সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন মরুভূমির জলদস্যু (০৫-১১-২০১৯ ১৫:১৪)

টপিকঃ আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

দেশের প্রাচীন স্থাপত্য নিদর্শন দেখার একটা শখ আমার আছে। সুযোগ হলেই দেখার চেষ্টা করি প্রাচীন বাংলার ঐসব আশ্চর্য স্থাপনা।

Save the Heritages of Bangladesh প্রতি মাসের শেষ শুক্রবারে এই সব প্রাচীন স্থাপনা দেখতে যাবার আয়োজন করে। তাদের সাথেই আমার দেখার সুযোগ হয়েছে দেশের অনেক অচেনা-অজানা প্রাচীন স্থাপত্য।

এই এ্যালবামে থাকবে আমার দেখা প্রাচীন মঠের ছবি গুলি। এখানে মঠ বলতে মূলত স্মৃতি-মন্দিরকে বুঝানো হয়েছে।


০০১ : সোনারং জোড়া মঠ

https://i.imgur.com/cH7q3iSh.jpg

সোনারং জোড়া মঠ বাংলাদেশের অষ্টাদশ শতাব্দীর এই প্রত্নতত্ত্ব নিদর্শন। এটি মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ী উপজেলার সোনারং গ্রামে অবস্থিত। কথিত ইতিহাসে জোড়া মঠ হিসাবে পরিচিত লাভ করলেও মুলত এটি জোড়া মন্দির। মন্দিরের একটি প্রস্তর লিপি থেকে জানা যায় এলাকার রূপচন্দ্র নামে হিন্দু লোক বড় কালীমন্দিরটি ১৮৪৩ সালে ও ছোট মন্দিরটি ১৮৮৬ সালে নির্মাণ করেন। ছোট মন্দিরটি মুলত শিবমন্দির। বড় মন্দিরটির উচ্চতা প্রায় ১৫ মিটার। প্রায় ২৪১ ফুট উঁচু এই মঠ দিল্লীর কুতুব মিনারের চেয়েও পাঁচ ফুট উঁচু। তাই এটি ভারত উপমহাদেশের সর্বোচ্চ মঠ।
- উইকিপিডিয়া।

ছবি - নিজ।
ছবি তোলার স্থান - সোনারং গ্রাম, মুন্সীগঞ্জ, বাংলাদেশ।
GPS coordinates : 23°31'20.8"N 90°27'33.1"E
ছবি তোলার তারিখ : ২৯-১২-২০১৭ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

ভাল হয়েছে ভাই নিয়মিত পোস্ট চাই

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০০২ : পালপাড়া মঠ

https://i.imgur.com/4sS7L3th.jpg

ছবি তোলার স্থান : পালপাড়া গ্রাম, আড়াইহাজার, নারায়নগঞ্জ।
GPS coordinates : 23°47'08.3"N 90°39'25.8"E
ছবি তোলার তারিখ : ২৮/১০/২০১৬ ইং

পথের হদিস : ঢাকা > আড়াইহাজার > পালপাড়া গ্রাম > পালপাড়া মঠ।

আড়াইহাজার উপজেলায় থানার কাছাকাছি উত্তর পাশে পালপাড়া গ্রামের মধ্যে এই মঠটি অবস্থিত। মাটি থেকে এর উচ্চতা প্রায় ১২০ ফিট। এর নির্মাণকাল ১৩২২ সনের ১৫ই ফাল্গুন। নিমার্তা সম্পর্কে সঠিক কোন তথ্য পাওয়া যায় না। এই মঠের সামনের দিকে একটি পুকুর আছে যার পাশে এর নির্মাণকালের একটি ফলক রয়েছে।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০০৩ : সেনপাড়া মঠ

https://i.imgur.com/WWoMZtGh.jpg

GPS coordinates : 23°41'57.3"N 90°38'07.2"E
ছবি তোলার স্থান : সেনপাড়া, বারদি, নারায়নগঞ্জ।
ছবি তোলার তারিখ : ২৮/১০/২০১৬ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০০৪ : আমিনপুর মঠ - ১

https://i.imgur.com/QS9cun6h.jpg

ছবি তোলার স্থান : পানাম নগর, সোনারগাঁ, নারায়নগঞ্জ, বাংলাদেশ।
ছবি তোলার তারিখ : ২৮/১০/২০১৬ ইং
GPS coordinates : 23°39'25.9"N 90°36'11.3"E

