টপিকঃ আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

হোটেলে পৌছাতে পৌছাতে  রাত প্রায় নয়টা , কোন রকমে ঝটপট শাওয়ার নিয়েই ছুটলাম রাতের খানা খেতে । আমাদের হোটেল থেকে হাঁটা দূরত্বে বেশ কয়েকটা খাবারের রেস্তোরাঁ , আমরা ঢুকলাম গারুপা তে ।

https://i.imgur.com/xf9QsJ4.jpg

গারুপা এক মাছের নাম এবং সে দেখতে যথেষ্ট বদসুরত কিন্তু  ম্যানেজার বার বার বলছিল এই মাছটা যেন ট্রাই করি ,অগত্যা রাজি হলাম এবং বুঝলাম দেখতে পচা হলেও খেতে অসাধারন মজা । এক কোনে বসে একমনে পিয়ানো বাজাচ্ছিল এক জন আর তাকে ঘিরে কিছু গুণমুগ্ধ শ্রোতা এর ভিড় ।  রেস্তোরাঁ  বেশ জমজমাট আর প্রচুর লোকজন এর ভিড় ।হবেই না কেন মৌসুম টা তো উৎসবের একদিকে ক্রিসমাস আর অন্যদিকে নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর প্রস্তুতি ।

https://i.imgur.com/TQpZ8yE.jpg


এক জন মনোযোগ সহকারে খানা দানার বিউটিফিকেশন করছিল ।


https://i.imgur.com/87dEjEg.jpg


মাছ ছাড়াও আমরা রাইস ,চিকেন ,সূপ আর   ড্রিংকস নিলাম ।

https://i.imgur.com/RLqtYeu.jpg


https://i.imgur.com/k8qqhlb.jpg

পেটপুরে খেয়ে লক্ষ লক্ষ রুপিয়া বিল দিয়ে  হাঁটতে হাঁটতে  ফিরে গেলাম হোটেলে ,রাত এগারটা বাজে প্রায় আর রাস্তাও বেশ সুনশান ।

https://i.imgur.com/3hMSVIH.jpg

ফিরে এলাম হোটেলে ,লবির দোকান টা তখনও খোলা । একবার ঢুঁ মারার লোভ সামলাতে পারলাম না এবং বরাবরের মতই আমার ভাই বিরক্ত হতে হতে চাবি নিয়ে চলে গেল রুমে । কিছুক্ষণ নিচে গপশপ করে আমরাও চললাম ঘুমাতে ।

পরদিন যথারীতি সাত টার একটু পরপরই  নেমে গেলাম নাস্তা খেতে আর আট টার মধ্যে খাবার শেষ করে লবিতে বসে অপেক্ষায় থাকলাম কখন গাড়ি আসবে । আটটায় আসার কথা থাকলেও ড্রাইভার এল  আটটা বিশে । রাগ করব কি হি হি করতে করতে বলল কি জানি হইছিল গাড়ির সেতা ঠিক করতে একটু দেরি হয়ে গেছে । কথা না বাড়িয়ে বেড়িয়ে পরলাম ।

অনেক খানি পথ পেড়িয়ে এসে থামলাম মন্দির কমপ্লেক্স এ ,কিন্তু চারপাশে গাড়ি আর দোকানের মেলা।

https://i.imgur.com/1vBQDkI.jpg

কোথায় টেম্পল জিগ্যেস করতেই ড্রাইভার বলল ঐ গেট পার হয়ে আরও খানিকটা যেতে হবে আমাদের ।  তীব্র রোদে মাথার চাঁদি পুড়ে যাবার অবস্থা ।

https://i.imgur.com/5BWKOkR.jpg

বালির সেই আইকনিক গেট পার হয়ে দেখি রাস্তার দুই পাশে দোকানের সাড়ি ,পরে কিনব আগে মন্দির দেখে আসি এই ভেবে দিলাম হাটা ।

https://i.imgur.com/YvNA35r.jpg

আরও কিছু পথ পেরিয়ে এসে পৌছালাম  আর এক তোরণ এর সামেনে ,সিড়ি বেয়ে উঠার আগেই কানে এসে পৌছাল সাগরের গর্জন ।

https://i.imgur.com/YsYgkmm.jpg

ধীরে ধীরে এগিয়ে যেতেই চোখে পড়ল সাগর ,কেমন উথাল পাথাল ঢেউ। একদল কিশোর কিশোরী আবদার করল ওদের সাথে ছবি তোলার ,মনের আনন্দে ছবি টবি তুলে ছুটলাম সাগর পানে । আহ চোখের সামনে সেই টেম্পল তানাহ লট(Tanah Lot) ।বালিনিজ ভাষায় যার অর্থ সাগরের মাঝে এক টুকরো জমি ( land in the sea) ।

https://i.imgur.com/oid9NfK.jpg
এই মন্দির কে ঘিরে আছে নানারকম উপকথা ,লোককথা । বালিনিজ মাইথোলজিতে এর অনেক অনেক গল্প আছে ।  পূর্ব জাভা থেকে এক উচ্চ পদস্থ প্রিস্ট নিরাথা একবার বালি বেড়াতে আসেন । বালির মনোমুগ্ধকর প্রাকৃতিক রূপ দেখে তিনি অভিভূত হয়ে পড়েন ।তখন তিনি সমুদ্র দেবতা বরুনা /ভারুনা এর সম্মানে এই পাথুরে মন্দির স্থাপন করেন । 

https://i.imgur.com/VloqvCs.jpg

যতই এগিয়ে যাচ্ছি ততই বাতাসের ঝাপটা আর সমুদ্রের গর্জন পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। কি পিচ্ছিল পাথর ,দাঁড়ানোই মুশকিল কিন্তু তাতে কি আর ফটো সেশন থামে? হঠাত  তীব্র ব্যথায় বাঁকা হয়ে গেলাম। যন্ত্রণায় মিখ থেকে অটো চিৎকার বেড়িয়ে এল ।পানিতে ভিজে একাকার সেদিকে খেয়াল নাই শুধু মনে হল কে যেন পিঠের উপর প্রচন্ড জোরে বাড়ি দিল।ঢেউ এর এত্ত শক্তি !! ভাই এর হাত ধরে কোন রকমে পতন ঠেকালাম । আমি সাম্লে উঠতে না উঠতেই সফেন ধপাস । বেচারি বাথা লজ্জায় উঠে দাঁড়ানোর বার্থ চেষ্টা করছে ,ভাই আর কেয়াপু মিলে ওকে দাড় করাল। আশে পাশে দেখি আর ও দুই জন এর এক ই দশা । এর মাঝে পু পু করে বাশি বাজাতে বাজাতে ভলান্টিয়ার এসে  হাজির । সরে যেতে হবে , প্রচন্ড আক্রোশে ফুঁসছে ব্যাটা ভারত মহাসাগর ।

https://i.imgur.com/MU9tg0o.jpg

কি আর করা ওখান থেকে সরে আমরা ঢাল বেয়ে উঠে গেলাম ।
অনেকক্ষণ  দেখলাম কেমন করে সাগরের ঢেউ আছড়ে পড়ছে পাথুরে দেয়ালে .....................

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন অপেক্ষা (১৭-১১-২০১৭ ১৪:০২)

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

আপনার সমুদ্র দেখার অভিজ্ঞতা থেকে আমিও করে নিলাম  সামান্য অভিজ্ঞতা tongue
মেয়েদের সাথে যে ছবি তুললেন,সেটা কই? nailbiting
যে মাছটার পিক দিয়েছেন,সেটাই কি গারুপা মাছ?
মাছ বাদে সুপ আর জুস দেখে জিভে জল চলে এলো বরাবরের মতই love
অনেক সুন্দর হইসে।মন্দিরের তোরণ দ্বারটা বিশাল,আর মূর্তিগুলোও বেশ সুন্দর করে বানানো।
লোককাহিনীটা জেনে ভালো লাগল।আমার আবার গল্প-কাহিনী,লোককথা বেশ ভালো লাগে smile
সুন্দর হয়েছে পিকগুলো thumbs_up

অ.টো: সাগরের নোনা জলে ভিজবার অভিজ্ঞতাটা চরম হইসে মনে হয় lol

ডিজিটাল বাংলাদেশে ত আর সাক্ষরের নিয়ম চালু নাই।সবটায় দেখি বায়োমেট্রিক।তাই আর সাক্ষর দিতে পারলাম না।দুঃখিত।

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

কতদিন কোথাও যাইনা....জগৎ সংসার ফেলে কোথাও হারিয়ে যেতে ইচ্ছে করে!!

বেদনাদায়ি, তবুও দিনান্তে যে তোমায় ভালবাসি!

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

যতই দেখি তত্রই লোভ যাগে। বুঝতে পারি আমি বেশ লুভী মানুষ।  dream

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

পোস্টা দেখে মন ভাল হয়েগেল ।
ধন্যবাদ

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

sudiptabiswas লিখেছেন:

পোস্টা দেখে মন ভাল হয়েগেল ।
ধন্যবাদ

sudiptabiswas লিখেছেন:

পোস্টা দেখে মন ভাল হয়েগেল ।
ধন্যবাদ

ami ai web a notun tai bujhte somoy lagce

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

lol

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

অপেক্ষা লিখেছেন:

আপনার সমুদ্র দেখার অভিজ্ঞতা থেকে আমিও করে নিলাম  সামান্য অভিজ্ঞতা tongue
মেয়েদের সাথে যে ছবি তুললেন,সেটা কই? nailbiting
যে মাছটার পিক দিয়েছেন,সেটাই কি গারুপা মাছ?
মাছ বাদে সুপ আর জুস দেখে জিভে জল চলে এলো বরাবরের মতই love
অনেক সুন্দর হইসে।মন্দিরের তোরণ দ্বারটা বিশাল,আর মূর্তিগুলোও বেশ সুন্দর করে বানানো।
লোককাহিনীটা জেনে ভালো লাগল।আমার আবার গল্প-কাহিনী,লোককথা বেশ ভালো লাগে smile
সুন্দর হয়েছে পিকগুলো thumbs_up

অ.টো: সাগরের নোনা জলে ভিজবার অভিজ্ঞতাটা চরম হইসে মনে হয় lol

মেয়েদের সাথে ছবি আমার কাছে আছে  big_smile big_smile
এটাই গারুপা মাছ ...বেশ মজা

আর নোনা জলে ভিজলাম কই খাইলাম তো জলের ধাক্কা  sad sad

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

অংকিতা লিখেছেন:

কতদিন কোথাও যাইনা....জগৎ সংসার ফেলে কোথাও হারিয়ে যেতে ইচ্ছে করে!!

আমার ও প্রায় ই ঘুরতে যেতে মন চায় দূর থেকে দূরে .........।।

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১০

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

যতই দেখি তত্রই লোভ যাগে। বুঝতে পারি আমি বেশ লুভী মানুষ।  dream


সে আমরা জানি  smile smile আর ইয়ে এ ক্ষেত্রে আমিও একজন লোভী .........

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১১

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

hossainsarwar94 লিখেছেন:
sudiptabiswas লিখেছেন:

পোস্টা দেখে মন ভাল হয়েগেল ।
ধন্যবাদ

sudiptabiswas লিখেছেন:

পোস্টা দেখে মন ভাল হয়েগেল ।
ধন্যবাদ

ami ai web a notun tai bujhte somoy lagce

দুজনকেই ধন্যবাদ  smile

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১২

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। গারুপা মাছটা খেয়ে দেখার ইচ্ছা হচ্ছে।

www.visa2malaysia.com provides assistance for Malaysia Tourist Visa, Malaysia Visa Online Apply, Malaysia eVisa and Malaysia eNTRI from India, Pakistan, Bangladesh, Sri Lanka and China.

১৩

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

visa2malaysia লিখেছেন:

আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। গারুপা মাছটা খেয়ে দেখার ইচ্ছা হচ্ছে।

আপনাকেও ধন্যবাদ চমৎকার মন্তব্যর জন্য ।

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১৪

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

আমিও পড়ে ফেল্লুম। গারুপা মাছটা খাওয়ার বেশ শখ হল  big_smile

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৫

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

উদাসীন লিখেছেন:

আমিও পড়ে ফেল্লুম। গারুপা মাছটা খাওয়ার বেশ শখ হল  big_smile

ধন্যবাদ ।মাছটা আসলেই বেশ মজার ।

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১৬

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

এই গাপ্পু ফাপ্পু খাওয়ার শখ নাই! তবে জুস টা খাওয়ার শখ আছে!  tongue_smile tongue_smile tongue_smile

১৭

Re: আগ্নেয় দ্বীপ বালি ( পর্ব #৫)

Jol Kona লিখেছেন:

এই গাপ্পু ফাপ্পু খাওয়ার শখ নাই! তবে জুস টা খাওয়ার শখ আছে!  tongue_smile tongue_smile tongue_smile


হুম তাই খেও না হয়  smile smile

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো