টপিকঃ ভিন নাওয়ের মাঝি

ভিন নাওয়ের মাঝি
গিনি্

রতন এখন সাংবাদিক। ২৫ বছর পূর্বে তার পিতার মৃত্যুর কবর দেওয়ার সময় যে দারোয়ান দেখে ছিল কবরস্থানের গেটে আজ তার খেয়াল হল যেন সেই জনই , কিন্তু মুখ ভরা দাঁড়ি। তার মনে হল একটু আলাপ করা যাক। এইতো এতো বৎসর সকল আপন জনের মর দেহের সাথে থাকে আর রক্ষা করে। জানা যাক তার জীবন।

রতনের বর্ণনা অনুযায়ী প্রথমে একটু ভয় হত। কিন্ত ওরা কথা শুনে। মাঝে মাঝে তাকে টেনে তুলে। আবার যেতে বললে কবরে গিয়ে শুয়ে যায়। দিনেও অনেক সময় বের হয়। কিছু আছে তাদের দুঃখের কথা বলে। বলে আর কিছুদিন পেলে ভুল গুলা ঠিক করতো।
কত জনের এমন দুরগ্নদ্ধ লাঠি দিয়ে তারাতে হয়।তাকে জিজ্ঞাস করে তুই কেন পাহারা দিস ওরা নাকি এমনিতেই বাঁধা বেশী দূর যাওয়ার অনুমতি নাই। মাঝে মাঝে জোর করে চল সাথে চল।

সব শেষে রতন বলে এ গুলা হয় কিন্তু আমি বিশ্বস কড়ি না। মনে হয় এ গুলা আমার মনের ভিতরেই হয়। এই রকম একটা থম থম পরিবেশের জন্য। ছুটিতে দেশে গেলে ওরা আমার কাছে আসে না বলে আমি নাকি সারা রাত কার সাথে কথা বলি। আমি ত বলি না!