টপিকঃ আদনান তাসিন হত্যার বিচার চাই !!

আদনান তাসিন ; স্বপ্ন দেখতো অনেক বড় হবে। St. Joseph Higher Secondary School এ একাদশ শ্রেণীতে অধ্যায়ন করছিল। পিএসসি, জেএসসি, এসএসসি তে জিপিএ ৫ পাওয়া একজন মেধাবী ছাত্র ছিলেন।

এসময়ের সড়কে দুর্ঘটনার নামে হত্যা নৈরাজ্য দেখে আতঙ্কিত ছিল সে। সর্বশেষ(১০ ফেব্রুয়ারি) বাবার সাথে রাতের খাবার খেতে বসে বাবাকে বলেছিল, 'আব্বু তুমি তো ফেইসবুকে লেখালেখি কর, সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধের জন্য কিছু লিখতে পারো না।'
বাবা তখন চুপ করে শুধু কথাগুলো শুনেছিল।

তারপর সব ঠিকই চলছিল। সকালে আদনান কলেজে গেল। তবে, কলেজ থেকে বাসায় ফেরার পথে বিমান বন্দর সড়কে জোয়ার সাহারা(শেওড়া) বাস স্ট্যান্ডে রাস্তা পারাপারের সময় একটা দ্রুত গতিতে ঘাতক বাস পিষে দিল এক রাশ স্বপ্নকে।

কিছুক্ষণের মধ্যেই বাবা জানতে পারে সড়ক দূর্ঘটনায় তার বুকের মানিক মৃত্যু হয়েছে। আকাশ ভেঙ্গে পড়লো বাবা আহসানুল্লাহ'র মাথা।

মৃত্যু হয়েছে! হ্যাঁ পুলিশ বলেছে, মৃত্যু দুর্ঘটনায় হয়েছে। তবে, আমি(ইনজামুল) বলছি, 'এটা দুর্ঘটনা নয়, হত্যা হয়েছে, আর পুলিশ শাক দিয়ে মাছ ডাকছে।'

শেওড়া বাস স্টপ, এখানে একসময় সড়ক পারাপারের জন্য ছিল ফুটওভারব্রিজ। যতদূর তথ্য পেয়েছি মেট্রো রেল এর কাজের জন্য ফুটওভারব্রিজটি সরিয়ে নেয়া হয়েছে। [সূত্র: নিউজ২৪ টিভি]
তবে সাধারণ পথচারীদের চলাচলের জন্য কোন বিকল্প ব্যবস্থাই রাখা হয়নি সেখানে। শুরু হয় জনদুর্ভোগ, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তার মাঝের ডিভাইডার ডিঙিয়ে পারাপার করতে হতো পথচারীদের। ফুটওভার ব্রিজটি সরিয়ে নেওয়ার প্রতিবাদে গত ৭ জুলাই শেওড়ায় মানববন্ধন করেছে সাধারণ পথচারীরা।[সূত্র: যুগান্তর, সমকাল]
তার কিছুদিন পর সারাদেশ জুড়ে নিরাপদ সড়ক আন্দোলন হলে প্রশাসনের টনক নড়ে। যার একটু সুফল পায় শেওড়া বাস স্টপে প্রতিদিন রাস্তা পারাপারকারী পথচারীরা। পথচারীদের পারাপারের জন্য রাস্তার ডিভাইডার ভেঙে রাস্তায় সাদা রং এর দাগ টেনে জেব্রা ক্রসিং তৈরি করে দেয়া হয়।

হ্যাঁ‌। সেই জেব্রা ক্রসিং দিয়েই রাস্তা পারাপার করছিল আদনান তাসিন এবং ঘাতক বাস অতি গতিশীল ছিল। [সূত্র: প্রত্যক্ষদর্শী]

প্রথমতঃ আমি দাবী করছি তাসিন কে হত্যা করা হয়েছে। কারণ তাসিন কে পিষে যাওয়া উত্তরা পরিবহনের ঢাকা মেট্রো ব ১১-৪৫৮৪ নম্বর বাসটি জেব্রা ক্রসিংয়ে গতি কমায় নি। সুতরাং চালক আইন মানেনি এবং একজনকে হত্যা করেছে।

