টপিকঃ শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে (আইপিএল) তার প্রিয় দল কলকাতা নাইটরাইডার্স এবং পাঞ্জাব কিংস একাদশ। প্রিয় অভিনেতা শাহরুখ খান। প্রিয় ক্রিকেটার সৌরভ গাঙ্গুলী। কী আশ্চর্য, আইপিএলের দ্বিতীয় আসরে সেই শাহরুখ-সৌরভের নাইটরাইডার্সে খেলবেন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ মাশরাফি মর্তুজা। প্রীতি জিনতাকে হারিয়ে শাহরুখ খান ছয় লাখ ডলারে কিনে নিয়েছেন মাশরাফিকে। বাংলাদেশী মুদ্রায় প্রায় ৪ কোটি ১৪ লাখ টাকা (৬৯ টাকা প্রতি ডলার হিসাবে)। শুক্রবার গোয়ায় অনুষ্ঠিত আইপিএলের নিলামের শুরুতে তার দর ওঠে ৫০ হাজার ডলার। পাঞ্জাব কিংস একাদশের মালিক প্রীতি জিনতা চার লাখ ডলার পর্যন্ত গিয়ে থেমে যান। এরপরই শাহরুখের কলকাতা নাইটরাইডার্সের পক্ষে বলিউড অভিনেত্রী জুহি চাওলা মাশরাফির দাম ছয় লাখ ডলার হেঁকে তাকে ছোঁ মেরে কেড়ে নেন প্রীতি জিনতার কাছ থেকে। জুহি চাওলা নাইটরাইডার্সের অন্যতম কর্ণধার এবং শাহরুখের ব্যবসায়িক অংশীদার।
বাংলাদেশ দলের সহ-অধিনায়ক মাশরাফির মতো অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুলের ভাগ্য এতটা সুপ্রসন্ন হয়নি। আইপিএলে তিনিও দল পেয়েছেন। তবে সাকিব আল হাসান এবং তামিম ইকবালের মতো আশরাফুলকে নেয়ার ব্যাপারে নিলামের মূল পর্বে কোন দল আগ্রহ না দেখালেও শেষ পর্যন্ত দল পেয়েছেন আশরাফুল। নিলামে অবিক্রীতদের মধ্য থেকে খেলোয়াড় বেছে নেয়ার সুযোগ কাজে লাগিয়ে আশরাফুলকে কিনে নিয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। নিলামে আশরাফুলের জন্য সর্বনিু দর ছিল ৭৫ হাজার ডলার। সে দামেই তাকে নিয়েছে শচীন টেন্ডুলকারের দল। মাঠে তার পারফরম্যান্সের প্রভাব পড়েছে আইপিএলেও। সাকিবের সর্বনিু দর ছিল ৭৫ হাজার ডলার এবং তামিমের ৫০ হাজার ডলার। এ মুহূর্তে আইসিসির ওডিআই র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষ অলরাউন্ডার সাকিব সুযোগ না পাওয়ায় হতাশ আর সবার মতো মাশরাফিও। আইপিএলের প্রথম আসরে বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে খেলেছিলেন বাঁ-হাতি স্পিনার আবদুর রাজ্জাক।
মাশরাফি প্রথম সুসংবাদ পান জুমার নামাজে যাওয়ার আগে। তামিম ইকবাল তাকে ফোনে সুখবরটা দেন। যুগান্তরের কাছে নিজের অনুভূতি জানাতে গিয়ে নয়টি আন্তর্জাতিক টুয়েন্টি ২০ ম্যাচ খেলা মাশরাফি বলেন, ‘অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। সুযোগ যে পাব এ ব্যাপারে আমি আশাবাদী ছিলাম। তবে ছয় লাখ ডলারে আমাকে ওরা কিনে নেবে, এটা ভাবিনি।’ মাশরাফি বলেন, ‘আমার প্রিয় অভিনেতা শাহরুখ খান। আর প্রিয় ক্রিকেটার সৌরভ গাঙ্গুলী। তাদের দলে খেলব ভাবতেই ভালো লাগছে।’ চুক্তি হবে দু’বছরের জন্য। মাশরাফি এক বছরে পাবেন ছয় লাখ ডলার। সবার জন্য এই নিয়ম প্রযোজ্য। গত বছর চুক্তি হয়েছিল তিন বছরের জন্য। ছয় সপ্তাহের এই টুয়েন্টি ২০ টুর্নামেন্ট শুরু হবে ১০ এপ্রিল। চলবে ২৯ মে পর্যন্ত। এদিকে মাশরাফির জš§স্থান নড়াইলে এ সুসংবাদ পৌঁছার পর আনন্দ-উল াস শুরু হয়ে যায়।
আইপিএলের এবারের আসরে সবচেয়ে বেশি দাম উঠেছে সাবেক ইংল্যান্ড অধিনায়ক কেভিন পিটারসেন এবং অ্যান্ড্র- ফ্লিনটফের। ১৫ লাখ ৫০ হাজার ডলারে তাকে দলে ভিড়িয়েছে বাঙ্গালোর রয়েল চ্যালেঞ্জার্স। ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার ফ্লিনটফকে একই দামে কিনে নিয়েছে ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস।
নিলামে প্রথম বিক্রি হওয়া ক্রিকেটার হলেন পুল-এফ থেকে বাংলাদেশের মাশরাফি। বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান এবং তামিম ইকবালের মতো অবিক্রীত থেকে যান দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যাশওয়েল প্রিন্স, শ্রীলংকার নুয়ান কুলাসেকারা, ওয়েস্ট ইন্ডিজের রামনরেশ সারওয়ান।
মাশরাফি বলেন, ‘অবশ্যই আমি আনন্দিত। ভারতে খেলতে পারাটা আনন্দের। কলকাতায় আমার অনেক বন্ধুবান্ধব এবং ভক্ত রয়েছে। বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা সেখানে জনপ্রিয়।’
১৭ জন ক্রিকেটারকে আইপিএলের দ্বিতীয় আসরের জন্য নিলামে তোলা হয়। নিলাম স্থায়ী হয় দু’ঘণ্টা।

http://www.jugantor.com/online/content/ … ws0373.htm

রুমেল'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

সাকিবের কি হলো???????????

রুমেল'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

সাকিব পুটি মাছের জালে আটকে গিয়েছে।(y)(y)[-X[-X

Blood group = O+ 
কিভাবে ভাল হওয়া যায়?  হিংষা মানুষকে পশু বানায় , লোভ বানায় অন্ধ।
ম্যানপাওয়ার করে বিদেশে যান বৈধ ভাবে এর জন্য যোগাযোগ করতে পারেন আমার সাথে।

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

কলকাতার মিডিয়া কিন্তু মাশরাফির অন্তর্ভুক্তির বিষয়টিকে মোটেই ভালোভাবে নেয়নি।
বিস্তারিত আনন্দবাজারের লেখাটি পড়ুন।

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

harculis লিখেছেন:

কলকাতার মিডিয়া কিন্তু মাশরাফির অন্তর্ভুক্তির বিষয়টিকে মোটেই ভালোভাবে নেয়নি।
বিস্তারিত আনন্দবাজারের লেখাটি পড়ুন।

এখান শুধু হিজিবিজি-হিজিবিজি লেখা আসে। কি ফন্ট?

রুমেল'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

সাকিব না নেয়ায় খারাপ লেগেছে।

যা আপনার দুর্বলতা, সেটাই আপনার সবচে শক্তিশালী দিক হতে পারে...

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

কাল খবরের কাগজে দেখলাম।আমি নাইট রাডারস এর কোন খেলা মিস করি না।

আমার জন্মের কোন শেষ নাই
ফেসবুকে আমি
টুইটারে আমি

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ????????_??????? (০৭-০২-২০০৯ ২২:০৮)

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

আনন্দবাজারের খবরটি: (৭/০২/২০০৯)

মর্তুজার বিতকির্ত দরে বাংলাদেশকেও
সংসারে এনে ফেললেন শাহরুখ

গৌতম ভট্টাচার্য  ক্যালাঙ্গুটে (গোয়া)

নিলামে প্রচণ্ড লড়াই হতে হতে মাশরাফি মর্তুজার দর যখন দু’কোটিতে উঠে গিয়েছে তখন নাইট রাইডার্স কোচকে কার সঙ্গে কথা বলার জন্য সেলফোন ধরিয়ে দেওয়া হল?

বীরেন রায় রোডের বাড়িতে বসা সৌরভের প্রতিক্রিয়াও কি সমান উত্তেজক হচ্ছিল, চলো, মাশরাফির জন্য যত দূর যাওয়া যায় চলো?

প্রীতি জিন্টা -- তিনি কি ইচ্ছাকৃত ভাবে মাশরাফির দর তুলে দিয়ে টিভি বিশেষেজ্ঞর আন্দাজ মতো শনিবার সকালে সেই ফোনটা করবেন? হ্যালো শাহরুখ , তোমাদের কেমন নাচালাম?

নিলাম শেষ হেয় গেছে সেই কখন ভরদুপুরে। সতেরো জন্য প্লেয়ার -- কে কোন টিমে গেলেন, জনা পঞ্চাশেকের তালিকা থেকে কত টাকা নিয়ে গেলেন, সব হাতের সামনে। সরকারি নথিভুক্ত। তবু লোকে চোখের সামনে কুয়াশা দেখছে কারণ ওপরের প্রশ্নগুলোর জবাব হাতেড় বেড়ানো যে শেষ হয়নি!

এত দিনে দুনিয়ার সবচেয়ে খারাপ ভাবে চেপে রাখা ওপেন সিক্রেট দাঁড়িয়েছে, নাইট রাইডার্স টিমের ম্যানেজমেন্ট মডেল। ক্যাপ্টেন নন, সেখানে ফুটবলের মতো কোচই সর্বেসর্বা।প্লেয়ার সিলেকশন থেকে টিম সংক্রান্ত যাবতীয় ষ্ট্র্যাটেজি সবেতেই তিনি প্রথম। ব্যর্থতায় তাঁর গর্দান প্রথম হাঁড়িকাঠে। ক্যাপ্টেনের নয়। এ হেন প্রবলপরাক্রান্ত জন বুকাননকে শেষ বিকেলের মধ্যাহ্নভোজ টেবিলে দেখা গেল খানিকটা অন্যমনস্ক। নিলামের হ্যাংওভার তখনও মুখেচোখে। কিন্তু কেন? পঞ্জাব ইলেভেনকে হারিয়ে তাঁর টিমই তো মাশরাফিকে ঘরে তুলেছে!

আসলে মাশরাফি মতুর্জার পিছনে প্রায় তিন কোটি টাকা খরচা করার সঙ্গে তখনও ধাতস্থ হতে পারেননি বুকানন। প্রথম প্রেশ্নর উত্তর এখানেই দিয়ে দেওয়া যাক। তাঁকে যে ফোনটা এগিয়ে দেওয়া হেয়ছিল সেটা স্বয়ং শাহরুখ খানের। পরিষ্কার নির্দেশ-সহ; মাশরাফিকে নিতেই হবে।

দ্বিতীয় প্রেশ্নর সম্ভাব্য জবাবেও এ বার চলে আসছি। কলকাতায় বসে যিনি টিম কতOর্পক্ষকে মাঝেমধ্যে এস এম এস করছিলেন সেই নাইট রাইডার্স অধিনায়ককেও এই দরে মাশরাফির রিক্রুটমেন্টে যথেষ্ট উৎসাহী মনে হয়নি। ক্যাপ্টেন এত টাকা খরচা বাড়াবাড়ি মনে করেছেন, কোচের সংশয় ছিল তবু মাশরাফি ২.৯৪ কোটি টাকা-সহ নাইট রাইডার্স সংসারে ঢুকে পড়লেন তার কারণ? ওই যে লিখলাম টিম মালিক চেয়েছেন!

