সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ??? (১৮-০৪-২০০৭ ১৫:০৩)

টপিকঃ জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা সংক্রান্ত আজকের একটি প্রতিবেদন।

দৈনিক দিনকাল "১৮/০৪/০৭" এর মতে জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা আওয়ামী লীগ নেতা শেখ আবদুল্লাহর গুলশানের বাসায় যৌথ বাহিনী অভিযান চালায়শায়খ আবদুর রহমান এবং বাংলাভাইকে অর্থ যোগানদাতা এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহর গুলশানের বাসভবনে গতকাল মঙ্গলবার বিকালে যৌথবাহিনী অভিযান চালিয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছেন, এই বাসা থেকে আপত্তিকর কিছু কাগজপত্র উদ্ধার করে নিয়ে গেছে যৌথবাহিনী। তবে যৌথবাহিনী এ ব্যাপারে কোন তথ্য দেয়নি। এর আগে ১০ এপ্রিল যৌথবাহিনী শেখ আবদুল্লাহর গোপালগঞ্জের বাড়িতে অভিযান চালায়। গ্রামের বাড়ি থেকে বিভিন্ন সরকারি অফিসের সিল ও কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়।
আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিলের সবুজ সংকেত নিয়েই শেখ আবদুল্লাহ জঙ্গি নেতা শায়খ আবদুর রহমান, বাংলাভাই, আতাউর রহমান সানি ও আউয়ালদের সঙ্গে যোগাযোগ ¯’াপন করেন এবং টাকা সরবরাহ করেন। এই টাকা দিয়েই তারা ভারত থেকে বিস্ফোরক দ্রব্য এনে দেশে সন্ত্রাস সৃষ্টি এবং মানুষ হত্যা করে। গত ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট দেশব্যাপী বোমা হামলার পর থেকে শেখ আবদুল্লাহর নাম প্রকাশ হয়। আওয়ামী যুব লীগ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মির্জা আজমের ভাগ্নি জামাই আউয়াল এবং বেয়াই সানি কোর্টে ১৬৪ ধারায় প্রদত্ত জবানবন্দীতে আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদকের নাম প্রকাশ করে। জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা ছাড়াও শেখ আবদুল্লাহ দুর্নীতিবাজদের দ্বিতীয় তালিকাভুক্ত। তিনি পলাতক রয়েছেন,

"We want Justice for Adnan Tasin"

Re: জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা সংক্রান্ত আজকের একটি প্রতিবেদন।

আউল লিখেছেন:

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিলের সবুজ সংকেত নিয়েই শেখ আবদুল্লাহ জঙ্গি নেতা শায়খ আবদুর রহমান, বাংলাভাই, আতাউর রহমান সানি ও আউয়ালদের সঙ্গে যোগাযোগ ¯’াপন করেন এবং টাকা সরবরাহ করেন। এই টাকা দিয়েই তারা ভারত থেকে বিস্ফোরক দ্রব্য এনে দেশে সন্ত্রাস সৃষ্টি এবং মানুষ হত্যা করে।

এইটুকু কি আপনার বক্তব্য? যদি তাই হয় তাহলে তো আপনি দেখছি এই সম্পর্কে অনেক খবর জানেন। আপনি এক কাজ করেন আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে এই যান এবং তাদের এই তথ্যগুলো দেন। আর না হয় আপনার ঠিকানা দেন আমিই তাদের অনুরোধ করি যাতে তারা আপনার দর্শন লাভে কৃতার্থ হয়।

Re: জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা সংক্রান্ত আজকের একটি প্রতিবেদন।

এই প্রতিবেদন প্রজন্ম ফোরাম ছাড়া আর কোথায় প্রকাশিত হয়েছে??

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা সংক্রান্ত আজকের একটি প্রতিবেদন।

এই প্রতিবেদন আজকের একটি দৈনিকে প্রকাশিত হয়েছে এবং সেই অনুযায়ী আমি বলেছি, "জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা সংক্রান্ত আজকের একটি প্রতিবেদন"

"We want Justice for Adnan Tasin"

Re: জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা সংক্রান্ত আজকের একটি প্রতিবেদন।

আউল লিখেছেন:

এই প্রতিবেদন আজকের একটি দৈনিকে প্রকাশিত হয়েছে এবং সেই অনুযায়ী আমি বলেছি, "জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা সংক্রান্ত আজকের একটি প্রতিবেদন"

ভাই এইটা কোন দৈনিকের লেখা? উত্তর যদি হয় দিনকাল বা জনকন্ঠ তাইলে আপত্তি আছে সাথে আপনারে একটা অনুরোধ এই দুই দৈনিকের লেখা কোট কইরা পোষ্ট দিয়েন না।

Re: জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা সংক্রান্ত আজকের একটি প্রতিবেদন।

এটা দিনকালের পত্রিকা থেকে কোট করা। আর আপনার কথানুযায়ী এই দু'টা পত্রিকার কোন নিউজ কোট করবোনা।
আমার কাছে বিষয়টি অবাক হওয়ার মত মনে হওয়ায়, আমি নিউজটি কোট করেছিলাম।

"We want Justice for Adnan Tasin"

Re: জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা সংক্রান্ত আজকের একটি প্রতিবেদন।

আউল লিখেছেন:

এটা দিনকালের পত্রিকা থেকে কোট করা। আর আপনার কথানুযায়ী এই দু'টা পত্রিকার কোন নিউজ কোট করবোনা।
আমার কাছে বিষয়টি অবাক হওয়ার মত মনে হওয়ায়, আমি নিউজটি কোট করেছিলাম।

তাই নাকি tongue_smile আপনি অ.....বাক হয়েছেন তাই এটা লিখেছেন কিন্তু আপনার লেখায় কি  তা  বলা  উচিত ছিলনা? যদি বলতেন তাইলে তো এত কথা বলতে হইত না।

আউল লিখেছেন:

দৈনিক দিনকাল "১৮/০৪/০৭" এর মতে জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা আওয়ামী লীগ নেতা শেখ আবদুল্লাহর গুলশানের বাসায় যৌথ বাহিনী অভিযান চালায়শায়খ আবদুর রহমান এবং বাংলাভাইকে অর্থ যোগানদাতা এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহর গুলশানের বাসভবনে গতকাল মঙ্গলবার বিকালে যৌথবাহিনী অভিযান চালিয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছেন, এই বাসা থেকে আপত্তিকর কিছু কাগজপত্র উদ্ধার করে নিয়ে গেছে যৌথবাহিনী। তবে যৌথবাহিনী এ ব্যাপারে কোন তথ্য দেয়নি। এর আগে ১০ এপ্রিল যৌথবাহিনী শেখ আবদুল্লাহর গোপালগঞ্জের বাড়িতে অভিযান চালায়। গ্রামের বাড়ি থেকে বিভিন্ন সরকারি অফিসের সিল ও কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়।
আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিলের সবুজ সংকেত নিয়েই শেখ আবদুল্লাহ জঙ্গি নেতা শায়খ আবদুর রহমান, বাংলাভাই, আতাউর রহমান সানি ও আউয়ালদের সঙ্গে যোগাযোগ ¯’াপন করেন এবং টাকা সরবরাহ করেন। এই টাকা দিয়েই তারা ভারত থেকে বিস্ফোরক দ্রব্য এনে দেশে সন্ত্রাস সৃষ্টি এবং মানুষ হত্যা করে। গত ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট দেশব্যাপী বোমা হামলার পর থেকে শেখ আবদুল্লাহর নাম প্রকাশ হয়। আওয়ামী যুব লীগ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মির্জা আজমের ভাগ্নি জামাই আউয়াল এবং বেয়াই সানি কোর্টে ১৬৪ ধারায় প্রদত্ত জবানবন্দীতে আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদকের নাম প্রকাশ করে। জঙ্গিদের অর্থ যোগানদাতা ছাড়াও শেখ আবদুল্লাহ দুর্নীতিবাজদের দ্বিতীয় তালিকাভুক্ত। তিনি পলাতক রয়েছেন,

উপরের লেখায় আপনি কোথায় লিখেছেন যে আপনি অবাক হইছেন?