলা অস্ত্রের বাজার দেখে থ লেগে গেলাম............:-O
তরিতরকারির মতো লেটেষ্ট মডেলের অস্ত্র বিক্রি হচ্ছে অকল্পনীয় কম মুল্যে। যে বন্দুক ৫ লাখ টাকা দাম সেটা ওখানে বিক্রি হচ্ছে ১৫ হাজারে।:-O অবশ্য নিজেদের বানানো সব।কিনতে কোন লাইসেন্স টাইসেন্স এর ঝামেলা নাই।  বাজারটা ছিলো আফগান সীমান্তের কাছের কোন গ্রামে.......

যারা বন্দুক কিনছে তারা আবার রাস্তায় ফাকা ফায়ার করে সেগুলো টেষ্ট করছে...পাশদিয়ে পথচারী, মহিলা বাচ্চাকাচ্চা দিব্যি হেটে যাচ্ছে। তাদের কোন ফিলিং নাই । রেগুলার দেখে মনেহয়।   

প্রোগ্রামটা এক ইন্ডিয়ান নিউজ চ্যানেলে দেখছি.

I am not far, but alone. Like a pair of rail tracks in winter morning.............

১৭ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন famay (১৬-০২-২০০৯ ২১:০০)

Re: কী দোষ .................?????

হাশেম ভাইয়ের কথা ধরেই বলি আমিওবহু দেশ ঘুরেছি আর হুমমমমমম পাকি'দের আমারো চেনা আছে! কিন্তু আমি শুরুতেই বালেছি সে অন্য পাকি'দের মত না! এর কারন হয়তো এটাও হতে পারে সে পাকিস্তানে জীবনে গিয়েছে দু'বার(প্রথম সে যখন ৫ বছরের ছিল,আর শেষ গিয়েছিল গেল ডিসেম্বরে)।
সেটা কোন বিষয় না।

ভাই কোন দেশ কিংবা জাতী নিয়ে কিছু বলতে যাব না! শুধু  এটুকু জানতে চাইবো......আমরা যদি একজন মানুষকে মানুষ হিসেবে না তার জাত দিয়ে বিচার করি..তাহলে আমরাই আবার অন্যকে বলতে গেলে বলি সবার উপরে মানুষ সত্য তাহার উপর নেই.....কিংবা জগতে মনুষত্বতের ধর্মই বড়....অথবা মানুষ সবাই সমান.... এই জাতীয় নীতি বাক্যগুলো তো আমরা বেশ আওড়ে যাই! তখন কোথায় থাকে আমাদের এই সর্থপরের মত মনের সুপ্ত কথা গুলো...........???

আগে বুঝতাম না মানুষ বাংগালী (Bangali বানাণ কী :">) জাতি'কে সুবিদাবাদী কেন বলে! জাক  আমি ওকথায় যেতে চাই না।

বাট হুমমমমমমম.........আপনারা সবাই ঠিক বলছেন আরসলান-এর একটাই দোষ সে পাকিস্তানি। মানুষ হইলে কী হবে সে পাকিস্তানি তার কোন আধিকার নেই ভালোবাসার....।

আমরা আমাদের অহংকারের কাছে কেন মাথা নত করবে......? অহংকারই আসল!!!!
দুনীয়াতে মানুষ অনেক বেশী হয়েগেছে আরসলানের মতন ৩/৪ মরলেও কিছু হবে না!

১৮

Re: কী দোষ .................?????

famay লিখেছেন:

সে সময় আরসলান আমাকে একটা প্রশ্ন করে..."ইয়ার সাইফ....ম্যায় পাকিস্তানি হু ইস মে মেরি কিয়া গালাতি হ্যায়.....????"
  জাবাটা আমি দিতে পারিনি!

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস পড়লে আমার কান্না পায় । কেন পায় ? আমি বাঙ্গালী , এটা কি আমার দোষ ?

বাঙ্গালী হলে এইটুকু কষ্ট তো পেতেই হবে । আর, পাকিস্তানী হলেও এর জন্য বাঙ্গালীদের ঘৃনা পেতে হবে । কারো কিছু করার নেই ।

"I know not with what weapons World War III will be fought, but World War IV
will be fought with sticks and stones."
    -Albert Einstein

১৯

Re: কী দোষ .................?????

famay লিখেছেন:

দুনীয়াতে মানুষ অনেক বেশী হয়েগেছে আরসলানের মতন ৩/৪ মরলেও কিছু হবে না!

এতক্ষণ যাও একটু-আধটু সহানুভুতি ছিলো আরসলানের জন্য। এখন আর নেই। একটা মেয়ের ভালোবাসা না পেয়ে যে মরে যেতে পারে, তার থেকে দুরে থাকাটাই মঙ্গলজনক। পৃথিবীতে এই ছেলের কোনরকম দায়িত্বজ্ঞান নেই। একটা মেয়ে ছাড়াও দুনিয়াতে তার আরও অনেক দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। সেগুলোকে যে সিরিয়াসলি নিতে পারে না। কে জানে, কোনদিন সে এই মেয়েকেও সিরিয়াসলি নিতে পারবে না। মেয়ের পূর্ব-কাহিনী জেনেও যে ছেলে রূপে মুগ্ধ হয়ে প্রত্যাখ্যাত হয়ে মরার ইচ্ছে পোষণ করে। তার প্রতি কোনরকম করুণা দেখানোই বৃথা।

২০

Re: কী দোষ .................?????

টপিকটাতে ২টা ব্যাপার ছিল।
১) প্রেম,
২) '৭১ + পাকিস্থানী

টপিকের শুরুতে দুটোর গুরুত্ব ছিল বলা যায় ৮০%-২০% এমন।
কিন্তু এখন টপিক যে দিকে মোড় নিচ্ছে তাতে মনে হয় এটা ১০%-৯০% হয়ে গেছে। বলা যায় না কয়েকদিন পরে হয়ত এটাকে রাজনীতি বিভাগে নিতে হবে।

সেদিন মারফির সুত্র পড়ছিলাম। লিঙ্ক পেয়েছিলাম তারানার কাছ থেকে। তাকে ধন্যবাদ। সেখানে একটা সুত্র ছিল এমন।

আপনি যদি আপনার প্রেয়সীকে বলেন তাকে ছাড়া আপনি বাঁচবেন না, সে আপনাকে তখুনি ছাড়ল বলে।

পুনশ্চ:
মারফির সব প্রেমসুত্র দেখি আমার মুখস্থ হয়ে গেছে। nailbiting

Feed থেকে ফোরাম সিগনেচার, imgsign.com
ব্লগ: shiplu.mokadd.im
মুখে তুলে কেউ খাইয়ে দেবে না। নিজের হাতেই সেটা করতে হবে।

শিপলু'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত