টপিকঃ পলি ঢাকা শুরা

পলি ঢাকা শুরা
গিনি
কিরমানি অতিত অনুসধানি।
হিমালয়ের তিব্বত অঞ্চলে মাটি খুঁড়া চলছে। কি আচমকা ধাতুর ঠন ঠন শব্দ হয়।অতি সাবধানে ছোট খুন্তি দিয়ে তুলে আনা হয় , কারুকাজ করা পান পাত্র।
এলাকাটি পুরাতন রাজার খাস এলাকা বলে চিনহিত। পান পাত্রটি সযত্নে তাবুতে এনে রাখে। রাতের হাল্কা হারিকেনের আলোয় পান পাত্রটি তে নজর যায়। তার মনে হয় আজ একটু রাজার মত হলে কেমন হয়?
পান পাত্রে একটু জল ঢেলে পান করা শুরু করে। মণিমুক্তা খচানো পাত্রটি হাঁতে সত্যই রাজা মনে হয়। একটু পরে শরীরটা কেমন যেন হিম হতে থাকে। অনেক টা অচেতন হয়। সম্মুখে দেখে রাজা স্বয়ং। সবুজ সিল্কের জামা। স্বর্ণের কাজ সারাটা জুরে। মাথায় বড় মুকুট। কোমরে তলোয়ার আর বাকা চাকুর খোল দেখা যায়।
রাজা বলে," ঐ পাত্রটি তে করে শিশুর রক্ত পান করতাম শরীরে শক্তি বর্ধনের জন্য।আমি তখন তোমার মত অচেতন থাকতাম। আমি রাজা দশ জনের সাথে একাই লরতাম। যখন তখন আক্রমণ ছিল সারাক্ষন। চারি দিকে শ্ত্রু। পেয়াদাদের আদেশ ছিল নব জাত শিশু জগার করার জন্য। তারপর ঐ শিশু আমার সামনেই রক্ত নিতে হবে নইলে ভরসা নাই ওরা অন্য রক্ত খাইয়ে দিবে। যারা ঠকানোর চেষ্টা করেছে তারা মরেছে। নিজ হাতে গলা কেটে দিয়েছি। ওই রক্ত খাওয়ার পর আমার ঘুম। তুমি পুরাতন দিন খুজে বেড়াও, বল আর কি জানতে চাও, আজ সব সব বলে দিব । কারন তুমি ভাবো যে রাজা হওয়া কত মজার আর সুখের। তোমার কি জান বাচানোর চিন্তা সারাক্ষন থাকে যেমন এক রাজার থাকে? পুরাতন কে খুজে আবার ফেরত আনতে চাও। তাদের দিন শেষ বলেই মাটির নীচে গেছে।"
কিরমানি পরের দিন ভোরেই ঘরে ফেরার জন্য রওয়ানা দেয়।