সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আউল (১৩-০৪-২০১৮ ১২:৩৪)

টপিকঃ গার্মেন্টস কর্মচারী !!

প্রথম আলোর সংবাদটির প্রতিবেদন ও শেষাংশর পাঠক মন্তব্য গুলোই প্রমান করে বাংলাদেশে গার্মেন্টস শ্রমিকরা কতটা অবহেলিত, নির্যাতিত ????

সর্বশেষ ২০১৩ সালের ১ ডিসেম্বরে তৈরি পোশাকশিল্পে নিম্নতম মজুরি ৫ হাজার ৩০০ কার্যকর হয়। এর মধ্যে মূল মজুরি ৩ হাজার টাকা, বাড়ি ভাড়া ১ হাজার ২০০ টাকা এবং চিকিৎসা, যাতায়াত ও খাদ্য ভাতা ১ হাজার ১০০ টাকা। ????☺

ওই বছরের ডিসেম্বরের আগে পোশাকশ্রমিকদের নিম্নতম মজুরি ছিল ৩ হাজার টাকা। একেকটি মজুরিকাঠামো পাঁচ বছরের জন্য গঠন করা হয়।

এক শ্রমিক মন্তব্য করেছেন, সাবাস বাংলাদেশ সাবাস মূল বেতন ৩০০০ টাকা (যে সময় একটি সাধারণ রুম ভাড়া ২৫০০ টাকা), খাদ্যভাতা ১ হাজার ১০০ টাকা (যে সময় চালের দাম প্রতি কেজি ৪২ টাকা)। তার চেয়ে বরং ধনকুবেরা বাড়ি বানাবে আর সরকার চালের দাম বাড়াবে, বেতন বাড়ানোর দরকার নেই। সাধারণ ব্যাচেলরের কি এ দিয়ে এক মাস চলে ? সংসারীরা সংসার চালাবে কি করে ?

প্রতিবেদনে বিশ্বের সাতটি প্রধান পোশাক তৈরিকারক দেশের ন্যূনতম ও বসবাসের জন্য শোভন মজুরির চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। বাংলাদেশ ছাড়াও আছে ভারত, চীন, শ্রীলঙ্কা, মালয়েশিয়া, কম্বোডিয়া ও ইন্দোনেশিয়া। দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের শ্রমিকেরা সবচেয়ে কম মজুরি পান। বাংলাদেশে বসবাসের জন্য শোভন মজুরি প্রয়োজন ২৫২ মার্কিন ডলারের সমান অর্থ। এর বিপরীতে বাংলাদেশের একজন শ্রমিক পান ৫০ ডলার। ভারত ও শ্রীলঙ্কার শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ৫০ ডলার। তবে ভারতে শোভন জীবনযাপনের জন্য ২০০ ডলার এবং শ্রীলঙ্কায় ২৫০ ডলারের বেশি অর্থ দরকার হয়।

http://www.prothomalo.com/economy/artic … 5%E0%A6%AE

নিজে শিক্ষিত হলে হবে না- প্রথমে বিবেকটাকে শিক্ষিত করতে হবে