বাজিগরের এত বড় বাজিতে যাওয়ার পিছনে দুটো কারণ আবিষ্কৃত হব হব করছে। প্রথমটা মাশরাফিকে নেওয়া নিছক এক জন প্লেয়ার নিয়োগ হিসেবে দেখছেন না শাহরুখ। তিনি মনে করছেন এই প্লেয়ারকে ছোঁয়ার মাধ্যমে একটা গোটা দেশের সেন্টিমেন্ট ছুঁয়ে ফেললাম। একে নিলাম মানে টিমে বাংলাদেশকেও নিলাম। তার দরজাও খুলে গেল নাইট রাইডার্সের জন্য। তিন কোটি লগ্নির মাধম্যে এমন আবেগ আর শুভকামনা পেলাম যার মূল্য টাকার অঙ্কে হয় না।

প্রথম  পাঁচ

৭.৫ কোটি
অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফ
চেন্নাই সুপার কিংস

৭.৫ কোটি    
কেভিন পিটারেসন
বেঙ্গালুরু রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স
   
৪.৬৫ কোটি
জে পি ডুমিনি
মুম্বই ইণ্ডিয়ান্স
   

৩.১৮ কোটি
টাইরন হেণ্ডারসন
রাজস্থান রয়্যালস

২.৯৪ কোটি
মাশরাফি বিন মতুজা
কলকাতা নাইট রাইডার্স

দ্বিতীয় ব্যাখ্যা; লাইভ টেলিভিশনে যেখানে গোটা দেশ শাহরুখ বনাম প্রীতি দেখছে, সেখানে তিনি বরাবরের ব্যাড লুজার, হারতে চাননি। অথচ তাঁর নিলামে থাকা টিম দু’কোটি দর ওঠামাত্র বুকাননের মতো রণে ভঙ্গ দেবে কি না ভাবছিল। মালিকের অদম্য উৎসাহে অন্যতম কর্তা জিৎ বেন্দ্যাপাধ্যায়কে প্যাডল হাতে তুলেই যেতে হেয়ছে। যতক্ষণ না পঞ্জাব দর হাঁকা বন্ধ করেছে!

আর শেষ প্রেশ্নর জবাবটা নিয়ে নিলাম চলাকালীন যদি বা অস্বচ্ছতা থাকে, আপাতত এতটুকু নেই। সব চুকেবুকে যাওয়ার পরেও প্রীতি যে ভাবে কথায় কথায় মেজাজ হারাচ্ছিলেন বা তাঁর প্রাক্তন বয়েফ্রণ্ড নেস ওয়াদিয়া যে ভাবে মুখ চুন করে ঘুরছেন তা থেকেই পরিষ্কার, মাশরাফির নিলামটা তাঁরা জিততেই এসেছিলেন। পিছনে অন্য কোনও অভিসিন্ধ ছিল না।

নাইট রাইডার্সের শুরু থেকেই ষ্ট্র্যাটেজি ছিল পিটারসেন বা ফ্লিনটফের পিছনে না যাওয়ার। একে তো তাঁদের হাতে থাকা ছ’কোটি টাকা দিয়ে মহাতারকাদের কেনা যাবে কি যাবে না, সেই নিয়ে চরম অনিশ্চয়তা। তা-ও এঁরা থাকবেন টুর্নামেন্টের মাত্র প্রথম তিন সপ্তাহ।ফ্লিনটফকে তাই রেকর্ডসংখ্যক সাড়ে সাত কোটি টাকায় ছিনিয়ে নিয়ে গেল চেন্নাই। পিটারসেনকে বেঙ্গালুরু। একই মুল্যে। বেঙ্গালুরু রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্সের অবশ্য পিটারসেনকে এত আটঘাঁট বেঁধে তোলার পিছনে আর একটা উদ্দেশ্যও কাজ করছে বলে ওয়াকিবহাল মহলের ধারণা।মাল্য যার আভাস আজই দিয়ে রাখলেন। তিন সপ্তাহ থাকলে কী? পিটারসেনকে তিনি রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স অধিনায়ক হিসেবে বিবেচনা করবেন। আসলে মাল্য এবং দ্রাবিড়ের সম্পর্ক অধুনা মমতা আর বুদ্ধের চেয়ে সামান্য কম শীতল। দ্রাবিড়ের আইকন প্লেয়ার হিসেবে চুক্তির ধরনটাই এমন যে তাঁকে বেঞ্চে বসিয়ে রাখলেও পাঁচ কোটি টাকা গুনতে হবে। অতএব বিকল্প বল, হয় খেলিয়ে টাকা দাও, নয়তো না খেলিয়ে। কিন্তু খেলালেও ক্যাপ্টেন করতে হবে কেন?

