টপিকঃ স্বপ্নের পদ্মা সেতু

পদ্মা সেতু নির্মাণ নিয়ে সবসময় আলোচনা সমালোচনা হওয়ার কারণ কী?

স্বপ্নের পদ্মা সেতু। অনেক গর্বের বিষয়। আমার বাসা থেকে কর্মস্থল রংপুরের দুরত্ব ৫০ কিলোমিটারের কিছুটা কম কিংবা বেশি। যানবাহনের ক্যাটাগরি অনুযায়ী ভাড়া পড়ে ৪০ থেকে ৭০ টাকা। আমাদের অনেক গর্বের পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার, এই দুরত্ব অতিক্রম করতে হলে আপনাকে গুনতে হবে যানবাহন বিশেষে ১০৫ থেকে ২৭৭৫ টাকা। (জানিনা ঢাকা থেকে মুন্সিগঞ্জ ভাড়া কত) । শুধু তাই নয় এই অ্যামাউন্টের পরিমাণ প্রতিবছর ১০% হারে বাড়বে আগামী ৩৫ বছর পর্যন্ত ।

https://qph.fs.quoracdn.net/main-qimg-7beb5f3e5888890e346160acd843fade-lq

৪.৮ কিলোমিটার দীর্ঘ যমুনা ব্রীজ তৈরীতে সময় লেগেছিল ৫ বছরের মতো , বাজেট ছিল ৩৭৪৬ কোটি টাকা। স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কাজ এখন ৬ষ্ঠ বছরে চলছে। বাজেট ৩০ হাজার ১ শত ৯৩ কোটি টাকা!

https://qph.fs.quoracdn.net/main-qimg-ff88030ad2715fada3fdb41ced289b5f-lq

উত্তর বঙ্গের মানুষ হওয়ায় পদ্মা সেতু নিয়ে আমার কোন মাথা ব্যথা নাই। আমি এখনো দেশের নাগরিক হইনাই । তাই সরকারকে আমার কোন ট্যাক্সও দিতে হয়না। যারা ট্যাক্স দেন তাদের ব্যাপারটা নিয়ে ভাবা উচিত ছিল।

এর আগে দুর্নীতির অভিযোগে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন থেকে সরে দাঁড়িয়েছিল বিশ্ব ব্যাংক। পদ্মা সেতু নিয়ে নিজেদের মধ্যেই শুরু হয়েছিল হাসাহাসি। এমন সময় মানুষকে স্বপ্ন দেখালেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নেতাদের কাজই প্রতিদিন দুই চারটা করে স্বপ্ন দেখানো। বাস্তবায়নের কোন কারবার নাই। পদ্মা সেতুর ক্ষেত্রেও সেরকমই হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু শেখ হাসিনা যেন জিদ করেছিলেন, বিশ্ব ব্যাংককে দেখিয়ে দেবেন। দেখিয়ে দেবেন সারা দুনিয়াকে। তাদের সহায়তা ছাড়াও বাংলাদেশ পারে, পারে বাংলাদেশের মানুষেরা। এই কৃতিত্ব একজন স্বপ্নবাজ নেত্রীর, এর কৃতিত্ব বাংলাদেশের প্রতিটা মানুষের। পদ্মা সেতু অবশ্যই দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে এটা দেশের সবার স্বীকার করতেই হবে।

#সংগৃহীত

"We want Justice for Adnan Tasin"