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০০৫ : লোহাগড়া মঠ

https://i.imgur.com/4DVuGjNh.jpg

ফরিদগঞ্জ উপজেলার চান্দ্রা বাজার থেকে দেড় কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে ‘লোহাগড়া’ গ্রামের মঠটি কিংবদন্তীর সাক্ষী হিসেবে এখনো দন্ডায়মান। পরম প্রতাপশালী জমিদার পরিবারের দু’ভাই ‘লোহা’ ও গহড়’ এতোই প্রভাবশালী ছিলো যে, এরা যখন যা ইচ্ছা তা-ই করতেন এবং তা প্রতিফলিত করে আনন্দ অনুভব করতেন। এই দুই ভাইয়ের নামানুসারে গ্রামের নাম রাখা হয় ‘লোহাগড়’।

ডাকাতিয়া নদীর কূলে তাদের বাড়ির অবস্থানের নির্দেশিকা স্বরূপ সুউচ্চ মঠটি নির্মাণ করেন। তাদের আর্থিক প্রতিপত্তির নিদর্শন স্বরূপ মঠের শিখরে একটি স্বর্ণদন্ড স্থাপন করেন। এই স্বর্ণদন্ডের লোভে মঠের শিখরে ওঠার প্রচেষ্টায় কেউ কেউ মৃত্যুবরণ করেছেন বলে শোনা যায়। এই বৃহৎ স্বর্ণদন্ডটি পরবর্তীকালে ঝড়-তুফানে মঠ শিখর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে নদীতে পড়ে যায় এবং নদী তটের জমি চাষ করার সময় একজন কৃষক পেয়েছিলেন বলে জানা যায়। লোকমুখে শোনা যায়, এই স্বর্ণদন্ডটি প্রায় আড়াই মণ ওজনের ছিলো।

মঠটি এখনও দাঁড়িয়ে আছে দুই ভাইয়ের দোর্দন্ড প্রতাপের নীরব সাক্ষী হয়ে। প্রায় ২০০ বছরের পুরানো লোহাগড়ের মঠটি অত্যাচারী জমিদারদের অত্যাচারের নীরব সাক্ষী হিসেবে আজও মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে।
সূত্র - বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন


ছবি তোলার স্থান : লোহাগড়া, চাঁদপুর, বাংলাদেশ।
GPS coordinates : 23°11'23.0"N 90°43'35.7"E
ছবি তোলার তারিখ : ২৭/০১/২০১৭ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০০৬ : রাম নারায়ণ সাহা ও দূর্গারাণী সাহা জোড়া মঠ

https://i.imgur.com/fI9ZNZeh.jpg

রাম নারায়ণ সাহা ও দূর্গারাণী সাহা জোড়া মঠটির সঠিক অবস্থান খুঁজে পাওয়া খুব সহজ। কারণ এই মঠটি কিশোরগঞ্জের ভাগলপুর মেডিকেল রোডে অবস্থিত "সরারচর শিবনাথ উচ্চ বিদ্যালয়" এর গ্রাউন্ডের ভিতরে অবস্থিত।

ছবি তোলার স্থান : বাজিতপুর, কিশোরগঞ্জ, বাংলাদেশ।
GPS coordinates : 24°13'15.3"N 90°54'02.2"E
ছবি তোলার তারিখ : ২২/০২/২০১৭ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন মরুভূমির জলদস্যু (১২-১২-২০১৯ ১৭:১৪)

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০০৭ : পুড্ডা মঠ

https://i.imgur.com/YquZluQh.jpg

ছবি তোলার স্থান : পুড্ডা, সরারচর, কিশোরগঞ্জ, বাংলাদেশ।
GPS coordinates : 24°14'44.1"N 90°54'40.1"E
ছবি তোলার তারিখ : ২২/০২/২০১৭ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০০৮ : রামচন্দ্র সাহা জোড়া মঠ

https://i.imgur.com/c9MBBASh.jpg

মঠ দুটির একটি রামচন্দ্র সাহার, অন্যটি রামচন্দ্র সাহার স্ত্রী প্রতিমা সুন্দরীর

ছবি তোলার স্থান : সরারচর, কিশোরগঞ্জ, বাংলাদেশ।
GPS coordinates : 24°12'44.1"N 90°54'15.7"E
ছবি তোলার তারিখ : ২২/০২/২০১৭ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১০

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০০৯ : শিবনাথ সাহা মঠ

https://i.imgur.com/pfik9j1h.jpg

শিবনাথ সাহা কটিয়াদীর ও বাজিতপুর অঞ্চলের একটি পরিচিত নাম। ১২৫৫ সালের ১৭ আষাঢ় জোয়ারিয়া কুড়িখাই গ্রামে শিবনাথ সাহা জন্ম গ্রহন করেন। তার পিতার নাম কার্তিক চন্দ্র সাহা, দাদা যাত্রাবর সাহা। শিবনাথ সাহারা ছিলেন দুই ভাই শম্ভুনাথ সাহা ও শিবনাথ সাহা। শিবনাথ সাহার বাবা ও ঠাকুরদার আমলে অর্থনৈতিক অবস্থা তেমন ভাল ছিলনা। তার সময়ই অর্থনৈতিক প্রসার ঘটে এবং তিনি তালুকদার হন। তিনি বাজিতপুরের আলিয়াবাদে বিয়ে করেন।

স্ত্রীর নাম কালীসন্দুরী সাহা। তার পারিবারিক উত্তরসূরীগণ (বর্তমানে কটিয়াদী বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বাবু দিলীপ কুমার সাহা, রতন কুমার সাহা, উত্তম সাহা , বিশ্বনাথ সাহা, কৃষ্ণ পদ সাহা প্রমূখ) মনে করেন এক মাহেন্দ্রক্ষণে মনুষ্য রুপী দুই দেব-দেবী কালি ও শিবের মিলন ঘটে। কিন্তু তাদের কোন পুত্র সন্তান হয়নি। বাবু শিবনাথ সাহা ও কালি সুন্দরীর ঘরে তিন কন্যা সন্তান জন্ম গ্রহন করেন। তাদের নাম বিদ্যাসুন্দরী সাহা, জগৎতারা সাহা ও জয়াদূর্গা সাহা। পুত্র সন্তানের জন্য হয়তো এই দম্পতির অন্তরে একটু দীর্ঘশ্বাস লুকানো ছিল, তাই শিবনাথ সাহা তার অগ্রজ শম্ভুনাথ সাহার ৪র্থ ছেলে সুরেন্দ্রনাথ সাহাকে দত্তক আনেন।

বাবু শিবনাথ সাহা অনেক জনহিতকর কাজ করেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য স্ত্রীর নামে বাজিতপুরে কালিতারা পাঠশালা, বনগ্রামে পিতার নামে কার্তিক চন্দ্র সাহা লাইব্রেরী, ধুলদিয়ায় শিবনগর, কামালপুরে পূজামন্ডপ এবং ইংরেজী ১৯১৮ সনে গোবিন্দপুর উচ্চ বিদ্যালয় স্থাপন করেন যা পরবরতীকালে সরারচর শিবনাথ উচ্চ বিদ্যালয় নাম ধারণ করে। তিনি ১৯২০ সনের ২০শে সেপ্টম্বর একটি ট্রাষ্ট গঠন করেন। এই শিক্ষানুরাগী শিবনাথ সাহা বাংলা ১৩৩১ সনের ১৭ই আষাঢ় নিজ বাসভবনে মৃত্যু বরণ করেন। তার বাড়ীর পাশেই নদীর পাড়ে শিবসাহা শ্মশানঘাট। সেখানেই দীর্ঘ উঁচু শিবসাহা মঠ।
তথ্য সূত্র : নেট

GPS coordinates : 24°16'07.3"N 90°50'18.9"E
ছবি তোলার তারিখ : ২৪/০২/২০১৭ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১১

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০১০ : মঠ সাদৃশ্য প্রার্থনাগৃহ (লক্ষণ সাহা জমিদার বাড়ি পুকুর ঘাট)

https://i.imgur.com/HyS3g0uh.jpg

লক্ষণ সাহা জমিদার বাড়ির সামনে একটি চমৎকার পুকুর রয়েছে। এককালে পুকুরের চার কোনায় চারটি মঠ সাদৃশ্য প্রার্থনাগৃহ ছিল। বর্তমানে এই একটিই মোটামুটি ভালো ভাবে টিকে আছে। দুটি ধ্বংস হয়ে গেছে, আর অন্য আরেকটির ভগ্নাবশেষ দেখা যায় এক কোনায়।

ছবি তোলার স্থান : ডাংগা, পলাশ, নরসিংদী, বাংলাদেশ
GPS coordinates : 23°53'55.3"N 90°35'39.6"E
ছবি তোলার তারিখ : ২৮/০৪/২০১৭ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১২

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

অনেক কিছু জানার আছে। thumbs_up

নামায সবার উপর ফরয করা হয়েছে

১৩

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

খাইরুল লিখেছেন:

অনেক কিছু জানার আছে। thumbs_up

জানার কোনো শেষ নাই  dream

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৪

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০১১ : গোসাই পন্ডিতের মঠ

https://i.imgur.com/rx5LGWxh.jpg

শুধু নামটুকু ছাড়া আর কোনো তথ্যই মঠটি সম্পর্কে জানা নেই আমার।

ছবি তোলার স্থান : ডাংগা, পলাশ, নরসিংদী, বাংলাদেশ।
GPS coordinates : 23°55'17.8"N 90°36'25.2"E
ছবি তোলার তারিখ : ২৮/০৪/২০১৭ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৫

