টপিকঃ মধ্যবিত্ত !

মধ্যবিত্ত মানুষের স্বপ্ন টাই মধ্যবিত্ত টাইপের হয়। সে বড় স্বপ্ন দেখেই না। অথবা এটা বলা ভালো স্বপ্ন দেখতেই সাহস পায় না।

তাকে, তার ছোট্ট বেলা থেকেই বলা হয় মন দিয়ে পড়াশোনা করে একটা চাকরী করতে হবে।

সংসার করতে হবে আর শেষে মরে যেতে হবে। সব কিছুই একদম নির্দিষ্ট থাকে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুসারে কারো বৃত্ত ছোট আর কারো বৃত্ত একটু বড় হয়।

কিন্তু মধ্যবিত্ত মানসিকতা থেকে তারা কখনোই বেরোতে পারে না।

মধ্যবিত্তরা নিজেদের স্বপ্নের জন্য বাঁচে না, তারা অন্যদের দেখানো স্বপ্নকে নিয়ে বাঁচে।

মধ্যবিত্ত দের সবথেকে বড় বাজে অভ্যাস হল তাদের সন্তানদের স্বপ্নগুলো তারাই তৈরি করে দেয়।

সন্তানদের তারা স্বপ্ন দেখতেই শেখায় না।

আপনি যদি মধ্যবিত্ত হন তাহলে আপনাকে নিশ্চয় শুনতে হয়েছে মন দিয়ে পড়াশোনা কর , শিক্ষিত হও ও যোগ্যতা অনুযায়ী চাকরী কর।

এর বাইরে আর কোন কথা একজন মধ্যবিত্ত পিতামাতা তার সন্তানকে বলেন না। তাহলে তার সন্তান বড় হয়ে মধ্যবিত্ত ই হবে , এর বাইরে আর কি?

কিন্তু যদি কোন পিতামাতা তার সন্তানকে এই কথা বলেন যে, মন দিয়ে পড়াশোনা কর, শিক্ষিত হও, আর নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী নিজের দেখা স্বপ্ন গুলোকে সফল করার জন্য সবথকে বেশি যে চেষ্টা টা করা যায় সেটা কর।

এই কথাগুলোর মধ্যে অনিশ্চয়তা আছে। আর, মধ্যবিত্তরা চায় নিশ্চিত জীবন। তাই এই কথা বলা রীতিমত দুঃসাহসের ব্যাপার।

একজন মানুষের কাছে দুটো জিনিসের মধ্যে কোনটা দামী ? টাকা না সময়?

আপনি যদি মধ্যবিত্ত হন তাহলে আপনার কাছে দামী হবে টাকা। আর আপনি যদি মধ্যবিত্ত মানসিকতা থেকে বেরোতে পেরেছেন তাহলে আপনার কাছে দামী হবে সময়।

আপনার মধ্যবিত্ত থেকে উপর দিকে ওঠার মধ্যে মূল বাধা হল এই একটি।

ধরুন কোন একটা জিনিস ৬০ টাকায় আপনার কাছের একটি দোকানে পাওয়া যাচ্ছে। আবার ওই জিনিসটাই আপনার অঞ্চল থেকে বেশ খানিকটা দূরে ৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। তবে তার জন্য আপনাকে কিছুক্ষণ লাইন দিতে হতে পারে।

এবার একজন মধ্যবিত্ত মানুষ ওই টাকাটা বাঁচানোর জন্য দূরেই যাবার কথা ভাববে। কিন্তু একজন ধনী বা উচ্চবিত্ত কখনোই সে রকম করবে না।

সে কাছের দোকান থেকেই সেটা কিনবে ও সময় বাঁচাবে। কারণ সে জানে ওই সময়ে সে ওই দশ টাকার থেকে বেশি উপার্জন করে নেবে।

তার কাছে সেই সিস্টেম আছে।

একজন মধ্যবিত্তের কাছে সেই সিস্টেম নাই বা সে , সেটা তৈরি করার কথা কোনদিন ভাবেই নি। ওই যে স্বপ্ন দেখার কথা আগে বললাম, সেটাই।

মধ্যবিত্তের, মধ্যবিত্ত থাকার মূল দুটো কারণ হল স্বপ্ন না দেখা ও সময়ের সঠিক ব্যবহার না করা। বাকি সব কারণ এই দুটোর মধ্যেই লুকিয়ে আছে।

#সংগৃহীত

"We want Justice for Adnan Tasin"