দ্বিতীয়তঃ দুর্ঘটনার পর পুলিশ একটি সাধারণ ডায়েরি করে এবং দুর্ঘটনাস্থলে পড়ে থাকা বাসটি আটক করে। পরবর্তীতে তাসিনের বাবার শক্ত অবস্থানের কারণে আরেকটি মামলা নিতে বাধ্য হয়। কিন্তু ঘটনার প্রায় বিশ দিনেও আসামি গ্রেপ্তার করতে ব্যর্থতা পরিচয় দিয়েছে তারা।
পুলিশ বলেছে, এই দুর্ঘটনার পর কোন আন্দোলন হয় নি, এসবে মামলা করে যথাযথ বিচার পাওয়ার সম্ভাবনা নেই।
সেহেতু পুলিশ তাদের দায়িত্ব যথাযথ পালন করেনি।

#বর্তমানঃ
আমার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। আর তাই হত্যার বিচারের জন্য পুলিশের ভাষ্য অনুসারে তিনি আন্দোলন করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

#প্রশাসনের কাছে প্রশ্ন, বিচার পেতে যদি আন্দোলনের প্রয়োজন হয় তাহলে বেতন দিয়ে বলদ পোষার কি দরকার?



বিমানবন্দর সড়কের বাসের ধাক্কায় সেন্ট যোসেফ কলেজের একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী আদনান তাসিন নিহতের ঘটনায় ঘাতক বাসচালককে আটক ও বিচারের দাবিসহ পাঁচ দফা দাবিতে মানববন্ধন করেছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। রোববার শেওড়া রেলগেট এলাকায় এ মানববন্ধন করেন তারা।

মানববন্ধনে গুলশান ডিগ্রি কলেজ, নিউ লাইফ হাই স্কুল ও প্রাইম ল্যাবরেটরি স্কুল ও কলেজের কয়েকশ’ শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবক অংশ নেন। মানববন্ধনে প্রধান অতিথি ছিলেন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’র চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ঘাতক চালককে আটক করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। বিকল্প ব্যবস্থা না করে কেন ওভারব্রিজ সরানো হল? তা পুনঃস্থাপন করতে হবে। জেব্রা ক্রসিংয়ের দুই পাশে স্পিডব্রেকার, ট্রাফিক পুলিশের ব্যবস্থা করতে হবে। সিগন্যাল লাইট, বাস স্টপেজ ও যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করতে হবে।

মানববন্ধনে অংশ নেয়া প্রাইম ল্যাবরেটরি স্কুল ও কলেজের ১০ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী নুরুজ্জামান প্রিন্স বলেন, বিকল্প ব্যবস্থা না করে এখান থেকে ওভারব্রিজ সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এ কারণে একই স্থানে বারবার দুর্ঘটনা ঘটছে। আমরা আদনান হত্যার বিচার চাই।

আদনানের বাবা আহসান উল্লাহ টুটুল বলেন, দুর্ঘটনার ২০ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও পুলিশ ঘাতক বাসচালককে আটক করতে পারেনি। আমি ঘাতক চালকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। আর কোনো মেধাবী ছাত্র যেন আমার ছেলের মতো দুর্ঘটনার শিকার না হয় সেই দাবি জানাচ্ছি।

উই ওয়ান্ট জাস্টিস প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে মানববন্ধনে অংশ নেয়া নিউ লাইফ হাই স্কুলের ৪র্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী মো. তানভির হোসেন বলেন, আমরা নিরাপদ সড়ক চাই। স্কুল থেকে নিরাপদে বাসায় ফেরার নিশ্চয়তা চাই।


https://www.jugantor.com/todays-paper/l … 6%A8/print

নিজে শিক্ষিত হলে হবে না- প্রথমে বিবেকটাকে শিক্ষিত করতে হবে

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন খাইরুল (০৪-০৩-২০১৯ ২০:২৪)

Re: আদনান তাসিন হত্যার বিচার চাই !!

আউল লিখেছেন:

#প্রশাসনের কাছে প্রশ্ন, বিচার পেতে যদি আন্দোলনের প্রয়োজন হয় তাহলে বেতন দিয়ে বলদ পোষার কি দরকার?

খাটি কথা।

নামায সবার উপর ফরয করা হয়েছে