সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন মরুভূমির জলদস্যু (০৫-০৬-২০২১ ১৩:৫১)

টপিকঃ এপিটাফ – হুমায়ূন আহমেদ (কাহিনী সংক্ষেপ)

বইয়ের নাম :     এপিটাফ    
লেখক :     হুমায়ূন আহমেদ   
লেখার ধরন :     উপন্যাস   
প্রথম প্রকাশ :     জুন ১৯৯৫   
প্রকাশক :     অন্যপ্রকাশ   
পৃষ্ঠা সংখ্যা :     ১২৬ টি   
       
https://i.imgur.com/cp4sHOe.jpg       
       
সতর্কীকরণ : কাহিনী সংক্ষেপটি স্পয়লার দোষে দুষ্ট       
       
       
কাহিনী সংক্ষেপ :       
স্কুল পড়ুয়া এক কিশোরীর গল্প এটা। মেয়েটির নাম নাতাশা। তার বাবা আর মায়ের মাঝে তেমন বনিবনা হচ্ছে না বলে তার অনেকটা আলাদা থাকেন বলা চলে। নাতাশার বাবা প্রথমে ভালো চাকরি করতেন। সেই চাকরি ছেড়ে দিয়ে আরেকটা চাকুরি নেন, আবার ছাড়েন। শেষে ব্যবসায় শুরু করেন, সেই সাথে শুরু করেন মদ্য পান। পরে অবস্থা এমন দাঁড়ায় যে, স্ত্রীর গয়না চুরি করে নিয়ে বিক্রি করে ফেলে। বর্তমানে ব্যবসার জন্য তিনি বান্দরবনে আছে।

নাতাশার মা ছোট্ট একটি চাকরি করেন, কোন রকমে সংসার চলে। এই সময় নাতাশার অসুখটা ধরা পরে। তার ব্রেনে একটা টিউমার হয়েছে। দিন দিন সে শুকিয়ে যাচ্ছে। ডাক্তার বুঝতে পারছেন অবস্থা খুব খারাপ। দেশে অপারেশান সম্ভব না, এ্যামেরিকায় অপারেশান করাতে হবে। সব মিলিয়ে ১২/১৫ লাখ টাকা খরচ হবে। নাতাশার মা তার চেনা, পরিচিত, আত্মিয়, সবার কাছে টাকা ধার চেয়ে বেড়াচ্ছেন। নাতাশার নানা নানু কিছু টাকা দেয়, বড় ফুপার কাছ থেকে কিছু যোগার হয়। এভাবে নানান জনের কাছ থেকে টাকা জোগার হয়। তাদের ভিসা হয়ে যায়। যাওয়ার ডেটও ঠিক হয়।

নাতাশা তার অসুখের পর থেকে একটি ডায়রি লিখতে শুরু করে। সে বুঝতে পারে তার অসুখটা এতটাই খারাপ যে সে আর বাঁচবে না। নাতাশা তার নানান অভিজ্ঞতার কথা তার অনুভূতির কথা সেই ডাইরিতে লিখে রাখতে থাকে। শেষ দিকে যখন তাদের এ্যামেরিকায় যাওয়ার সময় হয়ে আসে তখন সে তার প্রিয়জনদের কাছে কিছু চিঠি লিখে রেখে যায়। প্রথম চিঠিটি লিখে তার বুয়াকে, তারপর তার নানু, বাবা আর মাকে।

কথা ছিলো নাতাশার মা তাকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য যাবে, পরে যদি টাকা যোগার হয় তাহলে তার বাবা যাবে। কিন্তু নাতাশার মা যেদিন টিকিট নিয়ে আসেন সেদিন দেখা যায় তিনি তার জন্য টিকিট না কিনে নাতাশার বাবার জন্য টিকিট কিনে এনেছেন। তারপর দিন চলে আসে চলে যাওয়ার, গভীর রাতে নাতাশাকে বিদায় দিতে অনেক পরিচিত আর অত্মিয়রা হাজির হন এ্যায়ারপোর্টে। শুধু নাতাশার মা নাতাশার নানুকে নিয়ে এ্যায়ারপোর্টের বাইরে বসে থাকে।
       
----- সমাপ্ত -----       
       
       
=======================================================================

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: এপিটাফ – হুমায়ূন আহমেদ (কাহিনী সংক্ষেপ)

আমার লেখা হুমায়ূন আহমেদের সমস্ত কাহিনী সংক্ষেপ সমূহ       
       
আমার লেখা অন্যান্য কাহিনী সংক্ষেপ সমূহ:       
ভয়ংকর সুন্দর (কাকাবাবু) - সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়       
মিশর রহস্য (কাকাবাবু) - সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়       
খালি জাহাজের রহস্য (কাকাবাবু) - সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়       
ভূপাল রহস্য (কাকাবাবু) - সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়       
পাহাড় চূড়ায় আতঙ্ক (কাকাবাবু) - সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়       
সবুজ দ্বীপের রাজা (কাকাবাবু) - সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়       
       
আট কুঠুরি নয় দরজা - সমরেশ মজুমদার       
তিতাস একটি নদীর নাম - অদ্বৈত মল্লবর্মণ       
       
ফার ফ্রম দ্য ম্যাডিং ক্রাউড - টমাজ হার্ডি       
কালো বিড়াল - খসরু চৌধুরী       
মর্নিং স্টার - হেনরি রাইডার হ্যাগার্ড       
ক্লিওপেট্রা - হেনরি রাইডার হ্যাগার্ড       
       
অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল - ০১ : রাইডারস ফ্রম দ্য নর্থ (কাহিনী সংক্ষেপ) : পর্ব - ০১, পর্ব - ০২পর্ব - ০৩পর্ব - ০৪পর্ব - ০৫পর্ব - ০৬পর্ব - ০৭পর্ব - ০৮পর্ব - ০৯পর্ব - ১০       
অ্যাম্পেরার অব দ্য মোগল-২ : ব্রাদার্স অ্যাট ওয়ার - ০১       
অ্যাম্পেরার অব দ্য মোগল-২ : ব্রাদার্স অ্যাট ওয়ার - ০২       
অ্যাম্পেরার অব দ্য মোগল-২ : ব্রাদার্স অ্যাট ওয়ার - ০৩       
অ্যাম্পেরার অব দ্য মোগল-২ : ব্রাদার্স অ্যাট ওয়ার - ০৪

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।