ধোনি কলেম্বা থেকে নিখাদ ক্রিকেটীয় কারণে ফ্লিনটফকে চেয়ে তুলে নিলেন। মাল্য অক্রিকেটীয় কারণ হিসেবে ছিনিয়ে নিলেন পিটারসেনকে। দুটোই লোকে জানত। তাই হেভিওয়েট দুটো কেনাবেচা বিশেষ কোনও চাঞ্চল্য না ছিড়েয় নিলামসভা বরঞ্চ তৎপর হেয় উঠল তুলনামূলক ভাবে কম পরিচিত নাম নিয়ে।

জো পল ডুমিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার নয়া সেনসেশন। জনশ্রুতি অনুযায়ী ডুমিনিকে চেয়েছিলেন সৌরভ। নাইট রাইডার্স তাঁর জন্য সাড়ে চার কোটি পর্যন্ত উঠেওছিল। নীতা অম্বানীর মুম্বই যাঁকে তুলে নিল ৪.৭৫ কোটি টাকায়। এখানেই প্ল্যান ‘বি’ ছিল নাইট রাইডার্সের ডুমিনিকে পাওয়া যাবে না বোঝা গেলে পরের পছন্দ মাশরাফি।

কেউ অবশ্য আঁচ করেনি তাঁকে নিয়ে এমন কামড়াকামিড় হবে। যেখানে বেস প্রাইসের দশ গুণ বেশি দর উঠবে তাঁর জন্য। শাহরুখ যেমন এ দিকে ফোন আর এস এম এস করছিলেন, তেমনই নেস ওয়াদিয়াকেও তো ফোনে দেখা গেল। ও প্রান্তে? নেস নিজেই জানালেন নামটা -- টম মুডি। পঞ্জাব কিংস ইলেভেনের কোচও তার মানে মাশরাফিকে ক্রিকেটীয় কারণেই উপযুক্ত মনে করেছেন। তাঁর তো আর বাংলাদেশ-বাজার ধরার ক্রিকেট বাণিজ্যিক দৃষ্টিশক্তি ছিল না।

কালকেই লিখেছি গতবারের মেগা নিলামের সেই প্রাসাদোপম ঢং ঢাং ছিল না। তুলনায় অনেক শান্ত। হাইভোল্টেজ গ্ল্যামার আমদানির জন্য তিন বলিউড কন্যা ছিলেন -- শিল্পা শেঠি, জুহি আর প্রীতি। ছিলেন গাওস্কর-শাস্ত্রী-পটৌডি। কোচ হিসেবে বুকানন। শিল্পপতিদের পক্ষে মাল্য, Wমতী অম্বানী আর জয় মেটা। মিডিয়া -- তারাও এ বার সংখ্যায় কম। শব্দ আর আওয়াজের কিচিরমিচিরে প্রথম নিলামে যে বস্তুটা তৈরি হেয়ছিল,দ্বিতীয়বার সেই মশলা কোথায়?

তবু এই নিলামেও নিজস্বতা হাজির ছিল আর বোধ করি তা গোয়ার পরিবেশ উৎপন্ন করল। দারুণ নৈসর্গিক এই ফোর্ট আগুয়েরা হোটেলটা। সমুদ্র আছেড় পড়ছে হোটেলের ড্রিয়ংরুমের সামনে। উঁচু-নিচু রাস্তার এক-একটা খোপে এক-একটা ভিলা। ডিমলাইট। গাছের সারি। পাতার মধ্যে দিয়ে সরু সরু রাস্তা। সংঘর্ষ বা নিলামে দরাদরি ছাড়া পৃথিবীতে সব কিছু এখানে সম্ভব, প্রত্যক্ষদর্শীর প্রথমে তাই মনে হবে।

আর এমন এলিয়ে থাকা স্নায়বিক পরিবেশেই মাশরাফি কিনা আছেড় পড়লেন ২.৯৪ কোটি টাকার চাঞ্চল্য নিয়ে। ললিত মোদী বলে যাচ্ছিলেন, “কী, প্রমাণ হল তো আই পি এল যে অর্থনৈতিক মন্দা প্রুফ!” সমাবেশের ক্রিকেটীয় অংশ ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করছিল এ বার এ ধরনের প্লেয়ারদের দাম বেশি হওয়ারই কথা ছিল। যারা বলটা সিম করে ঠিক জায়গায় রাখবে। বেশি রান হতে দেবে না। আর ঝোড়ো ব্যাটিং করবে টি-টোয়েন্টির মেজাজে। মিডলসেক্সের হেণ্ডারসনের দর যে শেন ওয়ার্নের পরামর্শ মতো এত বেশি দিয়ে রাজস্থান রয়্যালস নিয়ে গেল তার পিছনেও তো একই কারণ।

কিন্তু ক্রিকেটীয় ব্যাখ্যাই তো সব নয়। নিলামের ভেনু ছেড়ে হোটেল-ঘরে ফিরে যাওয়ার আগে ললিত মোদীর সামনে যে হঠাৎ ফেটে পড়লেন প্রীতি জিন্টা। কারণ? না কেন তাঁকে বলা হয়নি নিলামটা টিভিতে লাইভ দেখানো হচ্ছিল? মনে হল, জানলে শাহরুখের মতো লাইভ এত কোটি দর্শকের সামনে তিনিও হারতে চাইতেন না।

দাঁড়াল, একেবারে অপ্রত্যাশিত ঘোড়া মাশরাফির বাজি জয়। ভ্যালেন্টাইন্স ডে-র এক সপ্তাহ আগে ক্রিকেট-ভ্যালেন্টাইন যে তিনি তা নিয়ে অবশ্যই কোনও কুয়াশা নেই।

পুনশ্চ: গোয়ায় ভ্যালেন্টাইন হেয় অবশ্য নিস্তার নেই। দু’মাস বাদেই পরীক্ষা নিতে শুরু করবে ইডেনের দর্শক। সেই পরীক্ষা হবে অনেক কঠিন। অনেক রাক্ষুসে। প্রতিটি হাফভলি, প্রতিটি উইকেট ছুড়ে দেওয়া শট দেখে তারা যদি চেঁচায় এই যে, এই নাকি তিন কোটি টাকার প্লেয়ার!

কলকাতার আরেকটি দৈনিক বর্তমানের খবর (৭/০২/২০০৯):

ক্রোড়পতি বনে গেলেন বাংলাদেশি  ফাস্ট বোলার মাশরাফি মোর্তাজা

অলোক দাশগুপ্ত:
রাতারাতি কোটিপতি বনে গেলেন বাংলাদেশি ফাস্ট বোলার মাশরাফি মোর্তাজা। আই পি এল-এর নিলামে তাঁর ক্ষেত্রে ‘বেস প্রাইস’ যখন ৫০ হাজার ডলার (প্রায় সাড়ে ২৪ লক্ষ টাকা) ঠিক করা হয়েছিল, তখন মাশরাফি কল্পনাই করতে পারেননি, তাঁর দর শেষ পর্যন্ত ছয় লক্ষ ডলার উঠবে। আই পি এল-এর নিলামে দু’বছরের ইতিহাসে এই ভাবে বেস প্রাইসের ১২ গুণ দর পাননি কোনও ক্রিকেটার। গোয়ায় শুক্রবার সকালের নিলামে যখন মোর্তাজার নাম ডাকা হয়, তখন মনে হচ্ছিল তিনি বোধহয় ‘অনাদৃত’ই থেকে যাবেন। একেবারে শেষ মুহূর্তে সাড়া দেয় কলকাতা নাইট রাইডার্স। শাহরুখের দলের প্রতিনিধিরা হয়তো ভেবেছিলেন, আর কেউ মাশরাফিকে চাইবেন না এবং মোটামুটি সস্তাতেই বাংলাদেশি পেসারটিকে তাঁরা পেয়ে যাবেন। কিন্তু জুহির দিকে কড়া চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন প্রীতি জিণ্টা। চড়চড়িয়ে উঠতে থাকে মাশরাফির দর। একজন খেলোয়াড়কে নিয়ে এতক্ষণ ধরে নিলামে দর কষাকষি আর কখনও হয়েছে বলে মনে হয় না।

মাশরাফিকে পেতে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে প্রায় ২ কোটি ৯৪ লক্ষ টাকা ব্যয় করতে হচ্ছে। অনেকেই মনে করছেন, টাকার পরিমাণটা বড্ড বেশি হয়ে গেল। কিন্তু জুহি জানিয়েছেন, নিলামের আগের দিন মুম্বইয়ে আলোচনা করে মাশরাফিকে দলে নেওয়ার সিদ্ধান্তটা তাঁরা কার্যত নিয়েই ফেলেছিলেন। নিলাম চলাকালীন ফোনে শাহরুখের সঙ্গে তাঁদের কথাও হচ্ছিল। শাহরুখ বলেছিলেন, যে কোনও মূল্যে মাশরাফিকে পেতেই হবে। প্রীতি জানিয়েছেন, তাঁদের তালিকায়ও বাংলাদেশের বোলারটির নাম ছিল। ওঁর জন্য যতটা সম্ভব ওঠা দরকার ছিল, ততটাই উঠেছেন তাঁরা।

শোয়েব আখতার এবং উমর গুলকে পাওয়া না যাওয়ায় একজন ভালো পেস বোলারের প্রয়োজন হয়ে পড়ে নাইট রাইডার্সের। এখন প্রশ্ন, মাশরাফিকে পেতে এত টাকা খরচ করার কি সত্যিই কোনও প্রয়োজন ছিল! শন টেট-এর মতো ফাস্ট বোলার কিংবা ওয়েস শাহ্‌র মতো অলরাউন্ডারকে কেন টার্গেট করল না নাইট রাইডার্স? এ ব্যাপারে রাইডার্সের এক প্রভাবশালী কর্তা মন্তব্য করলেন, ‘গতবারের ভুলটা আমরা এবার করতে চাইনি। একগাদা নামী খেলোয়াড়কে সই করিয়ে দেখা গেল আসল সময় তাদের পাওয়া যাচ্ছে না। এমনটা যাতে না ঘটে, সেদিকেই এবার আমাদের প্রধান লক্ষ্য ছিল। শন টেটকে মাত্র ১১ দিনের জন্য পাওয়া যাবে। আর ওয়েস শাহ্‌ খেলতে পারবেন তিন সপ্তাহ। অন্যদিকে পুরো টুর্নামেণ্টেই মাশরাফিকে আমরা ব্যবহার করতে পারব। যথেষ্ট প্রতিভাবান বোলার মাশরাফি। ব্যাটটাও ভালোই করেন। দলে ওঁর উপিস্থতি আমাদের অপশনটা বাড়িয়ে দেবে।’

খুশির হাওয়া ঢাকায়। বলাই বাহুল্য, মাশরাফি নিজেও দারুণ উল্লসিত। বললেন, ‘ভাবতেই পারিনি, এভাবে সুযোগ পেয়ে যাব। দাদার (সৌরভ) নেতৃত্বে খেলব আমি। এটা ভাবতেই পুলকিত হচ্ছি। বাংলাদেশের ক্রিকেটের পক্ষে এই শুক্রবারটা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। আই পি এল-এ আমার এবং আশরাফুলের যোগদান বাংলাদেশের আগামী দিনের ক্রিকেটারদের আরও উৎসাহিত করবে।’

মাশরাফির জন্য নাইট রাইডার্স যে এভাবে ঝাঁপাল, তার পিছনে অনেকেই আরও একটি কারণ দেখছেন। আগের দিনই আই পি এল চেয়ারম্যান ললিত মোদি ঘোষণা করেছেন খুব শীঘ্রই আই পি এল-এর ‘ক্যাচমেণ্ট এরিয়া’ বেড়ে যাবে। চেন্নাই সুপার কিংস-এর খেলা যেমন হবে কলেম্বায়, তেমনই নাইট রাইডার্সের পরিধি বিস্তৃত হবে প্রতিবেশী বাংলাদেশেও। আর তাই এখন থেকেই ওপার বাংলার মানুষকে রাইডার্সের দলে টেনে নিতে চান শাহরুখ-জুহিরা। মাশরাফি মোর্তাজাকে দলে নিয়ে আসলে সেই লক্ষ্যেই পা ফেললেন তাঁরা।

" 'কত বড়ো আমি' কহে নকল হীরাটি। তাই তো সন্দেহ করি নহ ঠিক খাঁটি॥ " - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

উন্মাতাল_তারুণ্য'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-nd 3. এর অধীনে প্রকাশিত

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

আশা করি ঢাকা ওয়ারিয়র্সের মত মাশরাফি আশরাফুলরাও চমক দেখাবে
আর কলকাতার দাদাদের মুখেও চুনকালি পড়বে

১০

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

মাশরাফিকে দিয়ে তাও কিছু আশা আছে, আশরাফুলকে দিয়ে কোনই ভরসা পাই না রে ভাই.....

" 'কত বড়ো আমি' কহে নকল হীরাটি। তাই তো সন্দেহ করি নহ ঠিক খাঁটি॥ " - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

উন্মাতাল_তারুণ্য'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-nd 3. এর অধীনে প্রকাশিত

১১

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

উন্মাতাল_তারুণ্য লিখেছেন:

মাশরাফিকে দিয়ে তাও কিছু আশা আছে, আশরাফুলকে দিয়ে কোনই ভরসা পাই না রে ভাই.....

একেবারে মনের কথা বলেছেন।(y)

রুমেল'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১২ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন arif16 (০৮-০২-২০০৯ ১১:৪৭)

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

উন্মাতাল_তারুণ্য লিখেছেন:

মাশরাফিকে দিয়ে তাও কিছু আশা আছে, আশরাফুলকে দিয়ে কোনই ভরসা পাই না রে ভাই.....

আসলে আইপিএল এর মত টোয়েন্টি টোয়েন্টি লিগে মাশরাফি এবং আশরাফুল -দুজনই খুব ভালো করতে পারে,আবার খারাপও করতে পারে-কেননা এটা ছোটো পরিসরের ম্যাচ। অধিকাংশ সময়ই টাইমিং ঠিক হলে ছক্কা বা চার, নাহলে আউট।যেকোন সময় ম্যাচের গতি পাল্টে দিতে পারে যে কেউ।

যা আপনার দুর্বলতা, সেটাই আপনার সবচে শক্তিশালী দিক হতে পারে...

১৩ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন নিপু (১২-০২-২০০৯ ১৯:০৯)

Re: শাহরুখ সৌরভের দলে ৬ লাখ ডলারে মাশরাফি

arif16 লিখেছেন:

....
আসলে আইপিএল এর মত টোয়েন্টি টোয়েন্টি লিগে মাশরাফি এবং আশরাফুল -দুজনই খুব ভালো করতে পারে,আবার খারাপও করতে পারে-কেননা এটা ছোটো পরিসরের ম্যাচ। অধিকাংশ সময়ই টাইমিং ঠিক হলে ছক্কা বা চার, নাহলে আউট।যেকোন সময় ম্যাচের গতি পাল্টে দিতে পারে যে কেউ।

ভাই আপনার কথা ঠিক।
আইসিএল (টুয়েন্টি টুয়েন্ট ম্যাচ) খেলা আমার কাছে খুবি ভাল লাগে, কারণ এতে সময় অনেক কম লাগে।এবং আমাদের সবারি অনেক সময় বাচে thumbs_up brokenheart

Blood group = O+ 
কিভাবে ভাল হওয়া যায়?  হিংষা মানুষকে পশু বানায় , লোভ বানায় অন্ধ।
ম্যানপাওয়ার করে বিদেশে যান বৈধ ভাবে এর জন্য যোগাযোগ করতে পারেন আমার সাথে।