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

০১২ : পাঁচদোনা শিব মন্দির
Panchdona Shib Mondir

https://i.imgur.com/PWy3xVph.jpg

মঠ আকৃতির এই শিব মন্দিরটির ভিতরে একটি মাঝারি আকারের শিবলিঙ্গ আছে। দেখে আমার মনে হয়েছে শিবলিঙ্গটি সিমেন্ট-বালির তৈরি। মঠের বাহিরের দেয়ালে নানান দেব দেবীর মূর্তির অবয়ব তৈরি করা ছিল। সময়ের আবর্তে সেগুলি নষ্ট হয়ে গেলেও এখনো দুই-একটি মোটামুটি অক্ষত আছে।

যদিও এটি শিব মন্দির কিন্তু দেখতে মঠ (স্মৃতি-মন্দির) এর আকৃতি বলে এই এ্যালবামে রাখলাম।

মঠ বা শিব মন্দিরটি কে বা কারা কখন তৈরি করেছে কিছুই আমি জানি না।

ছবি তোলার স্থান : পাঁচদোনা, নরসিংদী, বাংলাদেশ।
GPS coordinates : 23°53'23.5"N 90°39'48.0"E
ছবি তোলার তারিখ : ২৮/০৪/২০১৭ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৬

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

dream আর আছে

১৭

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

Jol Kona লিখেছেন:

dream আর আছে

অনেক অনেক আছে, শত শত আছে।  big_smile

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৮

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

অনেক অনেক আছে, শত শত আছে।  big_smile

দেন না ক্যান তাইলে!

১৯

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

Jol Kona লিখেছেন:
মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

অনেক অনেক আছে, শত শত আছে।  big_smile

দেন না ক্যান তাইলে!

মাঝে মাঝে ব্রেক নেই।  isee

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

২০ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন মরুভূমির জলদস্যু (০২-০৬-২০২০ ১৬:৪৩)

Re: আমার দেখা প্রচীন মঠ সমগ্র

আমার দেখা প্রাচীন মঠ - ০১৩
তাজপুর মঠ / শান্তি বাবুর মঠ / বাবুর বাড়ি মঠ

https://i.imgur.com/DowJXijh.jpg

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার তাজপুর গ্রামে পাশাপাশি তিনটি মঠ দাঁড়িয়ে আছে। এই তিনটি মঠের নাম “তাজপুর মঠ”। মূলত তাজপুর গ্রামে অবস্থিত বলেই মঠ তিনটির এ নামকরণ। তবে এলাকার মানুষ এই মঠ তিনটিকে চেনে “বাবুর বাড়ি মঠ” নামে। অনেকে আবার “শান্তি বাবুর মঠ” নামেও জানেন।

বাংলা ১৩০৫ সনে “শ্রী রমেন্দ্র চন্দ্র সেন” এর স্মৃতি রক্ষার্থে মঠ তিনটি নির্মান করা হয়।

পাশাপাশি দাঁড়িয়ে আছে তিনটি মঠ। মঠ তিনটির আকার , আকৃতি, উচ্চতা একে অন্যের থেকে আলাদা রকমের।

প্রথম মঠটি আকারে সবচেয়ে ছোট। মঠটির চারপাশে চারটি দরজার নকশা করা থাকলেও কোনো দরজা নেই।

দ্বিতীয় মঠটি প্রথমটির তুলনায় বেশ উচু হলেও তৃতীয়টির তুলনায় মাঝারি। মঠটির পেছনের দিকে একটি দরজা রয়েছে। এই মঠটির দরজার উপরে পোড়ামাটির ফলকে ‘বন্দে মা তারাম’ লেখা রয়েছে।
তৃতীয়টির উচ্চতা সবচেয়ে বেশী। এই মঠটি এখানকার মূল আকর্ষণ। এই মঠটির উপরের দিকে চারপাশে ছোট ছোট খুপরি কাটা রয়েছে। এই ছোট ছোট খুপরি প্রচুর টিয়া ও শালিক পাখি বাস করে। মঠটির সামনে বড় একটি দরজা রয়েছে। দরজার উপরে বাংলা অক্ষরে বিচিত্র কিছু লেখা আছে। সম্ভবতো সংস্কৃতি হতে পারে।

মঠগুলির পিছনে বিশাল বড় একটি পুকুর রয়েছে। পুকুরটি শান্তিবাড়ির পুকুর নামে পরিচিত। উলটো পাশে ভেঙ্গে পরা সানবাধানো ঘাটলা আছে।

ছবি তোলার স্থান : তাজপুর, সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ, বাংলাদেশ।
GPS coordinates : 23°34'08.7"N 90°22'03.8"E
ছবি তোলার তারিখ : ১৯/০৫/২০১৭ ইং

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।